Logo
শিরোনাম

পরীক্ষাগারে উৎপাদিত মাংস: স্বাদের গল্প কি বদলে যাচ্ছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২২ নভেম্বর 20২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত সপ্তাহে প্রথমবারের মতো পরীক্ষাগারে উৎপাদিত মাংসের অনুমোদন দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।ক্যালিফোর্নিয়ার একটি স্টার্টআপ আপসাইড ফুডস গবেষণাগারে উৎপাদিত মাংস মানুষের খাদ্য হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিল। তাদের আবেদন গৃহীত হয়েছে। মানুষের খাদ্য হিসেবে গবেষণাগারে উৎপাদিত মাংস স্বীকৃতি পেয়েছে। পশু-পাখি ছাড়া বাণিজ্যিক ভিত্তিতে উৎপাদিত এমন মাংস বাজারজাত করায় এখন আর কোনো বাধা নেই। নির্দ্বিধায় বলা চলে, বিজ্ঞান কল্পকাহিনি ছাড়িয়ে মানুষের আবহমান খাদ্য সংস্কৃতিতে নতুন যুগের সূচনা হলো।

আপসাইড ফুডস জানিয়েছে, এই মাংস মোটেই উদ্ভিজ্জ নয়। তাঁরা নিশ্চয়তা দিলেন যে এমন মাংসের সঙ্গে স্বাদে, গন্ধে ও গঠনে প্রচলিত মাংসের তেমন কোনো পার্থক্য নেই। পার্থক্য হচ্ছে, এগুলো প্রাণী ছাড়া উৎপাদিত। শুধু গরু বা মুরগির মতো প্রাণীর একটুখানি কোষের নমুনা থেকে ল্যাবরেটরিতে পরিচ্ছন্ন এবং নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে উৎপাদিত এমন মাংস পুষ্টিমানে উন্নত, নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত। তা ছাড়া, মানুষের রসনা মেটাতে এখন থেকে আর কোনো প্রাণীর প্রাণ সংহার করতে হবে না।

ব্যাপারটি যুক্তরাষ্ট্রে নতুন হলেও সিঙ্গাপুরে তা মোটেই নতুন নয়। সিঙ্গাপুরের খাদ্যনিরাপত্তা বিভাগ ২০২০ সালের ২ ডিসেম্বর গবেষণাগারে তৈরি মাংস খাদ্য হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, অচিরেই ইউরোপের খাবার টেবিলে জায়গা করে নেবে ল্যাবে উৎপাদিত মাংস এবং মাংসজাত রকমারি খাবার। অনেকটা কাকতালীয় হলেও, এ খবরটি যখন এসেছে, ঠিক তখনই গত সপ্তাহে অর্থাৎ ১৫ নভেম্বর পৃথিবীতে প্রথমবারে মতো মানুষের সংখ্যাও আট শ কোটি ছাড়িয়েছে। ২১০০ সালের আগে পৃথিবীতে মানুষের সংখ্যা এক হাজার কোটি ছাড়িয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বর্তমানে প্রতি ১০ জনে ১ জন মানুষ ক্ষুধার্ত থাকে। ভবিষ্যতে খাদ্য সমস্যা আরও প্রকট হতে পারে বলে সতর্ক সংকেত দিয়েছেন গবেষকেরা। এসব বিবেচনায় ভবিষ্যতে খাদ্য সমস্যার সমাধানে জৈবপ্রযুক্তিবিদেরা আমিষের প্রচলিত উৎস পশু-পাখি ও মাছকে পাশ কাটিয়ে খাদ্যের নতুন উৎসের সন্ধান দিচ্ছেন। কারণ যেসব পশু-পাখি বা মাছ আমরা লালন-পালন করি তা বেশ সময়সাপেক্ষ, ব্যয়বহুল ও কষ্টসাধ্য। এ জন্য বাড়তি জায়গা এবং পানযোগ্য পানির বিপুল অপচয় হয়। তার ওপর ব্যাপক রাসায়নিক সার, কীট-পতঙ্গ, আবর্জনা নাশক ইত্যাদি ব্যবহার মোটেই পরিবেশবান্ধব নয়। চাষযোগ্য জমির পরিমাণও কমে যাচ্ছে দ্রুত। মানুষ এবং পালিত পশু-পাখি, মাছের জন্য খাদ্য জোগাতে উজাড় হচ্ছে বনভূমি। এর সঙ্গে আছে মাত্রাতিরিক্ত দূষণ এবং জলবায়ু পরিবর্তন।

সেদিকে খেয়াল রেখেই প্রথমবারের মতো গত বছরের ৪ মে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত ২৭টি দেশের খাদ্যনিরাপত্তা সংস্থা গুবরেপোকার লার্ভা বা শুককীট মানুষের খাদ্য হিসেবে নিরাপদ বলে ছাড়পত্র দিয়েছে। শুকনো গুবরেপোকার লার্ভার পুষ্টিকর আটা দিয়ে রুটি, বিস্কুট, বাহারি কেক স্বাদে-গন্ধে মানুষের মন কাড়তে শুরু করেছে।

খাদ্যবিষয়ক বিশেষজ্ঞরা উচ্ছ্বসিত হয়েছেন এবং প্রচলিত মাংসের বিকল্প এমন মাংস মানুষের জন্য নিরাপদ ক্লিন মিট বলে আখ্যা দিয়েছেন। ক্লিন মিট কথাটি জোর দিয়ে বলা হয়েছে এ জন্যই যে এই মাংস দূষণমুক্ত। এতে থাকছে না ক্ষতিকর অণুজীব, ভাইরাস, ছত্রাক, পরজীবী, চর্বি, হরমোন, অ্যান্টিবায়োটিক, ভারী ধাতু ও মাইক্রোপ্লাস্টিক। এদিকে জৈবপ্রযুক্তিবিদেরা জানিয়েছেন যে অণুজীব থেকে দুধ, ডিম, মজার চকলেট উৎপাদনের জৈবপ্রযুক্তি তাঁদের হাতের মুঠোয় আছে। পুষ্টিগুণের সঙ্গে রং, ঘ্রাণ, স্বাদ আর গঠন বিবেচনায় অণুজীব উৎপাদিত এসব খাবার মোটেই কম যায় না; বরং বেশ কিছু পুষ্টিগুণ যোগ করে স্বাস্থ্যের জন্য আরও উত্তম করা যাবে বলে জানিয়েছেন জৈবপ্রযুক্তিবিদেরা।

এটা এখন নিশ্চিত যে আজকালের মধ্যেই বাজারে এসে যাচ্ছে প্রাণী ছাড়াই মাছ-মাংস আর বহুল জনপ্রিয় খাদ্য ডিম। পৃথিবীর দেশে দেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এ ব্যাপারে অনেকটাই আটঘাট বেঁধে নেমেছে। আর তাই কোফতা, কারি, রেজালা, কাবাব, চপ-কাটলেট, বার্গার ইত্যাদি মজাদার খাবারের কথা মনে করে এখনই অনেকে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন, স্বাদের গল্প কি বদলে যাচ্ছে?


আরও খবর

আপনার আজকের দিন- ৩০ নভেম্বর, ২০২২

বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২

আজকের রাশিফল!

মঙ্গলবার ২৯ নভেম্বর ২০২২




নারীর তুলনায় পুরুষের কিডনিতে কেন পাথর জমে বেশি?

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কিডনিতে পাথর হওয়ার সমস্যায় লিঙ্গভেদে অনেকেই ভোগেন। এই রোগের পেছনে নানা কারণ দায়ী হতে পারে। যার মধ্যে অন্যতম হলো- পানি কম খাওয়া, খাদ্যাভ্যাসের সমস্যা, জীবনযাত্রায় অনিয়ম ইত্যাদি। বিশ্বব্যাপী ১১ শতাংশ পুরুষ ও ৬ শতাংশ নারীই এ সমস্যায় ভোগেন। তবে জানলে অবাক হবেন, পরিসংখ্যান অনুযায়ী নারীর তুলনায় পুরুষদের এ সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেশি। তবে কী কারণে পুরুষদের কিডনিতে বেশি পাথর জমে?

কিডনিতে পাথর জমে কেন: মূলত ক্যালসিয়াম জমে কিডনিতে পাথর তৈরি হয়। ক্যালসিয়াম অক্সালেট আছে এমন খাবার বেশি খেলে কিডনিতে পাথর জমার ঝুঁকি বাড়ে। যেমন- খেজুর, বেরি, কামরাঙার মতো ফল, পালং শাক, বিটসহ গাজরেও প্রচুর ক্যালসিয়াম অক্সালেট থাকে। তাই এ খাবারগুলো বেশি পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়। এছাড়া পানি কম খেলেও কিডনিতে পাথর জমে। পানি কিডনি থেকে ক্যালসিয়াম অক্সালেট বের করে দেয়। পর্যাপ্ত পানি না খেলে এই সমস্যা আরও বাড়তে পারে। এমনকি মদ্যপান, অতিরিক্ত লবণ ও মসলা দেওয়া খাবার দীর্ঘদিন ধরে খেলেও কিডনিতে পাথর জমার ঝুঁকি বাড়ে।

নারীর তুলনায় পুরুষদের কিডনিতে পাথর জমে কেন: গবেষকদের মতে, এর প্রধান কারণ হলো পানি কম খাওয়া। পরিসংখ্যান বলছে, পুরুষরা নারীর তুলনায় কম পানি পান করেন। এ কারণে পুরুষরা বেশি পানিশূন্যতায় ভোগেন। আর এ কারণেই তাদের কিডনিতে পাথর জমার ঝুঁকি বাড়ে। বিশেষ করে যারা দীর্ঘক্ষণ রোদে কাজ করেন ও পর্যাপ্ত পানি পান না করেন তাহলে পানিশূন্যতার কারণে হঠাৎ কিডনি বিকল পর্যন্ত হতে পারে। বিজ্ঞানীরা আরও বলছেন, মদ্যপান ও জীবনযাত্রায় অনিয়মের ক্ষেত্রে পুরুষরা নারীর তুলনায় এগিয়ে আছেন। এ কারণেই তাদের কিডনিতে পাথর জমার ঝুঁকি বেশি।

নিউজ ট্যাগ: কিডনিতে পাথর

আরও খবর

হাইড্রোজেন দিয়ে উড়বে উড়োজাহাজ

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

পুরোনো টুইট আর্কাইভ করবেন যেভাবে

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২




আগামী মাসের শেষ সপ্তাহে মেট্রোরেলের উদ্বোধন

প্রকাশিত:বুধবার ২৩ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো মেট্রোরেলের উদ্বোধন আগামী ডিসেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে হবে বলে জানিয়েছেন ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম এ এন ছিদ্দিক।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে মেট্রোরেলের (এমআরটি লাইন-১) ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়ন বিষয়ক এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

প্রাথমিকভাবে উত্তরা-মতিঝিল-কমলাপুর মেট্রোরেলের প্রথম অংশ অর্থাৎ উত্তরা-আগারগাঁও অংশের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো মেট্রোরেলের বাণিজ্যিক যাত্রা শুরু হবে। মেট্রোরেলের (এমআরটি লাইন-৬) প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ৫ টাকা এবং সর্বনিম্ন ভাড়া ২০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। উত্তরা থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ভাড়া হবে ১০০ টাকা। যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাড়া মওকুফ থাকবে।

এদিকে, অক্টোবর মাসের ৩১ তারিখে দেওয়া ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) দেওয়া এমআরটি লাইন-৬ এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১১.৭৩ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও স্টেশন নির্মাণের কাজ সমন্বিতভাবে শেষ হয়েছে ৯৬.৭৫ শতাংশ। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি, বাকি ৩.২৫ শতাংশ কাজ নভেম্বর মাসের মধ্যেই শেষ হবে। কাজগুলো গুরুত্ব দিয়ে করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত সম্পূর্ণ ভায়াডাক্ট ও স্টেশন নির্মাণকাজে (প্যাকেজ- ৩ ও ৪) স্টেশনগুলোর রুফ শিট পর্যন্ত কাজ শেষ হয়েছে। এ পথের নয়টি স্টেশনের মধ্যে সাতটির প্রবেশ এবং বের হওয়ার অবকাঠামোর নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। অবশিষ্ট দুটির কাজ শেষপর্যায়ে আছে। নয়টি স্টেশনে লাইটিং স্থাপনের কাজও শেষ হয়েছে। এছাড়া নয়টি স্টেশনের মেকানিক্যাল, ইলেকট্রিক্যাল, আর্কিটেকচারাল, ফায়ার ফাইটিং সিস্টেম, ডিজেল জেনারেটর, পানি, গ্যাস ও পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থা (প্লাম্বিং) এবং সুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টের কাজ শেষ হয়েছে। এখন ইলেকট্রিক্যাল ও প্লাম্বিং কাজের টেস্ট চলছে। প্যাকেজ দুটির বাস্তব অগ্রগতি ৯৬.৭৫ শতাংশ। বাকি রয়েছে ৩.২৫ শতাংশ।

মেট্রোরেলের প্রথম অংশের বাকি ৩.২৫ শতাংশের কাজ শেষ হতে কত দিন লাগবেজানতে চাইলে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এম এ এন ছিদ্দিক বলেন, আমরা বারবারই বলেছি, নভেম্বরের পর আমাদের আর কোনো কাজ বাকি থাকবে না। আমাদের তিনটি স্টেশনে এক্সিট ও এন্ট্রির কাজ চলছিল। বর্তমানে দুটিতে চলে এসেছে। ওই দুই স্টেশনের শুধুমাত্র এক্সিট ও এন্ট্রির কাজগুলো বাকি আছে। আর সব কাজ শেষ হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: মেট্রোরেল

আরও খবর



সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যাচ্ছে পাকিস্তানের জনগণ

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ১৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিতর্কিতভাবে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ ক্ষমতার প্রতীক সম্ভবত মালাক্কা কেইন (লাঠি)। গত ২৯ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে জেনারেল অসিম মুনিরের হাতে ব্যাটন তুলে দিয়েছেন জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। এর ফলে ছয় বছর পর নতুন সেনাপ্রধান পেলো পাকিস্তান। জেনারেল মুনির আগে পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআইর প্রধান ছিলেন। এখন দেশটির সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিষ্ঠানের এবং পাকিস্তানি গণতন্ত্রের স্ব-নিযুক্ত পরিচালক হিসেবে কাজ করবেন।

পাকিস্তানে সেনাপ্রধানদের নিয়োগ দেন প্রধানমন্ত্রী। তবে প্রায়ই দেখা যায়, নিয়োগদাতাকে পদচ্যুত করে অনুগ্রহ ফিরিয়ে দেন সেনাপ্রধানরা। এ যাবৎ পাকিস্তানের ২২জন প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে কেউই মেয়াদ পূরণ করতে না পারার প্রধান কারণ এটাই এবং তা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফও ভালো করেই বোঝেন।

শাহবাজের বড় ভাই নওয়াজ শরিফ তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। ১৯৯৮ সালে পারভেজ মোশাররফকে সেনাপ্রধান নিযুক্ত করেন নওয়াজ। কিন্তু পরে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে তাকেই ক্ষমতাচ্যুত করেন মোশাররফ। এরপর ২০১৬ সালে জেনারেল বাজওয়াকে সেনাপ্রধান নিয়োগ দেন নওয়াজ। এবার অভিযোগ, বাজওয়ার নির্দেশেই পাকিস্তানের সুপ্রিম কোর্ট নওয়াজকে ক্ষমতাচ্যুত ও রাজনীতি থেকে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ করে। জেনারেল মুনিরের কাছ থেকে শাহবাজ শরিফ যদি ভালো কিছু পান, তবে তা হতে পূর্বসূরী ইমরান খানের কারণে। বলা হয়, ইমরানকে ক্ষমতায় আসতে সাহায্য করেছিলেন জেনারেল বাজওয়া। কিন্তু সেনাবাহিনীর এ প্রিয়পাত্রই গত এপ্রিলে অনাস্থা ভোটে ক্ষমতাচ্যুত হন, যেখানে হাত ছিল সেনাপ্রধানেরই। ক্যারিশম্যাটিক নেতা ইমরান খান অভিযোগ করেছেন, জেনারেল বাজওয়া আমেরিকার সঙ্গে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছেন। এই অভিযোগ তার দলকে উপ-নির্বাচনে জিততে সাহায্য করার পর তিনি আরও এগিয়েছেন। ইমরান খানের দাবি, এক জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তা, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ তাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছেন। গত মাসের ওই হামলায় আহত হন পিটিআই প্রধান।

জেনারেল বাজওয়া আইএসআই প্রধানসহ অন্যান্য বড় কর্মকর্তাদের ইমরান খানের নিন্দা করার জন্য প্ররোচিত করেন। তবে এতে যদি কিছু হয়, তা হলো ইমরানের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি। পাকিস্তানের জেনারেলদের সবচেয়ে বড় অভ্যন্তরীণ চ্যালেঞ্জ হয়ে উঠতে পারেন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর প্রধান গ্যারিসন রাওয়ালপিন্ডিতে। গত সপ্তাহে সেখানে এক সমাবেশে ইমরানের ভাষণ শুনতে কয়েক হাজার মানুষ ভিড় করেছিলেন। সেদিন ইমরান খান কড়া ভাষায় বলেছিলেন, আমি আমার জীবনের চেয়ে পাকিস্তানের স্বাধীনতা নিয়ে বেশি চিন্তিত।

জেনারেল মুনির নিশ্চয়ই উদ্বিগ্ন। তবু ইমরান খানকে ব্যর্থ করার জন্য তার সর্বোত্তম আশা হলো, জেনারেল বাজওয়ার নির্দেশ- শক্ত হয়ে বসে থাকুন। পিটিআই প্রধান আগাম নির্বাচন চান এবং এর জন্য তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন পাঞ্জাব ও খাইবার-পাখতুনখাওয়ার বিধানসভা ভেঙে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন। কিন্তু পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেওয়ার ক্ষমতা প্রধানমন্ত্রীর হাতে। আর শাহবাজ আগামী আগস্টে মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সরকারে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন। সেনাপ্রধানেরও উচিত সেই সাংবিধানিক প্রক্রিয়াকে সমর্থন করা। তবে জেনারেল মুনিরের নিজেরও অনেক দায়িত্ব রয়েছে। পাকিস্তানি তালেবান যুদ্ধবিরতি ভঙ্গ করেছে। আফগান তালেবানদের সঙ্গেও সম্পর্ক ভালো নয়। এছাড়া মহামারির ধাক্কা, রাজনৈতিক অস্থিরতা ও বন্যায় জর্জরিত অর্থনীতি বাড়তি কোনও চাপ নিতে পারবে না।

পাকিস্তানে বর্তমানে মাত্র এক মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর মতো বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে। তাদের বন্ড মার্কেটে খেলাপি হওয়ার ঝুঁকি বেড়েছে। অতীতের সেনাপ্রধানরা হয়তো ভেবেছিলেন, এ ধরনের ভয়ানক পরিস্থিতিতে সামরিক হস্তক্ষেপের প্রয়োজন ছিল। কিন্তু জেনারেল মুনির এ ধরনের ফালতু চিন্তা বাদ দিয়ে নিজেকে আলাদা দেখাতে পারেন।


আরও খবর



ছাগল নাচে, ৩ নম্বর বাচ্চাও নাচে: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশের বামদলগুলোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ছাগল তো নাচে, সঙ্গে ছাগলের ৩ নম্বর বাচ্চাও নাচে। বাম রাজনীতি করে, আদর্শের কথা বলে, খেটে খাওয়া মানুষের কথা বলে। এরা আবার হাওয়া ভবনের যুবরাজের সঙ্গে আন্দোলনে যোগ দিতে চায়। আজ বুধবার দুপুরে বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

বামদলগুলোর সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, কোথায় গেল আদর্শ? ঢাল নেই তলোয়ার নেই, নিধিরাম সরদার। জিরো প্লাস জিরো, প্লাস জিরো সমান সমান জিরো।

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, গোটা ডিসেম্বর মাস আপনাদের মাঠে থাকতে হবে। সাম্প্রদায়িকতা, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাঠে থাকতে হবে। এগুলো যাদের সৃষ্টি তাদের বিরুদ্ধে বিজয়ের মাসে খেলা হবে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দেওয়া বক্তব্যের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমরা নাকি কাপুরুষ, সে জন্য তাদের মামলা দিচ্ছি। কাপুরুষ আওয়ামী লীগ না কি বিএনপি? কাপুরুষ হালের নেতা, হাওয়া ভবনের যুবরাজ বসে আছে টেমস নদীর পাড়ে। আর বস্তায় বস্তায় দুবাই থেকে টাকা পাঠাচ্ছে। টাকা ওড়ে আকাশে-বাতাসে।

বিএনপির উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, আর আগুন নিয়ে খেলতে দেব না। আগুন নিয়ে খেলতে এলে খেলা হবে। জনগণ মোকাবিলা করবে, প্রতিরোধ করবে।

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেত্রীর নির্দেশনা আছে, আমরা সাদা-মাটা সম্মেলন করবো। জাতীয় সম্মেলনও আমরা সাদা-মাটা করব। এই বিলবোর্ডে কত টাকা চলে যায়..দরকার নেই।

সেতুমন্ত্রী বলেন, এখন ঘুম থেকে উঠে ঢাকায় অফিসে যায়, আবার রাত ৮টার আগে ফিরে আসে। কার গুণে? ভুলে যাবেন না বরগুনাবাসী। পদ্মা সেতু শেখ হাসিনার সাহসের সেতু। এত যার কাছে পেয়েছেন..কুয়াকাটা পর্যন্ত কোনো ব্রেক নেই। আরও তো অনেক উন্নয়ন..।


আরও খবর



নৃত্যশিল্পী ইভানের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল ৬ ডিসেম্বর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মানবপাচার আইনে করা মামলায় নৃত্যশিল্পী ইভান শাহরিয়ার সোহাগের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়ে ৬ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।  আদালত সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু মামলার তদন্ত সংস্থা সিআইডি প্রতিবেদন দাখিল করতে পারেনি। তাই ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাকিল আহাম্মদ নতুন এ দিন ধার্য করেন।

এর আগে দুবাই পুলিশের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মানবপাচারকারী চক্রের মূল হোতা আজম খান ও তার চার সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নৃত্যশিল্পী ইভানকে ২০২০ সালের ১১ সেপ্টেম্বর রাতে রাজধানীর নিকেতন থেকে গ্রেফতার করে সিআইডি।

২০২০ সালের ২ জুলাই আজম খানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে মানবপাচার আইনে লালবাগ থানায় একটি মামলা করেন সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার মৃণাল কান্তি শাহ। মামলার আসামিরা হলেন- আলামিন হোসেন ওরফে ডায়মন্ড, স্বপন হোসেন, আজম খান, নাজিম, এরশাদ, নির্মল দাস, আলমগীর, আমান ও শুভ। মামলায় অজ্ঞাতনামা মানবপাচারকারীদের কথাও উল্লেখ করা হয়। ইভান শাহরিয়ার সোহাগকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, আসামিরা দুবাইয়ের হোটেল ও ড্যান্স বারে মেয়েদের যৌনকর্মে বাধ্য করতেন। তাদের প্রতিনিধিরা দেশের বিভিন্ন নাচের ক্লাব বা সংগঠন থেকে কাজ দেওয়ার নামে মেয়েদের দুবাই পাঠাতেন।


আরও খবর