Logo
শিরোনাম

প্রোফাইলের তথ্য অপসারণ করছে ফেসবুক

প্রকাশিত:রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ফেসবুকে নতুন পরিবর্তন আনার বিষয়ে কাজ করছে মালিকানা প্রতিষ্ঠান মেটা। এর মধ্যে ব্যক্তিগত প্রোফাইল থেকে সাধারণ ও যোগাযোগের তথ্য অপসারণের বিষয় রয়েছে। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি রাজনৈতিক মতাদর্শ, ধর্ম, লিঙ্গসহ বিভিন্ন তথ্য সরিয়ে দেয়ার জন্য কাজ করছে।

এক সাক্ষাত্কারে মেটার মুখপাত্র এমিল ভাসকেজ গিজমোডোকে জানান, ব্যবহারকারীদের কাজ সহজ করার লক্ষ্যে এ পরিবর্তনগুলো আনা হচ্ছে। পাশাপাশি তাদের ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা ও গোপনীয়তার বিষয়কেও প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে। ব্যবহারকারীদের এরই মধ্যে নতুন পরিবর্তনের বিষয়ে জানানো শুরু করেছে ফেসবুক। নোটিফিকেশনের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের বলা হচ্ছে, ১ ডিসেম্বর থেকে প্রোফাইলে অ্যাড্রেসেস, ইন্টারেস্টেড ইন, রিলেজিয়াস ভিউ ও পলিটিক্যাল ভিউজের তথ্য দেখা যাবে না। যেসব ব্যবহারকারী আগে এসব তথ্য শেয়ার করেছে, আমরা তাদের নোটিফিকেশন পাঠিয়ে এ অংশগুলো মুছে দেয়ার বিষয়ে জানানো হচ্ছে। এ পরিবর্তনে নিজ থেকে এসব তথ্য ফেসবুকের অন্যান্য জায়গায় শেয়ার করার সক্ষমতা প্রভাবিত হবে না। ফেসবুকের আসন্ন এ পরিবর্তন বুধবারই চিহ্নিত করেছিলেন সামাজিক মাধ্যম বিশ্লেষক ম্যাট নাভারা।

প্রযুক্তিবিদ ও বিশ্লেষকদের মতে, ফেসবুকে কারো বিষয়ে মন্তব্য করা বা বৈষম্য তৈরির বিষয়টি রুখতে এ উদ্যোগ নিয়েছে মেটা। ফলে কোনো ব্যবহারকারীর পোস্টে তার ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে আক্রমণ করা যাবে না। শিগগিরই সবার জন্য এটি চালু করা হবে। সেই সঙ্গে প্রয়োজনীয় তথ্য ডাউনলোডের সুবিধাও যুক্ত করবে মেটা।

নিউজ ট্যাগ: ফেসবুক

আরও খবর

হাইড্রোজেন দিয়ে উড়বে উড়োজাহাজ

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২

পুরোনো টুইট আর্কাইভ করবেন যেভাবে

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২




বিশ্বজয়ী ফুটবলারকে হারাল চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শিরোপা ধরে রাখার মিশনে কাতার বিশ্বকাপে খেলতে নামবে ফ্রান্স। তবে তার আগেই বড় ধাক্কা খেল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। হাঁটুর ইনজুরিতে পড়েছেন ফ্রান্সের মধ্য মাঠের প্রাণভোমরা পল পগবা। অনিশ্চিত তার বিশ্বকাপে খেলাও।

কদিন আগেই ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে য়্যুভেন্তাসে পাড়ি জমিয়েছিলেন পগবা। আশা ছিল তুড়িনের বুড়িদের হয়ে বিশ্বকাপের আগেই প্রস্তুতিটা সেরে ফেলবেন। অতঃপর ফুল ফোটাবেন মরুর বুকে। অথচ হাঁটুর ইনজুরিতে পড়ে অনিশ্চিত হয়ে গেছে তার বিশ্বকাপ অংশগ্রহণ।

লা গেজেটা ডেলো স্পোর্টের বরাতে জানা গিয়েছিল, অন্তত দুই মাস মাঠের বাইরে থাকতে হবে পগবাকে। যদিও বৃহস্পতিবারের (২৮ জুলাই) সবশেষ আপডেট অনুযায়ী, অপেক্ষাটা আরও দীর্ঘ হতে যাচ্ছে। হয়ত চলতি বছরে আর খেলতে দেখা যাবে না ফরাসি এ মিডফিল্ডারকে। আর সেটি হলে নিশ্চিতভাবেই বিশ্বকাপ মিস করতে যাচ্ছেন পগবা।

সেরা তারকাকে সারিয়ে তুলতে য়্যুভেন্তাস চাচ্ছে সার্জারির পথে হাঁটতে, আর শেষ পর্যন্ত সেটি হলে অন্তত চার মাস মাঠের বাইরে থাকতে হচ্ছে পগবাকে। এদিকে, কাতার বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে চলতি বছরের নভেম্বরে।

সিরি আ’র ক্লাবটি গত সোমবার (২৫ জুলাই) সর্বপ্রথম এক বিবৃতিতে ২৯ বছর বয়সী এই ফুটবলারের চোটের কথা জানায়। ইনজুরির কারণে খেলতে পারেননি বার্সেলোনার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচেও।

২০১২ সালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছেড়ে প্রথমবারের মতো তুরিনের ওল্ড লেডিদের দলে যোগ দিয়েছিলেন ইংলিশ ক্লাবটির একাডেমির অন্যতম সেরা প্রতিভা পল পগবা। মূলত গেম টাইমের জন্যই ওল্ড ট্রাফোর্ড ছেড়ে অ্যালিয়াঞ্জ স্টেডিয়ামে গিয়েছিলেন তিনি। তারপর চার বছরে কুঁড়ি থেকে ফুল হয়ে ফুটেছেন। নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন সময়ের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডারে। প্রতিভা হারানোর আফসোসে তাকে ফের ওল্ড ট্রাফোর্ডে ফেরানোর জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

শেষ পর্যন্ত ২০১৬ সালে ৮ কোটি ৯০ লাখ পাউন্ড ট্রান্সফার ফিতে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ফিরে আসেন এই ফরাসি। সেখানে শুরুটা ভালোই হয়েছিল। প্রথম মৌসুমেই দলের ইউরোপা লিগ বিজয়ে বড় অবদান রাখেন। কিন্তু সময়ের সঙ্গে ক্লাবটিতে নিজেকে হারিয়ে ফেলেন এই বিশ্বকাপজয়ী। য়্যুভেন্তাস ও ফ্রান্স দলের নৈপুণ্যের ছিটেফোঁটাও দেখাতে পারেননি ইংলিশ জায়ান্টদের হয়ে।

২০২১-২২ মৌসুমের শুরুতেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল এই মৌসুমে আর রেড ডেভিলদের শিবিরে থাকছেন না তিনি। চুক্তির মেয়াদ শেষে তিনি আর নতুন করে চুক্তি করবেন না বলে জানিয়ে দেন ক্লাবটিকে। তখন থেকেই জল্পনা চলছিল কোথায় হবে তার পরবর্তী গন্তব্য। একসময় রিয়াল মাদ্রিদ তাকে দলে ভেড়ানোর চেষ্টা করেছে অনেক। আগ্রহ ছিল বার্সেলোনারও। কিন্তু য়্যুভেন্তাসের সঙ্গে পগবার সম্পর্কটা বিশেষ তাই পরবর্তী গন্তব্য যে ইতালির দলটিই, তা নিশ্চিত হওয়া গেছে আগেই। বাকি ছিল শুধু আনুষ্ঠানিকতা। মেডিকেল ও আনুষ্ঠানিকতা সারার পর চলতি জুলাইয়ের দ্বিতীয় সপ্তাহে ইতালিয়ান ক্লাবটির পক্ষ থেকে পগবার চুক্তির বিষয়ে ঘোষণা দেয়া হয়।


আরও খবর

রোনালদোকে টপকে গেলেন মেসি

রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২




ব্রি ধান৮৭: স্বল্প সময়ে বেশি ফলন

প্রকাশিত:রবিবার ২৭ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নাটোর বাগাতিপাড়ার বাঁশবাড়িয়া গ্রাম। সেখানে ডিগ্রি কলেজের আশেপাশের মাঠগুলো একসময় ভরা থাকতো আখক্ষেতে। কিন্তু বেশ কয়েক বছর লোকসানের কারণে এখন আর খুব একটা আখ চাষ করেন না চাষিরা। কয়েক বছরে তারা আম বাগানে ঝুঁকেছে। এসব বাগানে মৌসুম ছাড়া বাকি সময়গুলো ক্ষেত একদম অনাবাদি থাকতো। কিন্তু চলতি বছর থেকে ওইসব ক্ষেতের ফসলবিন্যাসে ব্যাপক পরিবর্তন এসেছে। বাগান ও আশপাশের জমিতে এখন আমন মৌসুমে ব্রি ধান৮৭ চাষ হচ্ছে। তাতে এ বছর আশাতীত ফলনও পেয়েছেন চাষিরা।

সরেজমিনে এ এলাকায় দেখা গেছে, আগে যেখানে আখক্ষেত ছিল, এখন সেই মাঠগুলো দিগন্ত বিস্তৃত হলুদ ধানের শীষে পূর্ণ। পাকা ধান মুখে তুলে উড়ে যাচ্ছে পাখির ঝাঁক। এরমধ্যে রাস্তার দুই পাশে আম বাগানও রয়েছে। বাগানের গাছের ফাঁকেও উঁকি দিচ্ছে সোনালি ধান। যেদিকে চোখ যায়, সেদিকেই নজরকাড়া ফসলের মাঠ। মাঠের প্রায় সবগুলো ব্রি ধান৮৭ এর জাত।

মাহফুজ হোসেন নামে এক চাষি চার বিঘা জমিতে ব্রি ধান৮৭ চাষ করেছেন। তিনি বলেন, আগে এসব মাঠে আখ হতো। এরপর তিন-চার বছর আমন মৌসুমে স্বর্ণা ধান চাষ করতাম। কিন্তু স্বর্ণা ধান বেশ মোটা। ফলনও কম। পরে কৃষি বিভাগের পরামর্শে গ্রামের তিন-চারজন ব্রি ধান৮৭ জাতের ধানের আবাদ শুরু করি গত বছর। ওই বছর আমরা বাম্পার ফলন পাওয়ার কারণে এ বছর বেশিরভাগ চাষি এ জাত রোপণ করেছে। কেউ কেউ ধান কেটেছেও। খুব ভালো ফলন হয়েছে। গ্রামের মানুষ ভালো ফলন পেয়ে খুশি। বিঘায় প্রায় ২২ থেকে ২৪ মণ ধান হয়েছে। এ জাতের চালও বেশ চিকন। স্বর্ণা বা যে কোনো জাতের চেয়ে ধানের দামও বেশি। গত বছর প্রতি মণ ধান ১ হাজার ৩০০ টাকায় পাওয়া গেছে। এ বছর আরও ভালো দাম মিলবে বলে আশা করছি।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, ব্রি ধান৮৭ ব্লাস্ট প্রতিরোধী। গাছগুলো শক্ত, শীষ বড়। সে কারণে বাতাসে হেলে পড়ে না। সেজন্য ওই এলাকায় ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ে কোনো ক্ষতি হয়নি ধানের। পোকার আক্রমণ নেই। জীবনকালও কম। হেক্টরপ্রতি সাড়ে ৭ টন ফলন পাওয়া যাচ্ছে। সবমিলে এখন কৃষকের কাছে জনপ্রিয় হয়েছে জাতটি।

এ ধানের জাত অবিষ্কার করেছে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি)। সংস্থাটি বলছে, হোমোজাইগাস কৌলিক সারি নির্বাচনের পর তিন বছর ফলন পরীক্ষা করে পরে ওই কৌলিক সারিটি আমন ২০১৬ মৌসুমে বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় কৃষকের মাঠে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করা হয়, যা ২০১৮ সালে জাতীয় বীজ বোর্ড কর্তৃক আমন মৌসুমে চাষের জন্য ছাড়করণ করা হয়েছে। এরপর গত বছর থেকে জাতটির বাণিজ্যিক চাষাবাদ জোরদার হয়েছে। পূর্ণ বয়স্ক ব্রি ধান৮৭ এর গাছের গড় উচ্চতা ১২২ সেন্টিমিটার। এ জাতের গাছের কাণ্ড শক্ত তাই গাছ লম্বা হলেও ঢলে পড়ে না। চালের আকার আকৃতি লম্বা ও চিকন। ভাত ঝরঝরে। এ ধানের ১ হাজার পুষ্ট ধানের ওজন প্রায় ২৪.১ গ্রাম। এ চাল রপ্তানিযোগ্য। গাছ বড় বলে এ ধানের খড় থেকেও ভালো লাভবান হয় চাষিরা।

বাঁশবাড়িয়া গ্রামের আরেক কৃষক মজিবুর রহমান আমবাগানে ব্রি ধান৮৭ চাষ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। তিনি বলেন, এক সময় আম বাগান সারা বছর খালি পড়ে থাকতো। ব্রি ধান৮৭ এর গাছ বেশ শক্ত হওয়ায় কোনো ক্ষতি হচ্ছে না। আমের পাশাপাশি ধানও পাওয়া যাচ্ছে। ফলনও ভালো। রোগমুক্ত। একটি ধানও নষ্ট হয়নি। তার দেখাদেখি গ্রামের অন্য আম বাগানের মালিকরাও একই পথে হাঁটছেন।

কৃষক আব্দুর রহিম গত ১০ বছর ধরে ১০ বিঘা জমিতে আমন মৌসুমে ভারতীয় উচ্চ ফলনশীল (উফশী) জাতের ধান স্বর্ণা চাষ করছেন। কিন্তু কয়েক বছর ধরে এ ধানের ফলন কমছে। প্রতিবিঘায় পাঁচ টনের বেশি ধান পান না। পোকার আক্রমণ হয় বেশি। চাল মোটা হওয়ায় দামও বেশি পাওয়া যায় না। ফলে স্বর্ণা ছেড়ে এখন ব্রি ধান৮৭ চাষে ঝুঁকেছেন তিনি।

ধান চাষিরা জানান, স্বর্ণা ধানের জীবনকাল ১৪৫ দিন আর ব্রি ধান৮৭ চিকন আমন ধানের জীবনকাল ১২৭ দিন। স্বর্ণা ধান পাকার ১৫ দিন আগেই কাটা যায় ব্রি ধান৮৭ জাতের চিকন আমন ধান। মোটা জাতের স্বর্ণা ও গুটি স্বর্ণা ধান বাজারে বিক্রি করতে গেলে মহাজনরা কথাই বলতে চান না। তবে চিকন আমন ধান আড়তদার, চাতাল মালিক ও মহাজনরা আগ্রহ করে কিনছেন। কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এ জাতের ধানে চিটা নেই বললেই চলে। আগাম ফসল কাটতে পারায় ওই জমিতে এখন সরিষা, আলুসহ অন্যান্য রবিশস্য চাষ করার উৎসাহ পেয়েছেন কৃষকরা। বাম্পার ফলনের খবরে প্রতিদিনই আশপাশের বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা দেখতে আসছেন নতুন জাতের ধান। তারাও আগামীতে উচ্চফলন পেতে এই ধান চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

ব্রি বলছে, শুধু নাটোর নয়, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এখন ব্রি ধান৮৭ ধন্য ফলন। ফলনে আমনের অন্যান্য সব ধানের জাতকে পেছনে ফেলেছে এটি। সারাদেশে জাতটি ছড়িয়ে দিতে কাজ করছে প্রতিষ্ঠানটি। আমন মৌসুমের জাত কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে মাঠে আছেন ব্রির কর্মকর্তারা। নিচ্ছেন নানা পদক্ষেপ।

ব্রি রাজশাহী আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান ও মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. ফজলুল ইসলাম বলেন, রাজশাহী অঞ্চলে ৮৩৭টি ব্লক আছে। প্রতিটি ব্লকে এক বিঘা করে প্রদর্শনীর জন্য বীজ সহায়তা দিয়েছি। কৃষকদের প্রশিক্ষণ ও সার দেওয়া হয়েছে। ব্রি৮৭ ধান কেটে সরিষা, মসুর ডাল, ছোলাসহ বিভিন্ন ডালজাতীয় ফসল আবাদ করা যাবে। নির্ধারিত মৌসুমের সময় অনুসারে এবং সরিষা তুলে বোরো চাষ করা যাবে অতি সহজে।

ব্রির মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর বলেন, ব্রি উদ্ভাবিত নিত্যনতুন এ জাতগুলো খাদ্যসংকট মোকাবিলায় সহায়ক হবে। আমাদের উদ্ভাবিত ১০৮টি জাতের মধ্যে অনেকগুলো উচ্চ ফলনশীল। এসব জাত চাষের কারণে আগামীতে খাদ্য সংকটের কোনো শঙ্কা নেই। খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিতে উচ্চ ফলনশীল ব্রি ধান৮৭ আবাদ সম্প্রসারণে কাজ করছে কৃষি বিভাগ। অল্প দিনের মধ্যেই ব্রি ৮৭ ধান আমন মৌসুমের প্রধান শস্যে পরিণত হবে।

নিউজ ট্যাগ: ব্রি ধান৮৭

আরও খবর



পাকিস্তানকে ১ হাজার ৩০০ কোটি ডলার দেবে চীন-সৌদি

প্রকাশিত:রবিবার ০৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরে পাকিস্তানকে ১ হাজার ৩০০ কোটি ডলারের ঋণ ও সহায়তা দেবে বলে আশ্বাস দিয়েছে দেশটির দুই পুরোনো মিত্র চীন ও সৌদি আরব। পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী ইশাক দার শুক্রবার এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছেন। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে, এই ১ হাজার ৩০০ কোটি ডলারের মধ্যে ৫৭০ কোটি ডলার ঋণ হিসেবে প্রদান করা হবে, আর বাকি অর্থ পাকিস্তানকে দেওয়া হবে আর্থিক সহায়তা হিসেবে।

পাকিস্তানের অর্থনীতিবিদদের মতে, চলতি অর্থ বছরে সরকার যে পরিমাণ বৈদেশিক বিনিয়োগ আসতে পারে বলে ধারণা করেছিল, শতকরা হিসেবে এই অর্থের পরিমাণ তার ৩৮ শতাংশ। চীনের কাছে পাকিস্তানের বকেয়া ‍ঋণ জমেছে ৭৩০ কোটি ডলার। গত ২ নভেম্বর চীন সফরে গিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ বকেয়া ঋণ পরিশোধের মেয়াদ বাড়ানো এবং আরও ১৫০ কোটি ডলার নতুন ‍ঋণের আবেদন করেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের কাছে।

পাক প্রধানমন্ত্রীর আবেদনে সাড়া দিয়ে শি জিনপিং ঋণ পরিশোধের মেয়াদ বাড়িয়েছেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে, সেই সঙ্গে ১৫০ কোটি ডলার ‍ঋণসহ ৬শ কোটি টাকার সহয়তা প্রদান করা হবে বলে শেহবাজকে আশ্বাস দিয়েছেন জিনপিং। এছাড়া সম্প্রতি সৌদি সরকারের কাছে ৩০০ কোটি ডলার ঋণ চেয়েছিল পাকিস্তানের অর্থমন্ত্রী। সেই আবেদনেও সাড়া মিলেছে। দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পাকিস্তানকে মোট ৬৬০ কোটি ডলার প্রদান করবে সৌদি। তার মধ্যে ২৪০ কোটি ডলার ঋণ ও ৪২০ কোটি ডলার সহায়তা হিসেবে প্রদান করা হবে।

বিদেশি মুদ্রার মজুত কমে যাওয়ায় চলতি বছরের শুরু থেকেই নড়বড়ে অবস্থায় ছিল পাকিস্তানের অর্থনীতি। উপরন্তু গত বর্ষায় ব্যাপক বর্ষণ ও তার প্রভাবে দেশটির উত্তর দিকের পার্বত্য অঞ্চলের হিমবাহ গলে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়ে দেশটি। ইতিহাসে এত বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ এর আগে দেখেনি পাকিস্তান। গত জুন মাসে শুরু হওয়া এই মহাদুর্যোগে দেশটির এক তৃতীয়াংশের বেশি এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়, নিহত হন প্রায় ২ হাজার মানুষ।

এছাড়া বন্যায় লাখ লাখ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়েছে, মারা গেছে হাজার হাজার গবাদিপশু, বাঁধ ও অন্যান্য সরকারি স্থাপনারও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সরকারি হিসেবেই বন্যায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ছাড়িয়েছে ৩ হাজার কোটি ডলার। দীর্ঘদিনের সামরিক শাসন, প্রশাসনিক অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মের কারণে ২০১৭ সাল থেকেই পাকিস্তানের অর্থনীতিতে দুরাবস্থা চলছিল। সংকট কাটিয়ে উঠতে ওই সময় থেকেই চীনের কাছ থেকে ‍ঋণ নেওয়া শুরু করে দেশটির সরকার। তার আগেও অবশ্য বিভিন্ন সময়ে চীনের কাছ থেকে আর্থিক ঋণ নিয়েছে পাকিস্তান।

দীর্ঘদিনের সামরিক শাসন, প্রশাসনিক অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মের কারণে ২০১৭ সাল থেকেই পাকিস্তানের অর্থনীতিতে দুরাবস্থা চলছিল। সংকট কাটিয়ে উঠতে ওই সময় থেকেই চীন ও সৌদির কাছ থেকে ‍ঋণ নেওয়া শুরু করে দেশটির সরকার। তার আগেও অবশ্য বিভিন্ন সময়ে এ দুই দেশের কাছ থেকে আর্থিক ঋণ নিয়েছে পাকিস্তান।

নিউজ ট্যাগ: পাকিস্তান

আরও খবর



‘সম্মেলনের আগে ছাত্রলীগ কোনো কমিটি দিতে পারবে না’

প্রকাশিত:শনিবার ১২ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০২ ডিসেম্বর 2০২2 | ৫৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আগামী ৩ ডিসেম্বর জাতীয় সম্মেলনের আগে ছাত্রলীগের বর্তমানের দায়িত্বপ্রাপ্তরা নতুন করে আর কোনো কমিটি দিতে পারবে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

শনিবার (১২ নভেম্বর) আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সভায় তিনি এ কথা বলেন।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ছাত্রলীগ নতুন করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কোনো জেলা, উপজেলা কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা সর্বপরি কোনো শাখার কাগুজে কমিটি দিতে পারবে না।

জানা গেছে, গত ৪ নভেম্বর সম্মেলনের তারিখ চূড়ান্ত হওয়ার পর ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বেশ কিছু শাখার কমিটি দেওয়ার পর বিতর্ক তৈরি হয়। তাই এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলন আগামী ৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। ২০১৮ সালের মে মাসে ছাত্রলীগের সর্বশেষ সম্মেলনে অনুষ্ঠিত হয়।


আরও খবর



বিশ্বের '৮০০ কোটিতম' শিশুটির জন্ম ফিলিপাইনে

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ডিসেম্বর ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাতিসংঘের তথ্য মতে গতকাল মঙ্গলবার বিশ্বের জনসংখ্যা ৮০০ কোটিতে পৌঁছেছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য বলছে, মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টা নাগাদ ধরিত্রির জনসংখ্যা দাঁড়ায় ৮০০ কোটি ২৮ হাজার জনে। সংস্থার প্রতিবেদন অনুযায়ী, মধ্যম আয়ের দেশগুলো, প্রধানত এশিয়ায় জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার সবচেয়ে বেশি।

মঙ্গলবারের বিশেষ এই দিনটিতে ভূমিষ্ঠ হয়ে ৮০০ কোটিতম (প্রতীকী) শিশুর স্বীকৃতি পেল এক মেয়েশিশু। নাম তার ভিনিস মাবাসাং। ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলার তোন্দো শহরে জন্ম হয় ভিনিসের।

ডক্টর জোস ফাবেলা মেমোরিয়াল নামক একটি হাসপাতালে স্থানীয় সময় রাত ১টা ৩০ মিনিটে জন্ম নিয়েছে ভিনিস। বিশেষ ক্ষণে জন্ম নেওয়ায় ভিনিস পেয়েছে অন্যরকম এক অভ্যর্থনা। ফিলিপাইনের জনসংখ্যা ও উন্নয়ন কমিশন শিশুটির জন্ম উদযাপন করে।

এরপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভিনিস ও তার মায়ের ছবি প্রকাশ করে তারা। ফেসবুক পোস্টে লেখা হয়, ম্যানিলার তোন্দোতে একটি মেয়েশিশুর জন্মের মাধ্যমে জনসংখ্যার আরেকটি মাইলস্টোনে পৌঁছেছে বিশ্ব। বিশ্বের ৮০০ কোটিতম মানুষের (প্রতীকী) শহর হলো ম্যানিলা।’

এর আগে বিশ্বের ৭০০ কোটিতম শিশু হিসেবে আলোচনায় আসে বাংলাদেশের সাদিয়া সুলতানা ঐশীর নাম। ঢাকার এক মধ্যবিত্ত পরিবারের আশার আলো হয়ে ২০১১ সালে জন্ম সাদিয়ার। সাদিয়ার বয়স এখন ১১ বছর।

জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরেস এক বিবৃতিতে বলেছেন, এই মাইলফলকটি বৈচিত্র্য এবং অগ্রগতি উদযাপনের একটি উপলক্ষ, পৃথিবী নামক গ্রহটির জন্য মানবতা ভাগাভাগি করার দায়িত্বের কথা বিবেচনা করে।’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ এবং জাপানে জন্ম হার ক্রমাগত হ্রাস পাচ্ছে। জনসংখ্যার হার কমায় চীন একন তার এক শিশু নীতি কর্মসূচি বদলাচ্ছে এবং গত বছর পরিবারগুলোকে দ্বিতীয় এবং এমনকি তৃতীয় সন্তান নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে দেশটির সরকার।


আরও খবর