Logo
শিরোনাম

স্বর্ণের দাম বিশ্ববাজারে কমলেও দেশে বেড়েছে

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ১৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দামি ধাতু স্বর্ণের দাম বিশ্ববাজারে কমলেও বাংলাদেশে বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে। বিশ্ববাজারে দাম কমার মধ্যেই দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়েছে। এ দাম বাড়ার পেছনে স্থানীয় বাজারে তেজাবী স্বর্ণের (পাকা স্বর্ণ) দাম বাড়াকে কারণ হিসেবে দেখিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)।

সর্বশেষ গত ২২ আগস্ট সব ধরনের স্বর্ণের দাম বাড়ায় বাজুস। সব থেকে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম এক হাজার ২২৫ টাকা বাড়িয়ে ৮৩ হাজার ২৮১ টাকা করা হয়।

এদিকে ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম এক হাজার ১৬৬ টাকা বাড়িয়ে ৭৯ হাজার ৪৯০ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৯৯২ টাকা বাড়িয়ে ৬৮ হাজার ১১৮ টাকা ও সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৯৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৫৬ হাজার ২২০ টাকা করা হয়।

বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি ২১ আগস্ট বৈঠক করে এ দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়। দাম বাড়ানোর কারণ হিসেবে বাজুসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবী স্বর্ণের দাম বেড়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতি স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করেছে।

দেশের বাজারে যখন এ দাম বাড়ানো হয়, তার আগে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে বড় পতন হয়। এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৫৫ ডলার বা ৩ শতাংশ কমে। দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানোর পরও বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমেছে।

দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানোর পর গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম কমেছে দশমিক ৬০ শতাংশ বা ১০ দশমিক ৪৯ ডলার। এর মাধ্যমে টানা দুই সপ্তাহের পতনে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম কমেছে ৬৫ ডলারের ওপরে।

স্বর্ণের পাশাপাশি গত সপ্তাহে কমেছে রুপা ও প্লাটিনামের দাম। গত এক সপ্তাহে রুপার দাম দশমিক ৮০ শতাংশ কমেছে। এতে প্রতি আউন্স রুপার দাম ১৮ দশমিক ৮৭ ডলারে নেমে এসেছে। প্লাটিনামের দাম সপ্তাহের ব্যবধানে কমেছে ৩ দশমিক ৬২ শতাংশ। এতে প্রতি আউন্স প্লাটিনামের দাম দাঁড়িয়েছে ৮৬৩ দশমিক ৫০ ডলার।

বাংলাদেশে স্বর্ণের দাম নির্ধারণের ভিত্তি সম্পর্কে জানতে চাইলে বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এম এ হান্নান আজাদ বলেন, দেশের স্বর্ণের দামের ওপর বিশ্ববাজারের পরিস্থিতির প্রভাব রয়েছে। তবে আমাদের মূলত নির্ভর করতে হয় স্থানীয় বাজারের ওপর। তাঁতিবাজারসহ স্থানীয় যেসব জায়গায় পাকা স্বর্ণ পাওয়া যায়, তার ওপরই মূলত আমাদের বাজারনির্ভর করে।’

তিনি বলেন, সরকার আমাদের স্বর্ণ দেয় না। আবার আমদানির ক্ষেত্রে যেসব নীতিমালা আছে, তাতে বৈধভাবে বাইরে থেকে খুব বেশি স্বর্ণ আমদানি করা যায় না। মূলত স্থানীয় বাজারে পাকা স্বর্ণের দাম বাড়লে আমরাও দাম বাড়াই। একইভাবে পাকা স্বর্ণের দাম কমলে আমরা দাম কমাই।’


আরও খবর

৩১ ডিসেম্বরের পর পাম অয়েল বিক্রি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




ফের জামিন পেলেন ইমরান খান

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জামিন পেয়েছেন। আজ রোববার পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম দ্য ডন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

দ্য ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইসলামাবাদ হাইকোর্ট (আইএইচসি) ৭ অক্টোবর ইমরান খানকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে চলতি বছরের ২০ আগস্ট ইসলামাবাদের এক জনসভায় অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ জেবা চৌধুরী ও পুলিশকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করায় মামলা হয় ইমরান খানের বিরুদ্ধে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন দেওয়ানি আদালতের জ্যেষ্ঠ বিচারক রানা মুজাহিদ রহিম। গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির বিষয়টি জানার পর থেকেই ইমরান খানের সমর্থকেরা তাঁর বাড়ির চারপাশ ঘিরে রাখে।

পরোয়ানার কপি হাতে পেয়ে ইসলামাবাদ পুলিশ টুইটারে জানায়, এটি একটি আইনি প্রক্রিয়া। পুলিশ জানিয়েছে, ইসলামাবাদ হাইকোর্ট ইমরান খানের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদ আইনে আনীত অভিযোগটি বাতিল করায় মামলাটি স্বাভাবিকভাবেই সেখান থেকে দায়রা আদালতে স্থানান্তর হয়। কিন্তু ইমরান খান সেখান থেকে জামিন নেননি। তাই তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০ আগস্ট ইসলামাবাদে ইমরানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের সমাবেশে অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ জেবা চৌধুরী ও পুলিশকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন বলে অভিযোগে সন্ত্রাসবাদবিরোধী আইনে মামলা করা হয়। একই সঙ্গে আদালত অবমাননারও মামলা হয়। পরে ইসলামাবাদ হাইকোর্ট তাঁর বিরুদ্ধে আনীত সন্ত্রাসবাদের অভিযোগটি বাদ দিতে নির্দেশ দেন।


আরও খবর

‘হাসি’ মানুষের সবচেয়ে ভালো ওষুধ

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




হঠাৎ পানি বাড়ছে যমুনায়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণের ফলে গত দুদিন ধরে হঠাৎ করেই যমুনা নদীর পানি সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে এবার চতুর্থ দফায় বাড়তে শুরু করেছে। মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকালে সিরাজগঞ্জ শহরের হার্ডপয়েন্ট এলাকায় যমুনার পানি রেকর্ড করা হয়েছে ১১ দশমিক ৫০ মিটার। ২৪ ঘণ্টায় ২০ সেন্টিমিটার পানি বেড়ে বিপদসীমার ১ দশমিক ৮৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে (বিপদসীমা-১৩ দশমিক ৩৫ মিটার)।

জেলার কাজিপুর উপজেলা পয়েন্টে রেকর্ড করা হয় ১৩ দশমিক ৩৮ মিটার। ২৪ ঘণ্টায় ২৬ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ১ দশমিক ৮৭ মিটার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে (বিপদসীমা-১৫ দশমিক ২৫ মিটার)। সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. জাকির হোসেন পানি বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম জানান, টানা বর্ষণের ফলে যমুনার পানি বাড়ছে। এভাবে দু-তিনদিন বাড়তে পারে। তবে এ বছর আর বন্যা বা প্লাবনের সম্ভাবনা নেই।

তিনি আরো জানান, গত জুনের শুরুতে প্রথম দফায় যমুনায় পানি বাড়তে থাকে। ১৮ জুন জেলার সবগুলো পয়েন্টেই বিপদসীমা অতিক্রম করে। ২৩ জুন থেকে পানি কমতে শুরু করে। দ্বিতীয় দফায় ২৯ জুন থেকে আবারও পানি বাড়তে শুরু করে। এরপর ৩ জুলাই থেকে পানি কমতে থাকে। ২৩ জুলাই তৃতীয় দফায় বৃদ্ধি ও ৬ আগস্ট থেকে কমা শুরু। টানা ২৫ দিন পর ৩১ আগস্ট হঠাৎ করেই যমুনার পানি বাড়া শুরু হয়। ১৩ সেপ্টেম্বর পানি কমতে থাকে। দুই সপ্তাহ পর আবারো গত ২৬ সেপ্টেম্বর চতুর্থ দফায় পানি বৃদ্ধি শুরু হয়েছে।


আরও খবর



উৎসবে উল্লাসে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

শারদীয় দুর্গাৎসব শুরু কদিন বাদেই। পুরা বছর যতই পোশাক কেনা হোক না কেন, পূজায় নতুন পোশাক চাই চাই। আর পূজার পোশাক মানেই একটু নতুন স্টাইল, নতুন ডিজাইনের হতে হবে। উৎসবের পোশাকে বাঙালিয়ানার ধারা বজায় রাখার চেষ্টা থাকে সব সময়ই। অর্থাৎ, পোশাকের কাটছাঁট ও নকশায় থাকে বাঙালিয়ানার ছাপ। এবারের পোশাকের নকশা, কাটছাঁটগুলোতেও তাই থাকছে নিরীক্ষাধর্মী মুন্সিয়ানা। পোশাকের কাটে বা নকশায় ঐতিহ্য যেমন আছে, তেমনি রয়েছে আধুনিকতার ছোঁয়াও।

উৎসব, তাই ফ্যাশনেবল পোশাক কেনাকাটার বিষয়টা তো থাকেই। সে জন্য দোকান, শপিংমলগুলোও এখন মুখরিত ক্রেতাদের আনাগোনায়। কিছুটা সাবেকি হলেও আমাদের দেশে উৎসবের পোশাক মানেই পুরুষদের জন্য পাঞ্জাবি আর নারীদের জন্য শাড়ি। পূজাও তার ব্যতিক্রম নয়। তবে পূজার পাঞ্জাবি আর শাড়ি হতে হবে হাল ফ্যাশনের, মনের মত রঙের, নজরকাড়া নকশার। কী কী বিষয়ে নজর থাকা চাই এবারের উৎসবের পোশাকে তা থাকছে এবার রং নকশায় ঐতিহ্য যেমন আছে, তেমনি রয়েছে আধুনিকতার ছোঁয়া; পরীক্ষা-নিরীক্ষাও দেখা যায় কোথাও কোথাও।

দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেশীয় প্রায় সব ফ্যাশন ব্র্যান্ডই নতুন থিম ও মোটিফের পোশাক নিয়ে আসে। উৎসব ঘিরে শাড়ি, ধুতি- পাঞ্জাবি, সালোয়ার-কামিজ ও শার্টের কালেকশন আনা হয়। পূজার পোশাকে উৎসবের আবহ ফুটিয়ে তুলতে রঙের বিচিত্র ব্যবহার করেন ডিজাইনাররা। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়। রঙ বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী সৌমিক দাস জানান, স্বস্তিদায়ক ফেব্রিকে সমকালীন প্যাটার্ন ও ডিজাইন অনুসরণ করে ট্রেডিশনাল পোশাক তৈরির চেষ্টা এবারও ছিল। থিমভিত্তিক এ পোশাকগুলো সমসাময়িক ট্রেন্ড প্রাধান্য দিয়ে ডিজাইন করা হয়েছে। এবারের থিম হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে পূজার ফুল

কারণ, যেকোনো পূজার প্রধান উপকরণ হচ্ছে ফুল। পূজার কাজে ব্যবহৃত জবা, নীলকণ্ঠ, পদ্ম, শিউলিসহ নানান ফুল উপজীব্য করে সাজানো হয়েছে রঙ বাংলাদেশ শারদ সংগ্রহ। শাড়িতে প্রতিবারের মত আমরা নানা বৈচিত্র্য এনেছি নকশাতে। এ ছাড়া সালোয়ার-কামিজেও উজ্জ্বল রঙের প্রাধান্য দেয়া হয়েছে এবার। সালোয়ার-কামিজ ও পাঞ্জাবি তৈরি করা হয়েছে সময়োপযোগী ম্যাটেরিয়ালে। সুতি ছাড়াও আছে টিস্যু, হাফসিল্ক, অ্যান্ডি সিল্কের মত কাপড়। আবার ক্রেতাদের সামর্থ্য ও রুচির বিষয়গুলোও মাথায় রাখা হয়েছে ম্যাটেরিয়াল ব্যবহারে। যাতে সাধ ও সাধ্যের মধ্যে সমন্বয় ঘটে।

অন্যান্য ফ্যাশন ব্র্যান্ড ঘুরে দেখা গেছে গরমে আরামের কথা মাথায় রেখেই টিস্যু জাতীয় কাপড়ের কালেকশন বাড়ানো হয়েছে। সুতি কাপড়ের পোশাক ছাড়াও লিনেন ও হালকা সিল্কের পোশাক বেশি দেখা যাচ্ছে এবার। মসলিনও রয়েছে সামনের সারিতেই। এর বাইরেও সেমি কটন, জামদানি ও তাঁতের পোশাক তৈরি করেছে ফ্যাশন হাউসগুলো। এতে সব ধরনের ক্রেতা রুচি ও পছন্দমত পোশাক বেছে নিতে পারেন।

পূজার থিম: দুর্গাপূজায় শুধু পোশাক বিকিকিনি নয়, পোশাকের মধ্য দিয়েও মায়ের আশীর্বাদ, বাংলা ও বাঙালির শত বছরের ইতিহাস, ঐতিহ্য তুলে ধরার প্রয়াস চালায় হাউসগুলো। পূজার পোশাকে নকশায় ফুটে ওঠে বাঙালির রূপকথা ও হাজার বছরের গল্প। একেকবার একেক থিমের পূজার পোশাক নিয়ে হাজির হয় হাউসগুলো। ব্যতিক্রম নেই এবারও। পূজা উৎসব আরও বর্ণিল করার প্রয়াসে দেশি ক্লদিং ব্র্যান্ড কে ক্র্যাফট নিয়ে এসেছে বৈচিত্র্যময় নতুন পোশাক। ব্র্যান্ডটি এ বছর পূজার জন্য মানডালা, ট্রাইবাল ও ফ্লোরাল মোটিফের অনুপ্রেরণায় এবং বিচিত্র রঙের বিন্যাসে চলমান ট্রেন্ড অনুযায়ী ডিজাইন করেছে শারদ কালেকশন। এদিকে রঙ বাংলাদেশের এবারের থিম হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে পূজার ফুল। পূজার কাজে ব্যবহৃত জবা, নীলকণ্ঠ, পদ্ম, শিউলিসহ নানান ফুল উপজীব্য করে সাজানো হয়েছে তাদের এ শারদ সংগ্রহ।

তবে আড়ং এনেছে খানিকটা বর্ণিল ফিউশনে পূজার সংগ্রহ। এই মৌসুমে স্টাইল এবং আত্মবিশ্বাস ছড়িয়ে দিন এবং নতুন ফ্যাশন ট্রেন্ডে আবিষ্কার করুন নিজেকে এভাবেই নিজেদের পূজার পোশাকগুলোর উপস্থাপনা করছে আড়ং। বাটিক প্রিন্ট, স্ক্রিন প্রিন্ট ছাড়াও প্রাধান্য পেয়েছে এমব্রয়ডারির কাজও। পূজা আর শরৎ একসাথে এবার ধরা দিয়েছে ফ্যাশন ব্র্যান্ড হাউজের শাড়িতে। এসব শাড়ি এ আবহাওয়ায় মানানসই, আরামদায়ক আর ব্যবহার উপযোগীও। পূজায় পিছিয়ে নেই পুরুষের পোশাকও। ধুতি ও পাঞ্জাবির নকশায় নতুনত্ব যোগ করেছেন ডিজাইনাররা। গরমে আরামের বিষয়টি মাথায় রেখে সুতি কাপড়ে তৈরি ধুতি-পাঞ্জাবির সংগ্রহেই বেশি মনোযোগ দিয়েছে তারা। পূজার পাঞ্জাবিতে দেখা যাচ্ছে দেবী মোটিফ। ধুতি সাদা রঙের হলেও পাঞ্জাবিতে রঙের খেলা খেলেছে হাউসগুলো। সাদা, লাল, নীল, আকাশি, মেরুন, খয়েরিসহ বিভিন্ন উজ্জ্বল রঙের পাঞ্জাবির দেখা মিলবে শোরুমগুলোতে। শর্ট ও লং দুই ধরনের পাঞ্জাবিই চলছে।

এবারকার ট্রেন্ড ঘেরের কাজ, ফ্রিল বা কুচি, অরগাঞ্জা, চুড়িদার সালোয়ার, রঙে ভাইব্র্যান্ট শেডএবার ট্রেন্ডে এগিয়ে। ম্যাটেরিয়ালে টিস্যু, মসলিন কাপড়ের পোশাক এগিয়ে। তবে পোশাকে যত ভিন্নতাই আসুক লাল-সাদা পারের গরদের আবেদন চিরন্তন। থাকছে তাও। লোয়ার মানে সালোয়ারে দেখা যাচ্ছে নানা কাট। চাপা ও খানিকটা খাটো সালোয়ার চলছে এবার বেশ। কেউ কেউ কামিজের সাথে বেশ ঢিলেঢালা পালাজ্জোও এনেছে। ছেলেদের পাঞ্জাবি, মেয়েদের লং কুর্তি ও থ্রিপিসের নকশা করা হয়েছে নানা লোকজ উপাদানে। পোশাকে উৎসবের আবহ ফুটিয়ে তুলতে উজ্জ্বল রঙের প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে টাই-ডাই, সিকুইন,মিনিমাল কারচুপি ও স্ক্রিন প্রিন্ট।

এদিকে কিছু ফ্যাশন ব্র্যান্ডের শারদ সংগ্রহে মেয়েদের কোটিসহ জামা, ফ্রক স্টাইলের জামা, থ্রি-পিস, সিঙ্গেল কামিজ, টপস আর শাড়ি রয়েছে। স্লাব সিল্কের কোটির সঙ্গে রাখা হয়েছে জ্যাকার্ড সিল্কের ইনার। সুতি থ্রি-পিসগুলোতে দেখা যাচ্ছে ব্লক, কারচুপি ও ডলার বসানো কাজ। রয়েছে ফ্লোরাল মোটিফে এমব্রয়ডারি ও চুমকির কাজ। টপসগুলো উজ্জ্বল রঙের ডিজাইনে স্ক্রিনপ্রিন্ট করা বেশির ভাগই। সব বয়সীর জন্য রয়েছে আকর্ষণীয় সব ডিজাইনের পোশাক। রয়েছে পরিবারের সবার জন্য একই ধরনের ম্যাচিং পোশাকের কালেকশন।


আরও খবর

৭ অক্টোবর: আজকের রাশিফল

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




করোনায় শনাক্ত আরও ৪ লক্ষাধিক, মৃত্যু প্রায় দেড় হাজার

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চলমান করোনা মহামারিতে বিশ্বজুড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে। তবে আগের দিনের তুলনায় কিছুটা কমেছে নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন দেড় হাজারের বেশি মানুষ। একই সময়ে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা কমলেও রয়েছে চার লাখের ওপরেই।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে জাপানে। অন্যদিকে দৈনিক প্রাণহানির শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রাণহানির তালিকায় এরপরই রয়েছে অস্ট্রেলিয়া, জাপান, স্পেন, রাশিয়া ও ব্রাজিল। এতে বিশ্বব্যাপী করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬১ কোটি ৬৪ লাখের ঘর। অন্যদিকে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৬৫ লাখ ২৮ হাজার।

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকালে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন এক হাজার ৫২০ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে প্রায় পৌনে চারশো। এতে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা পৌঁছেছে ৬৫ লাখ ২৮ হাজার ৫৮৮ জনে।

একই সময়ের মধ্যে ভাইরাসটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৪ লাখ ৩২ হাজার ৬৫৫ জন। অর্থাৎ আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগীর সংখ্যা কমেছে ২ হাজার। এতে মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসে আক্রান্ত মোট রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬১ কোটি ৬৪ লাখ ৩৬ হাজার ৩৮৯ জনে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে সংস্থাটি।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



গাজীপুরে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় গ্রেফতার ৩

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৬৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আল সাদি, গাজীপুর সংবাদ-দাতা:

গাজীপুর পুলিশের অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় দায়ের করা মামলার তিন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে টাঙ্গাইল ও ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দুর্ঘটনায় দগ্ধদের খোঁজখবর নিতে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে যান পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ। এ সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা এড়াতে সবাইকে আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে দগ্ধ কৌতুকশিল্পী আবু হেনা রনি ও পুলিশ সদস্য জিল্লুর রহমানের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, দুর্ঘটনায় ২৫ শতাংশ দগ্ধ আবু হেনা রনি ও ১৯ শতাংশ দগ্ধ পুলিশ সদস্য জিল্লুর রহমানের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। দুজনই স্ট্যাবল আছেন। তাদের অবস্থা খুব বেশি খারাপ নয়। তবে দগ্ধ রোগী যতদিন পর্যন্ত না হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরবেন, ততদিন শঙ্কামুক্ত বলা যাবে না। সব মিলিয়ে গত কয়েক দিনের চেয়ে আজ (সোমবার) তারা অনেকটাই ভালো আছেন। রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) আমরা মেডিকেল বোর্ড বসে তাদের চিকিৎসার বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করে কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আজও আমরা বসব।

কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনির চিকিৎসায় বার্ন ইউনিটের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. আবুল কালামকে প্রধান করে রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) ১৩ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়।  যেখানে ডা. সামন্ত লাল সেন ছাড়াও ঢাকা মেডিকেলের রেসপিরেটরি মেডিসিন ও হেমাটোলজি বিভাগের দুজন চিকিৎসককে রয়েছে।

এর আগে বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনা অনুসন্ধানে শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) গাজীপুর মেট্রোপলিটনের উপ কমিশনার অপরাধ (উত্তর) আবু তোরাব মো. শামছুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে জিএমপি। গঠিত তদন্ত কমিটিতে কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার অপরাধ (উত্তর) রেজওয়ান আহমেদ, সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) ফাহিম আসজা ও গাজীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

গত শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে জেলা পুলিশ লাইনস মাঠে নাগরিক সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা উদ্বোধনের সময় গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনিসহ পাঁচজন দগ্ধ হন। দগ্ধরা হলেন- মিরাক্কেল খ্যাত কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনি, জেলা পুলিশের কনস্টেবল মোশারফ হোসেন, গাছা থানার কনস্টেবল রুবেল হোসেন, টঙ্গী পূর্ব থানার কনস্টেবল জিল্লুর রহমান, গাছা থানার কনস্টেবল ইমরান হোসেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের চতুর্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে নাগরিক সম্মেলন ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইজিপি বেনজীর আহমেদ।

 


আরও খবর

গাজীপুরে ঝুটের গোডাউনে আগুন

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২