Logo
শিরোনাম

তুরাগ নদীতে ট্রলার ডুবি, ৩ জনের লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ অক্টোবর ২০২১ | ৫১৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর আমিন বাজার এলাকার তুরাগ নদে বাল্কহেডের ধাক্কায় শ্রমিকবাহী ট্রলার ডুবি ঘটনায় ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছে ৪ জন। নিখোঁজ ব্যক্তি ও ডুবে যাওয়া ট্রলারটি উদ্ধারের চেষ্টা চলছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। তাৎক্ষণিক নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি। এর আগে শনিবার (৯ অক্টোবর) ভোর ৫টা ৩০ মিনিটের আমিনবাজার থেকে রাজধানীর গাবতলীতে যাওয়ার পথে তুরাগ নদ পারাপারের সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

সাভার ফায়ার সার্ভিসের ওয়্যারহাউজ ইন্সপেক্টর মাহফুজুর রহমান মাহফুজ বলেন, সকালে তুরাগ নদের উত্তরপাশ আমিন বাজার থেকে গাবতলী ল্যান্ডিং স্টেশনে একটি ট্রলারযোগে কাজে যাচ্ছিলেন ১৮ জন শ্রমিক। যাদের অধিকাংশই নারী শ্রমিক ও তাদের শিশু সন্তান। মূলত তারা ল্যান্ডিং স্টেশনের পাশে কয়লার ডিপোতে কাজ করতেন। কাজের সময় ওই শ্রমিকদের শিশুদের পাশে বসিয়ে রাখতেন তারা। তুরাগ নদ পারাপারের সময় হঠাৎ একটি বালুবাহী বাল্কহেডের সাথে ধাক্কা লেগে শ্রমিকবাহী ট্রলারটি ডুবে যায়। এসময় দুই নারী ও পাঁচ শিশু তলিয়ে যায় বাকিরা সাঁতরে তীরে উঠে আসে। পরে খবর পেয়ে তাদের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ শুরু করেন। পরে রাজধানীর সদর দপ্তর থেকে আরও তিনটি ইউনিট এসে উদ্ধারকাজে যোগ দেয়। কিন্তু এখনো ডুবে যাওয়া ট্রলারটির সন্ধান পাওয়া যায়নি। নদীতে অনেক স্রোত রয়েছ।

আমিন বাজার নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আলমগীর শেখ বলেন, ট্রলারটিকে ধাক্কা দেয়া বাল্কহেডটিকে এখনও আটক করা সম্ভব হয়নি। ভোরে ঘটনা ঘটিয়ে পালিয়ে যায় বাল্কহেডটি। তবে বাল্কহেডটি আটকের চেষ্টা চলছে।

ফায়ার সার্ভিসের ডিউটি অফিসার লিমা খানম ট্রলার ডুবির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তুরাগ নদীতে একটি ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। ফায়ার সার্ভিস উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে।


আরও খবর

বেগমগঞ্জে আ’লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১




শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের শুভসূচনা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মালদ্বীপের মালের ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের উদ্বোধনী ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আজ মাঠে নামে বাংলাদেশ দল। এই ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ১-০ গোলে হারিয়েছে বাংলাদেশ। পেনাল্টি থেকে জয়সূচক একমাত্র গোলটি করেন তপু বর্মন।

ম্যাচের প্রথমার্ধে দুর্দান্ত খেলেও গোলের দেখা পায়নি বাংলাদেশ দল। লঙ্কান দুর্গে একের পর এক আক্রমণ চালাতে থাকে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। কিন্তু লঙ্কান গোলরক্ষকের দুর্দান্ত সেভে বারবার পরাস্ত হয় বাংলাদেশ।

রক্ষণ ভাগের পাশাপাশি মাঝমাঠেও লড়াই দেখিয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু ফিনিশিংটা সেভাবে জমাতে পারেনি জামাল ভুঁইয়ার দল। যার ফলে গোলশূন্য থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে দুইদল।

তবে দ্বিতীয়ার্ধের ৫৬ মিনিটে পেনাল্টি পায় বাংলাদেশ দল। ডি-বক্সে লঙ্কান খেলোয়াড়ের হাতে বল লাগলে পেনাল্টি পায় বাংলাদেশ। পেনাল্টি থেকে দলকে গোল উপহার দেন তপু।

এছাড়াও ম্যাচে দারুণ এক সুযোগ পেয়েছিলেন তপু। ইয়াসিন আরাফাতের লম্বা ক্রসে দারুণ এক হেড নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু দুর্দান্তভাবে সেই হেড রুখে দেন লঙ্কান গোলরক্ষক। তবে পেনাল্টি থেকে তপুর গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। ম্যাচসেরা হয়েছেন তপু।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ একাদশ: আনিসুর রহমান জিকো, ইয়াসিন আরাফাত, তপু বর্মণ, বিশ্বনাথ ঘোষ, তারিক কাজী, জামাল ভূঁইয়া, জুয়েল রানা (সাদউদ্দিন), মোহাম্মদ ইব্রাহিম, বিপলু আহমেদ, রাকিব হোসেন ও সুমন রেজা।


আরও খবর

টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ে পেছাল বাংলাদেশ

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১

কোম্যানকে বরখাস্ত করলো বার্সেলোনা

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১




দুর্গাপূজা এখন সার্বজনীন উৎসব:শেখ হাসিনা

প্রকাশিত:সোমবার ১১ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুর্গাপূজা শুধু হিন্দু সম্প্রদায়ের উৎসবই নয়, এটি এখন সার্বজনীন উৎসব। অশুভ শক্তির বিনাশ এবং সত্য ও সুন্দরের আরাধনা শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রধান বৈশিষ্ট্

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। ধর্ম যার যার, উৎসব সবার- এ মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে বাংলাদেশে আমরা সব ধর্মীয় উৎসব একসঙ্গে পালন করি। আমাদের সংবিধানে সব ধর্ম-বর্ণের মানুষের সমান অধিকার সুনিশ্চিত করা হয়েছে। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষের নিরাপদ আবাসভূমি বাংলাদেশ। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোষ্ঠী নির্বিশেষে সবার উন্নয়ন করে যাচ্ছে। সমানভাবে উন্নয়নের সুফল উপভোগ করছে সব ধর্মের মানুষ।

সোমবার (১১ অক্টোবর) হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে একথা বলেন তিনি।

দেশের হিন্দু ধর্মাবলম্বী সব নাগরিককে শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দুর্গাপূজা শুধু হিন্দু সম্প্রদায়ের উৎসবই নয়, এটি এখন সার্বজনীন উৎসব। অশুভ শক্তির বিনাশ এবং সত্য ও সুন্দরের আরাধনা শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রধান বৈশিষ্ট্য।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুর্গাপূজা উদযাপনের অনুরোধ জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। সব সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছি। আমাদের সবাইকে একে অপরের সহযোগিতায় এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আসুন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে সমুন্নত রেখে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলি। দুর্গাপূজা উপলক্ষে আমি হিন্দু ধর্মাবলম্বীসহ সব নাগরিকের শান্তি, কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করছি।


আরও খবর

শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা আজ

বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21

লক্ষ্মীপূজা আজ

বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21




নায়লা নাঈমের ওপর ছিনতাইকারীর আক্রমণ

প্রকাশিত:সোমবার ১১ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মডেল ও দন্ত চিকিৎসক নায়লা নাঈম ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে আহত হয়েছেন।গত রবিবার (১০ অক্টোবর) সকালে মগবাজার লেভেল ক্রসিংয়ে নায়লা নাঈমের ওপর আক্রমণ চালায় একদল ছিনতাইকারী। এ সময় স্কুটিতে ছিলেন নায়লা নাঈম। ছিনতাইকারীর হাত থেকে বাঁচত গিয়ে স্কুটি থেকে পড়ে গিয়ে আহতও হয়েছেন তিনি।

গতকালই ফেসবুকে পুরো ঘটনায় বর্ণনা তুলে ধরেন নায়লা নাঈম। তিনি লেখেন, আজ দুপুরবেলা ১১টা ৪৫ মিনিটে মগবাজার রেল ক্রসিংয়ে ট্রেন চলে যাবার পরে ট্রেনের সিগনাল ছেড়ে দেয়ার পর রেল ক্রসিং পার হওয়ার সময় দুইজন কালো মতন ছেলে দৌঁড়ে এসে আমার গায়ে জড়ানো সামনের দিকের মোবাইল এবং টুকটাক রাখার যে ব্যাগ সেটা এমনভাবে টানা-হ্যাঁচড়া শুরু করে।

যেহেতু, পিকআপ কমানো ছিল কারণ রেল ক্রসিং পার হচ্ছিলাম, সে অবস্থায় ওদের টানাটানির কারণে আমি স্কুটি নিয়ে বামে পড়ে যাই। একজনের হাতে ধারালো কোনো একটা কিছু থাকায় প্রকাশ্যে অনেক মানুষ থাকলেও কেউ সহজে এগিয়ে আসছিল না এবং আমি পড়ে যাওয়ার পড়েও ছেলেটা ঘুরে এসে আমার ব্যাগ ধরে টানাটানি করছিল। পরে বাইক থামিয়ে তিনজন মানুষ দৌঁড়ে এসে আমাকে তুলে দেয়!

নায়লা নাঈম আরও লেখেন, দিনের আলোতে সবার সামনে, এতো মানুষের সামনে এই ধরনের একটা ঘটনা ঘটে গেল। বামে দ্রুতগামী পিকআপের নিচে আমি পড়ে যেতে পারতাম যদি পিকআপটা টান দিতো তাহলে! কনুইতে আঁচড় লেগেছে। হয়তো অল্পের ওপর দিয়ে বেঁচে গিয়েছি। কিন্তু, এগুলোর সমাধান আসলে কোথায়? এই বিষাক্ত শহরে আমি আর থাকতে চাই না!

নিউজ ট্যাগ: নায়লা নাঈম

আরও খবর

অবশেষে জামিন পেলেন শাহরুখপুত্র

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১

আজ ফের হাইকোর্টে আরিয়ানের জামিন শুনানি

বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১




লন্ডন থেকে দুর্গাপূজায় হামলার পরিকল্পনা হয়েছে: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দুর্গাপূজায় হামলার পরিকল্পনা হয়েছে লন্ডনে বসে দীর্ঘ একমাস ধরে। যারা একাজ করেছে তারা প্রকৃত মুসলমান নয়।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহীর সার্কিট হাউসে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সবকিছুতে ব্যর্থ হয়ে মূর্তির কাছে কোরআন রেখে সারাদেশে নাশকতা সৃষ্টি করা হয়েছে। যে রেখেছে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিন্তু সে শুধু ফরমায়েশ পালন করেছে। যাদের কথায় সে এই কাজ করেছে  তাদেরও শিগগিরই শাস্তির আওতায় আনা হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, অর্থনৈতিক, সামাজিক, মানবসম্পদসহ সব ক্ষেত্রেই পাকিস্তানকে আমরা অনেক আগেই পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছি। এসব ক্ষেত্রে ভারতকেও আমরা পেছনে ফেলেছি। সারাবিশ্বের অর্থনৈতিক খাত করোনা মহামারিতে ধস নেমেছে। শুধু ২০ দেশ এগিয়েছে। এরমধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। নেতৃত্বের কারণে সারাবিশ্বে প্রধানমন্ত্রী প্রশংসিত হয়েছেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ২০০৮ সালে দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ছিল ৬০০ ডলার। আজকের হিসেবে তা অন্তত চারগুণ বেড়েছে। এটা সবার পছন্দ হয়না। তাই নানা রকম ষড়যন্ত্রে তারা লিপ্ত। গুজব রটিয়ে হত্যাকাণ্ড ঘটাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, এর আগে পদ্মাসেতুতে নরবলি দেয়ার গুজব রটিয়ে বেশ কয়েকজন শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। বিএনপি-জামাত চক্রই এইসব গুজব রটিয়েছে।

করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে গুজবের সমালোচনা করে মন্ত্রী আরও বলেন, ভ্যাকসিন নিয়েও গুজব রটায়। পরে মির্জা ফখরুল থেকে শুরু করে সবাই ভ্যাকসিন নেয়। কেউ কেউ গোপনেও ভ্যাকসিন নিয়েছে।

এ সময় রাজশাহীতে টেলিভিশন কেন্দ্র চালুর প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আগামী নির্বাচনের আগেই এখানে টেলিভিশন কেন্দ্র চালু হবে।


আরও খবর



নিত্য পণ্যের দাম বেড়ে অস্বাভাবিক পর্যায়ে পৌঁছেছে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৫ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ অক্টোবর ২০২১ | ৮১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সরবরাহ ও মজুত পর্যাপ্ত থাকার পরও প্রতিবছরই ভোক্তার পকেট কেটে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে যাচ্ছে অসাধুরা ।

গত কয়েক বছর ধরেই নিত্যপণ্যের বাজারে থেমে থেমে একরকম অস্থিরতা থাকছেই। একটু একটু করে প্রতি বছরেই বাড়ানো হয়েছে দাম।

বিশেষ করে গত পাঁচ বছরে প্রায় সব পণ্যের দাম বেড়ে অস্বাভাবিক পর্যায়ে পৌঁছেছে, যা এই মুহূর্তে মধ্য ও নিম্নবিত্তের মানুষের জন্য যেন লাগামহীন- এমন মন্তব্য সংশ্লিষ্টদের।

তাদের মতে, কখনো আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধি, আবার কখনো সরবরাহ সংকটের অজুহাত দেখিয়ে প্রতিবছরই এসব পণ্যের দাম বাড়িয়েছে মিল ও মোকাম মালিক এবং আমদানিকারকরা।

এর নেপথ্যে সক্রিয় থাকছে অসাধু ব্যবসায়ীদের সেই প্রভাবশালী সিন্ডিকেট সদস্যরা। যারা সবসময়েই থাকেন অধরা। ফলে প্রতিবছরই তারা ভোক্তার পকেট কেটে নিয়ে যাচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা।

বিদ্যমান পরিস্থিতিতে বাজারে নিত্যপণ্য কিনতে এসে বাড়তি দামে রীতিমতো হাঁসফাঁস করতে হয় ক্রেতাদের।

গত পাঁচ বছরের (২০১৬ অক্টোবর-২০২১ অক্টোবর) পণ্যমূল্যের দাম পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, রাজধানীর খুচরা বাজারে পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিনের দাম বেড়েছে ২৩৫ টাকা।

কেজিতে গরুর মাংস ও রুই মাছ যথাক্রমে ১৫০ ও ১৩০ টাকা বেড়েছে। কেজিপ্রতি চালে ১৭-২০ টাকা, ডাল ৩০ টাকা, চিনি ২০ টাকা ও দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে ৪০ টাকা বেড়েছে।

পাশাপাশি এই পাঁচ বছরে ব্রয়লার মুরগি কেজিতে ৬৫ টাকা বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি ডজন ডিমের (১২ পিস) দাম বেড়েছে ২৫ টাকা। তাছাড়া সবজির দাম গত পাঁচ বছরে অনেক বেড়েছে।

সব মিলে ক্রেতা সাধারণের এসব পণ্য কিনতে সুনির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই বাড়তি টাকা ব্যয় করতে হচ্ছে। এতে সবচাইতে বেশি ভোগান্তিতে পড়ছে নিম্ন আয় ও খেটে খাওয়া মানুষ।

গত ১৬ জুন জীবনযাত্রার ব্যয় ও ভোক্তাস্বার্থ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রাসঙ্গিক বিষয়ের ওপর প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)।

সেখানে বলা হয়, ২০২০ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় ৬ দশমিক ৮৮ শতাংশ এবং পণ্য ও সেবা-সার্ভিসের মূল্য ৬ দশমিক ৩১ শতাংশ বেড়েছে, যা গত তিন বছরে সর্বোচ্চ।

কারণ ২০১৯ সালে এই হার ছিল যথাক্রমে ৬ দশমিক ৫০ শতাংশ এবং ৬ দশমিক ০৮ শতাংশ। এছাড়া ২০১৮ সালে জীবনযাত্রার ব্যয় এবং মূল্যবৃদ্ধি ছিল যথাক্রমে ৬ দশমিক শূন্য শতাংশ এবং ৫ দশমিক ১৯ শতাংশ।

প্রতিবেদনে রাজধানী ঢাকায় ১৫টি খুচরা বাজার ও বিভিন্ন সেবা সার্ভিসের মধ্যে থেকে ১১৪টি খাদ্যপণ্য, ২২টি নিত্যব্যবহার্য সামগ্রী এবং ১৪টি সেবা-সার্ভিসের সংগৃহীত তথ্য-উপাত্ত বিবেচনায় নেওয়া হয়।

জানতে চাইলে ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, সর্বশেষ বিগত তিন বছর হিসাব করলে রাজধানীসহ দেশের প্রত্যেকটি অঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে।

প্রতিকেজি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা, তা এখন ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। ভালোমানের মসুর ডাল (ছোট দানা) সর্বোচ্চ ১২০ টাকায় বিক্রি করছি, যা পাঁচ বছর আগে ৯০ টাকায় বিক্রি করেছি।

পাশাপাশি এক ডজন ফার্মের ডিম ১২০-১১৫ টাকা, যা পাঁচ বছর আগে ৮৫-৯০ টাকায় বিক্রি হতো। আর প্রতি কেজি দেশি পেঁযাজ ৩৫ টাকায় বিক্রি করেছি, যা এখন ৭৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হচ্ছে।

অন্যদিকে এই পাঁচ বছরে মাছ মাংসের দামও বেড়েছে। যেখানে বর্তমানে প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি ১৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, পাঁচ বছর আগে ১১০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

আবার সরবরাহ বেশি থাকলে ১০০ টাকায় পাওয়া গেছে। পাশাপাশি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৬০০ টাকা।

যা পাঁচ বছর আগে ৪৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। পাশাপাশি পাঁচ বছর আগে প্রতি কেজি রুই মাছ ২২০ টাকায় বিক্রি হলেও এখানে বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ টাকা কেজি।

 


আরও খবর

শীতের আগাম সবজির দাম কিছুটা কমেছে

শুক্রবার ০৮ অক্টোবর ২০২১

সপ্তাহের ব্যবধানে কমেছে ডিম-আলুর

শুক্রবার ০১ অক্টোবর ২০২১