Logo
শিরোনাম

পরনে কেবল শাড়ি, মেহেদি দিয়ে ব্লাউজ তৈরি করে তাক লাগালেন তরুণী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1 | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ২১৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নারী অঙ্গে শাড়ি যেন নিবিড় ভালবাসার মতো জড়িয়ে থাকে। তাতে যদি হয় ম্যাচিং ব্লাউজ, তাহলে তা আর কথাই নেই! তবে সেই ব্লাউজ যদি মেহেদি দিয়ে আঁকা হয়, তাহলে? বুঝলেন না? 

বুঝতে পারছেন এবার? হ্যাঁ, ব্লাউজের মতো ডিজাইন করেই মেহেদি পরেছেন তরুণী। প্রথম ঝলকে দেখে বোঝা দায়। কিন্তু একটু ভাল করে দেখলেই বোঝা যাবে তরুণীর শরীরের উপরের অংশ মেহেদি দিয়েই ঢাকা। সাদা শাড়ির সঙ্গে এই গাঢ় খয়েরিং রঙের মেহেদি বেশ মানিয়ে গিয়েছে।

তরুণীর পরিচয় জানা যায়নি। তবে তাঁর ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। ছোট্ট এই ভিডিওতে প্রথমে তরুণীর পিঠের অংশটি দেখা যাচ্ছে। মাথায় সুন্দর খোপা করা। তাতে সাদা ফুল জড়ানো। আর পুরো পিঠ জুড়ে ব্লাউজ আঁকা। সামনের দিকে যেতে যেতে হাসি মুখে পিছন ফিরে তাকান তরুণী। ক্যামেরাম্যানের দিকে ফ্লাইং কিস ছুড়ে দেন।

অজ্ঞাত পরিচয় এই তরুণীর এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হতেই মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছে। কেউ প্রশংসা করেছেন, কেউ আবার সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। ফ্যাশনের নামে যা খুশি তাই করবে নাকি! লজ্জা একটুও নেই, এমন মন্তব্য করা হয়েছে। এরপর কি মেহেদি মাধ্যমে শরীরে কুর্তি আঁকা হবে? এমন প্রশ্নও করা হয়েছে। কেউ কেউ আবার তরুণীকে দেখে মেহেদি শিল্পী হওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন।

সোশ্যাল মিডিয়ার ময়নাতদন্ত তো চলতেই থাকে। তবে বিয়ের মরশুমে তরুণীর এই মেহেদি ব্লাউজের স্টাইল অনেকের নজর কেড়েছে। অবশ্য এই ট্রেন্ড এক্কেবারে নতুন নয়। নেটদুনিয়ায় খোঁজ করলে একাধিক মেহেদি ব্লাউজের ডিজাইন দেখতে পাওয়া যায়।



আরও খবর



চবি ছাত্রলীগের বিক্ষোভ: ৪ বিভাগের চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশিত:সোমবার ০১ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে শাখা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি পুনর্গঠনের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধের ডাক দিয়েছে শাখা ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। এর ফলে ৪টি বিভাগের চূড়ান্ত পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

সোমবার পরীক্ষা স্থগিত করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন চবির ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক চৌধুরী আমির মোহাম্মদ মুছা।

তিনি জানান, বিক্ষোভের কারণে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা যেহেতু ক্যাম্পাসে আসতে পারেননি, তাই পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।

ওই ৪ বিভাগ হলো-আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সেস, ফাইন্যান্স বিভাগ ও ফিজিক্যাল এডুকেশন অ্যান্ড স্পোর্টস সায়েন্স বিভাগ।

ফিজিক্যাল এডুকেশন এন্ড স্পোর্টস সায়েন্স বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড.মোহাম্মদ আবুল মনছুর বলেন , 'আমি শুনলাম যে শাটল বন্ধ, শিক্ষক বাস বন্ধ আবার কিছু কিছু ছাত্র নাকি হল থেকে বের হতে পারেনি। তাই পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়েছে।'

সহকারী প্রক্টর শহিদুল ইসলাম বলেন, 'সকালে শাটলের লোকোমাস্টারকে অপহরন করা হয়। শিক্ষক- শিক্ষার্থীরাও আসতে পারেনি। তাই কিছু কিছু বিভাগ পরীক্ষা বাতিল করেছে।'

উল্লেখ্য, রোববার মধ্যরাতে ৩৭৬ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। কমিটি ঘোষণার পর পদবঞ্চিতরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকে তালা লাগিয়ে দেয়। এদিকে অবরোধের কারণে সোমবার সকাল থেকে বন্ধ রয়েছে শাটল ও শিক্ষক বাস।


আরও খবর

পুকুরে ডুবে কিশোরের মৃত্যু

সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২




বগুড়ায় জামায়াতের ১০ সক্রিয় কর্মীকে গ্রেফতার

প্রকাশিত:সোমবার ০১ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বগুড়ার শাজাহানপুরে জামায়াতের ১০ সক্রিয় কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উপজেলার শাজাহানপুর ফটকি ব্রিজের উত্তর পাশে নাশকতার পরিকল্পনায় বৈঠক থেকে রবিবার তাদের গ্রেফতার করা হয়। তাদের কাছে চারটি তাজা ককটেল, শাবল, লাঠিসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম পাওয়া গেছে। পুলিশ তাদেরসহ ৬০ জনের বিরুদ্ধে থানায় বিস্ফোরক ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে পৃথক মামলা করেছে।

শাজাহানপুর থানার ওসি আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, এরা নিজেদের জামায়াতের সক্রিয় কর্মী ও নাশকতার পরিকল্পনার বৈঠকে মিলিত হওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। বিকালে তাদের আদালতের মাধ্যমে বগুড়া জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তীতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

গ্রেফতার জামায়াত কর্মীরা হলেন-বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার সাজাপুর দাড়িকামারী দক্ষিণপাড়ার মৃত বদিউল আলমের ছেলে আবদুল মতিন (৬৭), সুজাবাদ বালাপাড়ার মৃত হাফিজার রহমানের ছেলে আবু বকর সিদ্দিক ঠান্ডু (৫০), সুজাবাদ রাজধানীপাড়ার মাওলানা আবদুল কুদ্দুসের ছেলে মোকাদ্দেসুর রহমান মুত্তাকিম (২৭), সুজাবাদ উত্তরপড়ার মৃত মনির উদ্দিন মন্ডলের ছেলে বিল্লাল হোসেন (৪২), জামুন্না বগুড়াপাড়ার মৃত শওকাত আলীর ছেলে আমিনুল ইসলাম (৫৫), লতিফপুর মধ্যপাড়ার মৃত আবদুল মজিদের ছেলে নজরুল ইসলাম (৫২), বেজোড়া দক্ষিণপাড়ার মৃত সাহেব আলী সরকারের ছেলে আনসার আলী (৫৮), একই গ্রামের আনসার আলীর ছেলে মো: আরাফ (২৭), শেরপুর উপজেলার কলতা গ্রামের মৃত মোবারক আলী প্রামানিকের ছেলে শফিকুল ইসলাম (৫০) ও একই উপজেলা কালশিমাটি গ্রামের আবদুল জলিলের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রবিবার ফজরের নামাজের আগে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার সাজাপুর ফটকি ব্রিজের উত্তরে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের পাশে খোলা মাঠে জামায়াতের সক্রিয় ৪০-৫০ জন কর্মী সমবেত হন। সেখানে তারা কোথাও নাশকতার পরিকল্পনা নিয়ে গোপন বৈঠক করছিলেন। গোপনে এমন খবর পেয়ে শাজাহানপুর থানার ফোর্স সেখানে অভিযান চালান। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জামায়াতের কর্মীরা পালাতে থাকেন। সেখান থেকে ধাওয়া করে উল্লিখিত ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

তাদের কাছে চারটি তাজা ককটেল, চারটি লোহার শাবল, পাঁচটি হাতুড়ি, পাঁচটি লোহার সেনি, কাঠ ও বাঁশের ১৫টি লাঠি পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে শাজাহানপুর থানার এসআই হাসান হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে পৃথক মামলা করেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এরা ১০ জন নিজেদের জামায়াতের সক্রিয় সদস্য বলে দাবি করেছেন।


আরও খবর



হত্যার ভয় দেখিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বান্দরবানের লামা উপজেলায় এক স্কুলছাত্রীকে হত্যার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মো. ফারুক (২০) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে বায়েজিদ থানাধীন আজাদ কলোনি দীঘিরপাড় এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বুধবার (২০ জুলাই) রাত পৌনে ৮টার দিকে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় র‌্যাব।

গ্রেপ্তার ফারুক লামা থানাধীন বুড়ির ঝুম এলাকার বাসিন্দা। বুধবার দুপুরে তাকে লামা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. নূরুল আবছার।

র‌্যাব কর্মকর্তা মো. নূরুল আবছার জানান, ভিকটিম বান্দরবান জেলার লামা থানা এলাকার একটি স্কুলের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী। গত ৮ জানুয়ারি সকালে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় পথে ফারুক নামের ওই যুবক ধারালো ছুরি দিয়ে হত্যার ভয় দেখিয়ে নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষক করে। পরে মোবাইলে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে সে।

ধর্ষণের ভিডিও দেখিয়ে পুনরায় শারীরিক সম্পর্ক করার হুমকি দেয় সে। এ ঘটনায় ২৩ জানুয়ারি ভিকটিমের মা বাদী হয়ে লামা থানায় একটি মামলা করেন। মামলার পর থেকে ফারুক গা ঢাকা দেয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার দিনগত রাতে বায়েজিদের দীঘির পাড় এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

 


আরও খবর



হেলিকপ্টার দুর্ঘটনা: মারা গেলেন র‌্যাবের উইং পরিচালক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৫৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মারা গেলেন র‍্যাপিড আ্যকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) এয়ার উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন (৪৫)।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) দুপুর দেড়টার দিকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

র‍্যাব জানিয়েছে, মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় মেরুদণ্ডে গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৫ আগস্ট তাকে সিঙ্গাপুরে পাঠানো হয়। পরদিন ৬ আগস্ট তার একটি সফল অস্ত্রোপচার হয়। ৭ আগস্ট তাকে নেওয়া হয় আইসিইউতে। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়।

মঙ্গলবার ( ৯ জুলাই) দুপুরে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মৃত্যুর বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন র‍্যাবের লিগ্যাল আ্যন্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, গত ২৭ জুলাই ঢাকার নবাবগঞ্জ এলাকায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণকালীন সময়ে একটি হেলিকপ্টার যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে দুর্ঘটনায় পতিত হয়। পরে ঘটনাস্থল থেকে র‍্যাবের এয়ার উইংয়ের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেনকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে দ্রুত ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়। সেখান থেকেই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয় সিঙ্গাপুরে।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন আরও বলেন, গত ৬ আগস্ট র‍্যাবের এয়ার উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেনের মেরুদণ্ডের সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়। কিন্তু অন্যান্য শারীরিক জটিলতার কারণে তার অবস্থার অবনতি হয়। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার আইসিউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

কমান্ডার মঈন বলেন, তার এই অকাল মৃত্যুতে র‍্যাব ফোর্সেসে কর্মরত সব সদস্য গভীরভাবে শোকাহত ও মর্মাহত। তার মৃত্যুতে দেশ একজন অত্যন্ত দক্ষ পাইলট এবং চৌকস সেনা কর্মকর্তাকে হারালো। তিনি বাবা-মা, স্ত্রী ও দুই পুত্রসন্তানসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেনের অকাল মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, সেনাবাহিনী প্রধান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব, আইজিপি, র‍্যাব মহাপরিচালক ও সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।


আরও খবর



সুবর্ণচরে ওমান প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা: প্রধান আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ২০ জুলাই ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ৮১জন দেখেছেন

Image

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে এক ওমান প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় পলাতক প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নিহত ওমান প্রবাসী কামাল উদ্দিন উপজেরার চরওয়াপদা ৬ নম্বর ওয়ার্ড চরকাজী মোখলেছ গ্রামের ওবায়দুল হক ওদু মিয়ার ছেলে।

গ্রেফতারকৃত মাইন উদ্দিন (৩৬) উপজেলার চর ওয়াপদা ইউনিয়নের সফি উল্যার ছেলে।

বুধবার (২০ জুলাই) সকালে গ্রেফতারকৃত আসামিকে নোয়াখালীর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। এর আগে, গতকাল মঙ্গলবার ভোরে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মদিনা ঘাট এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।  পরে একই দিন সন্ধ্যার দিকে আসামিকে চরজব্বার থানায় আনা হয়।

চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেব প্রিয় দাশ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামি হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভূক্ত পলাতক আসামি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত আসামিকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, পূর্ব শক্রতার জেরধেরে ২০২১ সালের ৯ জুন বিকেলে উপজেলার মালেকের দোকান এলাকায় একই এলাকার মৃত সফি উল্যার ছেলে মাঈন উদ্দিন, রফিক, ইসমাইল, রুহুল আমিনের ছেলে আবুল কালামসহ  হামলাকারীরা কামালকে কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করে। পরে স্থানীয় লোকজন কামালকে উদ্ধার করে প্রথমে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে কামাল মারা যায়। এ ঘটনায় নিহত কামালের ভাই বেলাল বাদী হয়ে চরজব্বার থানায় মাইন উদ্দিনসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা আরও ১০-১২ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।


আরও খবর