Logo
শিরোনাম

উইন্ডোজ ১০-এর লাইসেন্স বিক্রি বন্ধ হচ্ছে

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চলতি মাস শেষে উইন্ডোজ ১০-এর লাইসেন্স কি বিক্রি বন্ধের কথা ভাবছে মাইক্রোসফট। এর পরিপ্রেক্ষিতে গ্রাহকরা মাইক্রোসফটের ওয়েবসাইট থেকে পুরনো ভার্সনের উইন্ডোজ ডাউনলোড করতে পারবে না। লাইসেন্স বিক্রি বন্ধ হয়ে যাওয়ার বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে ব্যবহারকারীদের উইন্ডোজ ভার্সন পছন্দে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে ব্যবহারকারীদের উইন্ডাজ ১১ ইনস্টল করার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

পিসি ওয়ার্ল্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়, সফটওয়্যার জায়ান্টটি জানুয়ারির শেষ থেকে উইন্ডোজ ১০-এর লাইসেন্স আর বিক্রি করবে না বলে ঘোষণা দিয়েছে। ফলে ফেব্রুয়ারি থেকে ব্যবহারকারী বা গ্রাহকরা মাইক্রোসফটের ওয়েবসাইট থেকে উইন্ডোজ ১০-এর কোনো ভার্সনই আর ডাউনলোড করতে পারবে না। উইন্ডোজ ১০ হোম, ১০ প্রো ও ১০ ওয়ার্কস্টেশন ব্যবহারকারীদের ৩১ জানুয়ারি থেকে উইন্ডোজ ডাউনলোড না করতে পারার বিষয়ে সতর্ক করা হচ্ছে। তবে কেউ এ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে চাইলে থার্ড পার্টি সাইট থেকে ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবে বলে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

ডাউনলোডের সুযোগ বন্ধ হয়ে গেলেও মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে উইন্ডোজ ১০-এ সিকিউরিটি আপডেট দেয়া হবে বলে প্রাতিষ্ঠানিক নোট সূত্রে জানা গেছে। ফলে ব্যবহারকারীরা স্পাইওয়্যার, ভাইরাসসহ অন্যান্য ম্যালওয়্যারের আক্রমণ থেকে সুরক্ষা পাবে। এক্সপ্রেস ইউকে জানায়, প্রযুক্তি জায়ান্টটি উইন্ডোজ ১০-এর ব্যবহারকারীদের দ্রুত সময়ের মধ্যে ১১ তে আপডেটের কথা জানিয়েছে। দুই বছরের মধ্যে পুরনো সব উইন্ডোজের সাপোর্ট বন্ধ করে দেয়ার অংশ হিসেবেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে ধারণা করছেন প্রযুক্তিবিদরা।

নিউজ ট্যাগ: উইন্ডোজ ১১

আরও খবর



বিয়ে বাড়িতে চাঁদা দাবি, গ্রেপ্তার ৪

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর মিরপুরে বিয়ে বাড়িতে চাঁদার দাবি করায় তৃতীয় লিঙ্গের চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (১৭ জানুয়ারি) বিকেলে মিরপুর তিন নম্বর সেকশনের আট নম্বর রোড এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার তৃতীয় লিঙ্গের চারজন হলেন- বৃষ্টি আফরিন (২৫), মধু (৩২), ঈশানী (২৫) ও সুমি (২২)।

পুলিশ জানায়, ওই এলাকার একটি বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। এমন খবর পেয়ে বাড়িটিতে তৃতীয় লিঙ্গের চারজন উপস্থিত হয়ে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। বিয়ে বাড়ির লোকজন চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে সেখানে চিৎকার শুরু করেন তারা। এক পর্যায়ে ওই বিয়ে বাড়ি থেকে তাদের এক হাজার ৫০০ টাকা দেওয়া হয়। এরপরও তারা বিয়ের অনুষ্ঠানে তাণ্ডব চালায়। এক পর্যায়ে তাদের বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে দেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদের উদ্ধার করে।

এসময় তৃতীয় লিঙ্গের ওই চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়াও তৃতীয় লিঙ্গের ওই চারজনের কাছ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর

শুক্রবার রাজধানীর যেসব মার্কেট বন্ধ

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

রাজধানীতে ছাদ থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩




ছুটির দিনে জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে বাণিজ্যমেলা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় আজ শুক্রবার ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এদিন দুপুরের পর রাজধানী ও আশপাশের জেলার লোকজন মেলায় আসতে শুরু করেন। মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে কেনাকাটাও। বিক্রি বাড়ায় খুশি বিক্রেতারা।

শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) দুপুরের পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মেলায় স্রোতের মতো মানুষ প্রবেশ করেছে। টিকিট কাউন্টার থেকে প্রবেশ মুখ- সব জায়গায় ছিল মানুষের ঢল। ভিড় সামলে সুশৃঙ্খলভাবে দর্শনার্থীদের প্রবেশ করাতে নিরাপত্তারক্ষী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের পোহাতে হয়েছে ভোগান্তি।

দুপুরে কুড়িল বিশ্বরোড থেকে বাণিজ্যমেলার গেটগামী বিআরটিসি বাসেও ছিল উপচে পড়া ভিড়। একটা বাস আসতে না আসতেই তা যাত্রীতে ভরে যায়। এমনকি বিআরটিসি কাউন্টারে টিকিটের জন্য যাত্রীদের অপেক্ষা করতেও দেখা গেছে।

এদিকে, ছুটির দিনে দর্শনার্থী ও বিক্রি বাড়ায় খুশি বিক্রয় কর্মীরা। প্রাণ, আরএফএল সহ অনেক প্যাভিলিয়নেই লাইন ধরে ক্রেতাদের প্রবেশ করতে দেখা গেছে।

ওয়াটার পিউরিফায়ার টরেভিনোর সেলস পার্সন জেনি করিম বলেন, প্রচণ্ড শীতের কারণে মেলায় ক্রেতা কম ছিল। তবে আজ ছুটির দিন হওয়ায় দর্শনার্থী বেশি। যদিও এখন পর্যন্ত বেচাকেনা কম। আমাদের স্টলেই আজ কয়েক হাজার মানুষ এসেছে।

তিনি বলেন, আমরা জাপানি প্রযুক্তিতে এক সেকেন্ডে পানি বিশুদ্ধ করছি। আজকে ক্রেতাদের বেশ ভালো সাড়া পাচ্ছি।

বাণিজ্যমেলা ঘুরে দেখা গেছে, খাবার, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য ও ক্রোকারিজ পণ্যের স্টলে ভিড় বেশি। মেলায় কেউ এসেছেন বন্ধুদের নিয়ে। কেউবা এসেছেন পরিবার পরিজন নিয়ে। মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে তারা ছবি তুলে সময় কাটাচ্ছেন। অনেকেই পছন্দের পণ্য খুঁজছেন এবং কেনাকাটা করছেন।


আরও খবর



অ্যাকনে যখন মাথার ত্বকে

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ১৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মুখের মতো স্ক্যাল্পেও হতে পারে অ্যাকনে। আর তা বাড়িয়ে দিতে পারে চুল পড়ার সমস্যা। তবে ত্বকের মতো করে তো আর স্ক্যাল্পের যত্ন নেওয়া সম্ভব নয়। থাকছে কিছু সহজ টিপস। মুখের অ্যাকনে দেখেছেন, ব্যাকনের (পিঠের অ্যাকনে) কথা শুনেছেন কিন্তু স্ক্যাল্প? আশ্চর্যের বিষয় হলো, স্ক্যাল্পনে বা স্ক্যাল্পের অ্যাকনে কিন্তু মোটেই নতুন কিছু নয়। সমীক্ষা বলে, প্রত্যেকেই কখনও না কখনও এ সমস্যায় ভুগেছেন।

কিন্তু চুলের আড়ালে থাকে বলে যেহেতু এ ধরনের পিম্পল সচরাচর নজরে পড়ে না, তাই তা নিয়ে কেউই বিশেষ ভাবেন না। ভেবে দেখুন, মাথায় চিরুনি চালাতে গিয়ে হঠাৎ কোথাও খোঁচা বা ব্যথা লাগার সমস্যা সবারই কখনও না কখনও হয়েছে। কিন্তু তা নিয়ে সেভাবে মাথা ঘামাননি। আর তার মূল কারণ স্ক্যাল্পনে থেকেও যে চুলের ক্ষতি হতে পারে, তা অনেকের অজানা। অনেকেই হঠাৎ চুল পড়ার সমস্যা বেড়ে যাওয়া নিয়ে অভিযোগ করেন।

অথচ এর নেপথ্যে যে স্ক্যাল্পনের সমস্যাও থাকতে পারে, তা বুঝতে পারেন না। অ্যাকনে হোক বা পিম্পল, ত্বকের নির্দিষ্ট রন্ধ্রের মুখ আটকে গেলেই এ ধরনের সমস্যা হয়। তা থেকে ওই নির্দিষ্ট রন্ধ্রেরও বেশ ক্ষতি হয়। সুতরাং স্ক্যাল্পে এ ধরনের সমস্যা হলে হেয়ার ফলিকলের পুষ্টিতে বাধা পড়ে। যার ফলে চুল পড়ার সমস্যা, শুষ্কতা, নির্জীবতা বেড়ে যেতে পারে। অ্যাকনের প্রবণতা যার যত বেশি, তার চুলের ক্ষতির আশঙ্কাও তত বেশি।

স্ক্যাল্পনে কী: মুখের তৈলাক্ত অংশে তেল, ধুলোবালি, মৃত কোষ, ঘাম ইত্যাদি জমে অ্যাকনে হয়। স্ক্যাল্পনেও ঠিক তেমনভাবেই মাথায় অর্থাৎ স্ক্যাল্পে হয়। অনেক ক্ষেত্রে ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন থেকেও এ ধরনের পিম্পল হতে পারে। একে ফলিকুলাইটিস বা হেয়ার ফলিকলের ইনফ্ল্যামেশনও বলতে পারেন। এমনিতে চুলে ঢাকা থাকে বলে দেখা যায় না, তবে হাত দিলে ফুসকুড়ির মতো অনুভব করা যায়। অনেকের হেয়ারলাইন বরাবর হোয়াইটহেডসের মতোও দেখা যায়। কিছু পিম্পলে ব্যথা হয়, কিছু পিম্পল থেকে শুধু ইচিং হয়। দুই ধরনের স্ক্যাল্পনেই চুলের পক্ষে ক্ষতিকর। কারণ উভয় ক্ষেত্রেই হেয়ার ফলিকল ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে চুলের সার্বিক পুষ্টিতে বাধা দেয়। যাদের খুশকির সমস্যা রয়েছে বা ত্বক তৈলাক্ত প্রকৃতির, তাদের ক্ষেত্রে এ সমস্যা বেশি হয়। আবার স্ক্যাল্প অতিরিক্ত শুষ্ক হলেও এ সমস্যা দেখা দিতে পারে। স্ক্যাল্প এবং চুল কতটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখছেন, তার ওপর নির্ভর করেও স্ক্যাল্পনের প্রবণতা বাড়তে বা কমতে পারে।

যে কারণে হয়: মৃত কোষ বা অতিরিক্ত তেল হেয়ার ফলিকলের গোড়ায় জমে যাওয়া, শ্যাম্পু, তেল, কন্ডিশনার, হেয়ার সেরামসহ বিভিন্ন হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্টের বিল্ডআপ, চুল ভালোভাবে না ধোওয়া, ওয়ার্কআউট করার পর বা গরমে ঘাম স্ক্যাল্পে বসতে দেওয়া, টুপি বা অন্যান্য মাথা ঢাকা দেওয়ার জিনিস বেশি পরা, অতিরিক্ত স্ট্রেস, হরমোনাল ইমব্যালান্সের মতো কারণ, যা আপাতভাবে অ্যাকনের সমস্যা বাড়ায়, কেরাটিন বিল্ডআপ কিংবা খুশকির সমস্যা।

এ ছাড়া ইস্ট এবং স্ট্যাফাইলোকক্কাসের মতো বেশকিছু জীবাণু সংক্রমণ থেকে এ ধরনের পিম্পল হতে পারে। অনেক ডার্মাটোলজিস্ট মনে করেন, ডায়েটের ভূমিকা এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। যারা শর্করা জাতীয় কার্বোহাইড্রেট বেশি পরিমাণে খান, তাদের মধ্যে এ সমস্যা সবচেয়ে কমন।

যা করবেন: সমস্যার কারণ একবার বুঝে গেলে সেই মতো সমাধানের পথ খুঁজে নিতে হবে। যেমন যদি অতিরিক্ত ঘাম থেকে এ ধরনের সমস্যা হচ্ছে বলে মনে হয়, সে ক্ষেত্রে স্ক্যাল্প যতটা সম্ভব শুকনো রাখার চেষ্টা করতে হবে। ডায়েট থেকে অতিরিক্ত কার্বোহাইড্রেট বাদ দিয়ে দেখতে পারেন। পাশাপাশি স্ক্যাল্প পরিষ্কার এবং খোলামেলা রাখার চেষ্টা করতে হবে। অতিরিক্ত অয়েলি স্ক্যাল্প হলে এমন প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে পারেন, যা স্ক্যাল্পকে তেলমুক্ত রাখতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি কোনো ধরনের প্রোডাক্ট বিল্ডআপ যেন না হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। নিয়মিত চুলের সংস্পর্শে যা যা আসছে, যেমন বালিশ, চিরুনি, চাদর, টুপি, হেয়ার অ্যাকসেসরিজ সবই পরিষ্কার রাখতে হবে। পারলে প্রতিদিন অ্যান্টিসেপটিক পানিতে ধুয়ে ফেলুন।

যা করবেন না: কিছু অভ্যাস আবার একেবারে বন্ধ করতে হবে। মুখের অ্যাকনের মতোই স্ক্যাল্পনে খোঁটাখুঁটি করবেন না। এতে ভেতরে জমে থাকা পুঁজ (পুঁজ না থাকলেও সেরাম জাতীয় পদার্থ) বেরিয়ে অন্যত্র অ্যাকনে হতে পারে। ইনফেকশনও হয়ে যেতে পারে, যা চুল পড়া, স্ক্যাল্পে ব্যথা এবং স্ক্যাল্পনের প্রবণতা আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। তাই ঘন ঘন স্ক্যাল্পে হাত দেওয়ার অভ্যাস থাকলে প্রথমেই তা কমাতে হবে। সতর্ক থাকতে হবে চিরুনি চালানোর ব্যাপারেও। সরু চিরুনি বা ধারালো চিরুনির পরিবর্তে কাঠের মোটা চিরুনি ব্যবহার করুন। স্ক্যাল্প ব্রাশ করার সময় খুব ধীরে করুন এবং যতটা সম্ভব কম প্রেশার দিন। বালিশে স্যাটিনের কভার পরাতে পারেন। এতে স্ক্যাল্প ও চুলে ফ্রিকশন কম হবে।

শ্যাম্পুতে সমাধান: স্ক্যাল্প অ্যাকনে কমাতে মূলত শ্যাম্পুই যথেষ্ট। তবে বাজারচলতি যেকোনো শ্যাম্পু নয়। বেছে নিতে হবে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বা অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটারি মেডিকেটেড শ্যাম্পু। যাতে স্যালিসাইলিক অ্যাসিড বা সালফার রয়েছে, এমন শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। ভালোভাবে চুল এবং স্ক্যাল্পে ফেনা করতে হবে। একদিন ছাড়া ছাড়া এ ধরনের শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। অন্তত পাঁচ মিনিট স্ক্যাল্পে এই শ্যাম্পু লাগিয়ে রেখে তারপর ধুয়ে নিন। এ ধরনের শ্যাম্পু স্ক্যাল্পনের সঙ্গে সঙ্গে খুশকির (যদি থাকে) সমস্যাও কমাবে। স্ক্যাল্প তৈলাক্ত হলে সেই ধরনের চুলের জন্য বিশেষ শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। তবে এ ধরনের শ্যাম্পু স্ক্যাল্প শুষ্ক করে খুশকির সমস্যা বাড়াতে পারে। এ ব্যাপারে সতর্ক থাকুন।

গ্লাইকলিক অ্যাসিড বা টি-ট্রি অয়েলে সমৃদ্ধ প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে পারেন। ভালো ফল পাওয়া যাবে। এ ছাড়া শ্যাম্পু কেনার সময় কয়েকটি জিনিস দেখে কিনতে পারেন। স্ক্যাল্পনের পক্ষে অ্যান্টি-অ্যাকনেজেনিক, অ্যান্টি-কমেডোজেনিক হেয়ার প্রোডাক্ট ভালো। শুধু শ্যাম্পুই নয়, চুলে যা-ই ব্যবহার করবেন, তা যেন পোরস ক্লগ না করে, সেটা খেয়াল রাখুন।

এ ছাড়া মাসে একবার (বেশি করলে চুল অত্যন্ত রুক্ষ হয়ে পড়বে) ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। এটি স্ক্যাল্প ক্ল্যারিফাই করতে এবং বিল্ডআপ সরাতে সাহায্য করবে। তবে একবার শ্যাম্পু করলেই যে উপকার পাবেন, তা নয়। যেকোনো শ্যাম্পু কাজ করতে অন্ততপক্ষে ছয় সপ্তাহ সময় নেয়। সমস্যার পরিমাণ অনুযায়ী কারও ক্ষেত্রে আরও বেশি সময় লাগতে পারে।

প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিওর: আগে থেকেই যদি স্ক্যাল্পনে প্রতিরোধ করা যায়, তাহলে চুল পড়া এবং স্ক্যাল্পের সমস্যা দুই-ই আটকানো সম্ভব। আর প্রতিরোধের পথে প্রথম পদক্ষেপ হলো স্ক্যাল্প হাইজিন মেনে চলা। কেমিক্যাল-ফ্রি, হাইপোঅ্যালার্জেনিক হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করুন। অতিরিক্ত হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন এ, ডি ও ই রাখুন ডায়েটে। প্রয়োজনে সাপ্লিমেন্টসও নিতে পারেন। স্ক্যাল্প ময়েশ্চারাইজড রাখুন।

প্রয়োজনে কলা, ডিম, মধুর মতো নারিশিং উপকরণ দিয়ে বানানো হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন। লেবু এবং অ্যাপল সিডার ভিনিগার খুশকি দূর করতে সাহায্য করে। স্ক্যাল্পনে প্রতিরোধেও সাহায্য করবে। মাঝে মাঝে গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে চুলে জড়িয়ে রাখতে পারেন। পানির ভাপে ইনফেকশনের সমস্যা কমবে। শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করার পর তা অবশ্যই ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে। কোনো রেসিডিউ যেন চুলে বা স্ক্যাল্পে না লেগে থাকে খেয়াল রাখুন।


আরও খবর

আজকের রাশিফল: জেনে নিন কেমন কাটবে দিন ?

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

খাবার খাওয়ার সময় মাথায় রাখুন ৯ বিষয়

বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩




ট্রেন্ডি মেকআপের খুঁটিনাটি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৩ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ট্রেন্ডি, মানেই সমসাময়িক নিত্যনতুন সবকিছু। মেকআপও কিন্তু এর থেকে পিছিয়ে নেই। রেট্রো, ক্ল্যাসিক, বাঙালিয়ানা, বলিউড, স্মোকি, উইন্টার, নো মেকআপ লুক, ডিউই গ্লো মেকআপ, মোনোক্রোম্যাটিক, এয়ারব্রাশ, মিনারেল মেকআপ, ৬০ বা ৭০ দশকের ফিরে আসা মেকআপ ট্রেন্ড, আরও কত-কী! আজকাল বিভিন্ন টিউটোরিয়াল দেখে নিজেই ঘরে বসে এই মেকআপ ট্রিক অ্যান্ড ট্রিকসগুলো শিখে নিচ্ছেন সবাই। 

লাউড মেকআপ উইথ ব্রাইট ব্লাশ : পুরো মেকআপে ভারী ভাব নিয়ে আসতে একটি উজ্জ্বল রঙের ব্লাশঅনই যথেষ্ট। দিনের পার্টি হোক বা রাতের, উইন্টার হোক বা সামার পার্টিমেকআপে উজ্জ্বল ব্লাশ ভালোই মানায়। এখন বিভিন্ন ব্র্যান্ডই বোল্ড পিচ বা পাঞ্চি পিংক কালারের ব্লাশগুলোতে অনেক শেড বাজারে এনেছে। মেকআপে ব্রাইট ব্লাশ দিয়ে অভিজাত লুক আনতে এই রঙের শেডগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

নো মেকআপ লুক : স্নিগ্ধ সাজ কে না পছন্দ করে? এটি দেখতে যেমন সুন্দর লাগে, তেমনি খুব একটা পরিশ্রম ছাড়াই ফ্ললেস লুক পেয়ে যাবেন নো মেকআপ লুকে। এই লুকের জন্য ফাউন্ডেশন যেন হালকা কাভারেজের হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। ময়েশ্চারাইজের সঙ্গে ফাউন্ডেশন মিক্স করেও স্কিনে অ্যাপ্লাই করলে ভালো হয়। এর সঙ্গে হালকা শেডের ব্লাশঅন, হালকা আই মেকআপ, ক্রিম ফর্মুলার লিপস্টিক, চিকন করে আইলাইনার বা আইলাইনার ছাড়া শুধু মাসকারা দিয়েই কমপ্লিট করতে পারেন এই লুক। 

ট্যান মেকআপ : রং ফরসাকারী মেকআপের চেয়ে এখন ট্যান একটা লুক সবাই একবার হলেও মেকআপে ট্রাই করতে চান। বিশেষ করে কন্ট্যুর করার পর যে লুকটি পাওয়া যায়, সেই লুককেই ট্যান মনে হয়। একেবারে ন্যাচারাল একটি লুক নিয়ে আসে এই মেকআপ। এই লুকের জন্য কয়েক ফোঁটা ট্যানিং সিরামের সঙ্গে ময়েশ্চারাইজার মিক্স করে জো, নাক, চিক লাইনে অ্যাপ্লাই করে নিতে হবে। এর ওপর স্কিন টোনের সঙ্গে ম্যাচিং লুজ পাউডার দিয়ে ফিনিশিং টাচ দিয়ে কমপ্লিট করুন আপনার ট্যান মেকআপ লুক। 

মোনোক্রোম্যাটিক মেকআপ : ম্যাট হোক বা গ্লসি, ব্রাইট হোক বা হালকা কালারমুখে অল ওভার একটি রং দিয়ে মেকআপ সেরে নিতে পারবেন এই লুকে। আইশ্যাডো, ব্লাশঅন, লিপস্টিকএসব একই রঙের হওয়া চাই এই মেকআপ লুকের জন্য। সেই সঙ্গে নেইল কালার, ড্রেস ও জুতা বা স্যান্ডেলও একই রঙের হতে পারে। মিনিমাল মোনোক্রম, পারফেক্টলি পিচ, রোজি রাসবেরি, ওয়ার্ম নিউট্রালস, রেট্রো গ্ল্যামসএ রকম অনেক লুকই নিতে পারেন মোনোক্রোম্যাটিক ক্যাটাগরিতে। ড্রামাটিক, লাউড মেকআপ লুকের জন্য এই মেকআপ একদম পারফেক্ট। 

ডিউই মেকআপ : ডিউই স্কিন লুকের জন্য হাইলাইটার ক্রিমস ও বামস। আর এই মেকআপ লুকের শুরুতে অবশ্যই ম্যাট প্রাইমার ব্যবহার করতে ভুলবেন না। তবে লিপস্টিকের ক্ষেত্রে আবার লিপ গ্লস ব্যবহার করাই শ্রেয়। চিক বোন, নাকের সামনের দিকে ঠোঁটের ওপর আলতো করে, থুতনিতে হালকা করে হাইলাইটার ক্রিম লাগিয়ে নেবেন। ওভারঅল লুকে দেখবেন একটি গর্জিয়াস ভাব চলেই এসেছে।

নিউজ ট্যাগ: ট্রেন্ডি মেকআপ

আরও খবর

আজকের রাশিফল: জেনে নিন কেমন কাটবে দিন ?

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

অ্যাকনে যখন মাথার ত্বকে

বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩




রাজধানীতে ছাদ থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ১৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর লালবাগে ভবনের ছাদ থেকে পড়ে তুষার আহমেদ কায়েস (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শিশুটির বাবা দেলোয়ার হোসেন জানান, লালবাগের নবাবগঞ্জ সাত শহীদ কমিটি সেন্টার সংলগ্ন একটি ছয় তলা বাড়ির চার তলায় ভাড়া থাকেন তারা। বিকেলে বাড়ির ছয় তলার ছাদে অন্য বাচ্চাদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলছিল কায়েস। এ সময় মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন তিনি। কিছুক্ষণ পর খবর পান ভবনের ছাদ থেকে নিচে পড়ে গেছে সে। সঙ্গে সঙ্গে বাসায় গিয়ে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে যান। 

শিশুটির মামা মো. আশিক জানান, ছাদে অন্য বাচ্চাদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলার সময় বলটি পাশের একটি ছাদে পড়ে। সেই বলটি আনতে গিয়ে নিচে পড়ে যায় কায়েস। পরে তাকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ইন্সপেক্টর) মো. বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর

শুক্রবার রাজধানীর যেসব মার্কেট বন্ধ

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

হকাররা কোথায় বসতে পারবেন, জানালেন মেয়র তাপস

বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩