Logo
শিরোনাম

তার সঙ্গে কথা বলতে না পারার একটা আফসোসও রয়ে গেছে

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কিংবদন্তি সংগীত সাধক, গীতিকার, সুরকার, শিল্পী শাহ আবদুল করিম-এর প্রয়াণের এক যুগ হলো আজ (১২ সেপ্টেম্বর)। তার গানকে নতুন প্রজন্মের কাছে জনপ্রিয় করতে যারা ভূমিকা রেখেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম হাবিব ওয়াহিদ। বেঁচে থাকতে শাহ আবদুল করিমের বাড়িতেও গিয়েছিলেন হাবিব। সেই অনুভূতির কথাই ফুঠে উঠেছে তার এই লেখায়।

২০০৫ সালের কথা। শাহ আবদুল করিমের সঙ্গে দেখা করতে সিলেটে যাই। প্রায় ১২ ঘণ্টা জার্নি করে তার বাড়িতে গিয়েছিলাম। যাওয়ার সময় মনের ভেতর দারুণ একটা উত্তেজনা কাজ করছিল। তার গ্রামে পা রাখতেই মনে হলো অন্য রকম এক পরিবেশে এসেছি। ইঞ্জিন বোটে চড়া, আশপাশের মনোরম সব দৃশ্য দেখার কথা কখনোই ভুলব না। বুঝতে পারছিলাম চারপাশের এসব বিষয়বস্তুকেই তিনি গানে রূপান্তর করেছেন।

তখন তিনি খুবই অসুস্থ। কথা বলতে পারেন না, ঠিকমতো নড়াচড়া করতে পারেন না। আমি তার চোখের দিকে তাকিয়ে রইলাম। তিনিও আমার দিকে তাকিয়ে। তার মুখ থেকে কোনো কথাই বের হলো না। কিন্তু চোখের একটা চাহনি ছিল। সেই চাহনিতেই যেন হাজার কথা বলে গেলেন। এমন একজন গুণী এবং সৃষ্টিশীল মানুষকে কাছ থেকে দেখার মধ্যেও আনন্দ আছে। অবশ্য তার সঙ্গে কথা বলতে না পারার একটা আফসোসও রয়ে গেছে। তবে তার সামনে গিয়ে দাঁড়ানোর স্মৃতি সারাজীবন মনে থাকবে।

তার সৃষ্টির পেছনে গ্রাম, বেড়ে ওঠা এবং পরিবেশের একটা ব্যাপার রয়েছে বলে আমি মনে করি। তিনি কিন্তু লন্ডনেও গিয়েছিলেন। জীবনে অনেক রঙিন জিনিসই দেখেছিলেন। তার পরও নিজ গ্রামের মায়াতেই পড়েছিলেন। যা তার সৃষ্টির প্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে। এটা অনেক বড় ধৈর্যের ব্যাপার। এই ধৈর্য সবার থাকে না। তার কথা ও সুরের যে গভীরতা, সেটা ওই পরিবেশ এবং জীবনবোধ থেকেই পেয়েছেন। আমরা সাধারণত শহরের বর্ণিল জীবনের মায়াজালে আটকা পড়ি। এত সহজ-সরল জীবন পার করার ধৈর্য থাকে না। কিন্তু তিনি সেটাই করে দেখিয়েছেন, সফলতাও পেয়েছেন। তার সৃষ্টিই এর প্রমাণ। তার সঙ্গে কথা বলতে পারলে জিজ্ঞেস করতাম, এত এত সুন্দর এবং বৈচিত্র্যপূর্ণ গান তিনি কিভাবে লেখেন? এগুলোর উৎস কী? লেখার সময় কী করেন। কিভাবে নিজের পরিচর্যা করেন।

শাহ আবদুল করিমের গান করে মানুষের অনেক ভালোবাসা পেয়েছি। হাতেগোনা কেউ কেউ আবার সমালোচনাও করেছেন। তবে আমি মনে করি যেকোনো মানুষই স্বাধীনভাবে তার মতামত দিতে পারেন। যে যেভাবেই গানগুলোকে গ্রহণ করেছেন, সবার প্রতিই আমার সম্মান রয়েছে।


আরও খবর



বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশীয় শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) গণভবনে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার খসড়া উপস্থাপনা অবলোকনকালে তিনি এ নির্দেশনা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে শিক্ষাব্যবস্থা আরও আধুনিকায়ন করতে হবে। শিক্ষা কার্যক্রম সময়োপযোগী করা একান্তভাবে অপরিহার্য। আমাদের যে নীতিমালা আছে, নীতিমালার ভিত্তিতে আমরা করবো। কিন্তু সব সময় সবার সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের চলতে হবে এবং বিশ্ব পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। বিজ্ঞান-প্রযুক্তি জ্ঞানের ক্ষেত্রে বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে, আমরা কোনোমতেই পিছিয়ে থাকতে পারি না।

বিজ্ঞান শিক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আরেকটা বিষয় আমি লক্ষ্য করেছিলাম, বিজ্ঞানের প্রতি আমাদের দেশের ছেলেমেয়েদের অনীহা। বিজ্ঞান শিক্ষা তারা নিতেই চাইতো না। বিজ্ঞান বিভাগের লোকই পাওয়া যেতো না। এরকম একটা সময় কিন্তু ছিল। পরে আমরা বিজ্ঞান শিক্ষায় গুরুত্ব দিই। আমরা দেশে ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি।

এসময় ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে তার সরকারের চলমান বিভিন্ন কার্যক্রম প্রসঙ্গে কথা বলেন সরকারপ্রধান।

দীর্ঘদিন পর গতকাল রবিবার (১২ সেপ্টেম্বর) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন, আলহামদুলিল্লাহ, গতকাল (রবিবার) থেকে আমরা স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছি। ধীরে ধীরে সব খুলে দেয়া হবে। আবার নতুনভাবে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে।

তিনি বলেন, অত্যন্ত দুর্ভাগ্য, আমরা প্রায় দেড় বছরের মতো আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলতে পারিনি। যদিও অনলাইনে বা টেলিভিশনের মাধ্যমে বা ঘরে বসে আমরা শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রাখার বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি, কাজও করেছি। কিন্তু সশরীরে স্কুলে যাওয়ার আনন্দ, কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার আনন্দ থেকে শিশুরা বঞ্চিত হয়েছে।

করোনাকালীন শিক্ষা কার্যক্রম সচল রাখতে সংশ্লিষ্টদের ভূমিকার প্রশংসা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার ভয়াবহ সংক্রমণের সময় যখন সব কিছু স্থবির, তখন আপনারা যথেষ্ট উদ্যোগ নিয়েছেন। বিশেষ করে শিক্ষার ক্ষেত্রে এখনকার যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কীভাবে শিক্ষাব্যবস্থা আমাদের শিক্ষার্থীদের কাছে আরও আকর্ষণীয় করা যায়, জীবন-জীবিকার পথটা কীভাবে খোলা রাখা যায়, সে বিষয়গুলোর দিকে বিশেষ দৃষ্টি দিয়ে আপনারা এ কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন।

শিক্ষার্থীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বিভিন্ন এলাকায় নতুন নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্মাণ করার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা এ পর্যন্ত যথেষ্ট পদক্ষেপ নিয়েছি। যে সব এলাকায় স্কুল ছিল না, সেসব এলাকায় আমরা স্কুল তৈরি করে দিচ্ছি।

সরকারপ্রধান বলেন, আমাদের দেশ নদী-নালা, খাল-বিলের দেশ। ছোট ছোট শিশুদের যোগাযোগ ও যাতায়াতের ব্যবস্থা বিবেচনা করেই কিন্তু আমরা বিভিন্ন এলাকায় স্কুল তৈরির ব্যবস্থা নিয়েছি।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




সড়কপথে আফগানিস্তান থেকে ভারতে পণ্য সরবরাহ বন্ধ

প্রকাশিত:শনিবার ২১ আগস্ট 20২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১১৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের ভেতর দিয়ে সড়কপথে আফগানিস্তানের পণ্য ভারতে পাঠানোর প্রক্রিয়া বন্ধ করে দিয়েছে তালেবান। ইরানের বার্তা সংস্থা তাসনিম জানিয়েছে, তালেবান এমন সময় এ পদক্ষেপ নিয়েছে যখন আফগানিস্তানে উৎপাদিত পণ্য ভারতে সবচেয়ে বেশি রপ্তানি হয়।

ফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশন্সের মহাপরিচালক অজয় সাহাই বলেছেন, তালেবান সড়কপথে বাণিজ্যের পথ বন্ধ করে দিয়েছে এবং ভারত অভিমুখী পণ্য পাকিস্তানে প্রবেশের ট্রানজিট রুটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। তবে, দুবাইয়ের মাধ্যমে আফগানিস্তানের সঙ্গে ভারতের বাণিজ্যিক লেনদেন অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।

আফগানিস্তানের নিরপেক্ষ কোনো সূত্র থেকে ভারতীয় কর্মকর্তার এ দাবির সত্যতা যাচাই করা যায়নি। খবর পার্সটুডে।

গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করার পর তালেবান তাদের দেশের পুনর্গঠন কাজে ভূমিকা রাখার জন্য ভারতকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে ভারতের অংশগ্রহণ অব্যাহত রাখার আগ্রহ প্রকাশ করে। তবে একইসঙ্গে আফগানিস্তানে কোনো সামরিক অভিলাষের ব্যাপারে নয়াদিল্লিকে সতর্ক করে দেয় তালেবান।

তালেবানের প্রধান সমর্থক হিসেবে অভিযুক্ত পাকিস্তান দাবি করছে, তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ভারত।


আরও খবর



ভিক্ষু উইরাথুকে মুক্তি দিল মিয়ানমারের সামরিক জান্তা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে ক্রমাগত হিংসাত্মক বক্তব্য প্রচার ও সহিংসতার উসকানিদাতা হিসেবে পরিচিত মিয়ানমারের উগ্রপন্থি বৌদ্ধ ভিক্ষু আশিন উইরাথুকে মুক্তি দিয়েছে দেশটির জান্তা সরকার।

সোমবার দেশটির সরকার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, আশিন উইরাথুর বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

গত ফেব্রুয়ারিতে সামরিক অভূত্থাণের পর তার বিরুদ্ধে মিয়ানমারে দাঙ্গা বাঁধানোর অভিযোগ আনে জান্তা সরকার। মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের তাড়াতে ভয়ানক প্রপাগান্ডা এবং বর্ণবাদী মতাদর্শ প্রচার করেন বিতর্কিত এ ধর্ম গুরু। তার প্ররোচণায়ই রোহিঙ্গাদের ওপর হত্যাযজ্ঞ চালায় উগ্র বৌদ্ধ মৌলবাদীরা।

তার এ মুসলিমবিদ্বেষী উগ্র আচরণের জন্য তিনি 'বৌদ্ধ বিন লাদেন' বলে পরিচিতি পান।  ২০১৯ সালে তার এ ঘৃণ্য কাজের জন্য তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

এর পর থেকেই কুখ্যাত এ বৌদ্ধ ভিক্ষু তৎকালীন ক্ষমতাসীন এনএলডি সরকার ও গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন।

আনুকূল্য পাওয়ার জন্য উগ্রপন্থী বৌদ্ধ ভিক্ষু আশিন উইরাথু দেশটির সেনাবাহিনীর প্রশংসা করে শোভাযাত্রাও বের করেছেন। 

এ পর্যায়ে তিনি গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে যান। ২০২০ সালের নভেম্বারে তিনি আত্মসমর্পণ করেন এবং তখন থেকেই তিনি কারাগারে আছেন।

সামরিক শাসনের বাইরে এসে মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক যাত্রা ২০১১ সালে শুরু হয়। ওই সময় থেকে দেশটির রাজনীতিতে উদীয়মান রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে উত্থান ঘটতে থাকে দেশটির উগ্র বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদী আলোচিত এই ভিক্ষুর।


আরও খবর



মায়ের ওপর অভিমান করে আত্মহত্যা

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় মায়ের ওপর অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে পলাশ নন্দী নামে এক ছাত্র আত্মহত্যা করেছে।

পলাশ নন্দী (১৫) উপজেলার ৯নং খিলপাড়া ইউনিয়নের নন্দীবাড়ির দুলাল নন্দীর ছেলে। সে স্থানীয় খিলপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

রবিবার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। এর আগে শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সে বসতঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, পলাশ তুচ্ছ ঘটনা কেন্দ্র করে মায়ের ওপর অভিমান করে পরিবারের সদস্যদের অগোচরে শনিবার সন্ধ্যার বসতঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

পরে পরিবারের সদস্যরা তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। পুলিশ রাত ১২টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

চাটখিল থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, রবিবার সকালে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।

নিউজ ট্যাগ: গলায় ফাঁস

আরও খবর

৪ দিন পর হাতিয়ার সঙ্গে সারাদেশে নৌ চলাচল শুরু

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১




সরকারি তিন ব্যাংকে নতুন এমডি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, কর্মসংস্থান ব্যাংক ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। গতকাল সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এ-সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে। জাতীয় বেতন স্কেল, ২০১৫ অনুযায়ী নির্ধারিত ৭৮ হাজার টাকা বেতনে এসব ব্যাংকের এমডি নিয়োগ দেওয়া হয়।

প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক শিরীন আখতারকে পদোন্নতি দিয়ে একই ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সোনালী ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল মান্নানকে কর্মসংস্থান ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও রূপালী ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক খন্দরকার আতাউর রহমানকে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, রাষ্ট্র মালিকানাধীন ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও মহাব্যবস্থাপক পদে নিয়োগ/পদোন্নতি ও পদায়ন বিষয়ক নীতিমালা-২০১৯ ও সরকার কর্তৃক সময়ে সময়ে জারি করা নীতিমালা দ্বারা পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের চাকরি নিয়ন্ত্রিত ও পরিচালিত হবে।


আরও খবর

ইভ্যালিতে অর্ডার বন্ধ

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১