Logo
শিরোনাম

চাকরির সুযোগ দিচ্ছে আইআরসি

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটিতে (আইআরসি) চিফ অব পার্টি’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটি (আইআরসি)

পদের নাম: চিফ অব পার্টি

পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়

শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতকোত্তর

অভিজ্ঞতা: ১০ জন

বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: চুক্তিভিত্তিক

প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ

বয়স: নির্ধারিত নয়

কর্মস্থল: কক্সবাজার

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা rescue.csod.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩

নিউজ ট্যাগ: চাকুরীর খবর

আরও খবর

অ্যাকশনএইডে চাকরির সুযোগ

মঙ্গলবার ১৭ জানুয়ারী ২০২৩




নতুন বছরে পর্যটকদের অন্যতম গন্তব্য হয়ে উঠবে দক্ষিণবঙ্গ

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পিরোজপুর ও ঝালকাঠির ভাসমান পেয়ারা বাজার এখন পর্যটকদের জনপ্রিয় গন্তব্য। আগে এই ভ্রমণের পরিকল্পনা করতে হলে হাতে অন্তত দুই রাত এক দিন রাখতে হতো। পদ্মা সেতু চালুর পর এখন চাইলে এক দিনেই সেরে ফেলা যায় এই ভ্রমণ। সাতসকালে ঢাকা থেকে বাসে চেপে তিনচার ঘণ্টায় চলে যাওয়া যায় বরিশাল, সেখান থেকে সিএনজি অটোরিকশায় ৪০ মিনিটেই পৌঁছানো যায় পিরোজপুরের স্বরূপকাঠি উপজেলার আন্দাকুল ঘাটে। এখান থেকেই নৌকায় শুরু হয় পেয়ারাবাগান ও বাজার ভ্রমণ। দিনভর ঘুরে বিকেলের বাসেই আবার ঢাকায় ফিরে আসা যায়। শুধু এই একটি জায়গা নয়, দক্ষিণবঙ্গের এমন অনেক বেড়ানোর জায়গায় এখন স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণের সুযোগ পাচ্ছেন ঢাকাসহ দেশের অন্য এলাকার মানুষ।

সুন্দরবন ও কুয়াকাটা দেশের অন্যতম পর্যটন স্থান। এ দুটি জায়গায় আগে পর্যটক আসার ক্ষেত্রে মূল বাধা ছিল ফেরি। যাতায়াতের দুর্ভোগের কারণে অনেক পর্যটক সুন্দরবন-কুয়াকাটামুখী হতে দ্বিতীয়বার ভাবতেন। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর এই দুর্ভোগ কমে গেছে। এখন এই পথে নতুন যানবাহন চালু হয়েছে। নতুন নতুন আবাসনের ব্যবস্থা হচ্ছে। বাগেরহাটের মোংলা, খুলনার দাকোপে সুন্দরবন ঘেঁষে চালু হয়েছে রিসোর্ট। দিনব্যাপী সুন্দরবন ভ্রমণের ব্যবস্থাও করছে

শুধু সুন্দরবন বা কুয়াকাটা নয়, পটুয়াখালীর পায়রা বন্দর, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার তাড়ুয়া সমুদ্রসৈকত, চর কুকরি-মুকরিও জমজমাট পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে উঠছে। পাশাপাশি বরিশাল, পটুয়াখালী, চুয়াডাঙ্গা, খুলনা, বরগুনা, গোপালগঞ্জেও বেড়েছে মানুষের আনাগোনা। এসব জেলায় এখন নিয়মিত মানুষকে বেড়াতে নিয়ে যাচ্ছে ফেসবুকভিত্তিক নানা ভ্রমণ গ্রুপ। বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনও গোপালগঞ্জ ও কুয়াকাটায় নিজস্ব ব্যবস্থায় ট্যুর পরিচালনা করছে। এসব প্যাকেজে থাকছে পদ্মা সেতু, ভাঙ্গা চত্বর, টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর মাজার কমপ্লেক্স, স্মৃতিবিজড়িত স্থান ও তাঁর জন্মভিটা দেখার সুযোগ। অনেকে এই প্যাকেজের সঙ্গে রাখছে বাগেরহাটের ষাট গম্বুজ মসজিদ। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া ও বাগেরহাটের মোংলায় রয়েছে পর্যটন করপোরেশনের হোটেল মধুমতি ও পশুর। দুটি হোটেলেই পর্যটকদের সংখ্যা বেড়েছে।

রাজধানী থেকে ঘণ্টা দুয়েকের পথ পেরিয়ে অনেকে হোটেল-রিসোর্টের সন্ধানও করছেন। এমন পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে নড়াইলে গড়ে উঠেছে আধুনিক মানের রিসোর্ট। গোপালগঞ্জ ও ফরিদপুরেও নতুন রিসোর্টের কাজ চলছে। তাই নতুন বছরে পর্যটকদের অন্যতম গন্তব্য হয়ে উঠবে দক্ষিণবঙ্গ।


আরও খবর

সেন্টমার্টিনের রিপ কারেন্ট থেকে সাবধান!

বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩




উদ্ভাবন এবং সেবা সহজীকরণে বছরজুড়ে যা করেছে এটুআই

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৩ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থা থেকে শুরু করে শিক্ষা, অফিস-আদালত, ব্যাংক, সভা-সেমিনার, কনফারেন্স ইত্যাদি অনলাইনভিত্তিক করার পাশাপাশি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি কেনাকাটা ঘরে বসেই করতে পারছেন দেশের মানুষ। প্রযুক্তির এই সহজলভ্যতার কারণে সকল ধরনের বিল ও আর্থিক লেনদেন ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে করা সম্ভব হচ্ছে। 

শুধু শহরেই নয়, প্রত্যন্ত ও দুর্গম অঞ্চলেও তথ্যপ্রযুক্তি সেবা পৌঁছে দিয়েছে সরকার। ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়নে বাংলাদেশে স্মার্ট সিটি ও স্মার্ট ভিলেজ বিনির্মাণে সহযোগিতা করছে একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম (এটুআই)। ২০২২ সাল জুড়ে উদ্ভাবন এবং নাগরিক সেবা সহজীকরণে কাজ করেছে এটুআই।

১. ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে সরকারের বিভিন্ন সেবা প্রদান এবং এসব সেবা গ্রহণে নাগরিকদের সম্পৃক্ত করার ইকোসিস্টেম তৈরিতে নতুন নতুন প্রকল্প বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের গভটেক লিডারস তালিকায় এই স্থান করে নিয়েছে। বিশ্বব্যাংকের প্রকাশিত গভটেক ম্যাচুরিটি ইনডেক্স (জিটিএমআই) ২০২২ তে এই অবস্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। এছাড়া ই-পার্টিসিপেশনে ২০ ধাপ এগিয়ে ৭৫তম এবং জাতিসংঘের ই-গভর্নমেন্ট ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্সে ৮ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ।

২.চূড়ান্ত পর্বে এটুআই-এর ৪টিসহ বাংলাদেশের মোট ৯টি উদ্ভাবনী উদ্যোগ ডব্লিউএসআইএস পুরস্কার পেয়েছে। ডব্লিউসিআইটি ২০২২ আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বিশ্বের ১৬৫টি প্রকল্পের মধ্যে থেকে এটুআই-এর ন্যাশনাল পোর্টাল ফ্রেমওয়ার্ক উদ্যোগকে চেয়ারম্যান অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া এটুআই-এর আরো একটি প্রকল্প কোভিড-১৯ ন্যাশনাল ড্যাশবোর্ড- ইনোভেটিভ ই-হেলথ সলিউশনস অ্যাওয়ার্ড ক্যাটাগরিতে ১ম স্থান অর্জন করে।

৩. দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতার মাধ্যমে বাংলাদেশের উত্তম চর্চাসমূহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইতোমধ্যে রেপ্লিকেট করা শুরু হয়েছে। ই-কমার্স ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম- একশপ তুরস্ক ইয়েমেন ও সাউথ সুদানে; দক্ষতা ও চাকরি সম্পর্কিত প্ল্যাটফর্ম- এনআইএসই জর্ডান ও সোমালিয়ায়; সরকারি সেবাসমূহের একত্রিকরণ প্ল্যাটফর্ম- মাইগভ ফিলিপাইনে রেপ্লিকেট করা হচ্ছে। 

৪. বিচারিক ব্যবস্থাকে সহজ করতে চালু হয়েছে অনলাইন কজলিস্ট, জুডিসিয়াল মনিটরিং ড্যাশবোর্ড এবং আমার আদালত (মাইকোর্ট) অ্যাপ। এছাড়া সিএমএসএমই উদ্যোক্তাদের জন্য ডিজিটাল সেন্টারভিত্তিক ওয়ানস্টপ সেবা কেন্দ্র এবং প্রকল্পের কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে পিপিএস এবং আরএমএস সফটওয়্যার চালু করা হয়।

৫. দেশীয় উদ্যোক্তাদের পণ্য সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিতে একশপ গ্লোবাল এর যাত্রা শুরু। দেশব্যাপী কোরবানির পশু কেনাবেচায় ২য় বছরের মতো সকল খামারি ও হাটকে যুক্ত করে ডিজিটাল হাট চালু করা হয়। ই-কমার্স খাতকে বিশ্বস্ত করতে চালু করা হয় ইউবিআইডির নিবন্ধন এবং কেন্দ্রীয় অভিযোগ নিষ্পত্তি সিস্টেম।

৬. গ্রামীণ অর্থনৈতিক হাব হিসেবে প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাওয়া ডিজিটাল সেন্টারের ১ যুগ পূর্তি হয় এবছর। বাংলাদেশি নাগরিকদের প্রবাস যাত্রা সহজ করতে এবং প্রবাসে যাওয়ার প্রস্তুতিমূলক কাগজপত্র ও সেবাসমূহ একটি ওয়ান স্টপ সার্ভিস পয়েন্ট থেকে প্রদানের লক্ষ্যে দেশব্যাপী ডিজিটাল সেন্টারগুলোতে প্রবাসী হেল্প ডেস্ক চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সরকারের আর্থিক অন্তর্ভুক্তি কার্যক্রম ত্বরান্বিত করা ও আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে নারীদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধিতে এটুআই চালু করেছে সাথী নামক একটি নেটওয়ার্ক। বাংলাদেশ ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ও বিভিন্ন বাণিজ্যিক ব্যাংকের সহযোগিতায় এটুআই প্রাথমিক পর্যায়ে ডিজিটাল সেন্টারের নারী উদ্যোক্তা নিয়ে এই নেটওয়ার্কের যাত্রা শুরু করেছে। দেশের সকল পরিষেবা বিল, শিক্ষা সংক্রান্ত ফি ও অন্যান্য সকল ধরনের সরকারি সেবার ফি/বিল প্রদানের পদ্ধতি সহজ ও সমন্বিতকরণে চালু হওয়া সমন্বিত পেমেন্ট প্ল্যাটফর্ম একপেতে নতুন ৮টি আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের নতুন পেমেন্ট চ্যানেল যুক্তকরণ।

৭. প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বই পড়ার অধিকার নিশ্চিতে মারাকেশ চুক্তিতে অনুস্বাক্ষর করেছে বাংলাদেশ। জাতীয় তথ্য বাতায়নের অধীন সকল ওয়েবসাইটকে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ব্যবহার উপযোগী করা হয়েছে। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে গ্লোবাল অ্যাকসেসিবিলিটি অ্যাওয়ার্নেস ডে উদযাপন। ২০২৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) এটুআই-কর্তৃক উদ্ভাবিত মাল্টিমিডিয়া টকিং বই প্রণয়ন ও এর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

৮. বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ/অধীনস্ত দপ্তর/সংস্থার প্রায় ৩৯টি উদ্যোগ চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সাথে সম্পর্কিত অগ্রসরমান প্রযুক্তি ব্যবহার করে ডিজাইন করার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করা হয়েছে। বাংলাদেশে প্রথম চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়নে ৪০টি কারিকুলাম প্রণয়নে সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। দক্ষতা উন্নয়নের সাথে যুক্ত ২১টি বিভাগ/অধিদপ্তর কর্তৃক চতুর্থ-শিল্প বিপ্লব উপযোগী পেশায় দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স ফর স্কিলস, এডুকেশন, এপ্লইমেন্ট অ্যান্ড এন্টারপ্রেনারশিপ (এনআইএসই) প্ল্যাটফর্মে প্রায় ৬,৫০,০০০ জন যুব ও ৩৮৬টি দক্ষতা উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানের অন্তর্ভুক্তির পাশাপাশি প্রায় ১৮০০০ সরকারি/বেসরকারি কর্মকর্তাদের অবহিতকরণ করা হয়েছে। দেশব্যাপী চাকরি মেলা আয়োজন, এনআইএসই প্ল্যাটফর্ম-এর মাধ্যমে এবং অন্যান্য পার্টনারের সাথে যৌথ কর্মসূচির মাধ্যমে ২ লক্ষাধিক চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করা হয়েছে। দেশের বেকার যুবদের কর্মসংস্থান বিষয়ে সঠিক পরামর্শ, নির্দেশনা ও মার্কেট লিংকেজ করার জন্য পাবলিক এবং প্রাইভেট ৫০টি ক্যারিয়ার গাইডেন্স সেন্টার একত্রিত করে ন্যাশনাল ক্যারিয়ার গাইডেন্স নেটওয়ার্ক তৈরি করা হয়েছে।

৯. ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্ম মুক্তপাঠ ব্যবহার করে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১ বিষয়ে মাধ্যমিক স্তরের ৩ লক্ষ ১৫ হাজারের বেশি শিক্ষককে অনলাইনে অরিয়েন্টেশন প্রশিক্ষণ প্রদান এবং ৬ষ্ঠ ও ৭ম শ্রেণির ১৩টি বিষয়ের উপরে ৩ লক্ষ ৫০ হাজারের বেশি শিক্ষককে বিষয়ভিত্তিক অনলাইন প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এ বিষয়ে মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর ও জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডকে কারিগরি সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে প্রায় ২ লক্ষ ৫৫ হাজার শিক্ষককে মুক্তপাঠ প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ক ফার্স্টএইড অনলাইন প্রশিক্ষণ প্রদানে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এবং ইউনিসেফ-কে কারিগরি সহায়তা প্রদান। রূপকল্প ২০৪১ - স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে একটি সময়োপযোগী, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও স্মার্ট শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে জাতীয় ব্লেন্ডেড শিক্ষা ও দক্ষতা বিষয়ক মহাপরিকল্পনা-এর খসড়া প্রণয়নে ব্লেন্ডেড শিক্ষা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্স-কে কারিগরি সহায়তা প্রদান। 

১০. ভূমি বিষয়ক জরুরি সেবা প্রদানে জাতীয় হেল্পলাইন ৩৩৩ এবং ১৬১২২ একত্রে কাজ শুরু করেছে। ৩৩৩-২ নম্বরে ফোন করে ঘরে বসেই ডাকযোগে খতিয়ান (পর্চা) ও জমির ম্যাপ প্রাপ্তি, যেকোনো স্থান থেকে খতিয়ান ও নামজারি ফি এবং ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধ, নামজারি আবেদন করা, ভূমি আইন ও বিধিবিধান সংক্রান্ত তথ্য এবং বিবিধ অভিযোগ ইত্যাদি সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

১১. বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন বিবেচনায় ইলেকট্রিক যানবাহন ও পরিবেশবান্ধব শিল্প উন্নয়নে এটুআই-এর আইল্যাব কারিগরি জ্ঞান বৃদ্ধি ও মান উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের (অটোমোবাইল সমিতি, স্থানীয় অটোমোবাইল শিল্প এবং প্রবাসী দক্ষ প্রকৌশলী) সহায়তায় দেশীয়ভাবে ইলেকট্রিক যানবাহনের সিকেডি ও উৎপাদনে কার্যক্রম করছে। অটোমোবাইল শিল্প উন্নয়ন নীতিমালা-২০২১, বৈদ্যুতিক যান চার্জিং নির্দেশিকা, সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ এবং ইলেকট্রিক মোটরযান রেজিস্ট্রেশন ও চলাচল সংক্রান্ত নীতিমালা-২০২২-এর সমন্বয়ে একটি স্বতন্ত্র ইলেকট্রিক ভেহিকেলের নীতিমালা প্রস্তুত করতে কারিগরি সহায়তা প্রদান। পরিবেশবান্ধব ব্যাটারী উৎপাদনে একটি রিসার্চ সেন্টার তৈরিতে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়কে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগিতা প্রদান। এটুআই-এর ল্যাব সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সম্পৃক্ত করে তিন চাকার ইলেকট্রিক ভেহিকেল (যা বর্তমানে ইজি বাইক নামে পরিচিত) তার একটি মানসম্মত নকশা তৈরি করছে। বৈদ্যুতিক মটরযান উৎপাদনের ক্ষেত্রে কর রেয়াতে বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বরাবর সুপারিশ ও নীতিমালা প্রণয়নে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগিতা প্রদান।

১২. হাই লেভেল পলিটিক্যাল ফোরাম, ইউনাইটেড নেশনস জেনারেল অ্যাসেম্বলী, গ্লোবাল সাউথ সাউথ ডেভেলপমেন্ট এক্সপোসহ বিশ্বের বিভিন্ন পলিসি ফোরামে বাংলাদেশের অর্জনগুলো তুলে ধরা হয়েছে। এর মাধ্যমে দক্ষিণ আঞ্চলীয় ও স্বল্পোন্নত দেশগুলো একই ধরনের উন্নয়ন চ্যালেঞ্জের বিষয়ে জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা বিনিময় প্রসারে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রায় ৬১টি উত্তম চর্চা নিয়ে ৩টি ভলিয়ম প্রকাশনা তৈরি হয়েছে, যেখানে বাংলাদেশের প্রায় ১০টির অধিক উত্তম চর্চা উঠে এসেছে। এছাড়া ইউনাইটেড নেশনস অফিস ফর সাউথ সাউথ কো-অপারেশন দ্বারা সংকলিত গুড প্র্যাকটিসেস ইন সাউথ সাউথ অ্যান্ড ট্রাইঅ্যাংগুলার কোঅপারেশন প্রকাশনায় বাংলাদেশের ২১টি উত্তম চর্চা প্রকাশিত হয়েছে। ডিজিটাল পাবলিক গুডস হিসেবে বাংলাদেশের ২টি উত্তম চর্চা (ই-কমার্সভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম- একশপ এবং দক্ষতা ও চাকুরি সম্পর্কিত প্ল্যাটফর্ম- এনআইএসই) মনোনয়ন প্রাপ্ত হয়েছে।

১৩. শিক্ষা-তথ্য-বিনোদন ভিত্তিক ওটিটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি, সরকারি নথি কার্যক্রম সহজ, গর্ভাবস্থা পর্যবেক্ষণ, আর্থিক খাতে নারী ও ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের অন্তর্ভুক্তিকরণ, ট্রেসেবিলিটি ও রকেট্রি এবং পার্বত্য অঞ্চলের নারীদের জীবনমান উন্নয়নে ভিন্ন ভিন্ন আইডিয়ার খোঁজে চ্যালেঞ্জ প্রতিযোগিতা শুরু হয়।

নিউজ ট্যাগ: এটুআই

আরও খবর



শীতে কাঁপছে কুড়িগ্রাম

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হাড় কাঁপানো শীতে কাঁপছে কুড়িগ্রামের মানুষ। আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে এ জেলার উপর দিয়ে মাঝারী শৈত্য প্রবাহ প্রবাহিত হচ্ছে।

বুধবার (১৮জানুয়ারি) সকাল ৯টায় এ জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিকে হিমেল হাওয়া আর ঘন কুয়াশায় জন জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে এ জেলার মানুষের। মধ্যরাত থেকে বৃষ্টির মতো ঝড়ে শিশির। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ। গরম কাপড়ের অভাবে খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করছেন তারা।

জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার কেদার ইউনিয়নের কৃষক শহিদ আলী জানান, অতিরিক্ত ঠান্ডা আর কুয়াশার কারণে চলতি ইরি-বোরো মৌসুমের আবাদ পিছিয়ে যাচ্ছে। ভূরুঙ্গামারী উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নের কৃষক রফিকুল ইসলাম জানান, বীজতলার চারা ধান শীতের কারণে হলদে হয়ে মরে যাচ্ছে। এভাবে শীত পড়তে থাকলে ইরি আবাদ নিয়ে শঙ্কা দেখা দিতে পারে। দিনমুজুর আনছার আলী জানান, শীতের কারণে তারা মাঠে কাজ করতে পারছেন না। ফলে তাদের আয় কমে গেছে।

এছাড়া বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু ও বয়স্ক মানুষ। হাসপাতালগুলোতে বেড়েছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট কৃষি ও আবহাওয়া পর্যাবেক্ষাণাগারের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তুহিন মিয়া জানান, কুড়িগ্রামের উপর দিয়ে মাঝারি ধরনের শৈত্য প্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। যা আগামী আরও কয়েকদিন চলমান থাকতে পারে।


আরও খবর



স্বর্ণের ভরি ছাড়াল ৯০ হাজার টাকা

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশের বাজারে আরেক দফায় বাড়ল স্বর্ণের দাম। এ দফায় সব থেকে ভালো মানের স্বর্ণের দাম ভরিতে ২ হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে ভালো মানের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম বেড়ে হয়েছে ৯০ হাজার ৭৪৬ টাকা। দেশের ইতিহাসে স্বর্ণের দাম এই প্রথম ৯০ হাজার ছাড়াল।

আগামীকাল রোববার থেকে সোনার এই নতুন দাম কার্যকর করা হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)। আজ শনিবার বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান এম এ হান্নান আজাদ সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। স্থানীয় বাজারে তেজাবী স্বর্ণের (পাকা স্বর্ণ) দাম বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে এই দাম বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছে বাজুস।

বাজুসের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোববার থেকে ভালো মানের ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণ কিনতে খরচ পড়বে ৯০ হাজার ৭৪৬ টাকা। ২১ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম ভরি নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৬ হাজার ৬০৫ টাকা। ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম পড়বে ৭৪ হাজার ২৪১ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরির দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৬১ হাজার ৮৭৭ টাকা।

স্বর্ণের দাম বাড়লেও আগের মতো অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে রুপার দাম। ক্যাটাগরি অনুযায়ী ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপার দাম ১ হাজার ৫১৬ টাকা। ২১ ক্যারেটের রুপার দাম ১ হাজার ৪৩৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের রুপার দাম ১ হাজার ২২৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির রুপার দাম ৯৩৩ টাকায় অপরিবর্তিত আছে।


আরও খবর

বেড়েছে সবজি-ডিমের দাম

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩




যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ছে শিশুদের হাঁপানি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ২৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গ্যাসের চুলায় রান্নার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে শিশুদের মধ্যে হাঁপানি রোগ বাড়ছে। হাঁপানি আক্রান্ত প্রতি ৮ শিশুর একজন আক্রান্ত হচ্ছে গ্যাস স্টোভ নির্গমনের কারণে। যা শতকরা হিসেবে ১২ দশমিক ৭ শতাংশ। সম্প্রতি ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব অ্যানভার্নমেন্টাল রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিক হেলথ প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। পাশাপাশি আমেরিকান হাউজিং সার্ভেতেও একই পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী নিয়মিত গ্যাসের চুলায় রান্নার কারণে হাঁপানি আক্রান্ত সর্বোচ্চ শিশু রোগী পাওয়া গেছে ইলিয়ন অঙ্গরাজ্যে ২১ দশমিক ১ শতাংশ। ক্যালিফোর্নিয়ায় ২০ দশমিক ১ শতাংশ। নিউইয়র্কে ১৮ দশমিক ৮ শতাংশ। তাছাড়া নিউইয়র্ক সিটির পাবলিক স্কুলের প্রায় ৬০ হাজার শিশু হাঁপানি রোগে ভুগছে। হেলথ ডিপার্টমেন্টের ২০২১ সালের তথ্য অনুযায়ী নিউইয়র্ক সিটির প্রায় ৭৩ শতাংশ বাড়িতে গ্যাসের চুলায় রান্না হয়। আর যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৩৫ শতাংশ বাড়িতে গ্যাসের চুলা রয়েছে। এর অধ্যে নিউইয়র্কের ৮৪ শতাংশ স্বল্প আয়ের পরিবারের রান্না হয় ফসিল ফুয়েলে; পুরো যুক্তরাষ্ট্রে যা প্রায় ৫৪ শতাংশ।

গবেষণা বলছে, বাসা থেকে গ্যাসের চুলা অপসারণ করা গেলে হাঁপানি আক্রান্ত শিশুর রোগীর সংখ্যার হার আরও কমিয়ে আনা সম্ভব। তাছাড়া হাঁপানি আক্রান্তের হার কমিয়ে আনতে গ্যাস স্টোভ ব্যবহার নিষিদ্ধ করতে পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা। পাশাপাশি রিনিউয়েবল পাওয়ার স্টোভ ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এসব সম্ভব না হলে শিশুদের গ্যাস স্টোভ থেকে দূরে রাখতে পরামর্শ গবেষকদের।

এদিকে গবেষণা প্রতিবেদনে বিস্মিত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের তথ্য অ্যানার্জি জাস্টিস ল অ্যান্ড পলিসির কর্মকর্তারা। যদিও এমন প্রতিবেদন নতুন নয়। ২০১৯ সালের এক রোডম্যাপে ক্লাইমেট লিডারশিপ অ্যান্ড কম্যুনিটি প্রটেকশন অ্যাক্ট একই আশংকা প্রকাশ করেছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক প্রকাশিত প্রতিবেদনের পর অনেকে রান্না ও হিটিংয়ের জন্য গ্যাস ব্যবহার কমিয়ে দিয়েছেন। ব্যবহার বেড়েছে সোলার পাওয়ারের (সৌর বিদ্যুৎ)।

গত বছর নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলে পাশ হওয়া একটি বিলে বলা হয়েছে, ২০২৭ সালের মধ্যে নির্মিত সব নতুন ভবনে কোনো গ্যাস সংযোগ দেওয়া হবে না। গ্যাসের পরিবর্তে সম্পূর্ণ ইলেকট্রিক ব্যবস্থা করা হবে। তবে নিউইয়র্ক রাজ্য এ ধরনের কোনো বিল এখনও পাশ করতে পারেনি। তবে আশা করা হচ্ছে, খুব শিগিগির এমন একটি বিল এ বছর আলবেনিতে পাশ হবে।

নিউজ ট্যাগ: শিশুদের হাঁপানি

আরও খবর