Logo
শিরোনাম

সেরা করদাতা হলেন আইজিপি

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং কর অঞ্চল ময়মনসিংহের সার্বিক মূল্যায়নের ভিত্তিতে ড. বেনজীর আহমেদকে দীর্ঘমেয়াদী সেরা করদাতা হিসেবে পুরস্কার প্রদান করে

ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ সেরা করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন। পুলিশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০২০-২০২১ কর বছরে কিশোরগঞ্জ জেলার দীর্ঘ সময় আয়কর প্রদানকারী শ্রেণিতে তাঁকে এ সম্মাননায় ভূষিত করা হয়। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এ সম্মাননা প্রদান করে।

আইজিপি কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থাকাকালে অর্থাৎ চাকরি জীবনের শুরুতেই সরকারকে কর প্রদান শুরু করেন। তিনি বিভিন্ন কর্মস্থলে চাকরি করলেও ময়মনসিংহ কর অঞ্চলের করদাতা হিসেবে দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে কিশোরগঞ্জ জেলায় কর প্রদান করে আসছেন।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং কর অঞ্চল ময়মনসিংহের সার্বিক মূল্যায়নের ভিত্তিতে ড. বেনজীর আহমেদকে দীর্ঘমেয়াদী সেরা করদাতা হিসেবে পুরস্কার প্রদান করে। পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে ক্রেস্ট, কর কার্ড ও অন্যান্য সামগ্রী।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে ময়মনসিংহ কর অঞ্চলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আজ বুধবার এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। আইজিপি সরকারি সফরে দেশের বাইরে অবস্থান করায় তাঁর পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি ব্যারিস্টার মো. হারুন অর রশিদ।

নিউজ ট্যাগ: ড. বেনজীর আহমেদ

আরও খবর

বিশ্ববাজারে কমেছে স্বর্ণের দাম

শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১




ভুলেও পানি খাবেন না যে সব সময়

প্রকাশিত:সোমবার ০১ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৫ নভেম্বর ২০২১ | ৮০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পানি পান করা শরীরের জন্য অত্যন্ত জরুরি। কিন্তু এমন কিছু সময় আছে, যখন পানি পান করলেই হতে পারে মারাত্মক বিপদ!

জীবনধারণের জন্য পানি পান করতেই হয়। পানি শুধু পিপাসা মেটায় না, পানি শরীরকে সক্রিয় ও সুস্থও রাখে। তবে শরীর বেশিক্ষণ পানি সংরক্ষণ করে রাখতে পারে না। ফলে কিডনি, অন্ত্র, ত্বক ও ফুসফুসের মাধ্যমে শরীর থেকে প্রতিদিন আড়াই লিটার পানি বেরিয়ে যায়। শরীরে পানির অভাবে সাধারণত মাথাব্যথা, মনোযোগে ব্যাঘাত, মাথাঘোরা, শুষ্ক ত্বক, ঘন প্রস্রাব ইত্যাদি হয়ে থাকে।

শীত হোক বা গরম হোক- পানি পানের প্রবণতা অনেকেরই বেশি থাকে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু বিশুদ্ধ ও পরিমিত পানি পানে অনেক রোগের উপকার পাওয়া যায়। তাই বলে, যখন তখন পানি পান করা যাবে না। এমন ৩টি সময় আছে, যখন পানি পান করলে হতে পারে মারাত্মক সমস্যা। চলুন জেনে নেওয়া যাক, কখন মোটেও পানি পান করা যাবে না।

শরীর চর্চার পরে:

শরীর চর্চার সময় প্রচুর ঘাম হয়। ফলে শরীরে পানির চাহিদা বেড়ে যায়। তখন ঢকঢক করে অনেকেই পানি পান করেন। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে কিডনির ওপর চাপ পড়ে। তাই কিছুটা সময় বিশ্রাম নিয়ে তার পরই পানি পান করা উচিত।

ঘুমের আগে:

ঘুমাতে যাওয়ার আগে অনেকেই পানি পান করেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি মোটেও ঠিক অভ্যাস না। এতে কিডনির ওপর চাপ পড়ে। তা ছাড়া প্রস্রাবের চাপে ঘুম ভেঙে যেতে পারে। তাতে হৃদযন্ত্রের ক্ষতি হয়।

ঝাল খাওয়ার পরে:

খাবার খাওয়ার সময়ে ঝাল লাগলে অনেকেই পানি পান করতে থাকেন। বিশেষ করে শিশুদের ঝাল লাগলে তো তাদের পানি খাইয়ে দেওয়াই হয়। কিন্তু এটি ঠিক কাজ নয়। খাবারের যে উপাদানের কারণে ঝাল লেগেছে, সেটির ফলে গোটা পেটে ছড়িয়ে পড়ে। এতে হজমের সমস্যা হয়। অন্ত্রের অন্য সমস্যাও হতে পারে। তাই ঝাল ধীরে ধীরে মুখেই সইয়ে নেওয়া ভালো বলে মত বিশেষজ্ঞদের।


নিউজ ট্যাগ: শরীরচর্চা পানি

আরও খবর

আজকের ভালো মন্দ

রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১




১৬ ডিসেম্বর ঢাকা আসছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আগামী ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর সমাপনী অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ঢাকায় আসবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। রোববার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা ভারতের রাষ্ট্রপতি এবং ভুটানের সাবেক রাজাকে ১৬ ডিসেম্বরের জন্য দাওয়াত দিয়েছি। ইতোমধ্যে ভারত দেশটির রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফর নিশ্চিত করলেও ভুটান থেকে এখনও নিশ্চিত করা হয়নি।

দুই দেশের কূটনৈতিক সূত্র জানায়, ভারতের রাষ্ট্রপতির ১৫ ডিসেম্বর তিনদিনের সফরে ঢাকায় আসার কথা রয়েছে। এজন্য ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী দিবসে ভারতে এবং ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশে-দুই দেশের মধ্যে উচ্চপর্যায়ের সফর ঘিরে প্রস্তুতি চলছে।

সূত্র জানায়, ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল নিকট প্রতিবেশী ভারত। দিনটিকে স্মরণীয় করতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৬ ডিসেম্বরকে মৈত্রী দিবস হিসাবে ঘোষণা করেন।

৬ ডিসেম্বর দিনটিতে ভারত আয়োজিত মৈত্রী দিবসের অনুষ্ঠানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট কন্যা শেখ রেহানাকে অতিথি হিসেবে নয়াদিল্লি সফরের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।



আরও খবর



জাহাঙ্গীর আলম মেয়র পদ থেকে বরখাস্ত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগ থেকে আজীবন বহিষ্কার হওয়া জাহাঙ্গীর আলমকে মেয়র পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম গণমাধ্যমকে এ কথা বলেন।

এরই মধ্যে গাজীপুর সিটি করপোরেশনে তিন সদস্যের প্যানেল মেয়র গঠন করা হয়েছে।

এর আগে জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগ ওঠে। গত ২২ সেপ্টেম্বর ফেসবুকে গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।

চার মিনিটের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, মহান মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলকে কটূক্তি করেন। এমনকি রাষ্ট্রীয় দুটি সংস্থা নিয়েও নানা আপত্তিকর মন্তব্য করেন তিনি। জাহাঙ্গীর মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর দেশ স্বাধীন করার উদ্দেশ্য নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

এ ঘটনায় গাজীপুরে মেয়রের শাস্তির দাবিতে মশাল মিছিল বের হয়। রাজনীতির অঙ্গনে জাহাঙ্গীরের বক্তব্য নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। গাজীপুরের পরিস্থিতি শান্ত করতে আওয়ামী লীগ উদ্যোগ নেয়।

গত ৩ অক্টেবর দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে জাহাঙ্গীর আলমকে শোকজ করে আওয়ামী লীগ। এতে সই করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। নোটিশে ১৫ দিনের মধ্যে জাহাঙ্গীরকে জবাব দিতে বলা হয়। শোকজের জবাব দিয়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চান জাহাঙ্গীর। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ক্ষমা পাননি তিনি।

শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে জাহাঙ্গীর আলমের প্রাথমিক সদস্য পদ বাতিল করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশও দেওয়া হয়।


আরও খবর



১২ ঘণ্টাও ক্ষমতায় থাকতে পারলেন না সুইডিশ প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৪১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সুইডেনের ১০০ বছরের ইতিহাসে প্রথম প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়েছিলেন ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন। দায়িত্ব নেওয়ার ১২ ঘণ্টা না যেতেই বুধবার পদত্যাগ করেছেন। জোটের শরিক গ্রিন পার্টি সরকারের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নিলে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট পার্টির নেতা অ্যান্ডারসন বুধবার পদ ছাড়তে বাধ্য হন। খবর রয়টার্সের।

পদ ছাড়ার আগে পার্লামেন্টে দেওয়া ভাষণে অ্যান্ডারসন আবারও প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আশা প্রকাশ করেন। সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা হিসেবে অন্য একটি দলের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠনের কথা বলেন তিনি। গ্রিন পার্টি জোর সরকারের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নিয়ে সুইডেনের পার্লামেন্ট বাজেট বিল প্রত্যাখ্যান হয়।

পদত্যাগের পর এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যান্ডারসন বলেন, আমিই স্পিকারকে বলেছিলাম যেন আমাকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। সংখ্যাগরিষ্ঠ পার্টির নেতা হিসেবে আমি আবারও প্রধানমন্ত্রী হব।

বুধবার সুইডেনের পার্লামেন্টে ভোটাভুটিতে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন। এর আগে তিনি দেশটির অর্থমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। একই সঙ্গে সুইডিশ রাজনৈতিক দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেতৃত্বেও রয়েছেন ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন।

সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির এই নেতা জানান, সুইডেনের সাংবিধানিক রীতি অনুযায়ী, জোটগতভাবে গঠিত কোনো সরকার থেকে একটি দল বেরিয়ে গেলে পুরো সরকারেরই পদত্যাগ করা উচিত।  তার ভাষায়, আমি এমন কোনো সরকারের নেতৃত্বে থাকতে চাই না, যার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে।

এদিকে দলীয় নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সুইডিশ পার্লামেন্টের স্পিকার। জানা গেছে, গ্রিন পার্টি সমর্থন প্রত্যাহার করে নিলেও বাম দলগুলো অ্যান্ডারসনকে সমর্থন দিতে চায়। এ ক্ষেত্রে অ্যান্ডারসনের আবারও প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সুযোগ আছে।

গত ১০ নভেম্বর সুইডেনের মধ্য-বামপন্থি প্রধানমন্ত্রী স্টিফান লোফভেন আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগ করায় বুধবার তার স্থলাভিষিক্ত হন ম্যাগডালেনা অ্যান্ডারসন।  প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য সুইডেনের ৩৪৯ আসনের সংসদে অ্যান্ডারসনের পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন ১১৭ জন, ভোটদান থেকে বিরত ছিলেন ৫৭ জন, বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন ১৭৪ জন এবং একজন অনুপস্থিত ছিলেন।

সুইডেনের সংবিধান অনুসারে, প্রধানমন্ত্রী হতে কারও তার পক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পড়ার দরকার নেই, শুধু সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্য তার বিরোধিতা না করলেই হলো।

গণতন্ত্র সূচক ও এইচডিআই সূচতে সুইডেন এগিয়ে থাকলেও লৈঙ্গিক সমতায় পিছিয়ে ইউরোপের এই দেশ। গত ১০০ বছরে এই প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী পেয়েছিল দেশটির জনগণ।  সেটিও টিকল ১২ ঘণ্টার কম।

প্রতিবেশী নরওয়েতে ৪০ বছর আগে নারী প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় এসেছিল। এশিয়ার দেশ শ্রীলংকায় প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নেয়, ১৯৬০ সালে।


আরও খবর



বেসরকারি কোম্পানির মাধ্যমে সেই ফেরি উদ্ধারের সিদ্ধান্ত

প্রকাশিত:রবিবার ৩১ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ নভেম্বর ২০২১ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সরকারের উদ্ধারকারী জাহাজগুলোর সক্ষমতা না থাকায় অবশেষে ফেরিডুবির ৫ দিনের মাথায় সিদ্ধান্ত হলো অর্ধডুবন্ত আমানত শাহকে উদ্ধার করা হবে প্রাইভেট কোম্পানি দিয়ে। চট্টগ্রামের প্রাইভেট কোম্পানি জেনুইন এন্টারপ্রাইজ এ ফেরিটি উদ্ধার করবে।

ফেরিডুবির ঘটনায় উদ্ধার কাজের প্রধান সমন্বয়ক বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক (উদ্ধার) মো. ফজলুল রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। জেনুইন এন্টারপ্রাইজের পৃথক ছয়টি উইনস বার্জ ফেরিটি উদ্ধার কাজে নামবে।

সোমবার থেকে অর্ধডুবন্ত আমানত শাহ উদ্ধারের বেসিক কাজ শুরু হবে। ইতোমধ্যে ওই প্রাইভেট কোম্পানিকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক (উদ্ধার) মো. ফজলুল রহমান জানান, রোববার দুপুরে নৌ মন্ত্রণালয় থেকে এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি জানান, ফেরি উদ্ধারের যাবতীয় ব্যয় বহন করবে বিআইডব্লিউটিএ। তবে নৌ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনক্রমে।

তিনি আরও জানান, মন্ত্রণালয়ে জরুরি বৈঠক শেষে সিদ্ধান্ত হয় ফেরি উদ্ধারের। আর উদ্ধার কাজে চুক্তি হয়েছে চট্টগ্রামের প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান জেনুইন এন্টারপ্রাইজের সঙ্গে।

এদিকে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, ফেরিটি উদ্ধারে চট্টগ্রামের প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান জেনুইন এন্টারপ্রাইজের মালিক আলহাজ বদিউল আলমের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সোমবার থেকে পাটুরিয়া ৫নং ফেরি ঘাটের কাছে অর্ধডুবন্ত ফেরি আমানত শাহ উদ্ধারের বেসিক কাজ শুরু হবে।


আরও খবর