Logo
শিরোনাম

সিরিজ জিততে বাংলাদেশের দরকার ১৯৪ রান

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজে হারের পর দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে এসে প্রথম জয়ের দেখা পায় জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের জয়রথ থামিয়ে অবাক করে দেয় সিকান্দার রাজার দল। তিন ম্যাচ সিরিজ এখন ১-১ এ সমতায়।

রবিবার (২৫ জুলাই) হারারে সিরিজ নির্ধারনী ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৯৩ রান করে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। তাই বাংলাদেশ সিরিজ জিততে হলে করতে হবে ১৯৪ রান।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই ঝড়ো ব্যাটিং করে জিম্বাবুয়ে। বেশ কয়েকবার সুযোগ তৈরি করেও লুফে নিতে পারেনি বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারের শেষ বলে তাদিওয়ানাশে মারুমানিকে বোল্ড করে ফিরিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। এই ওপেনার ১৬ বলে ৩২ রানের ইনিংস খেলেছেন। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে ওয়েসলি মাধেভেরের সঙ্গে জুটি বাঁধেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান রেগিস চাকাবা। এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান উইকেটে এসেই টাইগার বোলারদের ওপর চড়াও হন। নাসুম আহমেদের এক ওভারেই তিনি মারেন ৩ ছক্কা।

সেই ওভার থেকে আসে ২১ রান। ২৮ বলে ৪৮ রান করা চাকাবাকে সীমানায় দারুণ এক ক্যাচ নেন নাঈম শেখ ও শামীম হোসেন মিলে। আউট হওয়ার আগে এই ব্যাটসম্যান করেন ২২ বলে ৪৮ রান। বিপজ্জনক চাকাবাকে ফেরানোর পর সৌম্য সরকার সাজঘরের পথ দেখালেন জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক সিকান্দার রাজাকে।

ডানহাতি পেসারের অফস্টাম্পের বাইরের বল টেনে ডিপ স্কয়ার লেগ দিয়ে উড়াতে চিয়েছিলেন চাকাবা। কিন্তু সীমানায় নাঈমের দারুণ দক্ষতায় বাংলাদেশ দ্বিতীয় সাফল্য পায়। চাকাবা ২২ বলে ৪৮ রান করেন। ওই ওভারের পঞ্চম বলে রাজাকে বোল্ড করেন সৌম্য। আর ৩৬ বলে ৫৪ রান করা ওয়েসলি মাধেভেরেকে প্যাভিলিয়নে পাঠায় সাকিব আল হাসান। শেষ দিকে ডিয়ন মায়ার্স ও রায়ান বার্লের ব্যাটিং নৈপুণ্যে চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় স্বাগতিকরা।

জিম্বাবুয়ে: ১৯৩/৫ (২০ ওভার)


আরও খবর

পেলে ফের আইসিইউতে

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

জেমিকে অব্যাহতি, নতুন কোচ অস্কার ব্রুজন

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১




ভণ্ডসাধুর মহাপ্রসাদ খেয়ে এক পরিবারের ৬ সদস্য অচেতন

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শুভ্র শুশ্রুষা মণ্ডিত চেহারা, ধবধবে সাদা রঙের পাঞ্জাবি এমন আধ্যাত্মিক চেহারার এই ব্যক্তিকে সন্দেহের চোখে দেখবে এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। শুধু উনার বাহ্যিক লেবাস অথবা চেহারা দেখেই নয় তার নানান ভেল্কিবাজিতে যে কোনো সাধারণ মানুষের মধ্যে সাধু বাবার 'অলৌকিক ক্ষমতা' সম্পর্কে বিশ্বাস তৈরি হতেই পারে।

চোখের পলকে মাটি তুলে হাতের জাদুতে স্যাকারিন মিশিয়ে মিষ্টি মাটি তৈরি করে মানুষকে খাওয়ানো কিংবা কাগজে ফু দিয়ে আগুন ধরানো কি না পারেন তিনি!

এর পর আপনার সমস্যা সমাধানে বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে বিভিন্ন পূজা-অর্চনা করে আপনাকে আস্থায় আনবেন এই সাধু। তার পর সময় সুযোগমতো খাবারের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে সব রোগমুক্তির 'মহাপ্রসাদ' খাওয়াবে বাড়ির প্রত্যেক সদস্যকে!

এভাবেই মানিকগঞ্জে রাতের আঁধারে এক পরিবারের সব সদস্যকে অচেতন করে শরীরের স্বর্ণালংকার, টাকা ও মোবাইল সেটসহ মূল্যবান সামগ্রী নিয়ে চম্পট দেন প্রতারক ওই 'সাধু বাবা' বাচ্চু প্রধান (৭৩)।

 মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আন্ধারমানিক এলাকায় এমনই এক নাটকীয় ঘটনা ঘটে। একই পরিবারের ছয় সদস্যকে ঘুমের ওষুধ মিশ্রিত 'প্রসাদ' খাইয়ে রাতের আঁধারে এই প্রতারক লুটে নেয়- নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন। 

ঘটনার দিন অনেক বেলা হয়ে গেলেও অচেতন ৬ ব্যক্তির কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে প্রতিবেশীরা খবর দেন স্থানীয় কাউন্সিলর আবু মোহাম্মদ নাহিদকে। তিনি প্রতিবেশীদের সঙ্গে নিয়ে একই বাড়ির তিনটি ঘরে ওই ছয় সদস্যকে অচেতন ও মুমূর্ষু অবস্থায় পান।

একই পরিবারের ছয় সদস্যের এই রহস্যজনকভাবে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছেন শুনে মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ভাস্কর সাহা পিপিএম ও সদর থানার ওসি আকবর আলী খান মানিকগঞ্জ থানা পুলিশের টহলদলসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে স্থানীয় কাউন্সিলরের সহয়াতায় অজ্ঞান ওই  ছয় সদস্যকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করানোর ব্যবস্থা করেন।

পরবর্তীতে প্রায় ২৪-৩৬ ঘন্টা পর তাদের জ্ঞান ফিরলে তাদের অজ্ঞান হওয়ার কারণ সম্পর্কে পুলিশ জানতে পারে।

এই বিষয়ে প্রাথমিকভাবে পুলিশের পক্ষ থেকে একটি জিডি করে রাখা হয়। পরিবারের অভিভাবক পঙ্কজ কুমার মণ্ডল সুস্থ হয়ে থানায় বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ভাস্কর সাহা গোয়েন্দা তথ্য ও ডিজিটাল প্রযুক্তির সহায়তায় প্রতারক ওই সাধুবাবাকে শনাক্ত করে তার অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হন।

গত ১৮/সেপ্টেম্বর মানিকগঞ্জ থানার এসআই টুটুল উদ্দিন ও এসআই মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি চৌকশ পুলিশ দল প্রতারক ও চোরকে গ্রেফতারের উদ্দেশ্যে চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ থানায় অভিযান চালান। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাড়ির পাশের পুকুরে ঝাঁপিয়ে পালানোর চেষ্টা করে অভিযুক্ত সাধুবাবার বেশধরা প্রতারক বাচ্চু প্রধান (৭৩)।

তার বাড়ী মতলবের দক্ষিণের  নারায়নপুর গ্রামে।  ৬ সন্তানের জনক বাচ্চু প্রধান পুলিশের কাছে জানিয়েছেন, তিনি ৭/৮ বছর ধরে এধরনের প্রতারণার কাজ চালিয়ে আসছেন।

এসআই মনিরুজ্জামান পুকুরে ঝাঁপিয়ে পরে তাকে পানি থেকে উদ্ধার করে গ্রেফতার করেন। এইসময় বাচ্চু প্রধানের স্বীকারোক্তি মতে তার হেফাজত থেকে উদ্ধার করা হয় লুন্ঠিত মোবাইল, স্বর্ণালংকার ও নগদ অর্থ ।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত প্রতারক একই কায়দায় ইতোপূর্বে দেশের বিভিন্ন স্থানে মানুষকে অচেতন করে সর্বস্ব লুটে নিয়েছে। তাকে মানিকগঞ্জ থানায় রুজুকৃত মামলায় গ্রেফতার করেছে। পরে রবিবার আসামি আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রতারক বাচ্চু আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বিকারোক্তি মুলক জবানবন্দি দেওয়ার  প্রতিশ্রুতি দেওয়ার তার ব্যাপারে কোনো রিমাণ্ড আবেদন চাওয়া হয়নি।  

 


আরও খবর

২০০ টাকার জন্য বাবাকে পিটিয়ে খুন

বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১




রাজবাড়ীতে পদ্মার পানি বৃদ্ধি, ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজবাড়ীতে পদ্মার পানি বেড়েই চলছে। গত  ২৪ ঘণ্টায় গোয়ালন্দ পয়েন্টে ৬৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে এই জেলায় পদ্মা নদীতীরবর্তী এবং চরাঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ  পানিবন্দি জীবনযাপন করছে।

পদ্মায় পানি বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে গেছে রাস্তাঘাট, ফসলি জমি, ধানক্ষেত, সবজিক্ষেত। এদিকে বন্যাদুর্গত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি, খাবার ও গো-খাদ্যের সংকটও দেখা দিয়েছে। সেইসঙ্গে রয়েছে সাপের উপদ্রপ।

জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, এই জেলার ১৩টি ইউনিয়নের  ৬৭টি গ্রামের সাত হাজার ৫১৫টি পরিবারের ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। এদের মধ্যে প্রায় ছয় হাজার পরিবারকে চাল ও শুকনা খাবার সহায়তা দেওয়া হয়েছে।

রাজবাড়ী জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুল হক জানান, জেলার ৩০ হাজার পানিবন্দি মানুষের মধ্যে প্রায় ছয় হাজার পরিবারকে চাল ও শুকনা খাবার সহায়তা দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



নোয়াখালীতে ১৪৪ ধারা ভেঙে মিছিল, পুলিশের লাঠিচার্জ

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নোয়াখালীর মাইজদী উপজেলায় ১৪৪ ধারা ভেঙে সাংসদ একরামের সমর্থকদের মিছিল। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনার জন্য পুলিশ লাঠিচার্জ করেন। সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টা ২০ মিনিটের দিকে মিছিলটি জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে যেতে চাইলে পুলিশ ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ১৪৪ ধারা ভেঙে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের দিকে একটি মিছিল আসার চেষ্টা করে। আমরা তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেই। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

উল্লেখ্য, নোয়াখালীর মাইজদী উপজেলায় আওয়ামী লীগের ৩ পক্ষের সভা আহ্বান করায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে স্থানীয় প্রশাসন। রবিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান।

সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত জেলা শহরের সুধারাম মডেল থানাধীন মাইজদী, দত্তেরহাট ও সোনাপুর এলাকায় এ আদেশ জারি থাকবে।


আরও খবর



ময়মনসিংহ মেডিকেলে আরও ১৩ জনের প্রাণহানি

প্রকাশিত:রবিবার ২২ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
Image

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে করোনায় ৩ এবং উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ১০। রবিবার (২২ আগস্ট) সকালে করোনা ইউনিটের ফোকাল পারসন ডা. মহিউদ্দিন খান  এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ডা. মহিউদ্দিন খান বলেন, মৃতদের মধ্যে ময়মনসিংহে ১০ জন, নেত্রকোনার ২ জন ও টাঙ্গাইলের ১ জন রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটে নতুন ২৫ জন ভর্তিসহ এখন পর্যন্ত ২৩৬ জন এবং আইসিইউতে ১৯ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সুস্থ হয়েছেন ৩৯ জন।

সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় ৭০৯টি নমুনা পরীক্ষায় আরো ১১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ। জেলায় মোট আক্রান্ত ২০ হাজার ১০৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ১৬ হাজার ৬৭৫ জন।

 

 


আরও খবর

মমেকের করোনা ইউনিটে আরও ৭ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১




তালেবানের নিশানায় অনেকে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে তল্লাশি

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০21 | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ন্যাটো জোট ও আফগান সরকারকে সাহায্য করা নাগরিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খুঁজছে তালেবান যোদ্ধারা। জাতিসংঘের এক নথিতে এ সতর্কতার কথা জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, তালেবানরা তাদের টার্গেট করা মানুষজনকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খুঁজছে এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের হুমকি দিয়ে আসছে।

কট্টর ইসলামপন্থী এই গোষ্ঠীটি ক্ষমতা দখলের পর থেকে আফগানদের আশ্বস্ত করার চেষ্টা করেছে এবং প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে তারা "প্রতিশোধ নেবে না"।

কিন্তু আশঙ্কার বিষয় হল, ১৯৯০ এর দশকের নৃশংসতার পর তালেবান খুব সামান্যই বদলেছে।

জাতিসংঘকে যারা গোয়েন্দা তথ্য সরবরাহ করতেন, তালেবান তাদেরকে টার্গেট করছে বলে এক গোপন নথিতে সতর্ক করা হয়েছে।

নরওয়েজিয়ান সেন্টার ফর গ্লোবাল অ্যানালাইসিস- রিপ্টোর একটি গোপন নথিতে এসব তথ্য জানা যায়। জাতিসংঘ এই সংস্থার থেকেই গোয়েন্দা তথ্য পেত।

সংস্থাটির প্রধান ক্রিস্টিয়ান নেলম্যান তিনি বিবিসিকে আশঙ্কার কথা জানিয়ে বলেন, তালেবান বর্তমানে যাদের টার্গেট করছে, তাদের সংখ্যা অনেক বেশি এবং এই হুমকির বিষয়টি স্পষ্ট।

তিনি আরও বলেন, এটি লিখিতভাবে বলা হয়েছে যে, যদি তারা নিজেরা ধরা না দেয়, তাহলে তালেবান ওই ব্যক্তিদের পরিবর্তে তার পরিবারের সদস্যদের গ্রেফতার ও বিচার করবে, জিজ্ঞাসাবাদ করবে এবং শাস্তি দেবে।

তিনি সতর্ক করে বলেছেন, যারা তালেবানের কালো তালিকাভুক্ত, তারা মারাত্মক বিপদের মধ্যে রয়েছেন এবং তাদেরকে গণহারে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হতে পারে।


আরও খবর