Logo
শিরোনাম

সৌভাগ্যের রজনী পবিত্র শবে বরাত

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
শাবানের মধ্যরজনি আসবে তখন তোমরা সে রাতে কিয়াম তথা নামাজ পড়বে, রাত জেগে ইবাদত করবে এবং পরদিন রোজা রাখবে

পবিত্র শাবান মাসের ফজিলতপূর্ণ রাত—‘লাইলাতুল বারাআত। লাইলাতুল বারাআত আরবি শব্দ, ফারসিতে বলা হয়—‘শবেবরাতশব অর্থ রাত, বরাত অর্থ ভাগ্য, সেই হিসেবে শবেবরাতের আভিধানিক অর্থ ভাগ্যরজনি। পবিত্র কুরআনে এ রাতকে লাইলাতুম মুবারাকাহ্’—বরকতময় রজনি বলে উল্লেখ করা হয়েছে। হাদিস শরিফে রসুল (স) এ মহিমান্বিত রাতকে লাইলাতুন নিছফি মিন শাবান’—শাবান মাসের মধ্যরজনি বলে উল্লেখ করেছেন। হাদিসের ব্যাখ্যাগ্রন্থসমূহ ও তাফসিরের কিতাবে এ রাতের আরো কিছু নাম উল্লেখ হয়েছে।

যেমন—‘লাইলাতুল কিসমাহ্’—ভাগ্যের রাত, লাইলাতুত তাজবিয’—রিজিক বণ্টনের রাত, লাইলাতুল ফায়সালাহ্’—তকদির নির্ধারণের রাত, লাইলাতুল আফউ’—ক্ষমার রাত, লাইলাতুল কারামি’—দয়ার রাত, লাইলাতুত তাওবাহ্’—তাওবার রাত ও লাইলাতুন নাদামাহ্’—মিনতির রাত ইত্যাদি।

আরবি মাসে রাত আগে আসার কারণে ১৪ শাবান দিবাগত রাতেই পালিত হবে শবেবরাত। শাবান মাস আল্লাহর কাছে অধিক মর্যাদাপূর্ণ মাস। এ মাসকে রমজানের প্রস্তুতি মাস বলা হয়েছে। নবি করিম (স) অন্য মাসের তুলনায় এ মাসে বেশি নফল রোজা পালন করতেন। শবেবরাতের ফজিলত সম্পর্কে হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা) থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, আমি রসুলুল্লাহ (স)-এর সঙ্গে কোনো এক রাতে রাত্রিযাপন করছিলাম। এক সময় আমি তাকে বিছানায় না পেয়ে মনে করলামতিনি হয়তো অন্য কোনো স্ত্রীর ঘরে গিয়েছেন। আমি তাকে খুঁজতে বের হলাম। গিয়ে দেখিতিনি জান্নাতুল বাকিতে কবরবাসীদের পশে দাঁড়িয়ে অঝোর নয়নে কাঁদছেন। নবিজি আমাকে উদ্দেশ করে বললেন—‘হে আয়েশা! তুমি কি মনে করো, আল্লাহর রসুল তোমার ওপর বেইনসাফি করেছেন? আমি বললামইয়া রসুলাল্লাহ! আপনাকে বিছানায় না পেয়ে ধারণা করেছিলামআপনি হয়তো অন্য কোনো স্ত্রীর ঘরে গিয়েছেন। এরপর রসুল (স) বললেন, হে আয়েশা! আজকের রাত সম্পর্কে তুমি জেনে রেখ, মহান আল্লাহ এই রাতে দুনিয়ার প্রথম আকাশে অবতীর্ণ হয়ে দুনিয়াবাসীর ওপর তাঁর খাস রহমত নাজিল করেন। কাল্ব গোত্রের মেষের গায়ে যত পশম রয়েছে তার চেয়েও অধিকসংখ্যক বান্দাকে তিনি ক্ষমা করেন। (সুনানে তিরমিযি১ম খণ্ড, পৃষ্ঠা ১৫৬)

ইবনে মাজাহ্ শরিফের হজরত আলী (রা) সূত্রে বর্ণিত, তিনি বলেন, রসুলাল্লাহ (স) বলেছেন—‘যখন শাবানের মধ্যরজনি আসবে তখন তোমরা সে রাতে কিয়াম তথা নামাজ পড়বে, রাত জেগে ইবাদত করবে এবং পরদিন রোজা রাখবে। কেননা সে দিন সূর্যাস্তের সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহ দুনিয়ার আকাশে এসে বান্দাকে এই বলে ডাকতে থাকেনআছ কি কেউ ক্ষমা প্রার্থনাকারী, যাকে আমি ক্ষমা করব। আছ কি কেউ রিজিক প্রার্থনাকারী, যাকে আমি রিজিক দিব। আছ কি কেউ বিপদগ্রস্ত, যাকে আমি বিপদ থেকে উদ্ধার করব। এভাবে সুবহে সাদিক পর্যন্ত আল্লাহ ঘোষণা দিতে থাকেন। (হাদিস নম্বর ১৩৮৪)

আল্লাহ এ পুণ্যময় রজনিতে অসংখ্য বান্দা-বান্দিকে ক্ষমা করেন, তবে দুই শ্রেণির লোকের জন্য তাঁর ক্ষমার দ্বার বন্ধ থাকে। (এক) মুশরিক’—যে তাঁর সঙ্গে অন্যকে উপাস্য বানিয়েছে; (দুই) বিদ্বেষপোষণকারী, যে তার অন্য মুসলমান ভাইয়ের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করে। (আত-তারগিব ওয়াত-তারহিব, ৩য় খণ্ড, পৃষ্ঠা ৩৯২)

আল্লাহ কাছে পাঁচটি রাত খুবই মর্যাদার। এর মধ্যে শবেবরাতের রাতও রয়েছে। হাদিস শরিফে এসেছে—‘নিশ্চয়ই পাঁচ রাত্রির দোয়া আল্লাহ কবুল করেন। (১) রজব মাসের প্রথম রাতের দোয়া, (২) শবেবরাতের দোয়া, (৩) শবেকদরের দোয়া, (৪) ঈদুল ফিতরের রাতের দোয়া ও (৫) ঈদুল আজহার রাতের দোয়া। (গুনইয়াতুত তালেবিন, মুকাশাফাতুল কুলুব)

শবেবরাত মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে উম্মতে মুসলিমার জন্য এক বিশেষ উপহার। তাই এ রাত সম্পর্কে আমাদের বিশেষ যত্নবান হতে হবে। এ রাতের বিশেষ কিছু আমল হচ্ছে(১) রাত জেগে ইবাদত করা। যেমননফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির-আযকার, তাওবা-ইস্তিগফার ও দোয়া-দরুদ পাঠ করা ইত্যাদি। (২) ১৫ শাবান রাতে জেগে ইবাদত করা এবং পরদিন রোজা রাখা। (৩) সম্ভব হলে আপনজনদের কবর জিয়ারত করা ও দান-সাদকাহ করা।

রসুল (স) নিজের জীবনে এ রাত বারবার পেয়েছেন, আমল করেছেন। এ রাতে কী করতে হবে, কীভাবে করতে হবেতা তিনি উম্মতকে শিখিয়ে গেছেন। তাঁর রেখে যাওয়া আদর্শই আমাদের হুবহু অনুসরণ অনুকরণ করতে হবে। এ রাতের অধিকাংশ ইবাদত নফল। এ রাতের নফল নামাজের ধরাবাঁধা কোনো নিয়ম নেই, বরং অন্যান্য নফল নামাজের মতো দুই/চার রাকাতের নিয়ত করে সুরা ফাতেহার পর যে কেনো সুরা মিলিয়ে যত ইচ্ছা পড়া যেতে পারে। তবে অবশ্যই শতর্ক থাকতে হবে যে, রাতভর নফল ইবাদত করে ফজরের নামাজ যেন কাজা না হয়। কেননা হাজার রাকাআত নফল নামাজের সাওয়াব কখনো একটি ফরজ নামাজের সমতুল্য হবে না।

শবেবরাতে যেমন পালনীয় বিষয় রয়েছে, তেমনি এ রাতে কিছু বর্জনীয় বিষয়ও রয়েছে। এ রাতে আতশবাজি, হইহুল্লোড়, অহেতুক কাজে লিপ্ত থাকা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। অন্যের ব্যাঘাত সৃষ্টি করে নিজে কোনো ইবাদত করা যাবে না। আল্লাহ আমাদেরকে এ রাতের গুরুত্ব বুঝে আমল করার তাওফিক দান করুন। আমীন!

নিউজ ট্যাগ: পবিত্র শবে বরাত

আরও খবর



রাশিফল: আজকের দিনটি কেমন যাবে?

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পুরনো জ্যোতিষশাস্ত্রের এমন একটি ধরন, যার মাধ্যমে বিভিন্ন সময়কাল নিয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়। যেমন দৈনিক রাশিফল প্রতিদিনের ঘটনার ভবিষ্যকথন করে, তেমন সাপ্তাহিক, মাসিক তথা বার্ষিক রাশিফল যথাক্রমে সপ্তাহ, মাস এবং বছরের ভবিষ্যদ্বাণী করে। বৈদিক জ্যোতিষে ১২টি রাশি- মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ ও মীন-এর ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়। একই রকমভাবে ২৩টি নক্ষত্রেরও ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়ে থাকে।

মেষ রাশি:

কর্মপ্রার্থীদের যোগাযোগ ফলপ্রসূ হতে পারে। অন্যের কারণে কাজে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। ভুল সিদ্ধান্তে বিপর্যয় আসতে পারে। ইচ্ছাশক্তির জোরে বাধাবিঘ্ন কাটিয়ে উঠুন।

বৃষ রাশি:

অপ্রত্যাশিত যোগাযোগে আয় বাড়বে। কাজের স্বীকৃতি পাবেন। প্রেম-প্রণয় শুভ। বন্ধুস্থানীয় ব্যক্তির সাহচর্য আনন্দ দেবে। নিজগুণে প্রশংসিত হবেন। অতীতের সুখস্মৃতিতে শান্তি পাবেন।

মিথনু রাশি:

পরিবারের কল্যাণচিন্তায় উদ্বেগ থাকতে পারে। বকেয়া আদায়ে সচেষ্ট হতে পারেন। দায়িত্ব বাড়বে। প্রিয়জনের স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তা। ব্যবসায়ীরা নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেন।

কর্কট রাশি:

কোনো সংবাদে আশাবাদী হবেন। আর্থিক যোগাযোগ বৃদ্ধি পাবে। কর্মক্ষেত্রে আসার সঞ্চার হবে। কোনো ভুল তথ্যের কারণে সমস্যা হতে পারে। গতিশীল দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে এগিয়ে যান।

সিংহ রাশি:

অর্থপ্রাপ্তির সম্ভাবনা। পুরনো সমস্যা সমাধানে অন্যের সহযোগিতা পাবেন। সামাজিক কাজে অংশীদার হতে পারবেন। অন্যের কাছে আপনার বিশ্বাসযোগ্যতা প্রমাণ করতে পারবেন। মন ভালো রাখুন।

কন্যা রাশি:

উৎসাহ ও উদ্যমে অগ্রপথিকের ভূমিকা নিতে পারবেন। আপনার কাজে অন্যকে প্রভাবিত করতে পারবেন। আর্থিক বিষয়ে দুশ্চিন্তা কমবে। দূরদৃষ্টির সঙ্গে অর্থের সদ্ব্যবহার করুন। ভালো থাকুন।

তুলা রাশি:

কোনো সংবাদে বিচলিত হতে পারেন। কোনো আত্মীয়ের জন্য উৎকণ্ঠা। অকারণে ব্যয় বাড়বে। ব্যবসায়ীরা নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেন। একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করলে সুফল পাবেন।

বৃশ্চিক রাশি:

কোনো পরিকল্পনার অগ্রগতি হবে। আয়ের ক্ষেত্র পূর্বের তুলনায় আশাপ্রদ। তবে দিনের শেষে অপ্রয়োজনীয় ব্যয় বাড়বে। দায়িত্ব পালনে দৃঢ়তার পরিচয় দিতে হবে। প্রিয়সঙ্গ আনন্দ দেবে।

ধনু রাশি:

কোনো লাভজনক কাজ হাতে আসবে। ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় অন্যের সহযোগিতা পাবেন। সন্তোষজনক ফলাফল পেতে সুন্দরভাবে সব কিছু পরিকল্পনা করতে হবে। প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখুন।

মকর রাশি:

কোনো পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনতে পারেন। ব্যবসায় জটিলতা দূর হবে। পাওনা আদায়ে কিছুটা অগ্রগতি। প্রেমে আন্তরিকতা বাড়বে। আধ্যাত্মিক কাজে শান্তি পাবেন। ভ্রমণ শুভ।

কুম্ভ রাশি:

বিদেশসংক্রান্ত কাজে সফলতা আসতে পারে। ঘনিষ্ঠ কারো জন্য দুশ্চিন্তা হবে। দক্ষ ব্যবস্থাপনার অভাবে কাজে বিঘ্ন ঘটতে পারে। কোনো সুযোগ হাতছাড়া হতে পারে। পরিবেশ নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

মীন রাশি:

প্রত্যাশিত কাজকর্মে বাধার আশঙ্কা। আর্থিক অবস্থা গতানুগতিক। শিক্ষার্থীদের একাগ্রতার অভাব। পরিবারিক সমস্যার সমাধান হবে। গুরুত্বপূর্ণ কাজ ফেলে রাখবেন না। স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দেবেন।


আরও খবর



বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে ওভার কমিয়ে বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়ালো ১৪৮

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য ১৪৮ রান। দুই দফা বৃষ্টির কারণে বন্ধ থাকার পর ৪ ওভার তথা ২৪ বল কমিয়ে আনা হয়েছে। অর্থাৎ এই রান তাড়া করতে হলে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের দল পাচ্ছে ৯৬ বল তথা ১৬ ওভার।

বৃষ্টির সম্ভাবনা মাথায় রেখে টস জিতে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তবে ঠিক সময়েই শুরু হয়েছিল খেলা। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের ইনিংস পুরোটা শেষ হওয়ার আগেই দফায় দফায় বৃষ্টিতে দুইবার বন্ধ হয়ে যায় খেলা।

প্রথমে ১৩তম ওভারের দ্বিতীয় বল করার পর আর এবার ১৮তম ওভারের পঞ্চম বল করার নামল বৃষ্টি। যার ফলে ঢেকে দেয়া হয়েছে মাঠ, বন্ধ করে দেয়া হয়েছে খেলা। দ্বিতীয়বার বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ হওয়ার আগে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৭.৫ ওভারে ৫ উইকেটে ১৭৩ রান।

এরপর লম্বাসময় ধরে বৃষ্টি চলায় সেখানেই থামিয়ে দেয়া হয়েছে খেলা। ফলে বাংলাদেশের সামনে এখন লক্ষ্য দাঁড়িয়েছে ১৬ ওভারে ১৪৮ রান। খেলা বন্ধ হওয়ার আগে মাত্র ২৭ বলে ফিফটি করা ফিলিপস ৩১ বলে ৫৮ এবং মিচেল ১৬ বলে ৩৪ রান করেছেন।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই মারমুখী খেলতে থাকেন দুই ওপেনার মার্টিন গাপটিল ও ফিন অ্যালেন। নাসুম আহমেদের করা প্রথম ওভারে দুই চারের মারে নিয়ে নেন ৯ রান, সাইফউদ্দিনের করা পরের ওভারে আসে আরও ৭ রান। নিজের দ্বিতীয় ওভারে প্রথম বলে বাউন্ডারি হজম করেও ৪ রানের বেশি দেননি নাসুম।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে প্রথমবারের মতো বোলিং পরিবর্তন করেন মাহমুদউল্লাহ। সাইফউদ্দিনের জায়গায় আনা হয় তাসকিন আহমেদকে। তার প্রথম বলেই ডিপ মিডউইকেট দিয়ে বিশাল ছক্কা মারেন অ্যালেন। ঘুরে দাঁড়াতে সময় নেননি তাসকিন। সুযোগ তৈরি করেন পরের বলেই।


আরও খবর



নিউজিল্যান্ডের কাছে শেষ পর্যন্ত হার মেনেছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ এপ্রিল ২০২১ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

৮ ওভার শেষ হওয়ার (৭.৫ ওভার) আগেই নাই হয়ে গেলো ৬টি উইকেট। অর্থ্যাৎ দলের সেরা ৬জন ব্যাটসম্যান দুই চতুর্থাংশের আগেই শেষ। বাকি ৪ উইকেট দিয়ে আর কতদুর যেতে পারবে বাংলাদেশ? প্রমাদ গুনতে শুরু করেছিলেন বাংলাদেশের দর্শক-সমর্থকরা।

কিন্তু দুই তরুণ আফিফ হোসেন ধ্রুব এবং সাইফউদ্দিনের দাঁত কামড়ে লড়াই বাংলাদেশকে নিয়ে গেলো ম্যাচের শেষ পর্যন্ত। পূর্ণ ২০ ওভার খেলেছেন টাইগাররা। হারিয়েছে মোট ৮ উইকেট। দুজন ব্যাটসম্যানকে ব্যবহারই করতে হয়নি। তাতে হারের ব্যবধানটা কমেছে। স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের কাছে শেষ পর্যন্ত হার মেনেছে ৬৬ রানের ব্যবধানে।

৫৯ রানে ৬ উইকেট। মহা বিপর্যয়ে বাংলাদেশ। এমন পরিস্থিতিতে পরাজয় নিশ্চিত। তবে ব্যবধান কমিয়ে সেই পরাজয়কে যতটা সম্মানজনক রূপ দেয়া যায়, ততটাই ভালো। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য ত্রাতা হিসেবে যেন আবির্ভূত হয়েছিলেন আফিফ হোসেন ধ্রুব এবং সাইফউদ্দীন। এ দুজনের দারুণ ব্যাটিংয়ে ভর করে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান।

যদিও আফিফের লড়াইও শেষ করে দিয়েছিলেন লকি ফার্গুসন। ৩৩ বলে ৪৫ রান করার পর ফার্গুসনের বলে তিনি বোল্ড হয়ে যান। ৫টি বাউন্ডারির সঙ্গে ১টি ছক্কার মার ছিল তার ইনিংসে। তবে সাইফউদ্দিন ছিলেন অপরাজিত। তিনি করেন ৩৪ রান। নাসুম আহমেদ ছিলেন শূন্য রানে অপরাজিত।

আফিফ আর সাইফউদ্দীনের লড়াইয়ের আগে খুবই খারাপ অবস্থা ছিল বাংলাদেশের। ২১১ রানের বিশাল লক্ষ্য। ব্যাটিং শুরুর আগেই কী ঘাবড়ে গেলো বাংলাদেশ? অসম্ভব কিছু নয়। এতবড় স্কোর দেখলে যে কারো ঘাবড়ে যাবারই কথা। তবে, ঘাবড়ে না গিয়ে সাহসের সাথে লড়াই করতে পারাটাই গৌরবের।

কিন্তু সেই গৌরব হ্যামিল্টনের সেডন পার্কে দেখাতে পারছে না বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। কিউই বোলিংয়ের সামনে নিজেদের নখদন্ত পুরোপুরি বের হয়ে পড়েছে টাইগারদের। ৫৯ রানেই হারিয়ে বসেছে ছয়টি উইকেট।

সৌম্য সরকার আউট হন ৫ রান করে। মোহাম্মদ মিঠুন আউট হলেন ৬ বলে ৪ রান করে। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ দুই অংকের ঘর ছুঁতে পেরেছিলেন। ৯ বলে করেন ১১ রান। কিন্তু সোদির ঘূর্ণিতে বোল্ড হয়ে গেলেন তিনি। মেহেদী হাসান আউট হলেন কোনো রান না করেই। সোদির বলে বোল্ড হয়ে।

নিউজ ট্যাগ: বাংলাদেশ দল

আরও খবর



১ দিনে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যু দেখল বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শনিবার ১০ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসে গেল ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৭৭ জনের। আজ শনিবার (১০ এপ্রিল) বিকেলে করোনাভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এর আগে গত ৭ এপ্রিল দেশে একদিনে করোনায় সাত হাজার ৬২৬ জন শনাক্ত হয়। যা দেশে করোনায় একদিনে শনাক্তে সর্বোচ্চ রেকর্ড। আর গত ৬ এপ্রিল একদিনে শনাক্ত হয়েছিল সাত হাজার ২১৩ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।

নিউজ ট্যাগ: করোনা ভাইরাস

আরও খবর



ইতালিতে সব অঞ্চলই এখন ‘রেড জোন’

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসে ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে প্রথম ভয়াবহ ক্ষতির মুখে পড়ে ইতালি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশটি অন্যান্য দেশের তুলনায় ক্ষতি কিছুটা কমাতে

করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউয়ে ইতালিতে ফের সংক্রমণ বেড়েছে। দেশটির সব অঞ্চলই এখন রেড জোন। করোনায় ইউরোপে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে প্রথম সারিতে থাকা দেশটির প্রশাসন সীমাবদ্ধতার মধ্যেই সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করে চলছে। তবে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের সবচেয়ে পুরোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান ইস্টার ঘিরে জনসমাগম ঠেকাতে এবার তিন দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। অপ্রয়োজনে বাইরে ঘোরাঘুরি পুরোপুরি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে এ ধর্মীয় অনুষ্ঠান বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে উদ্যাপনে কোনো বাধা নেই।

এদিকে লকডাউন চললেও চার্চগুলো খোলা থাকছে। কিন্তু উপাসকরা ইস্টার অনুষ্ঠানে গণহারে মানুষের যোগ দিতে নিরুত্সাহিত করছেন। ফলে গত বছরের মতো এবারও পোপ ফ্রান্সিস জনশূন্য সেন্ট পিটার্স স্কয়ারে ইস্টার-এর বক্তৃতা করবেন।

চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসে ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে প্রথম ভয়াবহ ক্ষতির মুখে পড়ে ইতালি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশটি অন্যান্য দেশের তুলনায় ক্ষতি কিছুটা কমাতে সক্ষম হলেও তৃতীয় ঢেউ নিয়ে এখন চিন্তিত ইতালি সরকার। ফলে সংক্রমণ ঠেকাতে ঘোষিত লকডাউন কঠোরভাবে পালনে জনসাধারণকে বাধ্য করা হচ্ছে। নিত্যপণ্য ও ওষুধের দোকান ছাড়া সব ধরনের দোকানপাট বন্ধ রাখা হচ্ছে। তবে রেস্টুরেন্টগুলো থেকে অনলাইনে খাবার কেনার সুযোগ রয়েছে।

রেড জোন ঘোষিত এলাকায় সব ধরনের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। তবে ইস্টার উপলক্ষ্যে একই এলাকায় বসবাস করা মানুষ তাদের আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে যেতে পারবে। ইতালির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুসিয়ানা ল্যামোরগেস বলেছেন, কোনোভাবেই লকডাউন ভঙ্গ করা উচিত হবে না। এখনই সময় ইতালিয়ানদের দায়বদ্ধতা দেখানোর। ভ্যাকসিন আসছে এবং মানুষ গ্রহণ করছেন। সবাই যখন ভ্যাকসিনের আওতায় আসবেন, তখন আমরা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে পারব।

দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক লাখ ১০ হাজার ৩২৮ জন মারা গেছেন। আর এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৩৬ লাখ ২৯ হাজার মানুষ। এখনো প্রতিদিন অন্তত ২০ হাজার নতুন রোগী শনাক্ত হচ্ছেন।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর

মিয়ানমারে সেনা অভিযানে নিহত ৮২

রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১