Logo
শিরোনাম

সরকারি জমি আ.লীগ নেতার দখলে: নাজিরপুরে উন্নয়ন কাজ ব্যাহত

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২০ জুন ২০21 | ৪৬৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলায় সরকারি খাস জমি দখল করে সেখানে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণ করেছেন মোশারেফ হোসেন খান নামে এক প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা। তিনি নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। তার দখল করা সরকারি ওই খাস জমিতে তিনি প্রায় শতাধিক পাকা, আধাপাকা দোকান ঘরসহ বাসাবাড়ি করে বছরের পর বছর ভাড়া দিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, নাজিরপুর উপজেলাকে মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নাজিরপুর কলেজ পর্যন্ত পাকা সড়ক, ওয়াক ওয়ে, ড্রেন নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। কিন্তু এই সড়কটির শুরুর স্থান নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নদীর পাড় পর্যন্ত প্রায় ৩ শ মিটার লম্বা এবং ১শ মিটার চওড়া সরকারি খাস জমিতে ওই আ.লীগ নেতার শতাধিক অবৈধ স্থাপনা থাকায় চলমান এ উন্নয়ন প্রকল্পটি থমকে আছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে সরকারি এ সম্পত্তির উপর পাকা ও আধাপাকা প্রায় শতাধিক দোকান রয়েছে। দোকান গুলো ওই আ.লীগ নেতার কাছে ভাড়া নিয়ে বছরের পর বছর ব্যবসা করে আসছেন ব্যবসায়ীরা। একাধিক ব্যবসায়ীর সাথে কথা হলে তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই আ.লীগ নেতার নিকট দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করে আসছেন বলে স্বীকার করেন। অনেকে এটা চেয়ারম্যান মার্কেট হিসেবে পরিচিত বলেও জানান।

স্থানীরা জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য উপজেলা প্রশাসন ওই আ.লীগ নেতাকে তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য বারবার তাগাদা দিলেও এখন পর্যন্ত তিনি অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার কোনো উদ্যোগ নেননি। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় বইছে। একাধিক ব্যক্তি নানা মন্তব্য করে ফেসবুকে পোস্ট করছে। অনেকে লিখছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রকল্পের কাজে এমন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি প্রকারান্তরে সরকারের বিরোধিতার শামিল। নাজিরপুর উপজেলার সাধারণ জনগণের কাঙ্খিত এই প্রকল্প নির্বিঘ্নে বাস্তবায়নের জন্য নাজিরপুর উপজেলা ও পিরোজপুর জেলা প্রশাসন এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

পারভেজ খান নামে একজন তার ফেসবুক ওয়ালে লিখেছেন, নাজিরপুর উপজেলাকে মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা মাফিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নাজিরপুর কলেজ পর্যন্ত পাকা সড়ক, ওয়াক ওয়ে, ড্রেন নির্মাণের কাজ চলমান। নাজিরপুরের সাধারণ জনগণের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরন হবে এই কাজ সমাপ্ত হলে। কিন্ত অত্যন্ত দুঃখের বিষয় হচ্ছে এই সড়কটির শুরুর স্থান, অর্থাৎ নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সম্মুখভাগ থেকে নদীর পাড় পর্যন্ত প্রায় ৩ শত মিটার লম্বা এবং ১ শত মিটার চওড়া সরকারি খাস জমি দখল করে স্থানীয় একজন জনপ্রতিনিধি পাকা ভবন ও আধাপাকা ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিয়ে আসছেন। ওই জনপ্রতিনিধির অবৈধ স্থাপনা থাকার কারণে সড়কটির নির্মাণ কাজ ব্যাহত হচ্ছে। সড়ক নির্মাণ কাজ চলমান রাখার জন্য উপজেলা প্রশাসন ওই জনপ্রতিনিধিকে তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য বারবার তাগাদা দিলেও এখন পর্যন্ত সেসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। অনেকে লিখছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের অগ্রাধিকারভিত্তিক প্রকল্পের কাজে এমন প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি প্রকারান্তরে সরকারের বিরোধিতার শামিল। নাজিরপুর উপজেলার সাধারণ জনগণের কাক্সিক্ষত এই প্রকল্প নির্বিঘ্নে বাস্তবায়নের জন্য নাজিরপুর উপজেলা ও পিরোজপুর জেলা প্রশাসন এবং উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

আরেকজন লিখেছেন উপজেলায় প্রবেশদ্বারের মুখে অবৈধ স্থাপনার কারণে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স, পুলিশের গাড়ি ঢুকতে পারে না।

সরকারি ওই খাস সম্পত্তি পুরোটাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন খান দখল করে দোকানসহ বাসাবাড়ি করে বছরের পর বছর ভাড়া দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এম খোকন কাজী বলেন, সরকারি খাস জমি যার দখলেই থাকুক, উন্নয়নের স্বার্থে সে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।

নাজিরপুর উপজেলা প্রকৌশলী মো. জাকির হোসেন মিয়া বলেন, নাজিরপুর উপজেলা সদরের দৃশ্যমান সুন্দর্যবর্ধক প্রকল্প হিসেবে নাজিরপুর উপজেলা হেডকোয়াটার থেকে হুমায়ুন হাজরার বাড়ি পর্যন্ত সড়ক নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়নে ৪ কোটি টাকা ব্যয় হবে। তবে সড়কটি শুরু স্থান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে থেকে নদীর তীর পর্যন্ত প্রায় তিনশমিটার লম্বা ও ১শ মিটার চওড়া সরকারি খাস জমিটি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দখল করে অবৈধ স্থাপনা করে রেখেছে। সেগুলো অপসারণ না করায় ডিজাইন অনুযায়ি প্রকল্পটি বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এ ছাড়া প্রকল্পের অন্য অংশের কাজ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাখাওয়াত জামিল সৈকত বলেন, যারা ওই জায়গা দখল করে আছে। তাদের ইতোমধ্যে নোটিশ করা হয়েছে এবং উচ্ছেদ মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। স্থানীয়রা বলছেন দখলকারী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান সেই প্রভাবে তিনি নোটিশ পেয়ে তার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিচ্ছেন না। এ ব্যাপারে আপনার মন্তব্য কি? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারি সম্পত্তি যেই অবৈধভাবে দখল করে রাখুক, আমরা যথাযথ আইনী প্রক্রিয়ায় তা উচ্ছেদের ব্যবস্থা করবো এবং তা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান বলেন, ওই জায়গাটি সরকারি খাস জমি। কে দখল করে মার্কেট করেছেন বা ভাড়া দিয়েছেন সেটা বড় বিষয় নয়। যারা বর্তমানে দখলে রয়েছেন তারাই অবৈধ দখলদার। ইতোমধ্যে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা জন্য উচ্ছেদ মামলা করে অনুমোদনের জন্য ডিসি অফিসে পাঠানো হয়েছে। অনুমোদনের পর উচ্ছেদের জন্য ডিসি অফিস থেকেই ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হবে।

নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশারেফ হোসেন খান বলেন, ওই সম্পত্তিটা আমার ক্রয় করা সম্পত্তি ছিলো। একপর্যায়ে সরকার অধিগ্রহণ করে নিলে আমি সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করি। কিন্তু আমি মামলায় হেরে যাই। পরে বাধ্য হয়ে সরকারের কাছে একসনা লিজ নিয়ে ভোগ দখলে আছি। তবে সরকার নতুন লিজ না দেয়ায় নাবায়ন করা সম্ভব হয়নি। উন্নয়নের জন্য কর্তৃপক্ষ আমাকে যতটুকু ছেড়ে দিতে বলবে আমি ছেড়ে দিবো।


আরও খবর



আল আকসা মসজিদ ও গাজা দখল বন্ধে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা: হামাস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৯ জুন ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যে আপাতত যুদ্ধবিরতি হলেও সীমান্ত বন্ধ রেখে গাজাবাসীর ওপর আগ্রাসন অব্যাহত রেখেছে তেল আবিব। মানবিক সহায়তা পৌঁছাতে না পারায় মানবেতর জীবন যাপন করছেন ফিলিস্তিনিরা।

এদিকে পবিত্র আল আকসা মসজিদ ও গাজা দখল বন্ধে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি ও রয়টার্স জানায়, সাধারণ ফিলিস্তিনিদের ওপর টানা ১১ দিন বোমাবর্ষণ ও বর্বর হামলার পর যুদ্ধবিরতির ঘোষণা এলেও দখলদারিত্ব মনোভাব বজায় রেখেছে ইসরায়েল। সরাসরি বোমা দিয়ে না হলেও সীমান্ত বন্ধ রেখে সাধারণ ফিলিস্তিনিদের দমানোর চেষ্টায় ব্যস্ত তেল আবিব।

গাজার সবগুলো সীমান্তই ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণে। তাই সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়ায় জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সব ত্রাণ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এ মুহূর্তে বিধ্বস্ত গাজার সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন খাদ্য ও চিকিৎসা। ইসরায়েলের কঠোর মনোভাবের কারণে তা বন্ধ রয়েছে। এমনকি আহত ও অসুস্থরা আগে পশ্চিম তীরের হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে পারলেও সীমান্ত বন্ধ থাকায় এখন তাও পারছেন না।

ফিলিস্তিনিরা বলছেন, আপাতত যুদ্ধবিরতি হলেও সীমান্ত বন্ধ রেখে মূলত ইসরায়েল তাদের ওপর অত্যাচার অব্যাহত রেখেছে।

তারা বলেন, সীমান্ত বন্ধ রাখায় কয়েকদিনের মধ্যে এখানকার মানবিক পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করবে। এরইমধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্যে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। সামনের দিনগুলোতে দারিদ্র্য ও বেকারত্ব আরও বেড়ে যাবে।

ফিলিস্তিনিরা আরও বলেন, ইসরায়েল চাইছে আমরা যেন ওষুধ ও খাবার না পাই। কোনো কারণে লকডাউন যদি আরও ১০ কিংবা ২০ দিন বাড়ানো হয় আমাদের অবস্থা খুবই খারাপ হবে বলে জানান তারা।

শুধু গাজাতেই নয় জেরুজালেমে বসবাসরত আরবদের ভূমি দখলে মত্ত ইসরায়েল। তেমনি এক আরব পরিবারের ভূমি দখলের বিরুদ্ধে ইসরাযেলের একটি আদালতে বুধবার শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ভুয়া দলিল দিয়ে ফিলিস্তিনিদের ভূমি দখলের অভিযোগ আনা হয়। ফিলিস্তিনিদের সমর্থনে এদিন আদালতের বাইরে বিক্ষোভ করেন অনেকে।

ফিলিস্তিনিদের ওপর দফায় দফায় ইসরাইলের আগ্রাসী আচরণের কারণে শুধু গাজায় নয় ওই অঞ্চলে বড় সড় জাতিগত যুদ্ধ বেধে যেতে পারে বলে সতর্ক করেছেন হামাসের শীর্ষ নেতা ইয়েহিয়ে সিনওয়ার। পবিত্র আল আকসা মসদিজ ও ফিলিস্তিনিদের শেখ জারাহ বসতির ওপর ইসরাইলি বর্বরতা বন্ধে বিশ্ববাসীকে এগিয়ে আসারও আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে কূটনৈতিক মিশনের অংশ হিসেবে মিশর, জর্ডান সফর করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আব্দুল্লাহর সঙ্গে বৈঠকে, গাজায় সহায়তা পৌঁছানোর ব্যাপারে কোনো মন্তব্য না করলেও ফিলিস্তিনের সশস্ত্রগোষ্ঠী হামাসে কাছে যেন আন্তর্জাতিক সাহায্য সহযোগিতা না পৌঁছায় সেদিকে জোর দিয়েছেন তিনি।

এর আগে ফিলিস্তিন-ইসরায়েলের যুদ্ধবিরতির বিষয়ে মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাতাহ আল সিসির সঙ্গে বৈঠক করেন ব্লিঙ্কেন



আরও খবর



ভূমধ্যসাগরে ১৬৪ বাংলাদেশিকে উদ্ধার

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২০ জুন ২০21 | ৮৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধারের পর অভিবাসন প্রত্যাশীদের লিবিয়ার ত্রিপোলির নৌঘাঁটিতে আনা হয়। পরে তাদের লিবিয়ার অবৈধ অভিবাসন প্রতিরোধবিষয়ক কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়

ভূমধ্যসাগর থেকে ৪৩৯ অভিবাসন প্রত্যাশীকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৬৪ জন বাংলাদেশি রয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত থেকে উদ্ধার অভিযান চালিয়ে লিবিয়ার কোস্টগার্ড তাদের উদ্ধার করে। লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাস রবিবার এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

লিবিয়া অবজারভার এক প্রতিবেদনে জানায়, গত বৃহস্পতিবার পৃথক দুটি উদ্ধার অভিযান চালায় দেশটির কোস্টগার্ড।  এ অভিযানে ৪৩৯ অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার হন।  তারা আফ্রিকা ও এশিয়ার বিভিন্ন দেশের নাগরিক। তারা সমুদ্রপথে ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

লিবিয়ার নৌবাহিনীর চিফ অব স্টাফের এক মুখপাত্র বলেন, তাদের দুটি উদ্ধারকারী জাহাজ এ অভিযানে অংশ নেয়।  রাবারের তৈরি ডিঙিতে ওই অভিবাসনপ্রত্যাশীরা ইউরোপের উপকূলের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন বলে লিবিয়ার কর্তৃপক্ষ জানায়।

লিবিয়ার নৌবাহিনীর চিফ অব স্টাফের মুখপাত্র আরও জানান, ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধারের পর অভিবাসন প্রত্যাশীদের লিবিয়ার ত্রিপোলির নৌঘাঁটিতে আনা হয়। পরে তাদের লিবিয়ার অবৈধ অভিবাসন প্রতিরোধবিষয়ক কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

লিবিয়া অবজারভার জানায়, চলতি বছর দেশটির কোস্টগার্ড সমুদ্র থেকে ৯ হাজারের বেশি অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে বলে সম্প্রতি জানিয়েছেন দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) তথ্য অনুসারে, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ১২ জুন পর্যন্ত ভূমধ্যসাগরে ৮১৩ অভিবাসনপ্রত্যাশীর মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর



ডায়রিয়ায় বান্দরবানে দুদিনে ৭ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২০ জুন ২০21 | ৭২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার করুকপাতা ইউনিয়নে তিনটি পাড়ায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রবিবার ও আজ সোমবার এ দুদিনে এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। আজ ঘটনাস্থলে দুটি মেডিকেল টিম পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

মৃতরা হলেন মেনলিও ইয়ংচা পাড়ার বাসিন্দা রামধন ম্রো, খাইচাং ম্রো, থুংলাক ম্রো, সোনাদি পাড়ার জনরুন ত্রিপুরা এবং মাংলুম পাড়ার মাংধন ম্রো, রেংচং ম্রো, চিংরে ম্রো।

স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয়রা জানায়, জেলার আলীকদম উপজেলার করুকপাতা ইউনিয়নের দুর্গম যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ম্রো জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত ইয়ংচা পাড়া, মেনলিও পাড়া, সোনাদি পাড়া, মেনরুং পাড়া, কচ্ছপিয়া পাড়া, আলিশ্যাপা পড়া, রুইথং পাড়া, তংরিং পাড়া এবং মাংলুম পাড়াসহ পার্শ্ববর্তী ১০টি পাহাড়ি গ্রামে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট এবং প্রচণ্ড গরমে প্রায় এক সপ্তাহেরও অধিক সময় ধরে ছড়িয়েপড়া ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে শিশু, কিশোর ও বয়স্ক দুশতাধিকের বেশি।

অসুস্থদের মধ্যে আলীকদম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে সাতজনকে। গতকাল রোববার এবং আজ সোমবার দুদিনে পাড়াগুলোতে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে।

করুকপাতা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ক্রাতপু ম্রো বলেন, তিনটি পাড়ায় ডায়রিয়ায় এরই মধ্যে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ডায়রিয়া প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়া ইউনিয়নের ১০টি পাড়ায় আক্রান্ত হয়েছে দুশতাধিকেরও বেশি মানুষ।

ক্রাতপু ম্রো বলেন, ডায়রিয়া ছড়িয়ে পড়ার খবরে গতকাল রোববার এবং আজ ঘটনাস্থলে ছুটে গেছেন স্বাস্থ্য বিভাগের দুটি মেডিকেল টিম। এছাড়াও সেনাবাহিনীর দুটি মেডিকেল টিমও ঘটনাস্থলে গেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সেনাবাহিনীর সদস্যরা হেলিকপ্টারে মেডিকেল টিমের কাছে প্রয়োজনীয় জরুরি ওষুধ, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট এবং খাবার স্যালাইন পাঠিয়েছি আক্রান্ত এলাকাগুলোতে।

পার্বত্য জেলা পরিষদ বান্দরবানের সদস্য ম্রো গবেষক সিইয়ং ম্রো জানান, ম্রো জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত করুকপাতা ইউনিয়নে প্রচণ্ড গরম এবং বৃষ্টিতে ছড়া-খালের দূষিত হওয়া পানি ব্যবহারের ফলে ব্যাপকভাবে ডায়রিয়া ছড়িয়ে পড়েছে। ডায়রিয়ায় এরই মধ্যে সাতজনের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঘটনাস্থলে স্বাস্থ্য বিভাগ এবং সেনাবাহিনীর একাধিক মেডিকেল টিম পৌঁছেছে।


আরও খবর



ভারতে ২৪ ঘণ্টায় আবারও রেকর্ড মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২০ জুন ২০21 | ১০৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতে কিছুদিন করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা কমতির দিকে থাকলেও গত ২৪ ঘণ্টায় আবার রেকর্ডসংখ্যক মৃত্যু হয়েছে। এসময়ে মারা গেছেন চার হাজার ৪৫৫ জন।

এই মৃত্যুর মধ্যে দিয়ে দেশটিতে করোনাভাইরাসে প্রাণহানির সংখ্যা ৩ লাখ ছাড়িয়েছে।

একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও দুই লাখ ২২ হাজার ৮৩৫ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত হয়েছেন দুই কোটি ৬৭ লাখ ৫১ হাজার ৬৮১ জন। সংক্রমণের দিক থেকে বিশ্বের মধ্যে ভারতের অবস্থান বর্তমানে দ্বিতীয়তে।

দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুসারে, গত ১২ দিনেই দেশটিতে অর্ধলক্ষের বেশি মানুষ মারা গেছেন করোনায়। বিশ্বের একমাত্র দেশ হিসেবে মাত্র ২৬ দিনের মাথায় এক লাখের ওপর মানুষের মৃত্যু হলো ভাইরাসটির সংক্রমণে।

এরমধ্যে প্রাণহানির তালিকায় সবার শীর্ষে মহারাষ্ট্র। শুধু এ রাজ্যেই করোনায় মারা গেছেন ৮৯ হাজারের মতো মানুষ। পরের অবস্থানেই রয়েছে তামিলনাড়ু, কর্ণাটক ও রাজধানী নয়াদিল্লি।

গতকাল রোববারও (২৩ মে) দেশটির দুলাখ ২৩ হাজার মানুষের দেহে শনাক্ত হয় করোনাভাইরাস। মোট সংক্রমিত দুই কোটি ৬৭ লাখের বেশি।

ভারতে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে এনডিটিভির প্রতিবেদনে।

পরিসংখ্যান নিয়ে কাজ করা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, ভারতের মোট জনসংখ্যা ১৩৯ কোটির বেশি। সেখানে প্রতি ১০ লাখ মানুষের মধ্যে গড়ে দুই লাখ ২৭ হাজার ৩৪৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়।

গত বছরের ৩০ জানুয়ারি ভারতে প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, সংক্রমণের দিক থেকে বর্তমানে বিশ্বে ভারতের অবস্থান দুই নম্বরে। ভারতের আগে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও পরে ব্রাজিল।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ কোটি ৭৫ লাখ ১৮ হাজার ২১৩ জন এবং মারা গেছেন ৩৪ লাখ ৭৮ হাজার ২৪০ জন। এ ছাড়া সুস্থ হয়েছেন ১৪ কোটি ৮৫ লাখ ৩১ হাজার ১৪৪ জন।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



পাবনায় ২ আ. লীগ নেতার অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৭ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২০ জুন ২০21 | ৬৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
কয়েকজন ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতার অস্ত্র নিয়ে গণপূর্ত ভবনে প্রবেশের ঘটনা তদন্তে অস্ত্র আইনের শর্ত ভঙ্গ হয়েছে জানিয়ে প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ

পাবনায় গণপূর্ত ভবনে অস্ত্র নিয়ে ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতাদের মহড়ার ঘটনায় প্রদর্শিত দুটি শটগানের লাইসেন্স বাতিল করেছে জেলা প্রশাসন। মঙ্গলবার এসব অস্ত্রের লাইসেন্স বাতিলের সুপারিশ করে জেলা প্রশাসক বরাবর প্রতিবেদন দেয় পুলিশ।

পাবনার ডিসি কবীর মাহমুদ জানান, বুধবার বিকালে লাইসেন্স বাতিলের পর বৃহস্পতিবার সকালে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের চিঠি দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি পাবনার গণপূর্ত ভবনে অস্ত্র নিয়ে মহড়া দেন স্থানীয় কয়েকজন ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতা। গণপূর্ত ভবনের সিসিটিভি ক্যামেরায় ধারণ করা সেসব ছবিসহ খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে এ নিয়ে চাঞ্চল্য দেখা দেয়। পুলিশ জব্দ করে আওয়ামী লীগ নেতাদের দুটি আগ্নেয়াস্ত্র।

ডিসি বলেন, কয়েকজন ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতার অস্ত্র নিয়ে গণপূর্ত ভবনে প্রবেশের ঘটনা তদন্তে অস্ত্র আইনের শর্ত ভঙ্গ হয়েছে জানিয়ে প্রতিবেদন দিয়েছে পুলিশ। বৈধ অস্ত্রের অবৈধ ব্যবহার হওয়ায় লাইসেন্স বাতিলের সুপারিশও করা হয় প্রতিবেদনে। এই পরিপ্রেক্ষিতে এ আর খান মামুন ও শেখ আনোয়ার হোসেন লালুর নামে ইস্যু করা শটগানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে।

এ আর খান মামুন পাবনা পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। আর শেখ আনোয়ার হোসেন লালু জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য।

পাবনার পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান বলেন, পাবনা গণপূর্ত দপ্তরে ঠিকাদার আওয়ামী লীগ নেতাদের প্রবেশের ঘটনা জানার পরই বিষয়টি তদন্ত শুরু করে পুলিশ। গণপূর্ত কর্মকর্তারা লিখিত অভিযোগ না করলেও পুলিশ উদ্যোগ নিয়ে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করে বিষয়টি তদন্ত শুরু করে। ঠিকাদারদের প্রদর্শিত অস্ত্রও জব্দ করা হয়। সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে ও সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে কথা বলে অস্ত্র আইনের শর্তভঙ্গের বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ। বৈধ অস্ত্রের অবৈধ ব্যবহারের প্রমাণ মেলায় প্রদর্শিত অস্ত্রগুলোর লাইসেন্স বাতিলের সুপারিশ করা হয়।

জেলা প্রশাসন লাইসেন্স বাতিল করায় জব্দ করা অস্ত্রগুলো সরকারের সম্পত্তি হিসেবে বিবেচিত হবে বলে তিনি জানান।

নিউজ ট্যাগ: গণপূর্ত বিভাগ

আরও খবর