Logo
শিরোনাম

সুদানে একযোগে ১২ মন্ত্রীর পদত্যাগ

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফ্রিকার দেশ সুদানে সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমঝোতা করে আবারও ক্ষমতায় বসেছেন দেশটির বেসামরিক সরকারের ক্ষমতাচ্যুত অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লাহ হামদক। এই সমঝোতার প্রতিবাদে রাজপথে বিক্ষোভ করছেন দেশটির সাধারণ মানুষ। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে আবদাল্লাহ হামদক সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ ১২ জন মন্ত্রী একযোগে পদত্যাগ করেছেন। এর ফলে আবদাল্লাহ হামদকের ওপর রাজনৈতিক চাপ বাড়বে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।

ধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে গতকাল মঙ্গলবার বলা হয়েছে, পদত্যাগপত্র জমা দেওয়া মন্ত্রীদের তালিকায় রয়েছেন সুদানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের পররাষ্ট্র, বিচার, কৃষি, সেচ, বিনিয়োগ ও জ্বালানি, উচ্চশিক্ষা, শ্রম, পরিবহন, স্বাস্থ্য, যুব এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীরা। তাঁদের মধ্যে দেশটির পররাষ্ট্র, বিচার, কৃষি, সেচ, বিনিয়োগ ও জ্বালানি বিষয়ক পাঁচ মন্ত্রী এক যৌথ বিবৃতিতে একযোগে পদত্যাগের এই তথ্য জানিয়েছেন।

টানা তিন দশক ক্ষমতায় থাকার পর ২০১৯ সালে প্রেসিডেন্ট ওমর আল-বশিরের সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করেছিল সুদানের সেনাবাহিনী। এর পর থেকে ক্ষমতা ভাগাভাগি করে দেশটিতে শাসন করছিল সামরিক বাহিনী ও বেসামরিক সরকার। গত ২৫ অক্টোবর সুদানের সেনাবাহিনী অভ্যুত্থান করে রাষ্ট্রক্ষমতার পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেয়।

অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সুদানের সেনাপ্রধান জেনারেল আবদেল ফাত্তাহ আল-বুরহান দেশটিতে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার ভেঙে দিয়ে জরুরি অবস্থা জারি করেন। এ সময় গৃহবন্দী করা হয় সুদানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লাহ হামদককে। আটক হন দেশটির প্রভাবশালী মন্ত্রী ও রাজনীতিকেরা।

এর পর থেকে রাজধানী খার্তুমসহ সুদানের বিভিন্ন শহরে সেনাশাসনবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হয়। রাষ্ট্রক্ষমতা পুরোপুরি বেসামরিক কর্তৃপক্ষের হাতে অর্পণ এবং সাম্প্রতিক ওই অভ্যুত্থানের নেতাদের বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানান বিক্ষোভকারীরা। অভ্যুত্থান-পরবর্তী সময়ে দেশটিতে সংঘাতে অন্তত ৪০ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বেসামরিক সরকারের হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দিতে সুদানের সেনাবাহিনীর ওপর চাপ তৈরি করে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো ও জাতিসংঘ। দুই পক্ষের সমঝোতার জন্য সুদানের শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, রাজনীতিকদের নিয়ে নাগরিক সমাজের একটি প্রতিনিধিদল কাজ শুরু করে। এর সুফল মিলে গত রোববার। ওই দিন আবদাল্লাহ হামদক ও জেনারেল বুরহানের মধ্যে রাজনৈতিক সমঝোতার খবর পাওয়া যায়।

এই সমঝোতার মধ্য দিয়ে গৃহবন্দী আবদাল্লাহ হামদক ক্ষমতায় ফিরেন। কয়েকজন রাজবন্দীদের মুক্তি দেওয়া হয়। পশ্চিমা দেশগুলো এই সমঝোতাকে স্বাগত জানায়। তবে সুদানের প্রধান বিরোধী দলগুলোর জোট এমন সমঝোতা মানতে নারাজ। তারা দেশটিতে সেনাশাসনের পূর্ণাঙ্গ প্রত্যাহার চান। এই দাবিতে দেশটির রাজপথে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ চলছে। এর মাঝেই আবদাল্লাহ হামদক সরকারের ১২ জন প্রভাবশালী মন্ত্রীর একযোগে পদত্যাগের ঘটনা ঘটলো।

নিউজ ট্যাগ: সুদান আফ্রিকা

আরও খবর



ডেঙ্গুতে আক্রান্ত আরও ১২৭ জন হাসপাতালে ভর্তি

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১ | ৬৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও ১২৭ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় ৯৫ জন ও ঢাকার বাইরে ৩২ জন ভর্তি হয়েছে।

আজ রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৯২ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৪৬টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে ৫৫২ জন এবং অন্যান্য বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে ১৪০ জন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ১ জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৪ হাজার ৬৪৫ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ২৩ হাজার ৮৫৮ জন।

অপরদিকে চলতি বছরে ডেঙ্গুতে মৃত্যুবরণ করেছে ৯৫ জন।


আরও খবর



তৃতীয় ধাপে ইউপিতে ভোটগ্রহণ শুরু

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

তৃতীয় ধাপে ৯৮৬ ইউনিয়ন পরিষদ ও নয় পৌরসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে। রবিবার সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়, একটানা চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

৩৩টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) , বাকি ৯৫৩টিতে কাগজের ব্যালটে ভোটগ্রহণ চলছে।

এ ধাপে এক হাজার ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হওয়ার কথা ছিল। একশজন চেয়ারম্যানসহ ৫৬৯ জন সাধারণ ও সংরক্ষিত নারী সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় পাওয়ায় সংশ্লিষ্ট পদগুলোয় ভোটের প্রয়োজন হচ্ছে না। এর মধ্যে চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার ১৪টিতে চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্যরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা জয় পেয়েছেন।

ইসির তথ্য অনুযায়ী, তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৫০ হাজার ১৪৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এর মধ্যে চেয়ারম্যান ৪ হাজার ৪০৯ জন, সংরক্ষিত সদস্য ১১ হাজার ১০৫ ও সাধারণ সদস্য ৩৪ হাজার ৬৩২ জন। এতে ভোটকেন্দ্র ১০ হাজার ১৫৯ ও ভোটকক্ষ ৬১ হাজার ৮৩০টি। ভোটার রয়েছেন ২ কোটি ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৭৮ জন। এ ধাপে ভোটের আগেই জয় পেয়েছেন ৫৬৯ জন প্রার্থী। গত চার ধাপের মধ্যে এ ধাপেই সবচেয়ে বেশিসংখ্যক জনপ্রতিনিধি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় পেলেন। তাদের মধ্যে ১০০ জন চেয়ারম্যান রয়েছেন। এছাড়া সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৩২ এবং সাধারণ সদস্য পদে ৩৩৭ জন রয়েছেন।

ইসি সূত্রে জানা যায়, তৃতীয় ধাপের ভোটগ্রহণ উপলক্ষ্যে শনিবার পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি ও কোস্টগার্ড সদস্যরা মাঠে নেমেছেন। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের পুলিশের একটি মোবাইল ফোর্স ও প্রতি তিন ইউনিয়ন পরিষদের জন্য একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স রয়েছে।

সূত্র জানায়, তৃতীয় ধাপে ৬২ জেলার ১২২ উপজেলায় আজ ভোট হচ্ছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের চাহিদা অনুযায়ী ২১ জেলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্ধারিত হারের অতিরিক্ত সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এর মধ্যে মুন্সীগঞ্জে ২৪ প্লাটুন, কক্সবাজারে ১২ প্লাটুন, চাঁদপুরে ১০ প্লাটুন অতিরিক্ত বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এরপরও অনেক জেলায় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সহিংসতার আশঙ্কা রয়েছে ভোটারদের মধ্যে।

তৃতীয় ধাপের ভোট সুষ্ঠু হবে-এমন প্রত্যাশা করলেও সহিংসতার আশঙ্কা উড়িয়ে দেননি নির্বাচন কমিশন সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন প্রত্যাশা করে ভোট ভালো হবে। এই মুহূর্তে কোনো আশঙ্কা নেই। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ডোর টু ডোর, বাড়ি-বাড়ি ও পাড়ায়-পাড়ায় প্রতিযোগিতা হয়। যে কোনো মুহূর্তে যে কোনো ঘটনা ঘটতে পারে। এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া আছে। আশা করি গ্রহণযোগ্য ভোট হবে।


আরও খবর



প্রতারক ব্যবসায়ী সুকেশের সঙ্গে চুম্বনরত অবস্থায় জ্যাকলিন!

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ১৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বড়সড় বিপদের মাঝে জড়ালেন অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ। ইডির জেরাতে এতদিন তিনি অস্বীকার করে এসেছিলেন তিনি প্রতারক সুকেশ চন্দ্রশেখরকে চেনেন না। কিন্তু শুক্রবার এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের তরফে জ্যাকলিনের সঙ্গে সুকেশের গোপন সম্পর্কের তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। দেখা গিয়েছে, এক বিলাসবহুল হোটেলে অন্তরঙ্গ ভাবে রয়েছেন সুকেশ ও জ্যাকলিন। আর সেই ছবি তুলেছেন খোদ সুকেশ। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে ফাঁস করা ছবি এখন ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর বলাই যায় সেই ছবি ইডির আধিকারিকদের কাছে আসল অস্ত্র হতে চলেছে জ্যাকলিনের বিরুদ্ধে।

২০০ কোটি টাকার জালিয়াতির মামলায় আপাতত জেল হেফাজতে রয়েছেন সুকেশ চন্দ্রশেখর। তাঁর সঙ্গে সম্পর্কের ও আর্থিক লেনদেনে নাম জড়ায় দুই বলিউড তারকার। যার মধ্যে একজন জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ ও অপরজন নোরা ফাতেহি। দুজনকেই বারবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছে ইডি। নোরা তদন্তে সহযোগিতা করলেও মাঝে হাজিরা এড়িয়েছেন জ্যাকলিন। তারপরেই তাঁর বিরুদ্ধে এই ছবি ইডির গোয়েন্দাদের কাছে মোক্ষম অস্ত্র বলাই যায়। সূত্রের খবর, এপ্রিল থেকে জুন মাসে সুকেশ ও জ্যাকলিন মোট চারবার সাক্ষাৎ করেছেন বলেই জানা গিয়েছে। যার মধ্যে সুকেশ নিজেই ব্যক্তিগত বিমানে জ্যাকলিনের সঙ্গে দেখা করতে চেন্নাই গিয়েছেন একাধিকবার। সেই সমিয় জামিনে বাইরে ছিলেন সুকেশ।

ছবিতে দেখা গিয়েছে যে মডেলের আইফোন সুকেশে জ্যাকলিনকে চুম্বন করতে করতে তুলেছেন সেই একই মোবাইল জেলের ভিতরে ব্যবহার করেন তিনি। সেই মোবাইলেই ইজরায়েলের সিম কার্ড ব্যবহার করছেন সুকেশ। যা ইডির গোয়েন্দাদের হাতে ধরা পড়ে যায়। ২০০ কোটি টাকার প্রতারণার মামলায় আপাতত জেল হেফাজতে সুকেশ চন্দ্রশেখর ও তাঁর স্ত্রী লীনা মারিয়া পাল। যা তদন্তে কিছুটা ভাঁটা পড়লেও আচমকাই এই ছবি একাধিক তথ্য সামনে আনবে তদন্তকারীদের বলাই যায়।


আরও খবর



হাতি হত্যা বন্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হাইকোর্টের নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ২২ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
বন্য হাতির চলাচলের জায়গায় মানুষজন বাড়ি-ঘর বানাচ্ছে। এতে হাতির চলাচলের বিঘ্ন ঘটায় হাতি সেগুলো ভাঙচুর করে। অন্যদিকে মানুষ বন্য হাতিকে বিভিন্নভাবে হত্যা করছে

হাতি হত্যা বন্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। জনস্বার্থে আনা এক রিটের শুনানি নিয়ে আজ সোমবার (২২ নভেম্বর) বিচারপতি এম, ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

একইসঙ্গে আদালত হাতি হত্যা বন্ধে জনসচেতনতা বাড়াতে তথ্য মন্ত্রণালয়কে পদক্ষেপ নিতে বলেছেন। পাশাপাশি রুলও জারি করেছেন আদালত। রুলে বন্যপ্রাণি (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ অনুসারে ১২টি এলিফ্যান্ট করিডোরকে সংরক্ষিত করিডোর হিসেবে ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং হাতি হত্যা বন্ধে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তাকে কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। পরিবেশ সচিব, তথ্য সচিব, আইন সচিব, বন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট ২১ জনকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

রিট আবেদনের পক্ষে আইনজীবী খান খালিদ আদনান সাংবাদিকদের আদালতের আদেশের বিষয়টি জানান। তিনি আরো বলেন, বন অধিদপ্তর থেকে জরিপ করে বন্য হাতি চলাচলের জন্য ১২টি করিডোর নির্ধারণ করেছে। কিন্তু ওই সব করিডোর এখনও বন্যপ্রাণি (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২ অনুসারে সংরক্ষিত এলাকা ঘোষণা করা হয়নি। যে কারণে বন্য হাতির চলাচলের জায়গায় মানুষজন বাড়ি-ঘর বানাচ্ছে। এতে হাতির চলাচলের বিঘ্ন ঘটায় হাতি সেগুলো ভাঙচুর করে। অন্যদিকে মানুষ বন্য হাতিকে বিভিন্নভাবে হত্যা করছে। এভাবেই হাতি ও মানুষের মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

গতকাল রবিবার চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বন্য হাতি হত্যা বন্ধে নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন ওয়াইল্ড লাইফ অ্যাক্টিভিস্ট আদনান আজাদ, ফারজানা ইয়াসমিন ও খান ফাতিম হাসান হাইকোর্টে রিট করেন।

নিউজ ট্যাগ: হাতি হত্যা

আরও খবর



যুক্তরাষ্ট্র ৫৫০০ কোটি টাকার ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে সৌদিকে

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সৌদি আরবের কাছে ৬৫ কোটি মার্কিন ডলার মূল্যের ক্ষেপণাস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর এই প্রথম কোনো মধ্যপ্রাচ্যের রাষ্ট্রের কাছে অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দিল দেশটি। এক ঘোষণায় মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগন এ তথ্য জানিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে আল জাজিরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে পেন্টাগন জানায়, সৌদি আরবের বর্তমান ও ভবিষ্যত হুমকি মোকাবিলায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই অনুমোদন দিয়েছে। প্রস্তাবিত এই অস্ত্র বিক্রি যুক্তরাষ্ট্রের বৈদেশিক নীতিমালার ও নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কারণ সৌদি আরব মধ্যপ্রাচ্যের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, মধ্য পালার এআইএম-১২০সি-৭/সি-৮ মডেলের এয়ার-টু-এয়ার ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ৬৫ কোটি ডলারে বিক্রি করছে যুক্তরাষ্ট্র। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৫ হাজার ৫৭৬ কোটি ৪০ লাখ ৫৯ হাজার টাকা।

পেন্টাগণের বিবৃতির পর মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় টুইটারে জানায়, এই ক্ষেপণাস্ত্র স্থলে কোনো লক্ষ্যবস্তুতে হামলা করার জন্য ব্যবহৃত হবে না। সম্প্রতি সীমান্তের ওই পাশ থেকে বেশকিছু হামলার ঘটনা ঘটেছে সৌদি আরবে। নতুন এই এআইএম-১২০সি-৭/সি-৮ মডেলের এয়ার-টু-এয়ার ক্ষেপণাস্ত্রগুলো সেসব হামলা প্রতিহত করতে সাহায্য করবে। এতে সৌদিতে থাকা প্রায় ৭০ হাজার মার্কিন নাগরিক নিরাপদে থাকবে।


আরও খবর