Logo
শিরোনাম

ভারতে খেলার মাঠেই মারা গেলেন বাংলাদেশের সাবেক ফুটবলার

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ফুটবল মাঠেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন বাংলাদেশের সাবেক ফুটবলার মো. হানিফ রশিদ ডাবলু। ঢাকা সোনালী অতীত ক্লাবের ফুটবল দল ভারতের শিলিগুড়িতে মেরিকো অ্যাগ্রো গোল্ড কাপ নক আউট ভ্যাটার্নস ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলতে গেছে। এ দলেরই সদস্য ছিলেন ডাবলু।

রবিবার বিকেলে খেলার মাঠেই মারা যান তিনি। তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর।

ঢাকা সোনালী অতীত ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাবেক তারকা ফুটবলার ইলিয়াস হোসেন ডাবলুর মৃত্যুর ব্যাপারে বলেছেন, ১২ মিনিটের মতো খেলার পর এ দুর্ঘটনা ঘটে। ডাবলু ভাই একটি কর্নার কিক মেরে দৌড়িয়ে মাঝমাঠে গিয়ে মাটিতে পড়ে যান। সবাই খেলা বন্ধ করে গিয়ে দেখেন তার মুখ দিয়ে লালা বের হচ্ছে। তাকে তখনই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।


আরও খবর



জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, শ্যামল দত্ত সাধারণ সম্পাদক

প্রকাশিত:শনিবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৯৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাতীয় প্রেস ক্লাবের ২০২৩-২৪ মেয়াদে ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচনে টানা দ্বিতীয়বারের মতো সভাপতি হয়েছেন ফরিদা ইয়াসমিন। সাধারণ সম্পাদক পদে নতুন করে নির্বাচিত হয়েছেন শ্যামল দত্ত।

দুজনই আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেল থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

শনিবার (৩১ ডিসেম্বর) রাত ৮টার দিকে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ফল ঘোষণা করেন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা-ই-জামিল।

ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেল থেকে সভাপতি পদে জয়ী ফরিদা ইয়াসমিন পেয়েছেন ৫৬৭ ভোট। বিপরীতে বিএনপি সমর্থিত প্যানেল থেকে কামাল উদ্দিন সবুজ পেয়েছেন ৪০১ ভোট।

সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী শ্যামল দত্ত পেয়েছেন ৪৯৬ ভোট। বিএনপি সমর্থিত প্যানেল থেকে ইলিয়াস খান পেয়েছেন ৪৭৪ ভোট।

শনিবার দিনভর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। গণনা শেষে রাতে ফল ঘোষণা করেন নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা-ই-জামিল।

ঘোষিত ফল অনুযায়ী, ২০২৩-২৪ মেয়াদে ১৭ সদস্যের ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচনে বিজয়ী অন্যরা হলেন সিনিয়র সহ-সভাপতি হাসান হাফিজ, সহ-সভাপতি রেজোয়ানুল হক রাজা, যুগ্ম-সম্পাদক আইয়ুব ভূঁইয়া ও আশরাফ আলী, কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী। এছাড়া ব্যবস্থাপনা কমিটিতে ১০ জন সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচিতরা আগামী দুই বছর সাংবাদিকদের শীর্ষ এ সংগঠনের নেতৃত্ব দেবেন।

নির্বাচনে কার্যনির্বাহী পরিষদের ১৭টি পদে এবার ৪৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ভোটার ১ হাজার ১০২ জন।

নির্বাচনে ক্লাবের বর্তমান সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিনের নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাংবাদিক ফোরাম মনোনীত ফরিদা-শ্যামল পরিষদ এবং সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজের নেতৃত্বে সবুজ-ইলিয়াস পরিষদ নামে দুটি পূর্ণাঙ্গ প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে। এছাড়াও প্যানেলের বাইরে আরও ১০ জন সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।


আরও খবর



দেশে ডেঙ্গুতে মৃত্যু নেই, আক্রান্ত ১৪

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৪ জন। একই সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৫৮ জন। আর চলতি বছর এ পর্যন্ত ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ছয়জন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে নতুন ভর্তি হওয়া রোগীদের ৫ জনই ঢাকার বাসিন্দা। আর ঢাকার বাইরের ৯ জন। এ ছাড়া দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি থাকা রোগীদের ২৯ জন ঢাকার এবং বিভাগে ২৯ জন ঢাকার বাইরে।

প্রসঙ্গত, দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ মারাত্মক আকার ধারণ করে ২০১৯ সালে। ওই বছর ১ লাখের বেশি মানুষ ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। মারা যান ১৪৮ জন। পরের বছর ডেঙ্গু রোগের বিস্তার ঘটেনি। ২০২১ সালের মাঝামাঝি ও ২০২২ সালে এসে উদ্বেগজনকহারে বাড়তে থাকে ডেঙ্গু রোগী।


আরও খবর

৮ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি

বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩




তাকসিমের যুক্তরাষ্ট্রে ১৪ বাড়ি: অভিযোগের বিষয়ে জানতে চান হাইকোর্ট

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী তাকসিম এ খানের যুক্তরাষ্ট্রে ১৪ বাড়ি কেনার বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) দাখিল করা দুটি অভিযোগের অনুসন্ধানের অগ্রগতি জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। দুর্নীতি দমন কমিশনকে ১৫ দিনের মধ্যে এ বিষয়ে জানাতে বলেছেন আদালত।

সোমবার (৯ জানুয়ারি) এ বিষয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন নজরে নিয়ে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ মৌখিকভাবে এ আদেশ দেন।

এর আগে দৈনিক সমকালের একটি প্রতিবেদনে প্রকৌশলী তাকসিম এ খানের বিপুল অবৈধ সম্পদ অর্জন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৪টি বাড়ি কেনার বিষয়টি উঠে আসে। এ বিষয়ে দুদকে ২টি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তাকসিম এ খানের বাড়ি কেনার অর্থের উৎস ও লেনদেন প্রক্রিয়ার তথ্য তালাশে নেমেছে ইন্টারপোলসহ একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা। বিপুল পরিমাণ অর্থে একের পর এক বাড়ি কেনার ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রে গোয়েন্দা তালিকায় সন্দেহভাজন হিসেবে তাকসিমের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে ১৪ বাড়ি কেনা এবং অর্থ পাচারকারী হিসেবে আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থার তালিকায় তাকসিম খানের নাম থাকা নিয়ে সম্প্রতি দুটি অভিযোগ জমা পড়ে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক)। অভিযোগে কিছু বাড়ির সুনির্দিষ্ট ঠিকানা, ছবি, কোন বাড়ি কখন, কত টাকায় কেনা- তা উল্লেখ করা হয়েছে। তাকসিম সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সির (সিআইএ) গভর্নমেন্ট ওয়াচ নোটিশ’-এর একটি কপি অভিযোগের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনুদ্দিন আবদুল্লাহ বলেন, আমি এখনো প্রতিবেদনটি পড়িনি। অভিযোগের কিছু শক্ত ভিত্তি থাকতে পারে।”

দুদক চেয়ারম্যান আরও জানান, তাকসিমের বিরুদ্ধে দুদকের কাছে পৃথক ৩টি তদন্ত বিচারাধীন। চলমান তদন্তে নতুন অভিযোগ যোগ করা হবে। আলাদা কোনো তদন্ত শুরু করার প্রয়োজন নেই।

মোহাম্মদ মঈনুদ্দিন আবদুল্লাহ বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে তার সম্পদের বিষয়ে জানতে আমরা বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটকে (বিএফআইইউ) চিঠি দেব। বিএফআইইউ পরবর্তী ব্যবস্থা নেবে।”


আরও খবর



২০২৩ সালেও বিপর্যয়! কী ভবিষ্যদ্বাণী বাবা ভাঙ্গার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বজুড়ে যে কয়েকজন ভবিষ্যৎদ্রষ্টা জনপ্রিয়, তাদের মধ্যে অন্যতম বাবা ভাঙ্গা। বুলগেরিয়ার এই রহস্যময় মানুষের বলে যাওয়া অনেক কথাই সত্যি হয়েছে বলে দাবি করা হয়। এজন্য তাকে বুলগেরিয়ার নস্ত্রাদামুস বলা হয়। ১২ বছর বয়সে ধুলোঝড়ে তিনি হারিয়েছিলেন চোখের দৃষ্টি। তবে তার মতে, এই ঘটনা ছিল শাপে বর। সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ। কেননা তার পর থেকেই অন্তরের দৃষ্টিতে তিনি ভবিষ্যৎ চাক্ষুষ করতে পারেন বলে দাবি করা হয়। বলে গিয়েছিলেন আগামীর কথা।

রহস্যজনকভাবে তার অনেক কথাই মিলে গেছে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়। এমনকি টুইন টাওয়ার হামলার মতো ঘটনার কথাও তিনি বলে যেতে পেরেছিলেন। এই কারণেই তার ভবিষ্যৎবাণীকে গুরুত্ব দেন বহু মানুষও।

২০২৩ নিয়েও বেশ কিছু কথা বলে গেছেন তিনি। যদিও তা যে সুখবর বয়ে আনছে, এমনটা বলা যায় না। করোনা বিপর্যয় কাটিয়ে ২০২২ খানিক সুস্থির হয়েছিল। যদিও বছরের শেষভাগে এসে ফের করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা গ্রাস করছে মানুষকে।

এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে দেখা যাচ্ছে, বাবা ভাঙ্গার কথাতেও লুকিয়ে আছে বিপর্যয়েরই ইশারা। তার মতে, প্রাকৃতিকভাবে ২০২৩-এ বহু আশ্চর্য ঘটনা ঘটবে। যার মধ্যে উল্লেখ্য হলো, পৃথিবীর কক্ষপথে পরিবর্তন। আপাতভাবে এ কথার গুরুত্ব হয়তো আমরা সেভাবে বুঝতে পারি না। তবে যদি তা হয়, তাহলে কিন্তু এর ফলে পৃথিবী বদলে যাবে অনেকটাই।

যে উষ্ণায়ন বা গ্লোবাল ওয়ার্মিং নিয়ে এখনই সারা পৃথিবী ত্রস্ত, তা কয়েক গুণ বেড়ে যাবে এর দরুন। তাতে পরিবর্তন আসবে জলস্তরেও, একইভাবে জনজীবনও মারাত্মকভাবে প্রভাবিত হবে। পৃথিবীর কক্ষপথের এই পরিবর্তনের কথাই বলে গিয়েছেন ভাঙ্গা বাবা। পাশাপাশি, তার অনুমান সোলার সুনামি হতে পারে এই ২০২৩-এই। প্রায় বিরল এ ঘটনা। যা প্রযুক্তির ওপর বড় প্রভাব ফেলতে পারে।

এ ছাড়া জৈব অস্ত্রের ব্যবহারের ফলে পৃথিবী যে বিপদের মধ্যে পড়তে এমনটাও ছিল তার অনুমান। রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের গতিপ্রকৃতির দিকে চোখ রাখলে এমন সম্ভাবনা একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যায় না বলেই মত অনেকের। সব মিলিয়ে বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যৎবাণীতে ২০২৩-এর জন্য যে বিশেষ সুখবর নেই, তা বলাই যায়। 


আরও খবর



অতীতের ভুল শোধরাতে মরিয়া জার্মানি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বেশিরভাগ সময় মানুষ সংকটে পড়লে তা থেকে উত্তরণে অতীতের ভুল সংশোধনের পথ খোঁজে। একই অবস্থা জার্মানিরও। ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় সংকটাপন্ন দেশটির শিল্প-বাণিজ্য। তাই মরিয়া হয়ে এখন জ্বালানির জন্য রাশিয়ার ওপর অতিরিক্ত নির্ভরতা কাটানোর উপায় খুঁজছে তারা। জার্মানির প্রধান রাসায়নিক কোম্পানিগুলো অনেকটা ছোটখাটো শহরের মতো। সেখানে কোটি কোটি কিলোওয়াট/ঘণ্টা গ্যাস ও বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হয়। জার্মানির জ্বালানি চাহিদা বিশাল হলেও এর আগে কখনো জোগান এতটা কমে যায়নি। অর্থাৎ, ইউক্রেন যুদ্ধের আগে জার্মানরা কখনোই জ্বালানি সংকটের তীব্রতা এভাবে অনুভব করেনি।

রাশিয়া থেকে গ্যাস সরবরাহ কার্যত বন্ধ হয়ে যাওয়ায় জার্মানির ইস্পাত কারখানা, ভারী শিল্প, যন্ত্র উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। কারণ তাদের বিশাল জ্বালানির চাহিদা মেটানো এমনিতেই কঠিন। তার ওপর গ্যাস ও বিদ্যুতের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির কারণে শিল্পক্ষেত্র বড় সংকটের মুখে পড়েছে, বিশেষ করে রাসায়নিক খাত।

জার্মানির কেন্দ্রীয় রাসায়নিক শিল্প সংগঠনের জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ইয়োর্গ রোটারমেল বলেন, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের জন্য কখনো বিশাল দাম চাওয়া হচ্ছে। ডিটারজেন্ট থেকে শুরু করে ওষুধ, আঠা ও অন্যান্য পণ্য উৎপাদনের এই বাড়তি ব্যয় ক্রেতাদের ঘাড়ে চাপিয়ে দেওয়া আর সম্ভব হচ্ছে না। আগামী বছর থেকে সব রাসায়নিক পণ্যের ক্ষেত্রেই এমন সমস্যা দেখা যেতে পারে।

এতদিন বিএএসএফ নামে একটি জার্মান রাসায়নিক কোম্পানি তার গ্যাসের চাহিদার প্রায় অর্ধেকটাই মেটাতো রাশিয়া থেকে। ১৯৯০র দশকের শুরুতে কোম্পানিটি রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংস্থা গ্যাজপ্রমের সঙ্গে লুডভিগ্সহাফেনে একটি গ্যাস পাইপলাইন নির্মাণ করেছিল। পোল্যান্ডের ওপর দিয়ে জার্মানি পর্যন্ত বিস্তৃত ইয়ামাল পাইপলাইনে বিনিয়োগ করেছিল বিএএসএফ। ২০০৮ সাল থেকে তারা নর্ড স্ট্রিম ১ পাইপলাইন নির্মাণকাজেও অংশ নেয়। এর ফলে বেশ কম দামে রাশিয়া থেকে গ্যাস আনা সম্ভব হয়েছিল।

জার্মান অর্থনীতি গবেষণা কেন্দ্রের প্রেসিডেন্ট মার্সেল ফ্রাচারের মতে, ক্রিমিয়া দখলের পরেও রাশিয়ার ওপর নির্ভরতা বাড়ানো প্রথম ভুল ছিল। দ্বিতীয় ভুল হলো নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদন বাড়ানোর ক্ষেত্রে ঢিলেমি। দক্ষতাসম্পন্ন ও সাশ্রয়ী প্রযুক্তি থাকা সত্ত্বেও ১০ বছর ধরে জার্মানি সেই পথে এগোয়নি। এখন তার কুফল দেখতে হচ্ছে। অর্থাৎ, আমাদের ভুলই জার্মানিতে এমন গভীর সংকট ও অর্থনৈতিক কাঠামো বিপন্ন করে তোলার কারণ।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় জার্মানিতে বিদ্যুতের দাম বেশ চড়া। ফলে সেখানকার মাঝারি মাপের রপ্তানি-নির্ভর কোম্পানিগুলোর জন্য জ্বালানির উচ্চমূল্য বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অথচ এমন প্রতিষ্ঠানগুলোর সাহায্য নিয়েই জার্মানি অতীতের সংকটগুলো কাটিয়ে উঠেছিল। দেশ হিসেবেও জার্মানি বিশ্বায়নের ব্যাপক ফায়দা তুলেছে। কিন্তু সস্তা জ্বালানি না পাওয়ায় বিশ্ববাজারে জার্মান পণ্য অতিরিক্ত দামি হয়ে উঠছে। এর সমাধান কী?

আইএনজি ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ কার্স্টেন ব্রজেস্কি বলেন, জীবাশ্মভিত্তিক জ্বালানি ত্যাগ করে বিকল্প জ্বালানি গ্রহণের প্রক্রিয়া অবশ্যই বর্তমান সংকট থেকে মুক্তি পাওয়ার ও ইতিবাচক কিছু করে দেখানোর বিশাল সুযোগ। শিল্পভিত্তিক দেশ, ইঞ্জিনিয়ারদের দেশ হিসেবে আবার নেতৃস্থানীয় ভূমিকা ফিরে পেতে সেই প্রক্রিয়া আমাদের সাহায্য করতে পারবে এবং অবশ্যই করবে। টেকসই পদ্ধতি ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি খুবই জরুরি।

নিউজ ট্যাগ: জার্মানি

আরও খবর