Logo
শিরোনাম

যেভাবে বৈশাখে এলো পান্তা ইলিশের প্রচলন

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলা পঞ্জিকার প্রথম মাস বৈশাখের প্রথম দিনে নববর্ষের উদযাপন বাঙালিয়ানার রীতি। আমাদের সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ। এ উৎসব ইতিহাস-ঐহিত্যের সঙ্গে জড়িয়ে আছে নিবিড়ভাবে।

বাংলাদেশ, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরার বাঙালিরা নববর্ষ হিসেবে বিশেষ উৎসবের সঙ্গে এই দিনটি উদযাপন করে। নতুন বছরের সমৃদ্ধি কামনা করে। ব্যবসায়ীরা পুরনো বছরের হিসাব-নিকাশ চুকিয়ে নতুন বছরে যাত্রা করে। যাকে বলে হালখাতা। ক্রেতাদের মিষ্টি মুখ ও উপহার দিয়ে অতীতের হিসেবের খাতার ইতি টানা হয়।

পহেলা বৈশাখ বা বাংলা নববর্ষ উদযাপনের কথাটি মাথায় এলেই মুখ দিয়ে অকপটে বেরিয়ে আসে পান্তা-ইলিশের আহারবিলাস। প্রভাতে ইলিশ ভাজা, মরিচ পোড়া, বেগুন ভাজা, আলুভর্তা আর পান্তা ইলিশের ভোজ না হলে যেন বৈশাখের উদযাপনই ফিঁকে হয়ে আসে। যদিও বৈশাখের সঙ্গে পান্তা-ইলিশের প্রচলনের ইতিহাস খুব দীর্ঘ নয়।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, পান্তা-ইলিশের সূচনা হয় ১৯৮৩ সালে রমনার বটমূলে। রমনার বর্ষবরণ উৎসব এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রার সুবাদে প্রতিবারই ব্যাপক লোক সমাগম হয়। যদিও করোনা পরিস্থিতির কারণে দুবছর কোনো আয়োজনই হচ্ছে না। তবে সীমিত পরিসরে যে যার মতো বাসায় পান্তা-ইলিশের বৈশাখী আয়োজন ঠিকই করে আসছে।

আবহমানকাল থেকেই পহেলা বৈশাখ বাঙালি উদযাপন করে আসছে মেলা, হালখাতাসহ নানাভাবে। দিনটিতে ঘরে ঘরে ভালো খাবারের আয়োজনও নিয়মিত অনুষঙ্গ। তবে পান্তা কিংবা ইলিশ কখনোই পহেলা বৈশাখের অনুষঙ্গ ছিল না। এর প্রচলন নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে। দ্রুতই পান্তা-ইলিশ পহেলা বৈশাখের সমার্থক হয়ে ওঠে। কিন্তু, বৈশাখ অর্থাৎ এপ্রিল মাস জাটকা ইলিশের নদী থেকে সাগরে ফিরে যাওয়ার সময়। তাই জাটকা নিধন রোধে এসময় সরকারিভাবে ইলিশ শিকার নিষিদ্ধ। তাই পহেলা বৈশাখে ইলিশ খাওয়ার ব্যাপারে মানুষকে নিরুৎসাহিত করার পক্ষে মৎসবিদসহ সংশ্লিষ্টরা।


আরও খবর

জাতীয় পতাকা দিবস আজ

মঙ্গলবার ০২ মার্চ 2০২1

ঐতিহাসিক গণঅভ্যুত্থান দিবস আজ

রবিবার ২৪ জানুয়ারী ২০২১




বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকায় ৩০ কি‌লো‌মিটার যানজট

প্রকাশিত:বুধবার ১২ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৫৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
পুলিশের চেকপোস্ট থাকায় খালি কোনো যানবাহন দেখলেই যাত্রীরা তাতেই উঠে বসছে। তাদের অধিকাংশই গার্মেন্টস কর্মী। ঘরমুখী এসব মানুষদের গুণতে হচ্ছে চার থেকে পাঁচগুণ বেশি ভাড়া। গাদাগাদি করে বাড়ি ফেরা

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের ৩০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজট সৃষ্টি হয়েছে। ফলে এই এলাকায় থেমে থেমে যান চলাচল করছে। বুধবার (১২ মে) সকাল থেকে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করটিয়া থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত এ যানজটের সৃষ্টি হয়। এ কারণে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে ট্রাক, পিকআপ ও মোটরসাইকেলে চলাচল করা ঘরমুখী মানুষ। এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, মহাসড়কের করটিয়া, টাঙ্গাইল বাইপাস, এলেঙ্গা, সল্লা, হাতিয়া এলাকায় যানবাহনের সঙ্গে যাত্রীদের জটলা সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশের চেকপোস্ট থাকায় খালি কোনো যানবাহন দেখলেই যাত্রীরা তাতেই উঠে বসছে। তাদের অধিকাংশই গার্মেন্টস কর্মী। ঘরমুখী এসব মানুষদের গুণতে হচ্ছে চার থেকে পাঁচগুণ বেশি ভাড়া। গাদাগাদি করে বাড়ি ফেরা এসব মানুষদের মাঝে বেড়ে যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি।

এ দিকে, চন্দ্রা, গোড়াই, মির্জাপুর ও দেওহাটা এলাকায় যানবাহন ও যাত্রীদের চাপ রয়েছে। যার অধিকাংশই উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলার লোক।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত জানান, বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্বপার থেকে গাড়ি টানতে না পারায় টাঙ্গাইলের অংশে থেমে থেমে যানবাহন চলাচল করছে। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বাভাবিক হবে।

নিউজ ট্যাগ: বঙ্গবন্ধু সেতু

আরও খবর



বাড়ছে সোনার দাম, দুপুরেই কার্যকর

প্রকাশিত:সোমবার ১০ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সোনার দামে বড় ধরণের পরিবর্তন আসছে। প্রতি ভরিতে ২৩৩৩ টাকা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। বিশ্ববাজারে দাম বাড়ায় সোমবার জরুরি সভা করে এই দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দুপুর থেকেই বর্ধিত মূল্য কার্যকর করা হবে বলে জানিয়েছে বাজুস।

সূত্রটি জানায়, সোমবার কার্যনির্বাহী কমিটির সভা করে প্রতি গ্রাম স্বর্ণের দাম ২০০ টাকা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে ভরিতে স্বর্ণের দাম বাড়বে ২৩৩৩ টাকা। আজ সোমবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে।


আরও খবর



মামুনুল হকসহ ১৪ হেফাজত নেতা কাশিমপুর কারাগারে

প্রকাশিত:বুধবার ১২ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৪৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
জেলার দেবদুলাল সংবাদমাধ্যমকে বলেন, মামুনুল হকসহ আরও অনেকেই গ্রেপ্তারের পর কেরাণীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছিল। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার রাতে পুলিশ হেফাজতে মামুনুল হক

মামুনুল হক ও রফিকুল ইসলাম মাদানীসহ ১৪ হেফাজত ইসলামের নেতাকে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার (১১ মে) রাতে কেরাণীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে তাদের এ কারাগারে স্থানান্তর করা হয়েছে।

কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার দেবদুলাল সংবাদমাধ্যমকে বলেন, মামুনুল হকসহ আরও অনেকেই গ্রেপ্তারের পর কেরাণীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারে নেওয়া হয়েছিল। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার রাতে পুলিশ হেফাজতে মামুনুল হক ও রফিকুল ইসলাম মাদানীসহ ১৪ জন হেফাজত ইসলামের নেতাকে কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেওয়ায় রফিকুল ইসলাম মাদানীকে আটকের পর গ্রেপ্তার দেখানো হয়। পরপর তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা দায়ের করা হয়। এরপর তিনি কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ বন্দী ছিলেন।


আরও খবর



কেন গ্রেফতার হলেন মামুনুল

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ মে ২০২১ | ৭৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোববার (১৮ এপ্রিল) রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে দুপুর পৌনে ১টার দিকে তাকে গ্রেপ্তারকরা হয়।

তেজগাঁও বিভাগের উপ কমিশনার (ডিসি) হারুন-অর-রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গ্রেপ্তারের পর মামুনুল হককে তেজগাঁও বিভাগের ডিসি কার্যলয়ে নিয়ে আসা হয়।

সেখানে হারুন-অর-রশিদ সাংবাদিকদের জানান, ২০২০ সালে মোহাম্মদপুর থানায় করা একটি ভাঙচুরের মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ডিসি হারুন বলেন, মোহাম্মদপুর থানায় একটি ভাঙচুরের মামলা ছিল। সেই মামলার প্রেক্ষিতে আমরা তদন্ত করছিলাম। আমরা কনফার্ম হয়েছি তিনি এই মামলার সঙ্গে তিনি জড়িত। মোহাম্মদপুর থানার মামলায় জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে পৌনে একটার দিকে গ্রেপ্তার করি। এ ঘটনা তিনি জানেন। সত্যতাও স্বীকারও করে নিয়েছেন।

বিস্তারিত আসছে...


আরও খবর



করোনা রোগীদের ডায়েট চার্ট

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সারাবিশ্বেই দাপিয়ে বেড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। সংক্রমণের সঙ্গে লড়াই করতে হলে বাড়াতে হবে প্রতিরোধ ক্ষমতা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভ্যাকসিন শুধু ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য যথেষ্ট নয়, সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হলে স্বাস্থ্যকর খাবারও প্রয়োজন।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি না হয়ে চিকিৎসকদের পরামর্শে বাড়িতে রয়েছেন। তাদের জন্য ডায়াটেশিয়ানদের মতে ডায়েট চার্ট এরকম হওয়া দরকার।  

সকালে

ঘুম থেকে উঠে চা, দুটি বিস্কুট, সাধারণ খাবার, দুটি পাউরুটি মাখন বা জ্যামসহ, একটি কলা, এক কাপ দুধ, একটি  ডিম সেদ্ধ অথবা হাতে গড়া রুটি, নানারকম সবজি দিয়ে তরকারি, অথবা দুধ কর্নফ্লেক্স ,কর্নফ্লেক্সের বদলে কেউ পছন্দ করে মুড়ি। এরপর ফল খেতে পারেন। পেয়ারা অথবা তরমুজ অথবা আপেল অথবা পাকা পেঁপে খেতে পারেন। 

দুপুরে  

দুপুরের খাবারে পরিমাণ মতো ভাত, এক বাটি ডাল, তরকারি নানারকম সবজি খান। যেমন গাজর, বরবটি, পটল, বাঁধাকপি ইত্যাদি। তরকারির মধ্যে কিছু নিউট্রিলা চাঙ্ক দিলে ভালো। পাতলা মাছের ঝোল, ঘরে পাতা টক দই।

চা বিস্কুট

চা বিস্কুট খেতে পারেন। এরপর অঙ্কুরিত ছোলা একটু  মুখরোচকভাবে খান। কারণ, এই সময় মুখে স্বাদ থাকে না। শশা, টমেটো, পেঁয়াজ কুচি দিয়ে, সামান্য বিট লবণ, লেবুর রস ছড়িয়ে খেতে পারেন। কোনোদিন অঙ্কুরিত মুগ খেতে পারেন ছোলার বদলে। কোনোদিন মুড়ি, ছোলা ভেজানো। 

রাতের খাবার

রাতে তাড়াতাড়ি খাবার খেয়ে নেবেন। গরম স্যুপ, দুটি হাতে গড়া রুটি, পাতলা চিকেনের ঝোল (দুপিস চিকেনসহ), ডাল, তরকারি। চিকেনের বদলে পণীর অথবা নিউট্রিলার তরকারি। কোনোদিন মুখ বদলের জন্য পাতলা খিচুড়ি খাবেন রুটির বদলে।    

ঘুমানোর আগে

এক কাপ দুধ অথবা স্যুপ খাবেন। সারাদিনে প্রচুর পরিমাণে পানি খাবেন। উষ্ণ পানি খেতে পারেন। সব অল্প তেলে রান্না হবে। ঝাল মশলা একদম নয়। ডায়াবেটিস, কিডনি বা অন্য কোনো রোগের সমস্যা থাকলে সেই অসুখের নির্ধারিত খাদ্যবিধি মেনে চলবেন।

নিউজ ট্যাগ: ডায়েট চার্ট

আরও খবর