Logo
শিরোনাম

সৌদি পৌঁছেছেন আরও ৩১ হাজার ৫৩৯ হজযাত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৫৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হজ ফ্লাইট শুরু হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ৩১ হাজার ৫৩৯ জন যাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন। বৃহস্পতিবার ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইটি হেল্পডেস্কের হজ সম্পর্কিত প্রতিদিনের বুলেটিন থেকে জানা গেছে, বুধবার (২২ জুন) দিনগত রাত ২টা পর্যন্ত ৮৭টি ফ্লাইটে সৌদি আরব পৌঁছেছেন ৩১ হাজার ৫৩৯ হজযাত্রী।

হজ বুলেটিনে বলা হয়, সরকারি ব্যবস্থাপনার ৩ হাজার ৩৮৫ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনার ২৮ হাজার ১৫৪ জন হজযাত্রী সৌদি আরব পৌঁছেছেন। ৮৭টি ফ্লাইটের মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস পরিচালিত ৪৭টি, সৌদি এয়ারলাইনস পরিচালিত ৩৫টি এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস পরিচালিত পাঁচটি ফ্লাইট রয়েছে।

এ ছাড়া সৌদি আরবের আইটি হেল্পডেস্ক হতে সার্ভিস সংখ্যা ৬ হাজার ৬৩২টি, চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে স্বয়ংক্রিয় চিকিৎসা ব্যবস্থাপত্র সংখ্যা ৯০৭টি, মোট ইস্যু করা ভিসা ছিল ৫৫ দশমিক ৬২ শতাংশ। যার মধ্যে সরকারি ব‍্যবস্থাপনার হজযাত্রী ভিসা ৯৩ দশমিক ৯০ শতাংশ ও বেসরকারি ব‍্যবস্থাপনার হজযাত্রী ভিসা ছিল ৫২ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। এবার বাংলাদেশ থেকে ৫৭ হাজার ৫৮৫ জন হজ পালনের সুযোগ পাবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৪ হাজার ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫৩ হাজার ৫৮৫ জন হজে যেতে পারবেন।

গত ৩ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চলতি বছরের হজ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। এরপর ৫ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হয়। হজ শেষে ফিরতি ফ্লাইট আগামী ১৪ জুলাই শুরু হয়ে শেষ হবে ৪ আগস্ট। এবার ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অনুমোদিত ৩৫৯টি হজ এজেন্সির মাধ্যমে হজ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।


আরও খবর



শিমুলিয়া-মাঝির ঘাটে ফেরি আছে, চলবে: নৌ প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৩১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, মাওয়া ঘাটে ফেরি আছে এবং থাকবে। চাহিদা অনুযায়ী চলবে এসব ফেরি। পদ্মা সেতু চালুর কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেইনি। সেখানে ছয়টি ফেরি চাহিদা অনুযায়ী পারপার করছে।

আজ মঙ্গলবার নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত সব দপ্তর ও সংস্থার ২০২২-২৩ সালের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর এবং ২০২১-২২ সালের শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ স্থাপনা পদ্মা সেতু। তার মানে এই নয়, আমাদের অন্যান্য যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবে। সোমবারও আমাদের শিমুলিয়া, মাঝিঘাট দিয়ে ফেরি চলাচল করেছে। আমাদের যেভাবে চাহিদা থাকবে, সেভাবে ব্যবহার করব।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা ফেরি বন্ধ করে দেইনি। সেখানে ছয়টি ফেরি চাহিদা অনুযায়ী পারপার করছে। আমরা সময় নিচ্ছি। পদ্মা সেতু নিয়ে মানুষের আবেগ অনেকভাবে প্রকাশ পাচ্ছে। পজিটিভ-নেগেটিভ অনেক অনুভূতি আছে।


আরও খবর



ভারতে চাহিদা বাড়ছে ‘রাইস ব্রান অয়েল’

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৪১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ভোজ্যতেল আমদানিকারক দেশ ভারত। তবে বৈশ্বিক সরবরাহ স্বল্পতায় দেশটিতে এর সঙ্কট দেখা দিয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই বিকল্প অনুসন্ধান করছে তারা। এ পরিস্থিতিতে ভারতীয়দের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পাচ্ছে রাইস ব্রান অয়েল। তাদের মাঝে দিন দিন এ তেলের চাহিদা বাড়ছে। চাল উৎপাদন শিল্পের একটি উপজাত হচ্ছে রাইস ব্রান অয়েল। সাধারণত আগে ভারতে ধানের কুঁড়া গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হতো। এখন সেই থেকেই তৈরি হচ্ছে রাইস ব্রান অয়েল। এছাড়া বাণিজ্যিকভাবেও তা উৎপাদন হচ্ছে। স্বাস্থ্যসম্মত হওয়ায় দেশটিতে এর চাহিদা দ্রুতগতিতে বাড়ছে।

মূলত বাজারে সহজলভ্য সয়াবিন, ক্যানোলা, পাম ও সূর্যমুখী তেলের তুলনায় রাইস ব্রান অয়েলের দাম একটু বেশি ছিল। তবে দক্ষিণ আমেরিকা, ইন্দোনেশিয়া ও রাশিয়া-ইউক্রেন সঙ্কটে বাকি সব তেলের উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যাহত হওয়ায় ভারতে রাইস ব্রান অয়েলের চাহিদা ব্যাপক তৈরি হয়েছে। ধীরে ধীরে ভোজ্যতেলের জায়গা নিচ্ছে এটি। নাগরিকদের চাওয়া পূরণে তা উৎপাদন ও আমদানি বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

আন্তর্জাতিক অ্যাসোসিয়েশন অব রাইস ব্রান অয়েলের (আইএআরবিও) মহাসচিব বি. ভি. মেহতা বলেন, ইউক্রেন থেকে সূর্যমুখী তেলের আমদানি কমেছে। সেই জায়গাটা দখল করছে রাইস ব্রান অয়েল। ভোক্তারা এটি খেতে শুরু করেছে। ভারতে এখন প্রতি টন রাইস ব্রান অয়েলের দাম পড়ছে ১ লাখ ৪৭ হাজার রুপি। সেখানে এক টন সূর্যমুখী তেলের মূল্য হচ্ছে ১ লাখ ৭০ হাজার রুপি।

সলভেন্ট এক্সট্রাক্টোর্স অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়ার (এসইএ) তথ্যমতে, ভারতে সম্প্রতি রাইস ব্রান অয়েলে ২৫ শতাংশ ছাড় দেয়া হয়েছে। এতে আমদানি করা অন্যান্য ভোজ্যতেলের তুলনায় রাইস ব্রান অয়েল সস্তা হয়েছে। ফলে এ তেলের প্রতি ঝুঁকছেন ভোক্তারা।

নিউজ ট্যাগ: রাইস ব্রান অয়েল

আরও খবর



রাশিয়ার উড়োজাহাজ আটকে দিল শ্রীলংকা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শ্রীলংকার রাজধানী কলম্বোয় রাশিয়ার যাত্রীবাহী উড়োজাহাজ আটকে দেওয়া হয়েছে। উড়োজাহাজটিতে প্রায় ২০০ আরোহী ছিল। বৃহস্পতিবার উড়োজাহাজটি কলম্বো ছেড়ে যাওয়ার কথা ছিল।

এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কলম্বোর বন্দরনায়েক আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিমানবন্দর ছাড়ার ঠিক আগে কলম্বোর বাণিজ্যিক আদালতের নির্দেশে উড়োজাহাজটি আটকে দেওয়া হয়।

শ্রীলংকায় আটকেপড়া উড়োজাহাজটি অ্যারোফ্লোটের। এটি রাশিয়ার সবচেয়ে বড় বিমান সংস্থা। ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার পর নিষেধাজ্ঞার মুখে গত মার্চে সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ করেছিল অ্যারোফ্লোট। তবে এপ্রিলে কলম্বোর সঙ্গে আবার বিমান চলাচল শুরু করে সংস্থাটি।

মস্কোর কাঁধে চাপিয়ে দেওয়া আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে রাশিয়ার উড়োজাহাজ আটকে দেওয়ার কোনো সংযোগ আছে কিনা, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। ওই উড়োজাহাজের সব যাত্রী ও ক্রুকে হোটেলে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বন্দরনায়েক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ।

এদিকে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে হামলা আরও জোরদার করেছে রাশিয়া। এ অঞ্চলে সেভেরোদোনেৎস্ক শহরে নিজেদের অবস্থান আরও বিস্তৃত ও দৃঢ় করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে রুশ বাহিনী। দোনবাস অঞ্চলে নিজেদের এই সামরিক অভিযানে বড় বিজয় দাবির আরও কাছে পৌঁছে যাচ্ছে তারা।

লুহানস্ক অঞ্চলের গভর্নর সেরহি হাইদাই বলেছেন, পূর্বাঞ্চলীয় সেভেরোদোনেৎস্ক শহরের রাস্তায় রাস্তায় এখন লড়াই চলছে। অবশ্য রুশ বাহিনী শহরের ৮০ ভাগ দখলে নিয়েছে। তিনি বলেন, কিছু সড়কে আমাদের প্রতিরোধকারীরা সফল হয়েছে।


আরও খবর



বন্যাদুর্গতদের দেখতে সিলেট যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বন্যা পরিস্থিতি ও দুর্গতদের দেখতে সিলেট অঞ্চল পরিদর্শনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার সকালে (২১ জুন) প্রধানমন্ত্রী সিলেট যাবেন। প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিব সাখাওয়াত হোসেন মুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ওইদিন সকালে হেলিকপ্টারযোগে তিনি সিলেট যাবেন বলে জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী সেখানে বন্যা পরিস্থিতি পরিদর্শন করবেন। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সহমর্মিতা জানাবেন। একইসঙ্গে ত্রাণ ও দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের কর্মসূচিতে অংশ নেবেন।

প্রতিবেশি দেশ ভারতের মেঘালয় রাজ্যের পূর্ব খাসি পাহাড়ের চেরাপুঞ্জিতে ১২২ বছরের মধ্যে তৃতীয়বারের মতো রেকর্ড বৃষ্টিপাত হয়েছে। গত ১৫ থেকে ১৭ জুন বাংলাদেশের উজানে আসাম ও মেঘালয়ে তিনদিনের টানা বৃষ্টির পানি ঢল হয়ে আঁছড়ে পড়ে বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে।

এতে সিলেট শহরসহ বিভাগের প্রায় সব জেলায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তলিয়ে যায় সিলেটের প্রায় ৮০ শতাংশ ও সুনামগঞ্জের ৯০ শতাংশের বেশি এলাকা।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান জানান, সিলেটের ৬০ এবং সুনামগঞ্জের প্রায় ৯০ শতাংশ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। প্রায় ৪০ লাখ মানুষ পানিবন্দি। এদের উদ্ধারে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড এবং ফায়ার সার্ভিস কাজ করছে। সবশেষ খবর অনুযায়ী সেনাবাহিনীর ৩২, নৌবাহিনীর ১২ এবং ফায়ার সার্ভিসের চারটি বোট কাজ করছে দু-জায়গায়। এরই মধ্যে তারা এক লাখ মানুষকে উদ্ধার করে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এরমধ্যে সুনামগঞ্জে ৭৫ হাজার, আর সিলেটে ৩০ হাজারের মতো মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে গেছে। নিখোঁজের কোনো তথ্য এখনও আমরা পাইনি। গতকালের পর থেকে কোনো ক্যাজুয়ালটিও হয়নি। বিভিন্ন জায়গায় মানুষ আটকে পড়ে আছে। সিলেটের বন্যা পরিস্থিতি সামান্য উন্নতি হয়েছে, কিন্তু সুনামগঞ্জে পরিস্থিতি এখনও অপরিবর্তিত আছে। একই সঙ্গে হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজারে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে।


আরও খবর



বন্ধ হয়ে যেতে পারে পুরো সিলেটের বিদ্যুৎ সরবরাহ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ৭৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির ক্রমাগত অবনতি হচ্ছে। সুরমা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে শহরে অনবরত ঢুকছে পানি। পানি বৃদ্ধি পেয়ে শহরের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। এই অবস্থায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। সিলেটের বেশিরভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে আজ শুক্রবারের মধ্যেই পুরো সিলেট শহরের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা বিদ্যুৎ সাব স্টেশনে পানি উঠে যাওয়ায় বৃহস্পতিবার থেকে ওই এলাকায় সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিউবো)। উপশহর কেন্দ্রেও পানি উঠেছে। যে কোন সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে ওই এলাকার বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা।

বৃহস্পতিবার রাত থেকে পানি বৃদ্ধি পেয়ে কুমারগাঁও ১৩২/৩৩ কেভি গ্রিড উপকেন্দ্রও বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। ওই উপকেন্দ্র থেকে সারা সিলেটে বিদ্যুৎ সবরাহ করা হয়ে থাকে।

বিদ্যুৎ বন্ধের আশঙ্কায় শুক্রবার সকালে কুমারগাঁও ছুটে যান সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি বিউবোর কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেন।

মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বরাত দিয়ে তার ব্যক্তিগত কর্মকর্তা মুহিবুল ইসলাম ইমন জানান, বিউবোর প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন আর মাত্র ৪ ইঞ্চি পানি বৃদ্ধি পেলে কুমারগাঁও উপকেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাবে। এতে পুরো সিলেট অন্ধকারে চলে যাবে। বিদ্যুতের পাশাপাশি বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকটও দেখা দেবে। তাই বিদ্যুৎ কেন্দ্রে পানি প্রবেশ বন্ধ ও পাম্প দিয়ে ভেতরের পানি সেচের ব্যবস্থার উদ্যোগ নেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

ইমন জানান, বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিতে মেয়র শ্রমিক ও পাম্পসহ সবধরণের ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। যে কোনভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে তিনি বিউবোর কর্মকর্তা ও প্রকৌশলীদের অনুরোধ জানিয়েছেন।


আরও খবর