Logo
শিরোনাম

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে দেখা দিয়েছে দীর্ঘ যানজট

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঈদুল আজহা উদযাপনে, ঘরে ফেরাকে কেন্দ্র করে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে দেখা দিয়েছে দীর্ঘ যানজট। পারের অপেক্ষায় দুই হাজারেরও বেশি যানবাহন।

শনিবার (১৭ জুলাই) ভোরে সরেজমিনে দেখা গেছে, মানিকগঞ্জ থেকে পাটুরিয়া ঘাটে অন্তত দুই হাজারেরও বেশি যানবাহন পারের অপেক্ষায় আছে। সাধারণ যাত্রীরা পড়েছেন চরম ভোগান্তিতে।

ঘাট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ঈদে ঘরে ফেরা মানুষের ভিড় পড়েছে। এতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়ার ঘাট এলাকায় যানবাহনের ৪ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ সারি দেখা দিয়েছে। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তা আরও বাড়ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন যাত্রীরা।

এদিকে, যানজট নিরসনে কাজ করছে হাইওয়ে পুলিশ। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা-কাজির হাট নৌরুটে ১৮টি ফেরি চলাচল করছে বলে জানা গেছে।

ঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাম মিয়া জানান, যানবাহনের চাপের কথা চিন্তা করে সবগুলো ফেরি পরিচালনা করা হচ্ছে। কর্মচারী ও কর্মকর্তারা অতিরিক্ত সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। পরিবহন এবং ছোট ও জরুরি যানবাহনকে অগ্রাধিকার দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



মেসিকে অদ্ভুত প্রস্তাব দিয়েছে ব্রাজিলের অখ্যাত ক্লাব

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৮৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কোপা আমেরিকার শিরোপার নেশায় যখন বুঁদ লিওনেল মেসি, তখন স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা থেকে মুক্ত হয়ে গেছেন তিনি।

বার্সার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছে আর্জেন্টাইন তারকার। অর্থাৎ ফ্রি এজেন্ট হয়ে গেছেন তিনি। ১ জুলাই থেকে কোনো ট্রান্সফার ফি ছাড়াই মেসিকে দলে নিতে পারবে যে কোনো দল।

আর সেই সুযোগে মেসিকে অদ্ভুত সব শর্ত রেখে প্রস্তাব দিয়েছে ব্রাজিলের একটি অখ্যাত ক্লাব, নাম ইবিজ স্পোটর্স ক্লাব। ক্লাবটিকে বিশ্বের সবচেয়ে বাজে ক্লাব বলা হয়। কারণ টানা প্রায় চার বছর কোনো ম্যাচই জেতেনি তারা।

আর এমন বাজে ক্লাব মেসিকে প্রস্তাব দিল তাদের দলে ভেড়ার।

নিজেদের টুইটার পেজে ছয়টি হাস্যকর শর্ত রেখে মেসিকে প্রস্তাব দিয়েছে গিনেস বুকে হারের বিশ্বরেকর্ড তোলা ইবিজ স্পোটর্স ক্লাব।

নিজেদের অফিসিয়াল টুইটার পেজে তারা লিখেছেন- আজ (বুধবার) বার্সার সঙ্গে মেসির চুক্তির শেষ দিন। আগামীকাল থেকে নতুন ক্লাবে যুক্ত হবেন মেসি। স্বাক্ষর করুন, মেসি।

পোস্টের সঙ্গে একটি চুক্তিপত্রের ছবি সংযোজন করেছে ইবিস স্পোর্ট ক্লাব। যেখানে ছয়টি অদ্ভুত প্রস্তাব লেখা রয়েছে।

প্রথমটি হলো- মেসির সঙ্গে চুক্তিটি হবে ১৫ বছরের, যা শুরু হবে ১ জুলাই থেকে। মেসির পারিশ্রমিক হবে ক্লাবের আয়ের ওপর ভিত্তিতে।

দ্বিতীয়ত ক্লাবের হয়ে বেশি বেশি গোল করতে পারবেন না মেসি। চ্যাম্পিয়ন হওয়াও যাবে না। এতে ইবিস স্পোর্ট ক্লাবের পরাজয়ের বিশেষ ঐতিহ্যক্ষুণ্ন হবে।

তৃতীয়ত ইবিস স্পোর্ট ক্লাবে বার্সেলোনার মতো ১০ নম্বর জার্সি পরতে পারবেন না মেসি। কারণ ইবিসে ১০ নম্বর জার্সি পরে খেলতেন মাউরো শাম্পু। যিনি ১৯৮৭ থেকে ১৯৯৫ পর্যন্ত খেললেও, কোনো গোল করেননি। তার সম্মানে সেই জার্সি আর কাউকে দেওয়া হবে না।


আরও খবর



সিনোফার্মের কাছ থেকে খুব কম দামে টিকা মিলবে : অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের অধীন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কেন্দ্রীয় ঔষধাগার চীনা প্রতিষ্ঠান সিনোফার্মের কাছ থেকে খুব কম দামে ১৫ মিলিয়ন টিকা (দেড় কোটি) কিনবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বুধবার (১৪ জুলাই) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা শেষে এ কথা জানান তিনি। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামলের সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়ালি অনুষ্ঠিত সভায় অংশ নেন কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সভা শেষে অনুমোদিত প্রকল্পগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব। চীনা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে চুক্তিবদ্ধ ১৫ মিলিয়ন ডোজের মধ্যে ২ মিলিয়ন উপহার হিসেবে দিয়েছে চীন।

বাকি ১৩ মিলিয়ন ডোজ এবং নতুন প্রস্তাবিত ২ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিনসহ মোট ১৫ মিলিয়ন ডোজ পূর্বের চুক্তিপত্রের উল্লিখিত মূল্যের চেয়ে কম মূল্যে সিনোফার্ম ভ্যাকসিন সাপ্লিমেন্ট এগ্রিমেন্ট-১ এর আওতায় সরবরাহ এবং কোভিড-১৯ মোকাবিলায় জরুরি প্রয়োজন মেটানোর জন্য ১৫ মিলিয়ন ডোজের অতিরিক্ত ভ্যাকসিন সরবরাহের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, আপনারা নিশ্চিত থাকেন খুব কম মূল্যে চীনের কাছ থেকে ১৫ মিলিয়ন টিকা মিলবে। কেমন মূল্যে টিকা কেনা হবে জানতে চাইলে মুস্তফা কামাল বলেন, আগের চেয়ে কম দামে কেনা হবে।

তবে টেকনিক্যাল কারণে নির্দিষ্টভাবে কিছু বলা যাবে না। এর আগে এসব কারণে দেরি হয়েছিল। তবে আপনারা নির্দিষ্ট করে কিছু জানতে চাইলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে তথ্য নিতে পারেন।


আরও খবর



আফগানদের নিজেদের ভবিষ্যতের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বললেন বাইডেন

প্রকাশিত:শনিবার ২৬ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৯২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের নাগরিকদের নিজ দেশের ভবিষ্যতের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

হোয়াইট হাউজে শুক্রবার বাইডেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি এবং তার সাবেক রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমানে আফগানিস্তানের হাই কাউন্সিল ফর ন্যাশনাল রিকনসিলেশনের প্রধান আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ।

আফগানিস্তানে অভিযান এবং যুদ্ধের ২০ বছর পর সম্প্রতি দেশটি থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহার শুরু সঙ্গে সঙ্গে আফগানিস্তানে তালেবানের দৌরাত্ম বেড়ে গেছে। তারা একের পর এক জেলা ও নগরীর দখল নিচ্ছে। তাদের সামলাতে রীতিমত হিমশিম থেকে হচ্ছে আফগান সেনাদের।

ওভাল অফিসে শুক্রবার ঘানি ও আব্দুল্লাহর পাশে বসে তাদের দুই পুরানো বন্ধু বলে সম্বোধন করেন বাইডেন। বাইডেন বলেন, সেনা প্রত্যাহার করে নিলেও আফগানিস্তানের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থন শেষ হয়ে যাবে না বরং আরো টেকসই ভাবে থাকবে

তিনি বলেন, ‘‘আফগানিস্তানের নাগরিকরা নিজেদের ভবিষ্যতের বিষয়ে নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে, তারা কী চায়। অর্থহীন এই সহিংসতাকে অবশ্যই থামাতে হবে।

বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে আফগান প্রেসিডেন্ট ঘানি জানান, তালেবানরা সম্প্রতি যেসব জেলার দখল নিয়েছে তার মধ্যে ছয়টি জেলা পুনঃদখল করেছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী।

তিনি বলেন, ‘‘আমি প্রেসিডেন্ট বাইডেনের সিদ্ধান্তকে সম্মান করি। যুক্তরাষ্ট্র এবং আফগানিস্তানের মধ্যে অংশীদারিত্ব নতুন যুগে প্রবেশ করছে।

‘‘আমরা ঐক্য এবং সংহতি ধরে রাখতে বদ্ধপরিকর। যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত একান্তই তাদের নিজস্ব এবং কাবুলের দায়িত্ব এর ফলে উদ্ভূত পরিস্থিতির সামাল দেওয়া।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া আলাদা একটি সাক্ষাৎকারে আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ বলেন, যতক্ষন পর্যন্ত বিদ্রোহীরা নিজেদের সরিয়ে না নিচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত আফগানিস্তানে কয়েক দশকের বিরোধের রাজনৈতিক সমাধানের বিষয়ে স্থবির হয়ে পড়া ইন্ট্রা-আফগান আলোচনা বাদ দেওয়া উচিত হবে না।

তিনি বলেন, ‘‘আমার মনে হয়, তালেবান দরজা পুরোপুরি বন্ধ হওয়ার আগে আমাদের দরজা বন্ধ করা উচিত হবে না। আলোচনায় কোনো ধরনের অগ্রগতির অভাব বা দেশে এখন যা চলছে তা সত্ত্বেও আমরা এখনই না বলতে পারি না।

আফগানিস্তানে তালেবানের দাপট বাড়ছে। সম্প্রতি কয়েক সপ্তাহে জঙ্গিদের একের পর এক হামলায় কয়েক ডজন জেলা দখল হয়েছে, সরকারি বাহিনীর সদস্যরা আটক হয়েছেন, আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়েছেন, সামরিক সরঞ্জামও চলে গেছে জঙ্গিদের হাতে। গুরুত্বপূর্ণ নগরীগুলোতেও ঢুকে পড়তে শুরু করেছে তালেবান যোদ্ধারা।

এ অবস্থায় আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের গতি কমিয়ে দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী।

পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কিরবি বলেছেন, সেনা পুরোপুরি প্রত্যাহারের সময়সীমা এখনও ১১ সেপ্টেম্বরে নির্ধারিত আছে। তবে তা পরিবর্তন হতে পারে। এরই মধ্যে আফগানিস্তান থেকে  অর্ধেক সেনা প্রত্যাহার করা হয়েছে।



আরও খবর



রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আরও ১৭ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৭২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গেলো ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (১৭ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে রবিবার (১৮ জুলাই) সকাল ৮টার মধ্যে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে ৫ জন ও উপসর্গে ১১ জন মারা গেছেন। করোনা নেগেটিভ হওয়ার পর ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালে মারা যাওয়া ১৭ জনের মধ্যে রাজশাহীর ৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ২, পাবনার ২, নাটোরের ৪, নওগাঁ, বগুড়া, ঝিনাইদহের একজন করে আছেন।

করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে রোগীদের ভর্তি ও সংক্রমণের বিষয়ে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রামেকে নতুন ভর্তি হয়েছেন ৬০ জন।

বর্তমানে রামেক হাসপাতালে ৪৫৪টি করোনা ডেডিকেটেড শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি আছেন ৫০৬ জন। শুক্রবার ভর্তি ছিলেন ৫২৭ জন। এছাড়া গত জুনে ৩৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর



‘অমানিশার আঁধার দূর করে সম্ভাবনা নিয়ে এগিয়ে যাবে দেশ’

প্রকাশিত:বুধবার ২১ জুলাই 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, রাতের আঁধার শেষেই ঝলমলে রোদের আলোতে ভরে উঠে পৃথিবী। করোনার অমানিশার আঁধারও দ্রুত কেটে যাবে ইনশাআল্লাহ। নতুন সম্ভাবনা নিয়ে এগিয়ে যাবে আমাদের দেশ।

তিনি বলেন, এর জন্য দরকার সবাইকে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। অর্থাৎ সঠিকভাবে মাস্ক পরা, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, স্যানিটাইজার ব্যবহার করা ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা।

বুধবার (২১ জুলাই) কোরবানির ঈদ উপলক্ষে বঙ্গভবন থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে দেয়া এক বার্তায় এ কথা বলেন তিনি।

এর আগে সকাল সাড়ে আটটায় বঙ্গভবনের হলওয়েতে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাষ্ট্রপতি পরিবারের সদস্য ও বঙ্গভবনের অতিপ্রয়োজনীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে ঈদের নামাজ পড়েন। নামাজ শেষে এই বার্তা দেন রাষ্ট্রপতি।

করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি সফল করতে সরকারের পাশাপাশি দলমত নির্বিশেষে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানা রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির ক্রমাবনতির কারণে টিকাদান কর্মসূচি সাময়িকভাবে বাধাগ্রস্ত হলেও বর্তমানে তা পুরোদমে এগিয়ে যাচ্ছে। সরকার অগ্রাধিকারভিত্তিতে দেশের সকল নাগরিকের জন্য টিকাদান নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর। তাই এ কর্মসূচিকে সফল করতে সরকারের পাশাপাশি দলমত নির্বিশেষে সবাইকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, এমন একটি ভাইরাস যা থেকে ইচ্ছে করলেই কোনো ব্যক্তি বা পরিবার বা এককভাবে একটি দেশের পক্ষে নিরাপদ থাকা সম্ভব নয়। বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে আজ আমরা গ্লোবাল ভিলেজের বাসিন্দা। তাই বিশ্বকে করোনার হাত থেকে বাঁচাতে হলে উন্নত-অনুন্নত ও ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে বহুজাতিক সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানসহ সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, মহান আল্লাহর প্রতি গভীর আনুগত্য ও সর্বোচ্চ ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদুল আজহা। উৎসবের সঙ্গে মিশে আছে চরম ত্যাগ। কোরবানি আমাদের মাঝে আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সঞ্চারিত করে, আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীর সঙ্গে আনন্দ-বেদনা ভাগাভাগি করে নেয়ার মনোভাব ও সহিষ্ণুতার শিক্ষা দেয়। এবার মুসলিম বিশ্ব এমন একটা সময়ে ঈদুল আজহা উদযাপন করছে, যখন করোনার ভয়াল থাবায় গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত।

তিনি বলেন, বাংলাদেশেও করোনার নেতিবাচক প্রভাব ক্রমান্বয়ে প্রকট হচ্ছে। করোনার কারণে দেশের জনগণের জীবন-জীবিকা আজ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। জীবন বাঁচানো প্রথম অগ্রাধিকার হলেও জীবন বাঁচিয়ে রাখতে জীবিকার গুরুত্বও অনস্বীকার্য। সরকার করোনা মোকাবিলা ও অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বিভিন্ন প্যাকেজ প্রণোদনাসহ বহুমুখী কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। অস্বচ্ছল ও নিম্নআয়ের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবেও বিভিন্ন সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত আছে। কৃষি ও শিল্পসহ উৎপাদনশীল প্রতিটি খাতের কার্যক্রম অব্যাহত রাখতেও সরকার সর্বাত্মক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।



আরও খবর