শিরোনাম

শুরু হলো বিজয়ের মাস

প্রকাশিত:বুধবার ০১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আজ শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সাক্ষর বিজয়ের মাস। মাসের শুরুর দিন থেকেই বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। দিনটিকে দেশের মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনগুলো মুক্তিযোদ্ধা দিবস হিসাবে পালন করে থাকে। এবারও তারা দিনটি পালনে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

বাংলাদেশের সুদীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসে শ্রেষ্ঠতম ঘটনা হলো ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ। সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামের এক ঐতিহাসিক ঘটনার মধ্য দিয়ে বাঙ্গালি জাতির কয়েক হাজার বছরের সামাজিক রাজনৈতিক স্বপ্ন সাধ পূরণ হয় এ মাসে।

মুক্তিযুদ্ধের অবিস্মরণীয় গৌরবদীপ্ত চুড়ান্ত বিজয় ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখে অর্জিত হয়। স্বাধীন জাতি হিসেবে সমগ্র বিশ্বে আত্মপরিচয় লাভ করে বাঙালিরা। অর্জন করে নিজস্ব ভূ-খণ্ড আর সবুজের বুকে লাল সূর্য খচিত নিজস্ব জাতীয় পতাকা। ভাষার ভিত্তিতে যে জাতীয়তাবাদ গড়ে উঠেছিল, এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে ঘোষিত স্বাধীনতা পূর্ণতা পায় এই দিনে।

বাঙালির হাজার বছরের স্বপ্নপূরণ হবার পাশাপাশি বহু তরতাজা প্রাণ বিসর্জন আর মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এই অর্জন হওয়ায় বেদনাবিঁধূর এক শোকগাঁথার মাসও এই ডিসেম্বর। এ মাসেই স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদর আল শামসদের সহযোগিতায় দেশের মেধা, শ্রেষ্ঠ সন্তান-বুদ্ধিজীবী হত্যার নৃশংস হত্যাযজ্ঞে মেতে ওঠে। সমগ্র জাতিকে মেধাহীন করে দেওয়ার এধরনের ঘৃণ্য হত্যাযজ্ঞের দ্বিতীয় কোনও নজীর বিশ্বে নেই।

বিজয়ের মাসের প্রথমদিন শনিবার বিভিন্ন সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বিজয়ের মাসকে স্বাগত জানিয়ে সমাবেশ, মানববন্ধন, বিজয় র‍্যালি, মুক্তিযোদ্ধা কবরস্থানে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে এদিনের কর্মসূচি পালন করা হবে।

মুক্তিযোদ্ধা দিবস উদযাপন জাতীয় কমিটি শনিবার সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে মিরপুর কবরস্থানে পুস্পমাল্য অর্পণ করে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শনিবার বিজয় র‍্যালি বের করবে। সকাল ১০টা ৪৫মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা অপারেজেয় বাংলার পাদদেশে জমায়েত হবেন। সেখান থেকে বেলা ১১টায় উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামানের নেতৃত্বে বিজয় র‍্যালি বের হয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের স্বাধীনতা চত্বরে গিয়ে শেষ হবে।

বিজয়ের মাসের প্রথম প্রভাত শিরোনামে পদক্ষেপ বাংলাদেশ শনিবার সকাল ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাকিম চত্বরে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান। অনুষ্ঠানে ঋষিজ শিল্পি গোষ্ঠীসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিল্পিরা সংগীত পরিবেশন করবেন।

বঙ্গবন্ধু পরিষদ মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির অংশ হিসেবে শনিবার সকাল ৮টায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলের শ্রদ্ধা নিবেদন করবে।


আরও খবর

বৃহস্পতিবার বেগম রোকেয়া দিবস

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১

১৬ নভেম্বর: ইতিহাসের এই দিনে

মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১




শুরু হল পুরান ঢাকাবাসীর ঐতিহ্যবাহী উৎসব সাকরাইন

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পৌষের বিদায়ক্ষণ আজ। বারো মাসে তেরো পার্বণের দেশে এই পৌষ মাসের শেষ দিনটিতে শুরু হয়েছে পুরান ঢাকাবাসীর ঐতিহ্যবাহী উৎসব সাকরাইন।

আজ শুক্রবার পুরান ঢাকা বাসা বাড়ির ছাদে সূর্যোদয় থেকে চলছে ঘুড়ি উড়ানোর প্রস্ততি। ঘুড়ি উড়ানোর জন্য সুতা মাঞ্জা দেওয়া থেকে শুরু করে পিঠা উৎসবের আয়োজন শুরু হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, সূর্যের আলো যখন মেলে উঠে, তখনি আকাসে উড়তে শুরু করে ঘুড়ি। বাসা-বাড়ির ছাদে কিশোর কিশোরীদের ঢল আর হৈ-হুল্লোড়। আকাশে দেখা দিতে থাকে চোখদার, পানদার, বলদার, দাবাদার, লেজওয়ালা, পতঙ্গ ইত্যাদি নামের ঘুড়ির আগমন। শুরু হয় নিজের ঘুড়িকে সর্বোচ্চ উপরে উঠার প্রতিযোগিতা। শুরু হয় ঘুড়ি কাটাকাটির লড়াই।

পুরান ঢাকার বাংলা বাজার এলাকার কয়েকটি বাসার ছাদেই এখনি শুরু হয়েছে সাউন্ড সিস্টেমে গান বাজনা। আজ দুপুরের পর থেকেই আকাশের বুকে বাড়তে থাকবে ঘুড়ির সংখ্যা। ঘরে ঘরে হবে পিঠাপুলির উৎসব।  

নিউজ ট্যাগ: সাকরাইন

আরও খবর

অ্যাটর্নি জেনারেল করোনা আক্রান্ত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




লিবিয়া উপকূলে নৌকা ডুবে ১৬৪ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ ডিসেম্বর 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

লিবিয়া উপকূলে দুটি নৌকা ডুবে ১৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত সপ্তাহে এ ঘটনা ঘটলেও মঙ্গলবার জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক সংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার মুখপাত্র (আইওএম) সাফা এমসেহলি জানিয়েছেন, শুক্রবার ভূমধ্যসাগরে একটি নৌকা ডুবে যাওয়ার খবর পান তারা। এতে অন্তত ১০২ জনের মৃত্যু হয়। আট জনকে জীবিত উদ্ধার করে উপকূলে নিয়ে আসা হয়েছে।

দ্বিতীয় নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে শনিবার। লিবিয়ার কোস্টগার্ড অন্তত ৬২টি মৃতদেহ উদ্ধার করে। একই দিন তৃতীয় একটি নৌকা আটক করতে সক্ষম হয় তারা। সেখান থেকে অন্তত ২১০ জন শরণার্থীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

এমসেহলি জানান, চলতি বছর ভূমধ্যসাগরের প্রধান রুটটি দিয়ে অবৈধভাবে ইউরোপ যাওয়ার চেষ্টাকালে প্রায় এক হাজার ৫০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর

আবুধাবিতে ড্রোন হামলায় তিনজন নিহত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে যা খাওয়াবেন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৬৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বড়রা জানেন, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কী করতে হবে, কী খেতে হবে। কিন্তু ছোটরা সেসব জানে না। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কী, তা বোঝার মতো প্রাপ্তবয়স্ক তারা নয়। তাইতো মজাদার আর মুখরোচক খাবারের প্রতি তাদের যত আগ্রহ। কিন্তু এই করোনাকালে নজর দিতে হবে ছোটদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর দিকেও। তারা বায়না করতেই পারে অপুষ্টিকর খাবার খাওয়ার, কিন্তু অভিভাবক হিসেবে তাদেরকে বুঝিয়ে বলার দায়িত্ব আপনারই। কেন এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো জরুরি, এর জন্য কোন খাবারগুলো খেতে হবে তাও তাকে বুঝিয়ে বলুন। বোল্ডস্কাই জানাচ্ছে সেরকমই কিছু খাবারের কথা যেগুলো খেলে শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে-

মাতৃদুগ্ধ: একদম ছোট শিশুর ক্ষেত্রে তার প্রয়োজনীয় উপাদান হলো মাতৃদুগ্ধ। শিশুরা তাদের স্তন্যপান থেকেই প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ করে, তাই মাতৃদুগ্ধের বিকল্প নেই। এছাড়াও, বয়স অনুযায়ী অন্যান্য খাবার খেতে পারলে সেদ্ধ শাকসবজি, মাছ ইত্যাদি খাবার খাওয়াতে পারেন।

হলুদ: হলুদে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি, অ্যান্টিসেপটিক এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করবে। ঘুমাতে যাওয়ার আগে বাচ্চাদের দুধের সঙ্গে হলুদ মিশিয়ে খাওয়ান। আবার সকালে আধা চা চামচ মধুর সঙ্গে অল্প একটু কাঁচা হলুদের টুকরোও খাওয়াতে পারেন।

দই: দই শিশুদের গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল অসুস্থতা প্রতিরোধে সহায়ক। দই প্রো-বায়োটিক পূর্ণ, যা দেহের খারাপ ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে সহায়তা করে এবং শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। তাই প্রতিদিন খাবারের পর দই খাওয়ান।

ডিম: ডিমে থাকে প্রচুর ভিটামিন, মিনারেলস্ এবং প্রোটিন, যা শরীরকে সুস্থ রাখতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। তাই শিশুকে নিয়মিত ডিম খাওয়ান।

সবুজ শাক-সবজি: অনেক শিশুই শাকসবজি খেতে পছন্দ করে না। কিন্তু এই সময়ে তাদের সুস্থ রাখতে প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় রাখুন শাক-সবজি। ফুলকপি, ব্রকলি, পালং শাক, মেথি শাক ইত্যাদি রাখলে আরও ভালো।

বাদাম: শিশুর প্রতিদিনের খাবারে রাখুন খেজুর, পেস্তা বাদাম, কাজু বাদাম, আখরোট ইত্যাদি। এগুলি শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের আস্ত বাদাম দেয়া থেকে বিরত থাকুন। বাদাম গুঁড়া করে অল্প অল্প খাওয়াতে পারেন। যাদের বাদামে অ্যালার্জি আছে তাদের খাওয়াবেন না।

ফল: সুস্থ থাকতে প্রতিদিন ফল খাওয়া অত্যন্ত প্রয়োজন। ফলে থাকা প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে এবং অন্যান্য চাহিদা পূরণ করতে সাহায্য করে। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুকে ফলের রস বের করে খাওয়াবেন। শিশুর জন্মের প্রথম এক বছরে তাদের এই খাবারগুলো দেবেন না।


আরও খবর

মুখে স্বাদ ফেরাতে বানান মুরগির পুলি

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২

চাইনিজ সবজি রান্নার সহজ রেসিপি

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




চলতি বছরই প্রবৃদ্ধি হবে ৭.২ শতাংশ : অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ২০ ডিসেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৬৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চলতি অর্থবছরেই মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ৭.২ শতাংশ হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। সোমবার ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, সব খাতেই আমাদের প্রবৃদ্ধি ভালো হচ্ছে। রপ্তানি বাড়ছে, আমদানিও বাড়ছে। অর্থনীতি গতিশীল হচ্ছে। কাজেই যেভাবে অর্থনীতি এগোচ্ছে, তাতে আশা করা যাচ্ছে, চলতি অর্থবছর শেষেই প্রবৃদ্ধি ৭.২ শতাংশ হবে।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেটে জিডিপির প্রবৃদ্ধি প্রাক্কলন করা হয়েছে ৭ দশমিক ২ শতাংশ। মুস্তফা কামাল জানান, অর্থনীতি যেভাবে এগোচ্ছে, তাতে নির্ধারিত প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে বলে আশা করছি।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বলেছে, চলতি বছরে বাংলাদেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি হবে ৬ দশমিক ৬ শতাংশ। এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক সবসময় কনজারভেটিভ। আমরা আশা করছি বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী প্রবৃদ্ধি অর্জন হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, রেমিট্যান্স কিছুটা কম হয়েছে। তবে উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই। সামনে দুটি ঈদ আছে। তখন আরও বেশি রেমিট্যান্স আসবে।

তিনি বলেন, রেমিট্যান্স আসার যে প্রবণতা দেখা যাচ্ছে, এ ধারা অব্যাহত থাকলে বছর শেষে ২৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাব। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ৫০ বছরে দেশের অনেক অর্জন হয়েছে।

তিনি বলেন, ১০০ বিলিয়ন ডলার জিডিপি অর্জন করতে ৩৮ বছর লেগেছে। বাকি ১২ বছরে ৪১   বিলিয়ন ডলার অর্জিত হয়েছে। এই সময়ে সবচেয়ে বেশি এগিয়েছে দেশ। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে।

তিনি বলেন, আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে ২০৩০ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়া এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বিশ্বের কাতারে পৌঁছানো। আমরা যেভাবে এগোচ্ছি, ইনশাল্লাহ কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারব।

এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, রোড শো করা হয় বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশকে তুলে ধরার জন্য। এরসঙ্গে পুঁজিবাজারের কোনো সম্পর্ক নেই। আমি মনে করি, পুঁজিবাজার সঠিক স্থানেই আছে।


আরও খবর



টিকা না নিলে স্কুল-কলেজে যাওয়া যাবে না

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছেন, ১২ বছরের বেশি বয়সী শিক্ষার্থীরা অন্তত এক ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা না নিলে স্কুল-কলেজে যেতে পারবেন না। বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

আজ ভার্চুয়ালি মন্ত্রিসভার বৈঠকে হয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা বৈঠকে যোগ দেন। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেছেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় অলরেডি ইনস্ট্রাকশন দিয়েছে। ভ্যাকসিন ছাড়া কেউ স্কুল বা কলেজে আসতে পারবে না।

শিক্ষার্থীদের তো এখনও ভ্যাকসিন দেওয়াই হয়নি, সাংবাদিকদের এ কথার জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এখন আমাদের গ্রাম-গঞ্জ পর্যন্ত পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন আছে। যদি না থাকত, তাহলে হেলথ বিভাগকে ধরতাম।

তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলে দিয়েছেন যে, ভ্যাকসিনেটেড না হলে শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারবেন না। অন্তত এক ডোজ নিতে হবে।

এখন থেকে ১২ বছরের বেশি বয়সীদের স্কুলে যেতে হলে অন্তত এক ডোজ টিকা লাগবে, ম্যাসেজটা কি এমন? এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জ্বি। আজকে নির্দেশনা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরশুদিন আলোচনা হয়েছে। আজকে কনফার্ম করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা হলোযারা ভ্যাকসিন না নেবে, তারা স্কুল-কলেজে আসতে পারবে না। বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা ওনারা বলেননি।

সারা দেশে কি শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা আছে? এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, যেকোনো আইডি কার্ড নিয়ে গেলে করোনার টিকার জন্য নিবন্ধন করতে পারবে।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর