Logo
শিরোনাম

সিরাজগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও একজন। উপজেলার মহিষলুটি বাজার এলাকায় হাটিকুমরুল-বনপাড়া মহাসড়কে এবং ৯ নম্বর ব্রিজ এলাকায় আজ রবিবার সকালে এই দুর্ঘটনা দুটি ঘটে।

নিহত তিনজনের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তিনি হলেন, উল্লাপাড়া উপজেলার পাগলা মধ্যপাড়া গ্রামের সলিম উদ্দিনের ছেলে শাহীন (৪৫)।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল্লাহ হেল বাকি জানান, আজ সকালে মহিষলুটি বাজারে একটি ট্রাক দাঁড়িয়ে ছিল। এ সময় পেছন থেকে অপর একটি ট্রাক ধাক্কা দেয়। এতে শাহীন নামের এক ব্যক্তি নিহত হন।

অপরদিকে, ৯ নম্বর ব্রিজ এলাকায় একই মহাসড়কে ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই অজ্ঞাত এক ব্যক্তি নিহত হন। এ সময় আহত হন আরও দুজন। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার করেন। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকায় নেওয়ার পথে আরও একজনের মৃত্যু হয়।


আরও খবর



ঢাকায় অঝোরে বৃষ্টি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানী ঢাকায় ঝরছে অঝোর বৃষ্টি। মঙ্গলবার (১১ মে) সকাল ১০টার দিকে শুরু হয় এ বৃষ্টিপাত। সঙ্গে ছিল দমকা হাওয়া ও বজ্রপাত। এদিন ভোরেও বৃষ্টিতে ভিজেছিল ঢাক। বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয় মঙ্গলবার ভোরে। ভোর ৪টা থেকে সকাল সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ঢাকায় ২৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

স্বস্তির বৃষ্টি হলেও কিছুটা নাকাল হচ্ছেন রাজধানীবাসী। অফিসগামীদের পড়তে হয়েছে বিড়ম্বনায়। অনেক স্থানেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, সিলেট, ঢাকা, বরিশাল, খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে।

আগামী ৪৮ ঘণ্টায় দেশের কিছু জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে। বর্ধিত পাঁচদিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সপ্তাহের শেষের দিকে বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের প্রবণতা কমতে পারে।

আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থা সম্পর্কে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বাড়তি অংশ পশ্চিমবঙ্গ ও এর কাছাকাছি এলাকায় অবস্থান করছে। এদিকে বন্যার পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান সব নদ ও নদীর পানি সমতল বাড়ছে এবং বিপৎসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদফতর ও ভারত আবহাওয়া অধিদফতরের গাণিতিক মডেলের তথ্য অনুযায়ী, আগামী ৭২ ঘণ্টায় বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও এর কাছাকাছি ভারতের আসাম, মেঘালয় এবং ত্রিপুরায় মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান সব নদ ও নদীর পানি সমতল এই সময়ে দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে। পর্যবেক্ষণাধীন ৩৯টি পানি সমতল স্টেশনের মধ্যে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে ১৯টিতে, হ্রাস পেয়েছে ১৭টিতে এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩টিতে।



আরও খবর

আজ কলাপাড়ায় ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন!

বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১




মুমূর্ষ প্রমত্তা করতোয়াকে বাচাঁবে কে?

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৮৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শেরপুর(বগুড়া) থেকে আবু বকর সিদ্দিক

উজান থেকে পানি প্রবাহ কমে যাওয়া, দখল-দূষণ এবং গতিপথে মানুষের হস্তক্ষেপে বিপন্ন হচ্ছে উত্তরাঞ্চলের অন্যতম প্রধান নদী প্রমত্তা করতোয়া। বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক প্রধান তিনটি নদী পদ্মা মেঘনা যমুনা ছাড়াও সরকারি তথ্য মতে ছোট বড় মিলে ৪০৫টি নদীর হিসেব পাওয়া যায়। করতোয়া নদীর সবচেয়ে খারাপ অবস্থা বগুড়া জেলার শেরপুর অংশে। শহরের ভেতর দিয়ে বয়ে চলা প্রমত্তা করতোয়া নদী এখন মৃত প্রায়। উজান থেকে পানির প্রবাহ নেই। তাই দখল আর আবর্জনার দূষণে এ নদী জর্জরিত। এক কালের প্রমত্তা করতোয়া নদী আজ দখল, শহরের হাট-বাজার, বাসা-বাড়ির বর্জ্য, খনন বা সংস্কার না হওয়া ও দূষণে পচা নর্দমার ড্রেন বা ক্যানেলে পরিণত হয়েছে।

উপজেলার গাড়িদহ ইউনিয়নের ফুলবাড়ি ঘাট, পৌরসভা কার্যালয়ের পূর্বপাশ, বারোদুয়ারী হাট, রনবীরবালা ঘাটপার ও শহীদিয়া আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্নসহ বিভিন্ন এলাকায় করতোয়া নদীর তীরবর্তী ১৮টি স্পট দখল করে ভবন নির্মাণ, সীমানা প্রাচীর, ময়লার ভাগার ফেলে দখল করে রেখেছে দখলবাজরা। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না বলে স্থানীয়দের অভিযোগ অহরহ। একদিকে দীর্ঘদিন খনন না হওয়া ও অন্যদিকে দখল চলতে থাকায় শেরপুরের মানচিত্র থেকে প্রমত্তা করতোয়া নদী তার ঐতিহ্য হারাতে বসেছে।

বচন রয়েছে, কর অর্থ হাত, আর তোয়া অর্থ ধোঁয়া জল, অর্থাৎ হাত ধোয়া জল, হিন্দু ধর্মীয় দেবতা হিমালয়ে ধ্যানমগ্ন শিবের হাত ধোঁয়া জল থেকেই করতোয়া নদীর উৎপত্তি। তাছাড়া বিশিষ্ঠ ইতিহাসবিদ প্রভাত চন্দ্র সেন বগুড়ার ইতিহাস গ্রন্থেও ভারতের হিমালয় পাদদেশ থেকে করতোয়া নদীর উৎপত্তির উল্লেখ রয়েছে। ভারতে শিলিগুড়ি, জলপাইগুড়ি হয়ে বাংলাদেশের পঞ্চগড়ে এ নদী প্রবেশ করে। সেখান থেকে করতোয়া বগুড়ার শহরের বুক চিরে সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়িতে হুরা নদীর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। মোট ৫৯৭ কিলোমিটার বা ৩৭৩ মাইল দৈর্ঘ্যের করতোয়া নদীতে আশির দশকে প্রচুর পানি থাকায় প্রমত্তা ছিল। জনশ্রুতি আছে করতোয়া নদীতে সওদাগরী জাহাজ, লঞ্চ এবং বড় বড় নৌকা বজরা যেটা বলে সেটা যাতায়াত করতো। পণ্য পরিবহন হতো এবং ব্যবসা বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দু ছিল পুর্ন্ড্রবর্ধন নগরী বগুড়া এবং করতোয়া নদীকে কেন্দ্র করে এ অঞ্চলে সভ্যতা গড়ে উঠেছে।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্র্ড ১৯৮৮ সালে উজানে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার খুলশিতে বাধ ও স্যুইচ  গেইট নির্মাণ করে । সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষের অপরিনাম দর্শিতার কারনে করতোয়ার পানি প্রবাহের গতিপথ সম্পূর্ণ বন্ধ ও ভরাট হয়ে গেছে।  সে থেকেই প্রভাবশালীরা ধীরে ধীরে দখল -দূষণ নানা প্রাকৃতিক কারনে বন্যা জনিত ক্ষয়-ক্ষতি ও নদী সংস্কারের অভাবে করতোয়া পূর্বের সকল বৈশিষ্ট্য সম্পূর্ণভাবে হারিয়ে ফেলেছে। অপরিকল্পিত ও অনিয়ন্ত্রিতভাবে দ্রুত নগরায়ন, জনসংখ্যা বৃদ্ধি মানুষের অপরিনামদর্শী কর্মকাণ্ড প্রভাব ফেলেছে করতোয়া নদীর উপর।

এ প্রসঙ্গে পরিবেশবিদরা জানান, করতোয়াকে বাঁচাতে হলে ব্যাপক পরিবেশগত সচেতনতা ও স্থানীয় উদ্যোগে নদীর দুইধার অবকাঠামো মুক্ত রাখতে হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ নদী মার্তৃক দেশ। নদী রক্ষায় সরকার বদ্ধ পরিকর। খুব দ্রুত নদীর খনন কাজ শুরু হবে। এছাড়াও যারা নদী দখল করে বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তুলেছে তা দ্রুত অপসারণ করে করতোয়া নদীকে আগের রুপে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হবে।



আরও খবর



আরও এক সপ্তাহ কঠোর লকডাউনের সুপারিশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ১০৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
করোনা রোগী দ্রুত শনাক্ত করা সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সরকার ল্যাবরেটরির সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য কাজ করছে। সাম্প্রতিককালে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। নমুনা সংগ্রহ সহজ ও রোগীদের হাতের নাগালের

আরও এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউনের সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকালে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

কমিটির ৩১তম সভা রবিবার (১৮ এপ্রিল) দিনগত রাতে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা।

কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বেশ কিছু সুপারিশসমূহ গৃহীত হয়। এতে বলা হয়, আরও এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউনের পরবর্তী সপ্তাহ শেষ হওয়ার আগে সংক্রমণের হার বিবেচনা করে আবার সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে। ধীরে ধীরে লকডাউন শেষ করার পূর্ব পরিকল্পনা প্রস্তুত রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়।

সভায় সংক্রমণের অবস্থা ও প্রতিরোধে গৃহীত পদক্ষেপের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সারাদেশে কোভিড-১৯ এর উচ্চ সংক্রমণ ও ক্রমবর্ধমান মৃত্যুতে সভায় উদ্বেগ প্রকাশ করে কমিটি। জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি কমপক্ষে দুই সপ্তাহের জন্য পূর্ণ লকডাউন সুপারিশ করেছিল। সরকার ইতোমধ্যে ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছে। কমিটি এতে সন্তোষ প্রকাশ করে। যদিও বৈজ্ঞানিকভাবে দুই সপ্তাহের কম লকডাউনে কার্যকর ফলাফল আশা করা যায় না। দেশের অর্থনীতি সচল রাখার স্বার্থে শিল্প-কলকারখানা খোলা রাখার বিষয়টি কমিটি উপলব্ধি করে। তবে বেসরকারি দপ্তর, ব্যাংক খোলা রাখা, ক্রমবর্ধমানভাবে ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল, ইফতার বাজারে অনাকাঙ্ক্ষিত ও অপ্রয়োজনীয় অতিরিক্ত ভিড় লকডাউনের সাফল্যকে অনিশ্চিত করে। পাশাপাশি সভা-সামাজিক সমতার বিষয়েও নীতি নির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। স্বাস্থ্য, ফায়ার সার্ভিস ও অন্যান্য জরুরি সেবা ছাড়া সভায় সবকিছু বন্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়। কমিটি খোলা রাখা জরুরি সেবার তালিকা প্রকাশ করার অনুরোধ করে। অন্যথায় বিরূপ পরিস্থিতির আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। উদাহারণ হিসেবে চলমান লকডাউনে চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের ডিউটির জন্য চলাচলে বাধা ও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়। কাঁচাবাজার উন্মুক্ত স্থানে স্থাপনের প্রস্তাব আবারও দেওয়া হয়।

এতে আরও বলা হয়, ডিএনসিসি কোভিড হাসপাতাল চালু হওয়ায় সভায় সরকারকে অভিনন্দন জানানো হয়। রোগী ভর্তির বাড়তি চাপ থাকায় অতিদ্রুত আরও সক্ষমতা বাড়ানোর ব্যবস্থা গ্রহণের ওপরও জোর দেওয়া হয়।

করোনা রোগী দ্রুত শনাক্ত করা সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সরকার ল্যাবরেটরির সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য কাজ করছে। সাম্প্রতিককালে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। নমুনা সংগ্রহ সহজ ও রোগীদের হাতের নাগালের মধ্যে আনার জন্য শহর অঞ্চলে প্রতি ওয়ার্ডে নমুনা সংগ্রহের বুথ স্থাপন করা প্রয়োজন। সভায় রিপোর্ট দ্রুত পাঠানোর জন্য নমুনা সংগ্রহের বুথে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করার পরামর্শ দেওয়া হয়। 

নমুনা পরীক্ষা সহজলভ্য করার উদ্দেশে কমিটি ইতোমধ্যে সরকারি নমুনা পরীক্ষা বিনামূল্যে করার পরামর্শ দিয়েছে। পিসিআর টেস্ট কিটের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যাওয়ায় বেসরকারি পরীক্ষাগারে নমুনা পরীক্ষার মূল্য পুনর্নির্ধারণের পরামর্শ দেওয়া হয়। এতে যেমন পরীক্ষার সংখ্যা বাড়বে, তেমনিভাবে সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসবে ও সাশ্রয়ীমূল্যে পরীক্ষা করা যাবে। সরকারি ল্যাবরেটরিতে চাপ কিছুটা কমবে। এতে রোগীদের পরীক্ষা ও রিপোর্ট দ্রুত দিয়ে আইসোলেশন নিশ্চিত করা যাবে। যা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরকারি/বেসরকারি সব হাসপাতাল, ক্লিনিকে গর্ভবতী করোনা/নন করোনা মাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা নিশ্চিন্তে করার জন্য অনুরোধ করা হয়। এ ব্যাপারে অন্যথায় উচিত নয়। করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে অবশ্যই গর্ভবতী মাদের সেবার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। নতুন ডিএনসিসি হাসপাতালে গর্ভবতী মাদের একটা কর্নারে বিশেষায়িত (আইসিইউ) ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করা হয়। প্রতিটি হাসপাতাল তার নিজস্ব সক্ষমতা অনুযায়ী চেইন অফ রেফারেন্স সিস্টেম মেনে চলবেন।

সব মৃদু করোনা রোগীদের বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিশ্চিত করার জন্য টেলিমেডিসিন সেবা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। সেইসঙ্গে কোয়ালিটি সেবা নিশ্চিত করার জন্য টেলিমেডিসিন সেবা নিয়মিত মনিটরিং জোরদার করা প্রয়োজন।

নিউজ ট্যাগ: লকডাউন

আরও খবর

ঈদ মোবারক

শুক্রবার ১৪ মে ২০২১




আজ জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক

প্রকাশিত:বুধবার ১২ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৩৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনায় আজ বাদ মাগরিব বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব সাহানে কমিটির এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন

দেশে ঈদুল ফিতরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আজ বুধবার জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হবে। অর্থাৎ ১৪৪২ হিজরি সনের পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা নিয়ে এ সভা হবে।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনায় আজ বাদ মাগরিব বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব সাহানে কমিটির এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

বাংলাদেশের আকাশে কোথাও পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেলে তা নিচের টেলিফোন ও ফ্যাক্স নম্বরে অথবা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক অথবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানোর অনুরোধ জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন। টেলিফোন নম্বর ৯৫৫৯৪৯৩, ৯৫৫৫৯৪৭, ৯৫৫৬৪০৭ ও ৯৫৫৮৩৩৭। ফ্যাক্স নম্বর ৯৫৬৩৩৯৭ ও ৯৫৫৫৯৫১।


আরও খবর



বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৩২ লাখ ৫৫ হাজার ছাড়িয়েছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের তালিকায় দেশটির অবস্থান চতুর্থ। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ২ কোটি ১০ লাখ ৭০ হাজার ৮৫২ জন এবং মারা গেছেন ২ লাখ ৩০ হাজার

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কোনোভাবেই কমছে না। সবশেষ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ কোটি ৫৮ লাখ ১৭ হাজার ১৬০ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২ লাখ ৫৫ হাজার ১৬২ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১৩ কোটি ৩২ লাখ ১৪ হাজার ৭৭৪ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে বৃহস্পতিবার (৬ মে) সকালে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৩৩ লাখ ২১ হাজার ২৪৪ জন আর ৫ লাখ ৯৩ হাজার ১৪৮ জন মারা গেছেন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের তালিকায় দেশটির অবস্থান চতুর্থ। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ২ কোটি ১০ লাখ ৭০ হাজার ৮৫২ জন এবং মারা গেছেন ২ লাখ ৩০ হাজার ১৫১ জন। লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১ কোটি ৪৯ লাখ ৩৬ হাজার ৪৬৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ১৪ হাজার ৬৪৫ জনের।

দেশে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এখন পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১১ হাজার ৭৫৫ জনে। এছাড়াও এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৬৭ হাজার ৩৩৮ জন।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।


আরও খবর