Logo
শিরোনাম

শ্রীরামকাঠী ইউপি চেয়ারম্যান কোটিপতি উত্তম মৈত্রের অর্থের উৎস কি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৫৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
নৈলতলা গ্রামের জ্যোতি প্রকাশ বেপারীর বাড়ির নিকট আয়রন ব্রিজ মেরামত বাবদ ২ লক্ষ টাকা, খেজুরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন আয়রন ব্রিজ মেরামত বাবদ ১লক্ষ ৬০ হাজার টাকা ইউনিয়ন পরিষদ কতৃক বরাদ্দ করে কোন কাজ না করে

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার ৮নং শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান উত্তম মৈত্রের বিরুদ্ধে পরিষদের কার্যক্রমে ব্যপক অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আৎসাত, ভুমি দখল, পরিষদ থেকে পরিচয়পত্র, ওয়ারিশ সনদ পত্র, জন্ম নিবন্ধন গ্রহন করায় সাধারণ জনগণের কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহণের বিস্তর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অত্র ইউনিয়নের ৬ বার জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত জনপ্রিয় চেয়ারম্যন আ. মালেক বেপারী ২০১৭ সালের ১৪ নভেম্বর মৃত্যুবরণ করায় উক্ত ইউনিয়নটি শুন্য হয়। এনজিওর চাকুরী ছেড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় না থেকে ও হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে এই ইউনিয়নটি চিহ্নিত হওয়ায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতিকে ২০১৮ সালের ১৬ এপ্রিলে অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এই উত্তম কুমার মৈত্র। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে তার ভাগ্য বদলে যায়, ফিরে তাকাতে হয়নি আর পিছনের দিকে।

একের পর এক অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাত, ভুমি দখল করে এক বছর যেতে না যেতেই তিনি শ্রীরামকাঠী বন্দর সংলগ্ন ভীমকাঠীতে গড়ে তোলেন কোটি টাকা ব্যয়ে তিন তলা সুদৃশ্য পাকা ভবন। অথচ নির্বাচন কালীন সময় কর্মী খরচ না দিতে পারায় কর্মীদের হাতে লাঞ্চিত হতে হয়েছে তার বড় ভাইকে। অবৈধ ভাবে অর্থ আৎসাত করে বিত্তবান হওয়ার অহংকারে এমনকি তার নির্মম নির্যাতনের শিকার তার জন্মদাতা পিতা, আপন বোন ও বোন জামাই। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে এই চেয়ারম্যান নাজিরপুর উপজেলার একটি ঐতিহ্যবাহী ইউনিয়নকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিয়েছে। চেয়ারম্যানের অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে পরিষদের ১২ জন ইউপি সদস্যের মধ্যে ১১জন সদস্য জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, নৈলতলা গ্রামের জ্যোতি প্রকাশ বেপারীর বাড়ির নিকট আয়রন ব্রিজ মেরামত বাবদ ২ লক্ষ টাকা, খেজুরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন আয়রন ব্রিজ মেরামত বাবদ ১লক্ষ ৬০ হাজার টাকা ইউনিয়ন পরিষদ কতৃক বরাদ্দ করে কোন কাজ না করে পুরো টাকা আত্মসাত করে। এলজিএসপির-৩ এর আওতায় প্রতি বছর বরাদ্দকৃত ২০ লক্ষ টাকা ইউপি সদস্যদের সাথে কোন আলাপ আলোচনা ছাড়াই নিজের খেয়াল খুশি মত প্রকল্প দেখিয়ে আৎসাত করে।

মধুরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিকট আয়রন ব্রিজ মেরামতের প্রকল্প দেখিয়ে কোন কাজ না করে পুরো টাকা নিজেই আৎসাত করে। ইউনিয়নের উন্নয়ন মুলক কাজ টিআর-কাবিখা বাস্তবায়নের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে ইউপি সদস্যদের ৩০ ভাগ অর্থ উৎকোচ হিসেবে চেয়ারম্যানকে দিতে হয়। বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, পঙ্গু ভাতা, হরিজন ভাতা, মৎস্য ভিজিএফ কার্যক্রম, দুস্থদের সাহায্যের তালিকা, গভীর নলকুপ, ওয়ারিশ সনদপত্র প্রদানে তার বিরুদ্ধে রয়েছে বিপুল পরিমান অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ। এ ছাড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন শালিস বৈঠক থেকে হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। ভুক্তভোগীরা ইউনিয়নের সচেতন মহলের নিকট অভিযোগ করেও কোন সমাধান পায়নি।

চেয়ারম্যান উত্তম মৈত্রের পিতা প্রফুল রঞ্জন মৈত্র ফেইজবুক লাইভে এসে পুত্রের অনিয়ম ও দুর্নীতির চিত্র জন সম্মুখে তুলে ধরেন এবং বলেন আমার স্ত্রী মারা যাবার পর এই উত্তম আলমারী ভেংগে ৭ লক্ষ টাকা ও চাকুরীর প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র, জায়গা জমির দলিল সব নিয়ে যায়। তিনি বর্তমানে খুব অসহায় অবস্থায় জীবন যাপন করছে। চেয়ারম্যান পুত্রের এহেন অপরাধের জন্য প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট তিনি বিচার প্রার্থনা করছেন।

মধ্য জয়পুর গ্রামের মো. মশিউর রহমান জানান, এই চেয়ারম্যান ওয়ারিশ সনদ বাবদ আমার নিকট থেকে তিন হাজার টাকা গ্রহন করেন। দক্ষিণ জয়পুর গ্রামের অনুপ সিকদার জানান, চেয়ারম্যানের বাসার পিছনে আমার ক্রয়কৃত তিন কাঠা জমি দখল করে জমির সমস্ত মাটি কেটে নিয়ে যায় এবং লোকের কাছে বলে উক্ত জায়গা আমি ক্রয় করেছি। এ ব্যপারে আমি থানায় অভিযোগ করেছি। এহেন দুর্নীতিবাজ চেয়ারম্যানের হাত থেকে রক্ষা পেতে ইউনিয়নবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছে।


আরও খবর



ইফতারে প্রাণ জুড়াতে স্বাস্থ্যকর ফলের শরবত

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
যেহেতু গ্রীষ্মকাল চলছে তাই হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফল। এসব ফল দিয়ে ব্লেন্ডারে সহজেই বানিয়ে নেয়া যায় সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর শরবত। ইফতারের আগে রান্নার তাড়াহুড়োর মধ্যেও খুব কম সময়ে ব্লেন্ডারে তৈরি করা

চলছে সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান। অন্য সময়ের চেয়ে এ সময় খাবারের আয়োজনে থাকে ভিন্নতা। রোজায় দিনের বেশ বড় একটা সময় কোনো খাবার খাওয়া হয় না বলে সুস্থতার কথা বিবেচনা করে সাহরি ও ইফতারে ভেবেচিন্তে খাবার বাছাই করতে হয়। রোজার সময় ভাজাপোড়া কম খেয়ে পুষ্টি চাহিদা পূরণ করে এমন খাবার বেশি বেশি খাওয়া দরকার। আর করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আমাদের সবারই এখন অ্যান্টি-অক্সিডেন্টযুক্ত খাবার গ্রহণ করা উচিত। এক্ষেত্রে নানারকম ফল এবং ফলের শরবতের কোনো বিকল্প নেই।

গ্রীষ্মের প্রচণ্ড গরমে সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে প্রাণ শীতল করা এক গ্লাস ঠাণ্ডা শরবতের জুড়ি নেই। সারাদিনের ক্লান্তি নিমিষেই দূর হয় শরবত পান করে। এছাড়া এ সময় গরমের কারণে ঘামের সাথে শরীর থেকে অতিরিক্ত পানি বের হয় বলে রোজাদারদের পানিশূন্যতার ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই ইফতারে শরীরের পানির চাহিদা পূরণে পান করা যেতে পারে ফলের শরবত।

যেহেতু গ্রীষ্মকাল চলছে তাই হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফল। এসব ফল দিয়ে ব্লেন্ডারে সহজেই বানিয়ে নেয়া যায় সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর শরবত। ইফতারের আগে রান্নার তাড়াহুড়োর মধ্যেও খুব কম সময়ে ব্লেন্ডারে তৈরি করা যায় যেকোনো ফলের শরবত। ঘরে থাকা উপকরণ দিয়ে ব্লেন্ডারে সহজে তৈরি করা যায় এমন দুইটি শরবতের রেসিপি নিচে দেয়া হলো।

তরমুজের শরবত

উপকরণ: মাঝারি আকারের তরমুজ (১টি), বিট লবণ (১ চা চামচ), চিনি (২ টেবিল চামচ), ক্রিম (আধা কাপ), লেবুর রস (২ চা চামচ)।

প্রস্তুত প্রণালি: তরমুজের বিচি ফেলে দিয়ে শুধু লাল অংশটা নিন। এবার তরমুজটি ছোট ছোট টুকরো করে ব্লেন্ডারের জগে নিন। এর মধ্যে পরিমাণমতো চিনি, বিট লবণ, লেবুর রস যোগ করে ব্লেন্ড করুন এবং ঠাণ্ড হওয়ার জন্য কিছুক্ষণ ফ্রিজে রেখে দিন। এবার একটি বাটিতে ক্রিম নিয়ে দুই চা চামচ চিনি দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। পরিবেশনের সময় গ্লাসে ফ্রিজে রাখা তরমুজের রস ঢেলে উপরে ফেটানো ক্রিম ঢেলে দিন। সবশেষে কয়েকটি তরমুজের টুকরো উপরে ছড়িয়ে পরিবেশন করুন মজাদার তরমুজের শরবত।

কাঁচা আমের স্মুদি

উপকরণ: কাঁচা আম (২টি), চিনি (এক কাপ,) টক দই (এক কাপ), বিট লবণ (এক চা চামচ), মধু (এক টেবিল চামচ), কাঁচা মরিচ (২-৩টি), পুদিনা পাতা (আধা কাপ), টালা জিরার গুঁড়া (আধা চা চামচ), লবণ (স্বাদমতো), বরফকুচি।

প্রস্তুত প্রণালি: প্রথমে ছোট টুকরো করে কাঁচা আমগুলো কেটে নিন। এবার সব উপকরণ ব্লেন্ডারে নিয়ে নিন। প্রয়োজনমতো পানি মিশিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করুন। এবার গ্লাসে স্মুদি ঢেলে উপরে বরফ কুচি দিয়ে দিন। লেবুর স্লাইস দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন স্বাস্থ্যকর কাঁচা আমের স্মুদি।


আরও খবর



ভোটে হেরেও যেভাবে মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন মমতা

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৯১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
কেউ হেরে যাওয়ার পরও তার দল যদি সংখ্যা গরিষ্ঠতা পায় এবং দলের নির্বাচিত সদস্যরা যদি তাকে নেতা নির্বাচিত করেন, তাহলে তার মুখ্যমন্ত্রী হতে আইনগত কোনো বাধা নেই। তবে ভোটে না জিতেও মুখ্যমন্ত্রী হলে তাকে ওই পদে বসার ১৮০

বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে বিশাল জয় নিয়ে ক্ষমতায় বসছে তৃণমূল। তবে নিজ আসন নন্দীগ্রামে নিজেরই এক সময়কার ডানহাত শুভেন্দু অধিকারীর কাছে তুমুল লড়াই করেও হেরেছেন মমতা ব্যানার্জী। দলীয় নেত্রীর এই হেরে যাওয়ার পর প্রশ্ন উঠেছে- দল সরকার গঠন করলে তিনি কি মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবেন? উত্তর হলো- হ্যা, পারবনে।

ভারতীয় সংবিধানের ১৬৩ ও ১৬৪ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, দেশটির কোনো রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হতে হলে তাকে ভারতের নাগরিক হতে হবে এবং বয়স হতে হবে ২৫ বা তার বেশি। তাকে রাজ্যের বিধানসভার সদস্য হতে হবে। আর বিধানসভার সদস্য না হয়েও কেউ যদি মুখ্যমন্ত্রী পদে বসেন, তাকে রাজ্যপালের অনুমতি নিতে হবে।

কেউ হেরে যাওয়ার পরও তার দল যদি সংখ্যা গরিষ্ঠতা পায় এবং দলের নির্বাচিত সদস্যরা যদি তাকে নেতা নির্বাচিত করেন, তাহলে তার মুখ্যমন্ত্রী হতে আইনগত কোনো বাধা নেই। তবে ভোটে না জিতেও মুখ্যমন্ত্রী হলে তাকে ওই পদে বসার ১৮০ দিনের মধ্যে কোনো একটি আসন থেকে জিতে আসতে হবে। তা না পারলে ছেড়ে দিতে হবে পদ।

পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার ২৯৪ আসনের মধ্যে দুটির ভোটগ্রহণ প্রার্থীর মৃত্যুতে স্থগিত রয়েছে। ফলে এর একটি আসনে ছয় মাসের মধ্যে জিতে এলেই মমতার মুশকিল আসান হতে পারে।

তিন দশকের বাম শাসনের অবসান ঘটিয়ে ২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হন মমতা। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, ওই সময় তিনি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ছিলেন। ২০১১ সালের বিধানসভা ভোটে তিনি লড়েননি। পরে দল জয় পেলে তাকে মুখ্যমন্ত্রী পদে মনোনয়ন দেন তৃণমূলের বিধায়কেরা । এরপর লোকসভা থেকে পদত্যাগ করেন মমতা।

ভবানীপুরে সুব্রত বক্সির জেতা আসনে উপনির্বাচনে জিতে আসেন তিনি। পরে ২০১৬ সাল পুনরায় মুখ্যমন্ত্রী হন তিনি।


আরও খবর



যুবদলের সাবেক সভাপতি ৫ দিনের রিমান্ডে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঢাকায় ছাত্রদলের সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল আলম মজনুর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস এ আদেশ দেন।

এ দিন আসামি মজনুকে আদালতে হাজির করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। এরপর সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তার ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন তিনি। অপরদিকে, আসামিপক্ষের আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

উল্লেখ্য, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা রাজধানীতে একটি সমাবেশ করে। এরপর নেতাকর্মীদের সড়ক থেকে সরাতে একদিকে অ্যাকশনে নামে পুলিশ, অন্যদিকে ইট-পাটকেল ছুড়ে ও বাঁশ দিয়ে পুলিশের ওপর হামলা করেন ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। এ ঘটনায় পুলিশের ওপর হামলা, হত্যাচেষ্টা ও ভাঙচুর চালানোর অভিযোগে ওই দিন (২৮ ফেব্রুয়ারি) রাতে শাহবাগ থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়। মামলায় এজাহার নামীয় ৪৭ জন নেতাকর্মী ও অজ্ঞাত ২০০-২৫০ জনকে আসামি করা হয়।

নিউজ ট্যাগ: রিমান্ড

আরও খবর



দেশে ভারতীয় ভিসা কেন্দ্রের কার্যক্রম স্থগিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ মে ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঢাকাসহ দেশজুড়ে ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্রগুলির কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। ঢাকায় ভারতীয় দূতাবাসের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক পোস্টে এ তথ্য জানানো হয়।

ওই পোস্টে বলা হয়, বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ১৪-২১ এপ্রিল পর্যন্ত বাস্তবায়িত লকডাউনের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ জুড়ে সমস্ত ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্রগুলির কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

ওই পোস্টে আরও জানানো হয়, ইতোমধ্যে জমা দেওয়া আবেদনসমূহের বিষয়ে জানতে এবং যেকোনো জরুরি অনুরোধের জন্য [email protected] এই ঠিকানায় যোগাযোগ করতে হবে।


আরও খবর

ঈদ মোবারক

শুক্রবার ১৪ মে ২০২১




অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে সবজির দাম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ | ১৪৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
দাম বাড়লেও বাজারে কোনো সবজির কমতি নেই। আলু, পটল, করলা, টমেটো, শিম, লাউ, কাঁচা-পাকা মিষ্টি কুমড়া, ঢেঁড়স, বেগুন, মুলা, লাল শাক, পালং শাক, লাউ শাক সব কিছুই বাজারে ভরপুর। এদিকে দাম বেড়ে প্রতি কেজি ঢেঁড়স

রমজান উপলক্ষে প্রতি বছরই বাড়ে সবজির দাম। তবে এবার তার সঙ্গে দেশব্যাপী লকডাউন হওয়ায় বাজারে এখন বিভিন্ন সবজির দাম বেড়েছে অস্বাভাবিকভাবে।

করোনার কারণে সরকার ঘোষিত লকডাউনের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, এক সপ্তাহের ব্যবধানে বিভিন্ন সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত। তবে কিছুটা কমেছে মুরগির দাম। রাজধানীর কারওয়ান বাজার, হাতিরপুল বাজার, আজিমপুর বাজার ঘুরে এ পরিস্থিতি দেখা গেছে।

কাওরান বাজারের পাইকারি ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, লকডাউনের কারণে অনেক সবজি পৌঁছাতে পারছে না। ফলে দাম বেড়েছে। তবে সরবরাহের সমস্যা না থাকলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে।

আবার দাম বাড়লেও বাজারে কোনো সবজির কমতি নেই। আলু, পটল, করলা, টমেটো, শিম, লাউ, কাঁচা-পাকা মিষ্টি কুমড়া, ঢেঁড়স, বেগুন, মুলা, লাল শাক, পালং শাক, লাউ শাক সব কিছুই বাজারে ভরপুর। এদিকে দাম বেড়ে প্রতি কেজি ঢেঁড়স ৬০ টাকা, বেগুন (লম্বা) ১০০ টাকা, কালো গোল বেগুন ৯০ টাকা, সাদা/সবুজ বেগুন ৭০ থেকে ৮০ টাকা, পটল ৮০ টাকা, বরবটি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে। এছাড়া প্রতিকেজি শসা ৮০ টাকা, টমেটো ৫০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা এবং আলু ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বুধবারও এসব সবজির অধিকাংশের দাম কেজি প্রতি ১০ থেকে ১৫ টাকা কম ছিল। এছাড়া গত সপ্তাহে প্রতি কেজি ঢেঁড়স, বেগুন, পটল, বরবটি বিক্রি হয়েছে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। তুলনামূলকভাবে বেড়েছে টমেটো, শসা এবং বেগুনের দাম।

হাতিরপুল বাজারের বিক্রেতা আনিসুর রহামন বলেন, অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে গেছে কয়েকটি সবজির দাম। সরবরাহ কম থাকায় এ অবস্থা। কারওয়ান বাজারেও প্রতিটি সবজির দাম বেশি। পাইকারিতে কাওরান বাজারে প্রতি পাল্লায় (৫ কেজি) সবজির দাম ৩০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। ফলে আমাদেরও বাড়িয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে।

এদিকে, বাজারে মুরগির দাম তূলনামূলকভাবে কিছুটা কমেছে। প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১৭০ টাকায়, লেয়ার ২৪০ টাকায় এবং সোনালী মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৩৪০ টাকায়।

নিউজ ট্যাগ: রমজান লকডাউন

আরও খবর