Logo
শিরোনাম

অর্থনীতিকে বৈচিত্র্যময় করতে শতকোটি ডলার বিনিয়োগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জ্বালানি তেল নির্ভরশীলতা কমিয়ে অর্থনীতিকে বৈচিত্র্যময় করতে আগ্রহী সৌদি প্রধানমন্ত্রী যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। তার ভিশন ২০৩০ পরিকল্পনায় জোর দেয়া হয়েছে প্রযুক্তি ও স্টার্টআপ ব্যবসার দিকে। ফলে সৌদি আরব ঘিরে মনোযোগী হয়ে উঠছে স্টার্টআপ বিনিয়োগকারীরা। ম্যাগনিটের উপাত্তে দেখা গেছে, ২০২২ সালে প্রায় শতকোটি ডলার বিনিয়োগ পেয়েছে স্টার্টআপগুলো। পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় যা ৭২ শতাংশ বেড়েছে।

স্টার্টআপ ডাটা সরবরাহকারী প্লাটফর্ম ম্যাগনিটের ভেঞ্চার ক্যাপিটাল রিপোর্টে দেখা গেছে, গত বছর সৌদি স্টার্টআপগুলো ১৪৪টি চুক্তিতে ৯৮ কোটি ৭০ লাখ ডলার বিনিয়োগ পেয়েছে। একই সময়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) সর্বোচ্চ ১১৯ কোটি ডলার বিনিয়োগ পেয়েছে। আরব বিশ্বে তৃতীয় সর্বোচ্চ ৫১ কোটি ৭০ লাখ ডলার বিনিয়োগ পেয়েছে মিসর। ধারাবাহিকতায় গত বছর দেশটির স্টার্টআপ তহবিল বেড়েছে ৭২ শতাংশ, অর্থের অংকে যার পরিমাণ ৯৮ কোটি ৭ লাখ ডলার।

ম্যাগনিটের প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়, মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকা (মেনা) অঞ্চলে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল লেনদেনের ক্ষেত্রে আরব বিশ্ব তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে সৌদি। সংস্থাটির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী ফিলিপ বাহোশি বলেন, ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ইকোসিস্টেম মেনা অঞ্চলের বাজারগুলোর অর্থনৈতিক মন্দার প্রভাব দেখেনি। যদি আমরা তৃতীয় প্রান্তিকের দিকে তাকাই, তাহলে অন্যান্য উদীয়মান বাজারের মতো একই প্রবণতা দেখি বছরের পর বছর ধরে। আমরা দেখি তহবিল ও লেনদেন ধীরে ধীরে পিছিয়ে যাচ্ছে। এ সত্ত্বেও সৌদি ভিশন ২০৩০-এর লক্ষ্যমাত্রা অনুসারে বিনিয়োগ আর্কষণের জন্য জোরালো প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

জ্বালানি তেলের ওপর নির্ভরশীলতা কমানোর পাশাপাশি অর্থনীতিকে বৈচিত্র্যময় করা, চাকরির বাজার সম্প্রসারণ এবং দক্ষতাসম্পন্ন মেধাবীদের আকর্ষণ করতে সৌদি আরব তাদের স্টার্টআপসহ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতগুলোকে সম্প্রসারণ করতে মনোযোগী। সৌদি ভিশন ২০৩০ পরিকল্পনার শক্তিশালী স্তম্ভ হিসেবে প্রযুক্তিকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। দেশের অর্থনীতিতে বৈচিত্র্যময়তার সন্নিবেশ ঘটিয়ে তেলের ওপর নির্ভরতা কমানোর বিষয়টি মূলত সৌদি আরবের জাতীয় কৌশলের অংশ হিসেবেই গৃহীত। তাই রিয়াদ উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করছে এবং খাতটির উন্নয়ন ও সম্প্রসারণে দেশী ও বিদেশী উভয় প্রতিষ্ঠানের থেকে বিনিয়োগ চাইছে।

ম্যাগনিটের তথ্যানুসারে, সৌদি আরব ঘিরে গত বছর বিনিয়োগকারীদের পছন্দের খাত ছিল ফিনটেক। এ খাতে চুক্তির সংখ্যা ২৮টি, অর্থের অংকে এ পরিমাণ ২৩ কোটি ৯ লাখ ডলার, যা মোট বিনিয়োগের ২৪ শতাংশ। স্টার্টআপের পর দ্বিতীয় বৃহত্তম বিনিয়োগ গিয়েছে সৌদির খাদ্য ও পরিষেবা খাতের ঘরে, অর্থায়নের পরিমাণ ১৮ কোটি ৭৫ লাখ। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে পরিবহন ও লজিস্টিকস। এ খাতে বিনিয়োগ এসেছে ১৮ কোটি ডলার। বিশ্বের শীর্ষ তেল রফতানিকারক দেশটি গত বছর খাদ্য ও পানীয়ভিত্তিক স্টার্টআপ ফুডিকস, ফিনটেক তামারা এবং পরিবহন ও লজিস্টিক স্টার্টআপ ট্রুকারের সঙ্গে চুক্তি করে। এ তিন মেগা চুক্তির মূল্য ১০ কোটি ডলারেরও বেশি। প্রতিবেদনে যোগ করা হয়েছে, মূলত তিনটি মেগা চুক্তিই ৩৭ শতাংশ বৃদ্ধির জন্য দায়ী।

২০২২ সালে রেকর্ড ১০৪ জন বিনিয়োগকারী সৌদি আরবের স্টার্টআপ ব্যবসাগুলোয় বিনিয়োগ করে। ফলে এ খাতে বার্ষিক বিনিয়োগ ৩০ শতাংশ বাড়ে। যদিও বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ৭৯ শতাংশই সৌদি আরবের ছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: সৌদি আরব

আরও খবর



বছরের শুরুতে দক্ষিণ কোরিয়ার রফতানি আয়ে ধাক্কা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নতুন বছরের শুরুতে জানুয়ারির প্রথম ২০ দিনে গত বছরের তুলনায় দক্ষিণ কোরিয়ায় রফতানি কমেছে ২ দশমিক ৭ শতাংশ। কিন্তু এ রফতানি প্রবৃদ্ধি অবনমনের গতি গত ডিসেম্বরে রফতানি আয়ের প্রবৃদ্ধির যে গতি রেকর্ড করা হয়েছিল, তার চেয়ে কম রয়েছে। দেশটির কাস্টমস বিভাগ এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

ডিসেম্বরের প্রথম ২০ দিনে দক্ষিণ কোরিয়ার রফতানি কমে ৯ শতাংশ এবং পুরো মাসে তা গিয়ে দাঁড়ায় ৯ দশমিক ৬ শতাংশে। বিশ্বব্যাপী অব্যাহত অস্থির মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন দেশের কঠোর নীতির ফলে বৈশ্বিক চাহিদা কমে যায়, আর তার প্রভাব পড়ে দেশটির রফতানি আয়ে।

দক্ষিণ কোরিয়ার কাস্টমস বিভাগের তথ্যানুযায়ী, চলতি জানুয়ারির প্রথম ২০ দিনে চীনে রফতানি কমেছে ২৪ দশমিক ৪ শতাংশ, উপরন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চালান বেড়েছে ১৮ দশমিক ১ শতাংশ। অন্যদিকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত বছরে দক্ষিণ কোরিয়ায় আমদানি বেড়েছে ৯ দশমিক ৩ শতাংশ, যা এ সময়ের মধ্যে দেশটির বাণিজ্য ঘাটতি ১০ দশমিক ২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে নিয়ে গেছে। ডিসেম্বরে বাণিজ্য ঘাটতি ছিল ৪ দশমিক ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

২০২২ সালে রফতানিতে ৬ দশমিক ১ শতাংশ লাভের পর চলতি বছরের জানুয়ারিতে এসে তা ৪ দশমিক ৫ শতাংশে হ্রাস বলে ধারণা করেছিল দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার। কিন্তু দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয় রফতানি প্রবৃদ্ধি অর্জনে সর্বোচ্চ চেষ্টা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: দক্ষিণ কোরিয়া

আরও খবর



বিশ্বে করোনায় কমেছে মৃত্যু ও শনাক্ত

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বব্যাপী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৭৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা আগের দিনের তুলনায় কমেছে দেড় শতাধিক। এ সময়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ২৪ হাজার ৪৬৩ জন। যা আগের দিনের তুলনায় কমেছে ৬৫ হাজারের বেশি। আর সুস্থ্য হয়েছেন ৯৮ হাজার ৬৫৭ জন। সোমবার (৯ জানুয়ারি) সকালে করোনাভাইরাস হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে জাপানে। এ সময় দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯০ হাজার ৫৩৮ জন এবং মারা গেছেন ৪০৭ জন।

এ ছাড়া, যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ হাজার ৫২৬ জন এবং মারা গেছেন ৮ জন। দক্ষিণ কোরিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৬ হাজার ৭৬৬ জন এবং মারা গেছেন ৩৪ জন। ব্রাজিলে মারা গেছেন ৯ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৬৬৫ জন। রাশিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ১২৭ জন এবং মারা গেছেন ৪৫ জন। মেক্সিকোতে আক্রান্ত হয়েছেন ১১ হাজার ৭৭৮ জন এবং মারা গেছেন ৫১ জন। তাইওয়ানে আক্রান্ত হয়েছেন ২৩ হাজার ৪১১ জন এবং মারা গেছেন ৩৬ জন। হংকংয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ হাজার ১১৩ জন এবং মারা গেছেন ৬৬ জন।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৬ কোটি ৮৬ লাখ ৪২ হাজার ৫০ জন। এরমধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৬৭ লাখ ১৩ হাজার ৬৪৫ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৬৩ কোটি ৯৯ লাখ ৬৮ হাজার ৯৭৬ জন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে।


আরও খবর



গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির পূর্বাভাস, বাড়বে রাতের তাপমাত্রা

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ১১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশের আট বিভাগেই দু-একটি স্থানে হালকা বা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। একই সঙ্গে বাড়তে পারে রাতের তাপমাত্রাও। কুয়াশার দাপটও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বা রাতের তাপমাত্রা বেড়েছে। তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় অনেক অঞ্চল থেকে শৈত্যপ্রবাহ দূর হয়েছে। আগামীকাল রোববার শৈত্যপ্রবাহ আরও কমে যেতে পারে।

আজ সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়, যা চলতি শীত মৌসুমে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কম সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। শুক্রবার ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শনিবার তা বেড়ে হয়েছে ১৪ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

শুক্রবার ফরিদপুর, মাদারীপুর, মানিকগঞ্জ, মৌলভীবাজার, কুমিল্লা, ফেনী, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, কুষ্টিয়া, বরিশাল ও ভোলা এবং রাজশাহী এবং রংপুর বিভাগের ১৬ জেলাসহ ২৭ জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছিল।

আবহাওয়াবিদ মো. হাফিজুর রহমান সকালে জানান, নঁওগা ও মৌলভীবাজার এবং রংপুর বিভাগের ৮ জেলাসহ মোট ১০ জেলার ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা কিছু কিছু এলাকা থেকে প্রশমিত হতে পারে।

আজ সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাস তুলে ধরে হাফিজুর রহমান বলেন, আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। তবে খুলনা, রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু-একটি স্থানে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের নদী অববাহিকা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা এবং দেশের অন্যত্র হালকা থেকে মাঝারি ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে এবং এটি কোথাও কোথাও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। এ সময়ে সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং কমতে পারে দিনের তাপমাত্রা।


আরও খবর

কড়াইয়ের গরম তেলে পড়ে শিশুর মৃত্যু

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩




কারাগারে গুরুতর অসুস্থ রিজভী, জানালেন স্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। সোমবার দুপুর থেকেই রিজভী অসুস্থ বলে জানান তার স্ত্রী আঞ্জুমান আরা আইভী।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় তিনি জানান, রুহুল কবির রিজভী কারাগারে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। সোমবার দুপুরে তিনি প্রচণ্ড পেটে ব্যথা অনুভব করেন। সঙ্গে বমিও হয়েছে। পরে তাকে করাগারের ভেতরে কারা হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে জেনেছি।

আঞ্জুমান আরা আইভী বলেন, আমি গতকাল সোমবার কারাগেটে গিয়েছিলাম কিছু বই দিতে। সে সময় কিছুই জানতে পারিনি।

রিজভীর স্ত্রী আরও বলেন, স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় রুহুল কবির রিজভী পেটে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হয়ছিলেন। তখন দেশে ও পরে বিদেশে তার পেটে অস্ত্রোপচার হয়। এরপর মাঝেমধ্যে তার পেটে সমস্যা হতো। সেই থেকে প্রায় ত্রিশ বছর ধরে রিজভী হাতের স্পর্শে খাবার খান না। খোলা পানিও খান না। চিকিৎসকের পরামর্শে বোতলজাত পানি পান করতে হয় রিজভীকে। কারাগারে পানির বোতল পাঠিয়েছি। কিন্তু রিজভীকে খেতে দেওয়া হচ্ছে কিনা তা জানি না।

অনতিবিলম্বে রুহুল কবির রিজভীকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে উন্নত ও সুচিকিৎসার দাবি জানান তার স্ত্রী আঞ্জুমান আরা।

মহামারি করেনার সময়ও রিজভী করোনা ভাইরাসে দুই বার আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘ চার মাস রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। সেই থেকে চিকিৎসকের কঠোর নির্দেশনা মেনে জীবন-যাপন করতে হয় তাকে।

গত ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশকে ঘিরে ৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ওই দিনই বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে প্রায় সাড়ে চারশতাধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। সেদিন রুহুল কবির রিজভীকেও আটক করে কারাগারে নেওয়া হয়। সম্প্রতি তাকে বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।


আরও খবর



বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ধাক্কা দেশেও : পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ধাক্কা বাংলাদেশেও লেগেছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, বড় বড় অর্থনীতি সংকটের মধ্যে পড়েছে। তুলনামূলক ছোট অর্থনীতির দেশ হিসেবে বৈশ্বিক বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবিলা করে টিকে থাকার চেষ্টা করছে বাংলাদেশ। আশা করি আমরা বড় ধরনের ক্ষতি ছাড়াই পরিস্থিতি শামাল দিতে পারব।

আজ শনিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তথ্যভিত্তিক গ্রন্থ ব্যাংকিং অ্যালমানাকর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নিয়ম-নীতি তৈরির কাজটি জবাবদিহিতার আওতায় আনা দরকার। দেশের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন তথ্য নিয়ে যে দ্বিধা ও বিঘ্ন সৃষ্টি হয়েছে তা নিরসনে ব্যাংকিং অ্যালমানাক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

দেশের রিয়েল (প্রকৃত) অর্থনীতির জন্য প্রকৃত তথ্য খুব প্রয়োজন উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাজারে অনেক তথ্যই পাওয়া যায়, কিন্তু তথ্যের দ্বিধা ও বিঘ্ন দূর করতে প্রকৃত তথ্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ব্যাংকিং অ্যালমানাক সেই কাজটিই করছে।

হোসেন জিল্লুর রহমান আরও বলেন, অর্থনীতি নিয়ে বক্তব্য দেওয়ার সময় সঠিক চিত্র উঠে আসছে না। এজন্য সব আলোচনার আগে প্রকৃত শব্দটি যোগ করার প্রয়োজন। ব্যাংকিংয়ের কথা বলি, প্রবৃদ্ধির কথা বলি, দারিদ্র্যের কথা বলি- প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে এখন প্রকৃত শব্দটা জরুরি হয়ে পড়েছে।

তিনি ফুটপাতে ছিন্নমূল মানুষের চিত্র তুলে ধরে বলেন, এই চিত্র আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছে দারিদ্র্যের সংখ্যা বেড়েছে, প্রকৃত অবস্থা কী। এখানে অর্থনৈতিক অনেক বিষয় চলে আসে। এ ছাড়া ব্যাংকের আমানতে ও ঋণ বিতরণে ৯ ও ৬ শতাংশ সুদ হার নিয়ে যা হচ্ছে তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও ব্যাংকিং অ্যালমানাক গ্রন্থের এডিটোরিয়াল বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. সালেহউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেনঅ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমানুল্লাহ, বিএলএফসির (বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশন) সাবেক চেয়ারম্যান মো. খলিলুর রহমান, ব্যাংকিং আ্যালমানাকের নির্বাহী সম্পাদক সৈয়দ জিয়াউদ্দিন আহমেদ এবং ব্যাংকিং অ্যালমানাকের প্রকল্প পরিচালক আবদার রহমান।

ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ আর্থিক খাত নিয়ে গৃহীত সব কর্মকাণ্ড প্রকাশ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, সবকিছু প্রকাশ্যে আনলে কিছুটা আলোচনা হলেও তার বিপদ কেটে যাবে। আর গোপন রাখলে তো আরও সমস্যা বাড়বে।


আরও খবর