Logo
শিরোনাম

পদত্যাগ করলেন ইউক্রেনের আরও দুই উপমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৪জন দেখেছেন

Image

ইউক্রেনের জেলেনস্কি সরকারের মন্ত্রিসভা থেকে আরও দুইজন উপমন্ত্রী পদত্যাগ করেছেন। সর্বশেষ পদত্যাগকৃতরা কমিউনিটি এবং টেরিটরিস উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে নিযুক্ত ছিলেন।

এ নিয়ে ইউক্রেনের বেশ কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পদত্যাগ করলেন।

গার্ডিয়ানের খবর অনুসারে, এখন পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির সহযোগী কিরিলো তিমোশেঙ্কো, উপ প্রতিরক্ষামন্ত্রী ভিয়াচেস্লাভ সাপোভালোভ পদত্যাগ করেছেন। এছাড়া সরকারি কৌঁসুলি দপ্তরের একজন ডেপুটিকে বরখাস্ত করা হয়েছে। রিপোর্ট বের হয়েছে, পাঁচটি অঞ্চল দনিপ্রোপেত্রভস্ক, জাপোরিঝঝিয়া, সুমি, কিয়েভ এবং খেরসনের আঞ্চলিক গভর্নররা পদত্যাগ করেছেন।

প্রসঙ্গত, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। গণমাধ্যমে আসা প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশটির সেনাবাহিনী উচ্চমূল্যে খাদ্যদ্রব্য কিনে মজুত করে রেখেছে। দেশটির একজন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে খাদ্যে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় তিনি পদত্যাগ করেছেন।

২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরুর আগে ইউক্রেনের রাজনীতিকদের জীবনে দুর্নীতি প্রাত্যহিক বিষয় ছিল। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের ২০২১ সালের প্রতিবেদন অনুসারে, ১৮০টি দেশের মধ্যে দুর্নীতিতে ইউক্রেনের অবস্থান ছিল ১২২ তম।


আরও খবর



বাউবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন: সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক সাত্তার

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ উন্মমুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির ২০২৩ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী শিক্ষক ফোরাম পূর্ণ প্যানেল জয়লাভ করেছে।

সভাপতি পদে অধ্যাপক মো. আনোয়ারুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক পদে মো. আব্দুস সাত্তার জয়লাভ করেন।

বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের গাজীপুর মূল ক্যাম্পাসের সেমিনার হলে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

বিজয়ী অন্যান্যরা হলেন- সহসভাপতি মো. আনোয়ারুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ মো. মশিউর রহমান, যুগ্ম-সম্পাদক কামরুজ্জামান, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম, কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য পদে অধ্যাপক ড. কেএম রেজানুর রহমান, অধ্যাপক ড. সোয়াইব আহমেদ, অধ্যাপক ডা. সরকার মো. নোমান, অধ্যাপক ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম, ড. মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ, মেহেরীন মুনজারীন রত্না, ড. মো. শহীদুর রহমান, সুমা কর্মকার ও মো. শেখ ফরিদ নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে মোট তিনটি প্যানেল প্রতিদ্বন্ধিতা করে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী শিক্ষক ফোরাম ও জাতীয়তাবাদী মনোনীত পৃথক দুইটি প্যানেল।

এ ছাড়া সভাপতি পদে মো. মিজানুর রহমান সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্ধিতা করেন। এ নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ছিল ১৩৭ জন।

প্রধান নির্বচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন স্কুল অব এডুকেশনের ডিন প্রফেসর সুফিয়া বেগম।


আরও খবর



থাইল্যান্ডে জীবন্ত পুড়ে মরল ১১ জন

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ১২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

থাইল্যান্ডে চন্দ্রবর্ষ ছুটিতে যাত্রীবাহী এক ভ্যান দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। এতে দুই শিশুসহ ১১জন পুড়ে মারা গেছেন। আজ সোমবার দেশটির পুলিস এ তথ্য জানিয়েছে। খবর এনডিটিভির।

পুলিশ কর্নেল ইঙ্গিওস পোলদেজ বলেন, ভ্যানে ১২ জন যাত্রী ছিলেন। আমনাত চারওয়িন প্রদেশ থেকে ব্যাংককে যাচ্ছিল, পথিমধ্যে যখন মধ্যে নাখন রাসছাসিমা প্রদেশের এক হাইওয়েতে শনিবার রাতে মোড় নেয় তখন দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।

বার্তাসংস্থা এএফপিকে ইঙ্গিওস বলেন, একজন যাত্রী কেবল ভ্যানের জানালা দিয়ে বের হয়ে আসতে পারেন কিন্তু বাকি যাত্রীরা আটকা পড়ে এবং আগুনে পুড়ে মারা যান।

বেঁচে যাওয়া ২০ বছর বয়সী থানাচিত কিংকায়েও জানান, তিনি ঘুমিয়ে ছিলেন কিন্তু চিৎকারে হুট করে ঘুম ভেঙে যায়। তিনি বলেন, আমি জেগে উঠি এরপর যা বুজতে পারি যে ভ্যানটি উল্টে গেছে। আমি কি হয়েছে কিছুই দেখিনি।

কিংকায়েও আরও বলেন, দুর্ঘটনার পর পেছন থেকে আগুন পুরো ভ্যানকে গ্রাস করে। এরমধ্যে আমি একটি জানালায় লাথি দিতে থাকি এবং ছোট ফাঁকা দিয়ে বের হতে সক্ষম হয়। বের হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই ভ্যানটি বিস্ফোরিত হয়।

দেশটিতে প্রায়শই দুর্ঘটনা ঘটে থাকে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। বিশেষ করে ছুটির দিনে ব্যস্ত রাস্তায় দেশটিতে অহরহ দুর্ঘটনা ঘটে।


আরও খবর



বড় যুদ্ধের শঙ্কায় দোলাচলে ইউরোপ

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাম্প্রতিক সময়ে ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ তীব্রতর হয়েছে। প্রায় ১১ মাসের যুদ্ধে প্রায় পাঁচ মাস পর সম্প্রতি নতুন শহর দখল করেছে তারা। পুরোমাত্রায় যুদ্ধ চলছে দনবাসের দোনেৎস্কে। এ প্রেক্ষাপটে ইউক্রেনকে ব্যাপক আকারে অস্ত্র দেওয়া নিয়ে চলছে ব্যাপক উত্তেজনা।  জার্মানির রামস্টাইনে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম সামরিক ঘাঁটিতে শুরু হয়েছে বিশেষ বৈঠক। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকটিতে ন্যাটোর ৩০ দেশসহ প্রায় ৫০টি দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা অংশ নিয়েছেন।

ইউক্রেনের জন্য অস্ত্রের নতুন প্যাকেজ কী হতে পারে, বিশেষত ট্যাঙ্ক থাকবে কি না, তাই রামস্টাইন বৈঠকের মূল আলোচ্য বিষয়। এদিক গতকাল ক্রেমলিন সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, যুদ্ধের ক্ষেত্রে পশ্চিমা ট্যাংক কোনো পার্থক্য গড়তে পারবে না। বরং এসব অস্ত্র দিলে তা ইউক্রেনের জন্যই সমস্যা হয়ে দাড়াবে। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ সাংবাদিকদের আরও বলেছেন, রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেন জিততে পারে এমন বিষয়টি পশ্চিমাদের নাটকীয় বিভ্রম।  

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে যুদ্ধ শুরুর পর থেকে নিষেধাজ্ঞা, গোয়েন্দা তথ্য, কূটনৈতিক সহায়তা ও সহযোগিতার পাশাপাশি ইউক্রেনকে দফায় দফায় অস্ত্রসহায়তা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা। কিন্তু কিয়েভ মনে করে, তা যথেষ্ট নয়। যুদ্ধে জয়ের জন্য তাদের দরকার ট্যাঙ্কের মতো ভারী অস্ত্র।

রামস্টাইনের বৈঠকের শুরুতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, অস্ত্র পেলে এই যুদ্ধে আমরা নিশ্চিত জিতব। তার জন্য দরকার ট্যাঙ্ক ও অন্য ভারী অস্ত্র। এসব সহায়তা জরুরিভিত্তিতে দরকার। মনে রাখতে হবে, সময় গুরুত্বপূর্ণ অস্ত্র। তাই দেরি করা যাবে না। এ যুদ্ধে রাশিয়া পরাজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না।

রামস্টাইনের বৈঠকে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন বলেন, রাশিয়া সেনাদের পুনর্বিন্যাস করছে। নতুন সেনা সংগ্রহ করছে। রণক্ষেত্রে নতুন অস্ত্র পাঠাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে আমাদের গতি কমালে চলবে না। বরং এখন আমাদের সবচেয়ে বেশি মনোযোগী হতে হবে। কিন্তু মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী সরাসরি কোনো ট্যাঙ্ক দেওয়ার ঘোষণা দেননি বলে উল্লেখ করা হয়েছে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে।

এদিকে, গত বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের জন্য আরও ২৫০ কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগ। যুদ্ধ শুরুর পর থেকে ওয়াশিংটন কিয়েভকে ২ হাজার ৭০০ কোটি ডলারের বেশি সামরিক সহায়তা দিয়েছে। 

১১ দেশের নতুন সহায়তা: রামস্টাইন বৈঠকের আগে গত বৃহস্পতিবার এস্তোনিয়ায় বৈঠকে বসেন ন্যাটোভুক্ত ১১টি দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা। বৈঠকে ইউক্রেনের জন্য নতুন অস্ত্র প্যাকেজ ঘোষণা করে দেশগুলো। তাদের সহায়তা প্যাকেজে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, মেশিগান এবং সামরিক প্রশিক্ষণের ঘোষণা থাকলেও ট্যাঙ্কের কোনো কথা নেই। 

ট্যাঙ্ক নিয়ে দোলাচলের নেপথ্যে: যুদ্ধের শুরু থেকেই মিত্রদের থেকে ট্যাঙ্ক চাইছে ইউক্রেন। গতকাল বাংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত রামস্টাইনের বৈঠক থেকে ট্যাংক দেওয়ার সিদ্ধান্তের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।  ন্যাটো মিত্ররা মোটাদাগে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাবরামস, জার্মানি লিওপার্ড-২ ট্যাঙ্ক ব্যবহার করে। ন্যাটোর অস্ত্রভাণ্ডারে এখন পর্যন্ত এ দুটিই সবচেয়ে শক্তিশালী ট্যাঙ্ক। ন্যাটোর মিত্ররা জার্মানির অনুমতি ছাড়া লিওপার্ড ইউক্রেন বা অন্য কোনো তৃতীয় দেশে সরবরাহ করতে পারবে না। জার্মানিসহ ইউরোপের কিছু দেশের ধারণা, ইউক্রেনকে লিওপার্ড বা এর মতো শক্তিশালী অস্ত্র দিলে রাশিয়ার সরাসরি প্রতিপক্ষে পরিণত হবে ন্যাটো। তখন আরও ভয়াবহ পরিণতি হতে পারে। মূলত এ ধরনের বিপর্যয় এড়াতেই কিয়েভকে লিওপার্ড ট্যাঙ্কের মতোর ভারী অস্ত্র দিতে গড়িমসি করেছে বার্লিন। তা ছাড়া এ ধরনের অস্ত্র দেওয়ার পরিণতি ভয়াবহ হবে বলে বারবার হুঁশিয়ারি দিয়ে আসছে মস্কো।

রণক্ষেত্রের সর্বশেষ অবস্থা: বর্তমানে ইউক্রেনের পূর্বদিকের দনবাস অঞ্চলের দোনেৎস্ক প্রশাসনিক ইউনিটে ভয়াবহ যুদ্ধ চলছে। দোনেৎস্কের বাখমুত শহরের নিকটবর্তী ক্লিশচিভকা নামের একটি নগরী শুক্রবার দখলে নেওয়ার দাবি করেছে রাশিয়া। এখই অঞ্চলে গত সপ্তাহে সোলেদার নামের আরেকটি ছোট কিন্তু খনিজ সম্পদসমৃদ্ধ শহর দখলে নেয় রাশিয়া। রাশিয়ার ভাড়াটে যোদ্ধার দল ওয়াগনার গ্রুপ ওই যুদ্ধের নেতৃত্ব দেয়। ইউক্রেনে রাশিয়ার হয়ে ওয়াগনার গ্রুপের প্রায় ৫০ হাজার সেনা যুদ্ধ করেছে বলে শুক্রবার দাবি করেছে যুক্তরাজ্য।  ভৌগোলিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ বাখমুত দখলে নিতে পারলে পুরো দোনেৎস্ক রাশিয়ার করতলে চলে যাবে।


আরও খবর



টিভিতে আজকের খেলা

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ১৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

অনূর্ধ্ব-১৯ নারী টি-২০ বিশ্বকাপের ম্যাচে আজ আরব আমিরাতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশের মেয়েরা। অস্ট্রেলিয়ায় ক্রিকেট মাঠের বিগ ব্যাশের সঙ্গে টেনিস কোর্টে রয়েছে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের লড়াই।

চলুন এক নজরে দেখে আসা যাক ক্রীড়াপ্রেমীরা আজ টিভির পর্দায় কোন কোন খেলা উপভোগ করতে পারবেন।

ক্রিকেট

অ-১৯ নারী টি-২০ বিশ্বকাপ

বাংলাদেশ-সংযুক্ত আরব আমিরাত

বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিট

র‍্যাবিটহোল, আইসিসি

ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ

বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিট

র‍্যাবিটহোল, আইসিসি

বিগ ব্যাশ

মেলবোর্ন স্টার্স-সিডনি থান্ডার্স

বেলা ২টা ১৫ মিনিট

সনি টেন ১

ফুটবল

বুন্দেসলিগা

মেইঞ্জ-ডর্টমুন্ড

রাত ১১টা ৩০ মিনিট

সনি টেন ২

টেনিস

অস্ট্রেলিয়ান ওপেন

কোয়ার্টার ফাইনাল

সকাল ৬টা ও বেলা ২টা

সনি স্পোর্টস টেন ২ ও ৫


আরও খবর



আফ্রিকায় নির্বাচনের ব্যস্ততম বছর ২০২৩

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফ্রিকায় ব্যালট বাক্সের মাধ্যমে ক্ষমতা হস্তান্তর করা একসময় দুঃসাধ্য ছিল। ষাট, সত্তর বা আশির দশকে মহাদেশজুড়ে একদলীয় শাসন প্রচলিত ছিল। সে সময় নতুন নেতারা অভ্যুত্থান ঘটানো, পূর্বসূরিদের মৃত্যু বা অভিজাতদের সঙ্গে চুক্তির মাধ্যমে ক্ষমতায় বসতেন। এমনকি নব্বইয়ের পরেও, যখন একের পর এক আফ্রিকান দেশ বহুদলীয় নির্বাচন পদ্ধতি বেছে নেয় তখনও পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়নি। ভোটাররাও খুব কমই দায়িত্বপ্রাপ্তদের এড়িয়ে চলতো। কেননা কখনও কখনও নির্বাচকরা তাদের শাসক দলগুলোর সঙ্গে যোগসাজশ রেখে চলছিল। প্রায়শই এটি এমনটি ঘটতো কারণ যারা ক্ষমতায় থাকতো তারা নির্বাচনে কারচুপি ও ভোটারদের ভয় দেখানোর জন্য রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করেছিল।

সামান্য হলেও আশ্চর্যের বিষয় শুধু সাব-সাহারান আফ্রিকানদের মধ্যে প্রায় অর্ধেকই গণতান্ত্রিক সরকার নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে। তবুও একটি প্রতিশ্রুতিশীল পরিবর্তন হলো বিরোধী দলগুলো এখন শক্তিশালী ও প্রতিযোগী মনোভাবমূলক হয়ে উঠছে। ২০১১ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত, ৪২ জন নতুন আফ্রিকান নেতা একটি নির্বাচনী প্রক্রিয়ার পর দায়িত্বগ্রহণ করেন। তাদের মধ্যে ১৭ জন ক্ষমতাসীন দলের উত্তরসূরি ছিলেন। বাকি ২৫ জন বিরোধী রাজনীতিবিদ ছিলেন, যা আগের তিন দশকের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি। এ ধরনের পরিবর্তন সম্প্রতি কেনিয়া, মালাউই ও জাম্বিয়াসহ অন্যান্য দেশের মধ্যেও ঘটেছে। এমনকি যখন বিরোধীরা ক্ষমতা দখল করেনি, তখনও তারা অনেক ক্ষেত্রেই টালি তৈরি করে যা অ্যাঙ্গোলা ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দেশের শাসক দলগুলোকে উদ্বিগ্ন করে। ২০২৩ সালে আফ্রিকায় আরও শক্তিশালী অবস্থান হবে নির্বাচনকেন্দ্রিক, সেটিই এখন ধারণা করা হচ্ছে।

এই প্রবণতার পেছনে আসলে কী? বলা চলে, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর রয়েছে এর পেছনে। বিরোধী দলগুলো চতুরতার সঙ্গে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। আফ্রিকানরা ধীরে ধীরে শিক্ষিত হচ্ছে, জানার আগ্রহ তৈরি হচ্ছে এবং নগরায়ণ ঘটছে। ফলে রাজনীতিবিদদের প্রতি তারা কম শ্রদ্ধাশীল। তরুণ জনগোষ্ঠী ক্ষমতাসীন দলগুলোর নস্টালজিক প্রচারে মুগ্ধ নয়, যেগুলো তাদের শেকড়কে স্বাধীনতার সংগ্রামের জন্য চিহ্নিত করে। বরং তার পরিবর্তে তারা দুর্নীতিগ্রস্ত ও অভিজাতদের নজরে রাখছে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো অর্থনৈতিক অবস্থা আরও কঠিন হচ্ছে এবং আফ্রিকানরা তাদের নেতাদের আংশিকভাবে দায়ী করে এই কারণে। সিয়েরা লিওন ও এর পশ্চিম আফ্রিকার প্রতিবেশী, লাইবেরিয়ায়, ক্ষমতাসীনরা তাদের অর্থনীতি পরিচালনা ও দুর্নীতির অভিযোগের কারণে বিক্ষোভের সম্মুখীন হয়। নাইজেরিয়ায়, মো. বুহারির আট বছরের দুঃশাসনের পর প্রতিষ্ঠাবিরোধী আন্দোলন ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। তবে এই নয় যে বিরোধী দলগুলো জয়ী হবে। নাইজেরিয়ার ক্ষমতাসীন দল, অল প্রগ্রেসিভ কংগ্রেস (এপিসি), সরকার পরিচালনার চেয়ে হাল আমলের রাজনীতিতে অনেক ভালো। মাদাগাস্কারে প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রি রাজোয়েলিনা বিভক্ত বিরোধীদের মুখোমুখি হয়েছেন। যদিও পুনরায় নির্বাচনে জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা আছে তার।

এই মহাদেশের অন্যান্য দেশে, বিরোধীদের ব্যর্থ হওয়ার ঝুঁকিও রয়েছে, কেননা শাসক দল পরাজয় মেনে নেবে না সহজে। জানু-পিএফ, জিম্বাবুয়ের ক্ষমতাসীন দল। বলা হচ্ছে, প্রতিদ্বন্দ্বীদের বাধা দিচ্ছে তারা এবং নির্বাচনের আগে ভোটারদের নিজেদের দিকে টেনে নেবে অন্যথায় হেরে যাবে। কিন্তু যতক্ষণ পর্যন্ত জানু-পিএফ-এর ওপর নিরাপত্তা বাহিনীর সমর্থন বজায় থাকবে এবং আঞ্চলিক আধিপত্য থাকবে, ততদিন জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট ফেলিক্স শিসেকেদি। অভিযোগ আছে, ২০১৮ সালে নির্বাচনে জালিয়াতি করে ক্ষমতায় এসেছিলেন। অজনপ্রিয় সরকার হলেও ক্ষমতায় থাকবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া বেশ কয়েকটি দেশে মেয়াদোত্তীর্ণ নির্বাচন নাও হতে পারে। দক্ষিণ সুদানে ২০১৫ সালে ভোট হওয়ার কথা ছিল কিন্তু নেতারা বারবার এর পরিবর্তে একে অপরের সঙ্গে লড়াই করার পথ বেছে নিয়েছেন। ২০২০ ও ২০২১ সালে অভ্যুত্থানের পরে, মালির জান্তা বলেছিল ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারিতে নির্বাচন করবে। মালিয়ানরা এখনও অপেক্ষা করছে। চাদে, আরেকটি জান্তা সরকার ২০২২ সালের দ্বিতীয়ার্ধে নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু অক্টোবরে এটি তার অন্তর্বর্তীকালীন সামরিক শাসনের মেয়াদ আরও দুই বছরের জন্য বাড়িয়ে দেয়। যদিও এসব ঘটনা পুরো আফ্রিকার প্রতিনিধিত্ব করছে না। কারণ, ৫৪টি দেশের একটি জটিল ও বৈচিত্র্যময় মহাদেশ হলো আফ্রিকা।

নিউজ ট্যাগ: আফ্রিকা

আরও খবর