Logo
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রে এক পরিবারের ছয় বাংলাদেশির লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ১১৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের ডালাস শহরের উপকণ্ঠে একটি বাড়ি থেকে বাংলাদেশের পাবনা জেলার এক পরিবারের ছয় সদস্যের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। স্থানীয় সময় সোমবার তাঁদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পাবনা শহরের দোহারপাড়ায় নিহতদের স্বজনদের মধ্যে শোকের মাতম চলছে।

পুলিশের ধারণা, দুই ভাই পরিবারের চার সদস্যকে হত্যার পর নিজেরা আত্মহত্যা করেছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মৃতদের মধ্যে দুই ভাই, এক বোন, তাঁদের মা-বাবা ও নানি রয়েছেন। তারা হলেন ১৯ বছর বয়সী যমজ ভাই-বোন ফারহান তৌহিদ ও ফারবিন তৌহিদ, বড় ভাই তানভীর তৌহিদ (২১), মা আইরিন ইসলাম (৫৬), বাবা তৌহিদুল ইসলাম (৫৪) ও নানি আলতাফুন্নেসা (৭৭)।

স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, ওই পরিবারে দুই ভাইয়ের একজনের বন্ধু সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে পুলিশকে তাঁর বন্ধুর আত্মহত্যার আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন। এরপর পুলিশ ওই বাড়িতে যায়। নিহত ব্যক্তিরা বাংলাদেশের। এখন পর্যন্ত এ ঘটনার কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

পুলিশ সার্জেন্ট জন ফেল্টি বলছেন, ধারণা করা হচ্ছে, তাঁরা গুলিতে নিহত হয়েছেন। মনে হচ্ছে, দুই ভাই আত্মহত্যা করেছেন এবং এর আগে পরিবারের সদস্যদের হত্যা করেছেন।

দুই ভাইয়ের মধ্যে একজন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি পোস্ট দিয়েছিলেন। সেখানে উল্লেখ করা ছিল, তিনি ও তাঁর ভাই পরিকল্পনা করেছেন যে, তাঁরা তাঁদের পরিবারের সদস্যদের হত্যা করবেন এবং এরপর নিজেরা আত্মহত্যা করবেন। এ ছাড়া পোস্টে তিনি নিজেদের হতাশাগ্রস্তের কথাও উল্লেখ করেন। হতাশা কাটাতে তিনি চিকিৎসা করিয়েছেন এবং ওষুধও খেয়েছেন বলে জানান। তবে সেগুলো আগের মতো কাজ করছে না বলে তাঁর মনে হচ্ছিল। পোস্টে ওই যুবক আরও লেখেন, তাঁর ভাই খুব সহজেই আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ করতে পেরেছেন।

এদিকে, নিহত আইরিনের ভাতিজা তাওসিফ হোসেন জানান, তারা পুলিশের মাধ্যমে জানতে পেরেছেন, তৌহিদুল ইসলামের দুই ছেলে নিজেরা ঠিক করেছিলেন তাঁরা আত্মহত্যা করবেন এবং সেই সঙ্গে পুরো পরিবারকে হত্যা করবেন। সে অনুযায়ী তাঁরা হত্যাযজ্ঞ করে থাকতে পারেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ সংক্রান্ত একটি পোস্টও করছিলেন ১৯ বছর বয়সী ছোট ছেলে। সেখানে তিনি নিজেকে হতাশাগ্রস্ত বলে উল্লেখ করেছেন।

তবে, ওই পরিবারের ঘনিষ্ঠজন ও প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, দুই ভাইয়ের হতাশাগ্রস্তের কথা তাঁরা জানতেন না। দুই ভাই ছিলেন খুবই সপ্রতিভ, পড়াশোনায়ও ভালো ছিলেন। তাঁদের বাবা তৌহিদুল দুই ছেলেকে নিয়ে সবসময় গর্ব করতেন।

জানা গেছে, দুই ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে টেক্সাসের ডালাসে বসবাস করতেন বাংলাদেশি দম্পতি তৌহিদুল ইসলাম ও আইরিন ইসলাম। আইরিন ইসলামের মা আলতাফুন্নেসা বাংলাদেশের পাবনা থেকে মেয়ের কাছে থাকার জন্য গিয়েছিলেন। দেশে ফেরার কথা থাকলেও, করোনার কারণে আটকা পড়েছিলেন তিনি।

নিউইয়র্কে বসবাসকারী কমিউনিটি অ্যাকটিভিস্ট ও পাবনার বাসিন্দা গোপাল সান্যাল বলেন, মর্মান্তিক ঘটনাটির শিকার পরিবারটির বাড়ি পাবনার দোহারপাড়ায়। তাঁরা বিখ্যাত হায়দার পরিবারের সদস্য। দোহারপাড়ার বিখ্যাত ব্যক্তি জিয়া হায়দার, রশিদ হায়দার ওনাদের আত্মীয়। এ ঘটনা কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না।

নিউজ ট্যাগ: লাশ উদ্ধার

আরও খবর



রাজশাহীতে করোনায় একদিনে আরও ১২ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ মে ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আরও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। রাজশাহী মেডিকেলে করোনায় মৃত্যুর এ সংখ্যা সর্বোচ্চ।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস রবিবার সকালে করোনায় হতাহতের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃত ১২ জনের মধ্যে করোনা বিধ্বস্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলারই সাতজন রয়েছেন।  বাকি দুজন রাজশাহীর, দুজন নওগাঁ জেলার ও একজন নাটোর জেলার বাসিন্দা।

মৃতদের মধ্যে আটজন করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বাকি চারজন উপসর্গ নিয়ে মেডিকেলের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। এদের মধ্যে  আইসিইউতে মারা গেছেন তিনজন।

বর্তমানে রাজশাহী মেডিকেলে আক্রান্ত ২০৭ করোনা রোগী চিকিৎসাধীন। তিনি আরও বলেন, রাজশাহী অঞ্চলে দ্রুত কঠোর লকডাউন আরোপ ছাড়া পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের কোনো পথ নেই।  

তিনি আরও বলেন, গত বছর মার্চে দেশে করোনা শুরুর পর থেকে রাজশাহী মেডিকেলে একদিনে একসঙ্গে এতজনের মৃত্যু আগে হয়নি। পরিস্থিতি খুবই ভয়ঙ্কর এবং সেই সঙ্গে ভীতিকরও। তিনি করোনার এই ছোবল থেকে বাঁচতে সবাইকে ঘরে থাকা, জরুরি প্রয়োজনে বাহিরে গেলে মাস্ক পরিধানের পরামর্শ দেন।


আরও খবর



ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বিষয়ে সর্তক থাকাটা জরুরি বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞেরা

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ১১৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছোঁয়াচে নয়। এটি নিয়ে শঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকাটা জরুরি বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞেরা। তাঁরা বলছেন, এ ছত্রাকবাহিত রোগ বাংলাদেশে আগেও হয়েছে। এ ছত্রাক প্রকৃতির সর্বত্র আছে। রোগ প্রতিরোধ কমে গেছে, এমন ব্যক্তিদের এতে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তবে আক্রান্ত হলে এতে মৃত্যুর আশঙ্কা থাকে।

তিন দিন আগে রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে একজন রোগীর মৃত্যু হয়। আজ মঙ্গলবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, পরীক্ষা-নিরীক্ষায় দেখা গেছে, ওই রোগী অন্যান্য রোগের পাশাপাশি মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত ছিলেন বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে সংক্রমিত একজন রোগী এখনো বারডেম হাসপাতালে ভর্তি আছেন। শনাক্ত হওয়া আরেকজন রোগী অন্য হাসপাতালে চলে গেছেন।

প্রতিবেশী ভারতে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৮ হাজার ৮০০ জন এই ফাঙ্গাসে সংক্রমিত হয়েছেন।

এ পরিস্থিতিতে দেশের দুজন অণুজীববিজ্ঞানীর সঙ্গে কথা হয়। তাঁরা হলেন জনস্বাস্থ্যবিদ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখার সাবেক পরিচালক অধ্যাপক বে-নজির আহমেদ এবং বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব চাইল্ড হেলথের অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান সমীর কুমার সাহা।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কী

সমীর কুমার সাহা বলেন, মিউকরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সর্বত্র বিরাজমান। আমাদের চারপাশেই এটি আছে। বেশি সময় ধরে ঘরে রাখা আমাদের জুতাতেও এ ছত্রাক থাকতে পারে, দীর্ঘক্ষণ রাখা রুটিতেও এটি সৃষ্টি হতে পারে। মাটি, গাছপালা, সার বা পচনশীল ফল ও সবজির মধ্যে এটি থাকতে পারে। এটি কোনো বিরল কিছু না।

এখন কেন বেশি ছড়াচ্ছে

করোনা মহামারির এ সময়ে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছড়ানোর কথা বেশি শোনা যাচ্ছে। যেকোনো রোগে আক্রান্ত হলে শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কমে যায়। এ অবস্থায় রোগীর জটিল অবস্থা সৃষ্টি হলে স্টেরয়েড দেওয়া হয়। এটা প্রমাণিত যে এটি রোগীকে সহায়তাও করে। করোনায় আক্রান্ত রোগীকেও স্টেরয়েড দেওয়া হয় বা হচ্ছে। ফুসফুসে যখন ভাইরাসটি যায়, তখন আমাদের শরীরে অনেক বেশি প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। এমন মারাত্মক পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়াকে আমরা স্টর্মও বলে থাকি। এতে রোগীর অবস্থা অনেক খারাপ হয়ে যায়। এই স্টর্ম বা ঝড়ের মধ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা অন্য যেকোনো সুযোগসন্ধানী জীবাণু, যেগুলো কিনা সাধারণ পরিস্থিতিতে আক্রমণ করে না, তারা এ সময় সক্রিয় হয়ে ওঠে। স্টেরয়েড প্রয়োগ করে রোগীর এই বাড়াবাড়ি অবস্থা নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে। কিন্তু যদি এই স্টেরয়েডের পরিমাণ বেশি দিয়ে দেওয়া হয় অথবা রোগীর কোমর্বিডিটি থাকে, তখন রোগীর প্রতিরোধের ক্ষমতা কমে যায়। এসব মানুষের মধ্যে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে অন্য যেকোনো জীবাণুতে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়। স্টেরয়েডের সঠিক ব্যবহারে এর নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়।

আবার যখন স্টেরয়েডটা দেওয়া হচ্ছে, তখন পারিপার্শ্বিক পরিবেশকে পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। পরিচ্ছন্নতার অভাব এই ফাঙ্গাস ছড়ানোর একটি কারণ হতে পারে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কি ছোঁয়াচে

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছোঁয়াচে নয় মোটেও। তাই এ নিয়ে ভীতির কারণ নেই বলেই মনে করেন অণুজীববিজ্ঞানী অধ্যাপক সমীর সাহা। খুব কদাচিৎ এর সংক্রমণ দেখা যায়।

অণুজীববিজ্ঞানী বে-নজির আহমদের মন্তব্য, আক্রান্ত রোগী থেকে অন্যজনের হবে না। অর্থাৎ এটি মানুষে থেকে মানুষে ছড়ায় না বটে, তবে এটি ভিন্নভাবে ছড়াতে পারে। যেমন রোগীর চিকিৎসা-বর্জ্য হিসেবে এটি প্রকৃতিতে গেলে সেই বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিরা যদি নিরাপদ না থাকেন বা তাঁদের প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকলে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

 ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কীভাবে মানুষের শরীরে যেতে পারে?

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) তথ্য অনুযায়ী, স্বাস্থ্যগত জটিল সমস্যায় থাকা ব্যক্তি বা চিকিৎসায় ওষুধ ব্যবহারের ফলে প্রতিরোধক্ষমতা কমে যাওয়া ব্যক্তিদের এতে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। প্রকৃতিতে থাকা এ ছত্রাক নাক দিয়ে শ্বাসগ্রহণের মাধ্যমে সাইনাসে এবং ফুসফুসে ঢুকতে পারে। প্রতিরোধক্ষমতা কম থাকা ব্যক্তির শরীরের কাটাছেঁড়া জায়গা, পোড়া জায়গা বা চর্মের কোনো ক্ষত থাকলে সেখানেও আক্রান্ত হতে পারে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কত মারাত্মক?

ভারতের উদাহরণ দিয়ে বলা যায়, সেখানে মৃত্যুর হার ছিল শতকরা ৫০ শতাংশের বেশি।

ভারতে কেন এত বেশি

দুটি মূল কারণের কথা বলেন রোগতত্ত্ববিদ বে-নজির আহমেদ। তাঁর কথা, ভারতে করোনায় মৃত্যু ব্যাপক হারে বাড়তে থাকায় একপর্যায়ে মৃতদেহের সৎকারের প্রথাগত স্থানে সংকুলান হচ্ছিল না। একপর্যায়ে তাই পোড়ো জায়গাগুলো সৎকারের জন্য বেছে নেওয়া হয়। যখন এমনটা করা হলো তাতে ঝুঁকি বেড়ে গেল। এসব অপরিচ্ছন্ন স্থান থেকে জীবাণু ছড়ানোর আশঙ্কাকে বাদ দেওয়া যায় না।

ভারতে যারা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হয়েছে, তাদের একটা বড় অংশেরই অক্সিজেন বেশি নেওয়ার কথা জানা গেছে। এবার ভারতে শিল্পের অক্সিজেন ব্যবহার করা হয়েছে। এখানকার অক্সিজেন সিলিন্ডার যত্রতত্র পড়ে থাকে। ধরা যাক, কোনো সিলিন্ডারের গায়ে এটি লেগে আছে। হাসপাতালে এটি নিয়ে আসার পর যাঁরা এর রক্ষণাবেক্ষণ করছেন, তাঁদের হাতে এটি লেগে যাচ্ছে। সেটি রোগীর মধ্যে চলে যেতে পারে। আবার সিলিন্ডারের যেখান থেকে অক্সিজেন বেরোচ্ছে, সেখানে যদি ছত্রাক লেগে থাকে তবে ক্যাথেটার লাগিয়ে যদি রোগীকে তা দেওয়া হয়, তবে তা সরাসরি ফুসফুসে চলে যাবে। এটি ভয়াবহ সমস্যা সৃষ্টি করবে।

বে-নজির আহমেদ বলেন, আমাদের জন্য এটি একটি শিক্ষা। আমাদের এখানে অক্সিজেন সিলিন্ডারগুলোকে জীবাণুমুক্ত করার বিষয়টি এখন বেশি করে ভাবতে হবে। হাসপাতালে আসার আগে ও পরে সিলিন্ডার জীবাণুমুক্ত করতে হবে। প্রয়োজনে মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে নির্দেশ দিতে হবে।

কাদের ব্ল্যাক ফাঙ্গাস হওয়ার আশঙ্কা থাকে?

যে মানুষগুলোর রোগ প্রতিরোধক্ষমতা অনেক কম, তারা এতে আক্রান্ত হতে পারে। ক্যানসার, এইডসে আক্রান্ত রোগীদের এতে সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে। ডায়াবেটিস, ক্যানসার আক্রান্ত হওয়ার পর রেডিও থেরাপি বা কেমোথেরাপি নিচ্ছে, তারা খুব ঝুঁকিতে আছে। বংশ বা জন্মগতভাবে কেউ কেউ কম প্রতিরোধক্ষমতার অধিকারী। ঝুঁকি তাদেরও আছে। তাদের জন্য বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে, যাতে করে প্রকৃতি থেকে না আসে। যেসব রোগী স্টেরয়েড পেয়েছে, তাদের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা কম থাকে। তাদেরও সাবধানে থাকতে হবে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছড়ায় কীভাবে

যেহেতু এটি প্রকৃতিতে বসবাস করে, তাই যেকোনো সময় এটি ছড়াতে পারে। এটি যেকোনো সময়েই আমাদের সংস্পর্শে আসতে পারে। আমাদের স্বাভাবিক প্রতিরোধক্ষমতার বলেই এটি আক্রমণ করলেও কিছু হয় না। বে-নজির আহমেদ বলেন, ব্ল্যাক ফাঙ্গাস চোখ ও নাক দিয়ে প্রবেশ করতে পারে। চোখ থেকে আবার মস্তিষ্কে চলে যেতে পারে। এটা প্রাণঘাতী। আর সাইনাসের জায়গাটি ফাঁপা। সেখানে সংক্রমণ ব্যাপক আকারে হতে পারে এবং সেখান থেকে বেড়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কি এই প্রথম

বে-নজির আহমেদ বলেন, বাংলাদেশে এই সংক্রমণ আগেও হয়েছে। তবে সংখ্যায় কম। তাই এটি আমাদের দেশে হয় নাএমন কথা ঠিক নয়; আবার খুব বেশি হয়, সেটাও ঠিক নয়। এই সংক্রমণ মাঝেমধ্যেই আমাদের দেশে হয়।

করোনা রোগীদের জন্য ঝুঁকি কতটুকু

করোনা রোগীদের কারও কারও যেহেতু অক্সিজেনের প্রয়োজন হতে পারে তাই এই অক্সিজেন যাওয়াটা সব দিক থেকে জীবাণুমুক্ত হওয়াটা সবচেয়ে জরুরি বলে মনে করেন বে-নজির আহমেদ। তিনি বলেন, সব দিক থেকে জীবাণুমুক্ত হওয়া বলতে বোঝাচ্ছি সিলিন্ডারের গায়ে, নজল বা যে ক্যাথেটার দিয়ে অক্সিজেনটা দেওয়া হবে, সেখানে যেন না লেগে থাকে, সেটি নিশ্চিত করতে হবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে সব হাসপাতালে এ জন্য নজর দেওয়া উচিত।

সতর্কতা কী ধরনের

ব্যক্তিপর্যায়ে বেশি সতর্ক হওয়া উচিত তাদের, যারা করোনাকালে যেসব ব্যক্তি স্টেরয়েড পেয়েছে। করোনাকালে যেসব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা বলা হয়েছে, আক্রান্ত হওয়ার পরও তাদের এসব পালন করতে হবে। যেমন মাস্ক পরা, বারবার হাত ধোয়ার বিধি মানতে হবে। বিশেষ করে বাইরে থেকে এসে হাত অবশ্যই ধুতে হবে। তাদের কত দিন এটা পালন করতে হবে?

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বে-নজির আহমেদের কথা, এসব ব্যক্তি যত দিন পারেন মাস্কটা পরবেন। এটা একটা অযাচিত সংক্রমণ। এটা যাতে না আসে, সে জন্য সতর্ক থাকতে হবে।

ঝুঁকি কীভাবে কমানো যায়, সিডিসির পরামর্শ

যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের তথ্যমতে, মিউকরমাইকোসিস আসে পরিবেশ থেকে। তাই একে রোধ করা কঠিন। এর কোনো টিকা নেই। যেসব মানুষের প্রতিরোধশক্তি কম, তাদের জন্য কিছু পরামর্শ আছে ঝুঁকি কমানোর। তবে এর মাধ্যমে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে পুরোপুরি মুক্ত থাকা যাবে, তা নয়।

ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের নির্মাণকাজ বা খননকাজ চলছে এমন স্থানে যাওয়া যাবে না। যদি যেতেই হয় তবে এন নাইনটিফাইভ মাস্ক পরে যাওয়া উচিত। বন্যা বা পানিতে ডুবে ছিল এমন ভবনে না যাওয়া উচিত। ধুলাবালু এড়িয়ে চলতে হবে, এড়িয়ে চলতে হবে স্যাঁতসেঁতে এলাকাও। বাগানে, উঠানে বা বনের মধ্যে ঘুরতে গেলে জুতা, ফুল প্যান্ট এবং ফুল স্লিভ শার্ট পরতে হবে। মাটি ধরতে হয়এমন কাজের জন্য অবশ্যই গ্লাভস পরে থাকতে হবে।

চামড়ার মাধ্যমে যেন সংক্রমণ না হয়, সে জন্য আক্রান্ত স্থান পরিষ্কার রাখতে হবে। বিশেষ করে এসব স্থানে যদি ধুলাবালু লাগে, তবে অবশ্যই তা সাবান-পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।


নিউজ ট্যাগ: ব্ল্যাক ফাঙ্গাস

আরও খবর



দেশে আজ আসছে ফাইজারের টিকা

প্রকাশিত:সোমবার ৩১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ৬১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কোভ্যাক্স থেকে ফাইজারের ১ লাখ ৬২০ ডোজ করোনাভাইরাসের টিকা বাংলাদেশে আসবে আজ সোমবার রাতে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমএনসিঅ্যান্ডএএইচ অপারেশনাল প্ল্যানের লাইন ডিরেক্টর ডা. মো. শামসুল হক এ তথ্য দিয়েছেন।

গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত আমাদের কাছে যে তথ্য আছে, তাতে টিকা আসবে সোমবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে। কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে।

যদিও ওই টিকা আসার কথা ছিল রবিবার। তবে ফ্লাইট সিডিউল না পাওয়ায় টিকা আসতে দেরি হয়েছে।

প্রসঙ্গত, দেশে করোনাভাইরাসের টিকা সঙ্কটের মধ্যে গত ১৯ মে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছিলেন, ফাইজার-বায়োএনটেকের তৈরি এক লাখ ৬২০ ডোজ টিকা আগামী ২ জুন আসবে। পরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়, রবিবার এই টিকার চালান আসবে।

এই প্রক্রিয়ার মধ্যে বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান জৈবপ্রযুক্তি কোম্পানি বায়োএনটেকের তৈরি করা করোনাভাইরাসের এই টিকা বাংলাদেশে জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেয় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

গত বছরের ২ ডিসেম্বর বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাজ্য ফাইজারের টিকা জরুরি ব্যবহারের অনুমতি দেয়। যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডাসহ বিভিন্ন দেশে এখন এ টিকা প্রয়োগ করা হচ্ছে।


নিউজ ট্যাগ: ফাইজারের টিকা

আরও খবর

সরকারি শূন্যপদ ৩ লাখ ৮০ হাজার

মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১




করোনায় আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৬৩৭

প্রকাশিত:শনিবার ১২ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৩ হাজার ৭১ জনে।

একই সময়ে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৬৩৭ জন। মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল আট লাখ ২৪ হাজার ৪৮৬ জনে।

শনিবার (১২ জুন) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ২৬ জন পুরুষ এবং ১৩ জন নারী। এদের মধ্যে বাসায় মারা গেছেন তিনজন। বাকিরা হাসপাতালে মারা গেছেন।

এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে খুলনা বিভাগে ১১ জন। ঢাকা বিভাগে ১০ জন, রাজশাহীতে সাতজন। এর বাইরে চট্টগ্রামে ছয়জন, বরিশালে দুইজন, রংপুরে দুইজন ও সিলেটে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ হাজার ৬৬১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা করা হয়েছে ১১ হাজার ৫৯০টি। দেশে এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৬১ লাখ ৫৬ হাজার ৩৬৩টি।

অপরদিকে একই সময়ে সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ১০৮ জন করোনা রোগী। এ নিয়ে দেশে মোট সুস্থ হলেন সাত লাখ ৬৪ হাজার ২৪ জনে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ১২ শতাংশ। আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ।

শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯২ দশমিক ৬৭ শতাংশ। আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৫৯ শতাংশ।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম তিনজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।


আরও খবর



ভারতের ৩ শতাংশ নারী কনডম ব্যবহারে ইচ্ছুক

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ভারতে সম্প্রতি একটি স্বাস্থ্যবিষয়ক সমীক্ষায় দেখা গেছে, দেশটির কেবল পুরুষরাই নন, ৯৭ শতাংশ নারীই ঝুঁকিপূর্ণ যৌন সম্পর্কে অভ্যস্ত। 

বহু দেশেই বেশ কয়েক বছর ধরে চলছে কনডমোলজির সমীক্ষা। ভারতে এই প্রথম। সেই সমীক্ষাতেই ভারতীয়দের কনডম ব্যবহার নিয়ে বেশ কয়েকটি তথ্য উঠে এসেছে।  খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

কনজিউমার, কনডম অ্যান্ড সাইকোলজি’— এই শব্দত্রয়কে সংক্ষিপ্ত করে বানানো হয়েছে কনডমোলজি। কনডমের বাজারের সবচেয়ে বড় অংশীদার এবং তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো যৌথভাবে কনডম অ্যালায়েন্স নামে একটি দল তৈরি করেছে।

দলটি এই বিষয় নিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়ে পরিসংখ্যান তুলে ধরেছে। তার উপর ভিত্তি করেই তৈরি হয়েছে এই কনডমোলজির রিপোর্ট।

এ রিপোর্ট অনুসারে, ভারতীয় পুরুষরা কনডম ব্যবহারে আগ্রহী নন। ২০ থেকে ২৪ বছর বয়সি পুরুষদের মধ্যে যারা নিয়মিত যৌন সম্পর্কে লিপ্ত, তাদের ৮০ শতাংশই কনডম ব্যবহার করেন না। এমনকি মাত্র ৩ শতাংশ নারী কনডম ব্যবহারে ইচ্ছুক অর্থাৎ ৯৭ ভাগ নারীই তা পছন্দ করেন না। 

জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে, অবাঞ্ছিত গর্ভধারণ এড়াতে, সুস্থ যৌনস্বাস্থ্য বজায় রাখতে কনডম ব্যবহার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই কথা মাথায় রেখে ভারতেও কনডমোলজির সমীক্ষা চালানো হয়েছে।

দেশটির মোট জনসংখ্যার প্রায় ৬৫ শতাংশেরই বয়স ২৪ বা তার নিচে। এমন একটি দেশে কনডম নিয়ে সচেতনতা বা কনডম ব্যবহারে উৎসাহ একেবারেই তলানিতে।


নিউজ ট্যাগ: কনডমোলজি

আরও খবর