Logo
শিরোনাম

তীব্র যানজটে নাকাল মানুষ

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আসন্ন ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে মহাসড়কে পরিবহনের চাপ বেড়েছে। এছাড়া দফায় দফায় বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায় বন্ধ ও সিরাজগঞ্জ অংশে পরিবহন চলাচলে বাধার কারণে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব মহাসড়কে ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজটের। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রী সাধারণ।

রবিবার ভোর থেকে মহাসড়কের রাবনা বাইপাস, বিক্রমহাটি, রসুলপুর, পৌলি ও এলেঙ্গা, সল্লা, জোকারচর ও বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় তীব্র যানজট দেখা গেছে। তবে মাঝে মাঝে ঢাকামুখী লেনে গাড়ি চললেও উত্তরবঙ্গমুখী লেনে গাড়ি আটকে রয়েছে।

অন্যদিকে ঢাকামুখী গরুবাহী ট্রাকের চাপ বাড়ছে। এতে করে দীর্ঘমেয়াদি যানজটের শঙ্কা দেখা দিয়েছে। যানজটের ফলে চালক ও ঘরমুখো যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তবে সকাল থেকে যাত্রীবাহী বাসের থেকে ট্রাকের সংখ্যা বেশি দেখা গেছে।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতুর দুই পাড়ের মহাসড়কে গাড়ির চাপ ও যানজটের কারণে দফায় দফায় সেতুতে টোল আদায় বন্ধ রাখছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত বলেন, লকডাউন শিথিল ও আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে মহাসড়কে পরিবহনের চাপ বেড়েছে। 


আরও খবর



ইকুয়েডরকে হারিয়ে সেমিফাইনালে আর্জেন্টিনা

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ১০০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কোপা আমেরিকার শিরোপা ছোঁয়ার নেশায় বুঁদ লিওনেল মেসি। দেশকে কিছু এনে দিতে পারেননি। অথচ ট্রফি আর শিরোপা রাখার জায়গা নেই তার ব্যক্তিগত শো-কেসে। সবই ক্লাব ফুটবলের।

স্বদেশি কিংবদন্তি ম্যারাডোনা হতে হবে তাকে। খুশি করতে হবে আর্জেন্টাইনদের। স্প্যানিশদের নয়।  মনযোগ শুধুই কোপা আমেরিকায়।

এমন লক্ষ্য নিয়েই দলকে নিয়ে রবিবার কোপা আমেরিকার চতুর্থ সেমি ফাইনালে ইকুয়েডরের মুখোমুখি হয়েছে আর্জেন্টিনা।

তার ফলও পেলেন মেসি। তার অসাধারণ নৈপুণ্যে ইকুয়েডরকে ৩-০ গোলে হারাল আর্জেন্টিনা। তিনটি গোলেই রয়েছে মেসির অবদান। অসাধারণ ফ্রি-কিক থেকে একটি করেছেন নিজেই। বাকি দুটো করিয়েছেন ডি পল ও  মার্টিনেজকে দিয়ে।

শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলে ইকুয়েডরকে চাপে রাখে আর্জেন্টিনা। পরীক্ষা নিতে থাকেন ইকুয়েডরের গোলরক্ষক গালিন্দেজের। যদিও বেশিরভাগ শটই লক্ষ্য বরাবর ছিল না।

২ মিনিটের মাথায় আর্জেন্টিনার প্রথম আক্রমণ প্রতিহত করেন গালিন্দেজ। ৫ মিনিটের মাথায় ইকুয়েডরের পোস্ট লক্ষ্য করে শট নেন ডি পল, তবে লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ১৪ মিনিটের মাথায় গোললাইন থেকে বল প্রতিহত করে দলের পতন রোধ করেন আরবোলেতা।

১৭ মিনিটে কর্ণার পায় আর্জেন্টিনা। কিক নেন মেসি। চমৎকার কিকে বল পান পেজেল্লা। বুক থেকে বল নামিয়ে ইকুয়েডরের পোস্ট লক্ষ্য করে শট নিলেও তা টার্গেটে ছিল না। ২০ মিনিটের মাথায় হলুদ কার্ড দেখেন ইকুয়েডরের অ্যাঞ্জেলো প্রেসিয়াদো।

২২ মিনিটের মাথায় গোলের সহজ সুযোগ নষ্ট করলেন খোদ মেসি। ইকুয়েডরের গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারলেন না মেসি। তার শট পোস্টে প্রতিহত হয়।

২৪ মিনিটের মাথায় অফসাইডের আওতায় পড়েন মেনা। ইকুয়েডরের আক্রমণ ভেস্তে যায়। ৩১ মিনিটের মাথায় হলুদ কার্ড দেখলেন ইকুয়েডরের ফ্র্যাঙ্কো।

অবশেষে উল্লাসে ভাসার উপলক্ষ পেল আলবিসেলেস্তেরা। ৪০ মিনিটের মাথায় মেসির পাস থেকে গোল করলেন ডি পল।  ১-০ গোলে লিড নিল আর্জেন্টিনা। ৪৪ মিনিটের মাথায় হলুদ কার্ড দেখেন এসতাপিনান।

৪৫ মিনিটে আর্জেন্টিনার ব্যবধান দ্বিগুন করার সুযোগ পান গঞ্জালেজ। কিন্তু মেসির মতোই ব্যর্থ হন তিনি।

রেফারি প্রথমার্ধে ৪ মিনিট সময় সংযোজন করেন। এই চার মিনিটে ইকুয়েডরের প্রাপ্তি একটি হলুদ কার্ড। যোগ করা শেষ মুহূর্তের আগে হলুদ কার্ড দেখেন ওতামেন্দি।

দ্বিতীয়ার্ধে সমতায় ফেরার ছকে আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে ইকুয়েডর। দলকে শক্তিশালী করতে গ্রুয়েজোকে তুলে নিয়ে এসত্রাদাকে মাঠে নামায় কোচ হারনান দারিয়ো গোমেজ।

বদলি আনে আর্জেন্টিনাও। পালাসিয়সের বদলে মাঠে নামায় প্লাতাকে। ৫০ মিনিটে আর্জেন্টিনার ওপর আক্রমণ চালায় ইকুয়েডর। গঞ্জালেজের শট পোস্টের উপর দিয়ে মাঠের বাইরে চলে যায়।

৫৮ মিনিটে আর্জেন্টিনার দুর্দান্ত এক চেষ্টা ভেস্তে যায়। এসতাপিনানের শট প্রতিহত করেন মার্টিনেজ।

৬৬ মিনিটের মাথায় হলুদ কার্ড দেখেন গঞ্জালেজ। ৭০ মিনিটে ফ্র্যাঙ্কোকে তুলে নিয়ে সাইসেডোকে মাঠে নামায় ইকুয়েডর।

এর এক মিনিট পরেই সেলসো ও পারেদেসকে তুলে নিয়ে ডি মারিয়া ও রদ্রিগেজকে মাঠে নামান আর্জেন্টাইন কোচ স্কলানি।

৮৪ মিনিটে ফের সফল মেসি। এবার মেসির অস্ত্র লউতারো মার্টিনেজ। লিওর পাস থেকে বল ধরে ইকুয়েডরের জালে বল জড়িয়ে দেন মার্টিনেজ। ২-০ গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। হাতে সময় তেমন নেই। অথচ একটি গোলও শোধ করা হয়নি। অনেকটাই মরিয়া হয়ে ওঠে ইকুয়েডর। কিন্তু আর্জেন্টিনার ছন্দময় ফুটবলের কাছে পরাস্ত হয় তারা।

৮৯ মিনিটের মাথায় ডি মারিয়াকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখেন ইকুয়েডরের হিনকাপি। ফ্রি-কিক পেয়ে যায় আর্জেন্টিনা।

৯৩ মিনিটে স্পট কিক থেকে অসাধারণ এক গোল করেন মেসি। যা দেখার অপেক্ষায় ছিল ফুটবলবিশ্ব। শেষ মুহূর্তে হলেও ফুটবলপ্রেমীদের সেই আশা পূরণ করে দেন আর্জেন্টাইন খুদেরাজ। ৩-০ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে আর্জেন্টিনা।


আরও খবর



পুকুর থেকে তিন আদিবাসী নাবালিকার লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতের ছত্তিশগড়ে পুকুর থেকে তিন আদিবাসী নাবালিকার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

গত কাল বুধবার সন্ধ্যায় রায়পুর চা বাগানের ওই পুকুরে তাদের পোশাক ভাসতে দেখা যায়। পরে পুকুরে নেমে লাশগুলো উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় ওই এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

ওই তিন নাবালিকা পরস্পরের বন্ধু। তারা দুপুরে একসঙ্গে বাড়ি থেকে বের হয়েছিল। কিন্তু বিকাল পেরিয়ে সন্ধ্যা হলেও তাদের সন্ধান মেলেনি।

পরিবারের সদস্যরা আশেপাশে খোঁজ করতে থাকেন। তখনই পুকুরে তাদের লাশ ভাসতে দেখা যায়। জানা গেছে, মৃত তিনজনেই আদিবাসী নাবালিকা।

স্থানীয় সূত্রের বরাতে খবরে বলা হয়, দুপুরে বাড়ি থেকে বেরোয় সোনামণি মাঝি, অনু মাঝি এবং আগস্তনা ওরাও। সবাই বয়স ১০ থেকে ১৫ মধ্যে। রায়পুর চা বাগানেরই আদিবাসী গ্রামের বাসিন্দা তারা।

দুপুরের পর বাড়ি না ফেরায় চিন্তায় পড়ে পরিবার। গ্রামবাসী তাদের খুঁজতে বের হন। তখন দেখা যায় এলাকার পুকুর পাড়ে এক পাটি জুতো। তৎক্ষণাৎ পুকুরে নেমে খোঁজ করতেই তিন নাবালিকার লাশ উদ্ধার হয়। হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদেহগুলো ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মনে হচ্ছে, ওই তিন নাবালিকা সাঁতার জানত না। তবে তারা কেন জলে নেমেছিল তা এখনও স্পষ্ট নয়। অন্য কোনো কারণ আছে কি না তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জলপাইগুড়ির পুলিশ সুপার দেবর্ষি দত্ত জানান, তিন নাবালিকার দেহের পোশাক পুকুরে ভাসতে দেখা যায়। তখন স্থানীয়রা পুকুরে নেমে লাশ উদ্ধার করে। পুরো ঘটনার তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।


আরও খবর



কঠোর লকডাউনেও খোলা থাকবে যেসব শিল্প-কারখানা

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ১০১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কোরবানির ঈদ পরবর্তী কঠোর লকডাউনেও আগামী ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত নির্দিষ্ট কিছু শিল্প-কারখানা খোলা রাখার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। সোমবার (১৯ জুলাই) এক প্রজ্ঞাপনে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এ তথ্য জানায়।

এতে বলা হয়, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আরোপিত বিধি -নিষেধের আওতামুক্ত থাকবে খাদ্য ও খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন/প্রক্রিয়াজাতকরণ মিল কারখানা, কোরবানির পশুর চামড়া পরিবহণ, সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং ঔষধ, অক্সিজেন ও কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী শিল্প কারখানা।

গণমানুষের জীবন-জীবীকার বিবেচনা করে গত ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে চলমান কঠোর লকডাউন শিথিল করা হলেও ২৩ জুলাই থেকে আবার লকডাউন শুরু হবে বলে ঘোষণা দেয় সরকার।

সারাদেশে করোনার সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় গত ১ জুলাই থেকে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন আরোপ করে সরকার। পরে সময়সীমা বাড়িয়ে ১৪ জুলাই পর্যন্ত করা হয়।


আরও খবর



‘অমানিশার আঁধার দূর করে সম্ভাবনা নিয়ে এগিয়ে যাবে দেশ’

প্রকাশিত:বুধবার ২১ জুলাই 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, রাতের আঁধার শেষেই ঝলমলে রোদের আলোতে ভরে উঠে পৃথিবী। করোনার অমানিশার আঁধারও দ্রুত কেটে যাবে ইনশাআল্লাহ। নতুন সম্ভাবনা নিয়ে এগিয়ে যাবে আমাদের দেশ।

তিনি বলেন, এর জন্য দরকার সবাইকে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। অর্থাৎ সঠিকভাবে মাস্ক পরা, সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, স্যানিটাইজার ব্যবহার করা ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা।

বুধবার (২১ জুলাই) কোরবানির ঈদ উপলক্ষে বঙ্গভবন থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে দেয়া এক বার্তায় এ কথা বলেন তিনি।

এর আগে সকাল সাড়ে আটটায় বঙ্গভবনের হলওয়েতে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাষ্ট্রপতি পরিবারের সদস্য ও বঙ্গভবনের অতিপ্রয়োজনীয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে ঈদের নামাজ পড়েন। নামাজ শেষে এই বার্তা দেন রাষ্ট্রপতি।

করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি সফল করতে সরকারের পাশাপাশি দলমত নির্বিশেষে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানা রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, বৈশ্বিক করোনা পরিস্থিতির ক্রমাবনতির কারণে টিকাদান কর্মসূচি সাময়িকভাবে বাধাগ্রস্ত হলেও বর্তমানে তা পুরোদমে এগিয়ে যাচ্ছে। সরকার অগ্রাধিকারভিত্তিতে দেশের সকল নাগরিকের জন্য টিকাদান নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর। তাই এ কর্মসূচিকে সফল করতে সরকারের পাশাপাশি দলমত নির্বিশেষে সবাইকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, এমন একটি ভাইরাস যা থেকে ইচ্ছে করলেই কোনো ব্যক্তি বা পরিবার বা এককভাবে একটি দেশের পক্ষে নিরাপদ থাকা সম্ভব নয়। বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির কল্যাণে আজ আমরা গ্লোবাল ভিলেজের বাসিন্দা। তাই বিশ্বকে করোনার হাত থেকে বাঁচাতে হলে উন্নত-অনুন্নত ও ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে বহুজাতিক সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানসহ সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, মহান আল্লাহর প্রতি গভীর আনুগত্য ও সর্বোচ্চ ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর পবিত্র ঈদুল আজহা। উৎসবের সঙ্গে মিশে আছে চরম ত্যাগ। কোরবানি আমাদের মাঝে আত্মদান ও আত্মত্যাগের মানসিকতা সঞ্চারিত করে, আত্মীয়স্বজন ও পাড়া-প্রতিবেশীর সঙ্গে আনন্দ-বেদনা ভাগাভাগি করে নেয়ার মনোভাব ও সহিষ্ণুতার শিক্ষা দেয়। এবার মুসলিম বিশ্ব এমন একটা সময়ে ঈদুল আজহা উদযাপন করছে, যখন করোনার ভয়াল থাবায় গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত।

তিনি বলেন, বাংলাদেশেও করোনার নেতিবাচক প্রভাব ক্রমান্বয়ে প্রকট হচ্ছে। করোনার কারণে দেশের জনগণের জীবন-জীবিকা আজ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। জীবন বাঁচানো প্রথম অগ্রাধিকার হলেও জীবন বাঁচিয়ে রাখতে জীবিকার গুরুত্বও অনস্বীকার্য। সরকার করোনা মোকাবিলা ও অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে বিভিন্ন প্যাকেজ প্রণোদনাসহ বহুমুখী কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। অস্বচ্ছল ও নিম্নআয়ের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবেও বিভিন্ন সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত আছে। কৃষি ও শিল্পসহ উৎপাদনশীল প্রতিটি খাতের কার্যক্রম অব্যাহত রাখতেও সরকার সর্বাত্মক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।



আরও খবর



জার্মানিতে ছুরি নিয়ে হামলা, নিহত ৩

প্রকাশিত:শনিবার ২৬ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জার্মানিতে ছুরিকাঘাতে কমপক্ষে তিনজন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পুলিশ বলেছে, শুক্রবার দেশটির বাভারিয়া অঞ্চলের উজবুর্গ শহরে এই হামলার ঘটনা ঘটে। খবর বিবিসির।

এই ঘটনায় সোমালিয়ার এক নাগরিককে আটক করেছে পুলিশ। তার বয়স ২৪ বছর। পুলিশ বলেছে, সেখানে আর কোনো হামলার আশঙ্কা নেই।

এদিকে ডয়েচেভেলের খবরে বলা হয়েছে, হামলার পর বাভারিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইওয়াকিম হারমান বলেন, হামলায় পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাদের অবস্থা গুরুতর ও বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কম। এ ছাড়া হামলায় আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

এক টুইট বার্তায় পুলিশ লিখেছে, সন্দেহভাজন হামলাকারীকে আটক করা হয়েছে। এই হামলায় আর কেউ জরিত নন বলে ধারনা করা হচ্ছে। আর কোনো হামলার আশঙ্কা নেই।

পুলিশ বলেছে, সোমালিয়ার ওই ব্যক্তি ২০১৫ সাল থেকে ওই উজবুর্গ শহরে বসবাস করেন। তিনি মানসিক রোগের চিকিৎসা নিচ্ছিলেন।

জার্মানির সময় বিকেল ৫টার দিকে পুলিশ ওই ঘটনা সম্পর্কে জানতে পারে। সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তিকে আটক করতে পুলিশ প্রথমে গুলি চালায়। তবে পুলিশ বলেছে, ওই ব্যক্তির মারা যাওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই। এই হামলার কারণ এখনো জানা যায়নি। ঘটনার তদন্ত করছে পুলিশ।


আরও খবর