Logo
শিরোনাম

পিরোজপুরে নির্বাচনী সংঘর্ষে আহত স্বেচ্ছাসেবক দলনেতা লালন ফকিরের মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ১১ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১২ ডিসেম্বর ২০২৩ | ২২৩০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পিরোজপুরে নৌকার নির্বাচনী অফিসে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় আহত লালন ফকির মারা গেছে। নিহত লালন ফকির স্বেচ্ছাসেবক দলের পিরোজপুর জেলা শাখার শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ছিলো।


গত শনিবার (০৯ ডিসেম্বর) রাতে সদর উপজেলার শারিকতলা ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের রানীপুর এলাকায় নৌকার নির্বাচনী অফিসে হামলার সময় আহত হন লালন ফকির।


ওইদিন প্রথমে তাকে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ও পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ সোমবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।

জানা গেছে, লালন ফকির বিএনপির সহযোগী সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক দলের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হলেও সে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর-১ আসনের বিদ্রোহী প্রার্থী এ কে এম এ আউয়ালের ক্যাডার ছিলো।

২০১৪ সালে হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি নামে পিরোজপুরে বিএনপির ভাঙচুর ও অগ্নি সংযোগের ঘটনায় লালন ফকিরের সরাসরি সম্পৃক্ততা ছিলো।

এছাড়া তার বিরুদ্ধে মাদক কারবারসহ পিরোজপুর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল আহসান গাজীর ভাইদের ওপর হামলা ও কোপানোর অভিযোগ রয়েছে।

এসব ঘটনায় তার বিরুদ্ধে পিরোজপুর সদর থানায় দায়ের হওয়া নিম্নল্লোখিত মামলাগুলো আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

১। মামলা নং-০৮, তাং ০৯ জানুয়ারি ২০১৫ইং, ধারা-দ্রুত বিচার আইনের ৪/৫।

২। মামলা নং-০৫, তাং-০৬ জানুয়ারি ২০১৫ইং, ধারা-৩৮৬/১৪৩/৩৪১/৩২৩/৩২৫/৩০৭/৩৭৯/৫০৬/১১৪ পেনাল কোড।

৩। মামলা নং-১৩, তাং-১৮ জুলাই ২০২৩ইং, ধারা-১৪৩/৪৪৭/৪৪৮/৩০৭/৩৩২/৩৩৩/৩৫৩/১৮৯/৪২৭ পেনাল কোডে।

৪। মামলা নং-২৮, তাং-২৫ জুন ২০২৩ইং, ধারা-১৪৩/৪৪৭/৩৩২/৩৭৯/৫০৬ পেনাল কোড।

৫। মামলা নং ০৪, তাং-৬ এপ্রিল ২০২২ ইং, ধারা-মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ৩৬(১)/ ১০ (ক)/৪১।

৬। মামলা নং-০২, তাং-০২ মার্চ ২০১৯ ইং, ধারা- ১৪৩/৪৪৮/৩২৩/৩৭৯/৩৮০/৪২৭/৫০৬ পেনাল কোড।

৭। মামলা নং-০৫, তাং-০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ইং, ধারা-১৪৭/৩৪১/৩০৭/৩২৩/৩২৫/৩৭৯/৫০৬ পেনাল কোড।


এদিকে লালন ফকিরের মৃত্যুর খবরে স্বেচ্ছাসেবক লীগের পিরোজপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সুমন শিকদার ও জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি পৌর কাউন্সিলর সাইদুল্লাহ লিটনের নেতৃত্বে শহরে মিছিল বের করে আউয়াল সমর্থকরা। মিছিল থেকে তারা আগামীকাল মঙ্গলবার শহরে হরতাল ঘোষণা করে।

এ ব্যাপারে পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আশিকুজ্জাআন বলেন, এখনও থানায় কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হবে।


আরও খবর



নির্বাচন নিয়ে আবারও অবস্থান পরিষ্কার করল জাতিসংঘ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০২৪ | ৮৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আবারও বাংলাদেশের নির্বাচন ইস্যুতে কথা বলেছে জাতিসংঘ। স্থানীয় সময় সোমবার (২২ জানুয়ারি) জাতিসংঘের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে ফের উঠে আসে নির্বাচন ইস্যু।

জাতিসংঘের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক জানান, বাংলাদেশে দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়ে জাতিসংঘের অবস্থান আগের মতোই রয়েছে। একইসঙ্গে নির্বাচনের পর জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার যা বলেছেন সেটিও অপরিবর্তিত রয়েছে।

মূলত টানা চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী পুনর্নির্বাচিত হওয়ার পর শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে জাতিসংঘের দেওয়া চিঠির বিষয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

সোমবারের ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিক শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে জাতিসংঘের দেওয়া চিঠির বিষয়ে জানতে চান। তিনি বলেন, মহাসচিবের এমন চিঠি নির্বাচন নিয়ে জাতিসংঘের পূর্বের অবস্থান এবং নির্বাচন নিয়ে মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার যে বিবৃতি দিয়েছেন তার সঙ্গে সাংঘর্ষিক কিনা?

জবাবে জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেন, এটি সাংঘর্ষিক না। জাতিসংঘ মহাসচিব প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন, যেমনটা বিভিন্ন দেশের সরকারপ্রধান বা রাষ্ট্রপ্রধানরা পুনর্নির্বাচিত হলে মহাসচিব পাঠিয়ে থাকেন।

তিনি আরও বলেন, তারা আগে যা বলেছেন এবং মানবাধিকার হাইকমিশনার আগে যা বলেছেন, তা অপরিবর্তিত রয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়েও কথা বলেছেন তিনি। ডুজারিক বলেছেন, কাউকে কখনও প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়। কোনও শরণার্থীকে জোর করে বা তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়।

এছাড়া এদিনের ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নকারী বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসন নিয়ে জানতে চান। তিনি বলেন, আপনি জানেন- বাংলাদেশ ২০১৭ সাল থেকে প্রায় সাত বছর ধরে ১২ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে।

অন্যদিকে, মানবিক তহবিল, আন্তর্জাতিক মানবিক সহায়তা সম্পর্কিত মনোযোগ, সবকিছু সঙ্কুচিত হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জাতিসংঘ মহাসচিবের পরিকল্পনা কী?

জবাবে জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র এই মুখপাত্র বলেন, প্রথমত, কাউকে কখনও প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়। কোনও শরণার্থীকে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়। এটি এমন পদ্ধতিতে স্বেচ্ছায় হওয়া দরকার যেখানে তাদের মর্যাদা এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত থাকবে।

তিনি বলেন, এটা পরিষ্কার যে, মিয়ানমারের পরিস্থিতি বর্তমানে প্রত্যাবাসনের জন্য দরকারি প্রয়োজনীয়তা পূরণ করছে না। যেসব সম্প্রদায় উদারভাবে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আতিথেয়তা দিয়েছে, তাদের জন্য বিশ্বব্যাপী সংহতি বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। যেমন কক্সবাজারের সম্প্রদায়, মহাসচিব এটি পরিদর্শন করেছেন।

স্টিফেন ডুজারিক বলেন, শরণার্থীদের সবার সংহতি প্রয়োজন এবং আশ্রয়দানকারী সম্প্রদায়গুলোরও জাতিসংঘের ও সারা বিশ্বের সংহতি প্রয়োজন। এবং এসব কিছুর জন্যই আমাদের তহবিল আরও বৃদ্ধি করা দরকার।


আরও খবর

দেশে পুরুষের চেয়ে নারীর সংখ্যা বেশি

মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩