Logo
শিরোনাম

ফ্লাইট মিস করা হজ যাত্রীদের জন্য জরুরি নির্দেশনা

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৮০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হজের নির্ধারিত দিনের ফ্লাইট মিস করা যাত্রীদের জন্য জরুরি নির্দেশনা দিয়েছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। যারা হজ ফ্লাইট মিস করছেন, তাদের সাধারণ ফ্লাইটে (সর্বসাধারণের সঙ্গে) হজে যাওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বুধবার ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে এক জরুরি অফিস আদেশে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

আদেশের কপি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব), হজ অফিসসহ সংশ্লিষ্ট হজ এজেন্সিদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের হজ-১ শাখার উপসচিব আবুল কাশেম মুহাম্মদ শাহীন স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়েছে, অত্যন্ত উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, প্রতিদিন গড়ে ১০ জন হজযাত্রী বিভিন্ন কারণে তাদের জন্য নির্ধারিত ফ্লাইটে হজে যেতে পারছেন না। বিষয়টি ফ্লাইট ছাড়ার ২৪ ঘণ্টা আগে না জানানোর কারণে তাদের স্থানে অন্য হজযাত্রী প্রতিস্থাপনও করা যাচ্ছে না। এ ধারা চলতে থাকলে নির্ধারিত ফ্লাইটে হজে যেতে ব্যর্থ হজযাত্রীর সংখ্যা বাড়বে এবং এটি পরবর্তী ফ্লাইটগুলোর ওপর ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করবে। এতে সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনার বিষয়টি বাধাগ্রস্ত হবে।

আদেশে আরও বলা হয়, নির্ধারিত ফ্লাইটে হজে যেতে ব্যর্থ হজযাত্রীদের মন্ত্রণালয়কে জানিয়ে অন্য যে কোনো শিডিউল ফ্লাইটে (সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে) সৌদি আরব যাওয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। যারা শিডিউল ফ্লাইটে হজে যাবেন, তাদের ফ্লাইট ঢাকা ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্রাভেল এজেন্সিরা মন্ত্রণালয়ের ফোকাল পয়েন্টকে জানাবেন। সৌদি আরবে ইমিগ্রেশনের জন্য বিষয়টি অত্যন্ত জরুরি।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ৮ জুলাই (৯ জিলহজ ১৪৪৩ হিজরি) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। বৈশ্বিক করোনা মহামারি পরিস্থিতির কারণে ২০২০ ও ২০২১ সাল দুই বছর বহির্বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশ থেকে কেউ হজে যেতে পারেননি। করোনা পরিস্থিতি একটু ভালো হওয়ায় এ বছর সারাবিশ্বের ১০ লাখ হাজি নিয়ে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশ থেকে এ বছর ৫৭ হাজার ৫৮৫ জন হজযাত্রী হজ করার সুযোগ পাচ্ছেন।যাদের বয়স ৬৫ বছরের নিচে, শুধু তারাই এবার হজে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন।

মোট হজ যাত্রীর অর্ধেক পরিবহণ করবে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। মোট ৬৫টি হজ ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান। গত ৫ জুন ৪১০ জন যাত্রী নিয়ে সৌদি আরব গেছে বিমানের প্রথম হজ ফ্লাইট।


আরও খবর

দুই বছর পর পুরনো রূপে রথযাত্রা

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২




তিস্তার পানি বিপদসীমার ৭ সেন্টিমিটার নিচে

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ১২০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রুহুল আমিন, ডিমলা-নীলফামারী প্রতিনিধি:

নীলফামারীর ডিমলায় উজানের ঢলে তিস্তা নদীতে আষাঢ়ের প্রথম দিনে হঠাৎ পানি বেড়েছে। এরই ফলে তিস্তা নদী বেষ্ঠিত এলাকার গ্রামগুলো প্লাবিত হয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। সেই সাথে ডিমলার বুড়িতিস্তা, সিংগাহারাসহ অন্যান্য নদীরও পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিকে উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের তিস্তা নদীর তীরবর্তী স্বপন বাঁধ মসজিদ পাড়ার ৩০০ পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

সোমবার (২০-জুন) তিস্তার পানি কিছুটা কমে গিয়ে বিপৎসীমার ৭ সেন্টিমিটার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

স্বপন বাঁধ এলাকার বাসিন্দা সবুজ ইসলাম বলেন,গত বন্যায় আমাদের গ্রাম রক্ষা তিস্তা নদী সংলগ্ন স্বপন বাঁধটি ভেঙে যায়। বছর পেরিয়ে গেলেও বাঁধের ভাঙা অংশ মেরামত হয়নি। তিস্তা নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় ভাঙা অংশ দিয়ে বাড়িঘরে পানি ঢুকে পড়ছে। বৃষ্টির কারণে তিস্তার পানি খুব বেশি না বাড়লেও উজানে ভারত থেকে পাহাড়ি ঢলের পানি আসায় তিস্তার পানি বেড়ে যায়।

স্থানীয়রা বলেন, এখন একটাই দাবি আর ত্রাণ নয়, চাই তিস্তার বাঁধ

টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ময়নুল হক জানান, উত্তরবঙ্গের সীমান্ত এলাকা বেষ্ঠিত তিস্তা নদীর পানি হঠাৎ বেড়ে যাওয়ায় ছয়টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছিল। গত বুধবার রাত থেকে বাড়তে থাকে তিস্তার পানি এর ফলে মজিদপাড়া, টাবুরচর, জিঞ্জিরপাড়া, খড়িবাড়ী, বাঘেরচড় গ্রামগুলোতে পানি প্রবেশ করে। এইসব গ্রামে প্রায় পাঁচশ মানুষের বসবাস নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপাকে পড়েছিলেন।এখন পানি অনেকটাই কমে গেছে, আপাতত আতঙ্কের কোন সম্ভাবনা নেই।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আসফা উদদৌলা জানান, উজানের ঢল ও টানা বৃষ্টিপাতের কারণে তিস্তার পানি কখনো বিপৎসীমার ওপরে আবারও কখনো বা বিপৎসীমার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে আজ সোমবার তিস্তার পানি প্রবাহ কিছুটা কমে গিয়ে বিপৎসীমার ৭ সেন্টিমিটার নীচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।


আরও খবর



টিপু হত্যার পরিকল্পনার কথা ‘স্বীকার করেছেন’ মুসা: পুলিশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু হত্যার পরিকল্পনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন সুমন শিকদার মুসা বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, ওমান থেকে দেশে ফিরিয়ে আনার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মুসা এ হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনায় জড়িত থাকার স্বীকার করেন।

শুক্রবার (১০ জুন) এক সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর ডিবি পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তার।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে তিনি (মুসা) এ হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। তাকে আজ আদালতে হাজির করে ১৫ দিনের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চাওয়া হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে গোয়েন্দা কর্মকর্তা হাফিজ বলেন, এই হত্যাকাণ্ডে মুসা ছাড়াও আর ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা কারাগারে রয়েছে।

তিনি বলেন, তাদের রিমান্ডে এনে পৃথকভাবে জিজ্ঞাসা করে আরও তথ্য চাওয়া হবে। তখনই নিশ্চিত হওয়া যাবে হত্যাকাণ্ডটি কার নির্দেশে হয়েছে এবং আর কারা জড়িত।


আরও খবর



কুরবানির গরু চুরির সময় নেতার ভাইকে গণধোলাই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ২২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঢাকার ধামরাইয়ে কুরবানির গরু চুরি করতে গিয়ে গ্রামবাসীর হাতে আটক হয়েছেন আমিনুর রহমান। তিনি স্থানীয় ইউপি মেম্বার ও আওয়ামী লীগ নেতার ভাই। এ সময় তার সহযোগী দুই চোর পালিয়ে গেছে। পরে তাকে বেঁধে রেখে গণধোলাই দেন গ্রামবাসী।

খবর পেয়ে তার ভাই ইউপি মেম্বার ও আমতা ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন ওই রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে ৫০ হাজার টাকার মুচলেকার মাধ্যমে তার ভাইকে বিচারের কথা বলে ছাড়িয়ে এনেছেন। বুধবার রাতে এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার চৌহাট ইউনিয়নের ভাকুলিয়া গ্রামে।

গ্রামবাসী জানান, এলাকায় চুরির উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় রাত জেগে পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে চৌহাট ইউনিয়নের ভাকুলিয়া গ্রামের মোহাম্মদ আজাহার আলীর বাড়ি থেকে কুরবানির জন্য রাখা গরুটি চুরি করে পালানোর সময় গ্রামবাসীর হাতে আটক হন আমিনুর।

এ সময় তার সঙ্গে থাকা লোকমান হোসেন ও আব্দুল হামিদ নামে তার সহযোগী অপর দুই চোর পালিয়ে যায়। গ্রামবাসী আমিনুরকে গণধোলাই শেষে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে।

বিষয়টি জানতে পেরে আটক গরুচোরের ভাই ইউপি মেম্বার ও আওয়ামী লীগ নেতা জাকির হোসেন এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিকে নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। এর পর বিচারের শর্তে ৫০ হাজার টাকার মুচলেকা দিয়ে ওই আটক চোরকে ছাড়িয়ে আনেন।

এ বিষয়ে আমতা ইউপি চেয়ারম্যান মো. আরিফুল ইসলাম আরিফ বলেন, একজন মেম্বার ও আওয়ামী লীগ নেতার ভাই একজন গরুচোর তা ভাবতেও অবাক লাগে। ওই চোর এলাকার অনেক বদনাম করেছে। তার কঠিন বিচার হওয়া উচিত।

এ ব্যাপারে ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ আতিকুর রহমান আতিক বলেন, এ বিষয়ে কেউ পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে এ ব্যাপারে খতিয়ে দেখা হবে।


আরও খবর



অটোরিকশা ছিনতাই করতে কিশোরকে গলা কেটে হত্যা

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গাজীপুরের শ্রীপুরে দুখু মিয়া নামে এক কিশোরকে গলা কেটে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনতাই করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (৫ জুন) রাত সোয়া ১০টার দিকে তাকে গলা কেটে হত্যার পর উপজেলার জৈনা বাজার এলাকার রাস্তায় ফেলে যায় দুর্বৃত্তরা। নিহত দুখু মিয়া (১৪) সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার বুগলা ইউনিয়নের গাছগড়া গ্রামের জাবেদ আলীর ছেলে।

শ্রীপুর উপজেলা সাংবাদিক সমিতির সহ-সভাপতি তাজুল ইসলাম সানি বলেন, জৈনা বাজার-গাজীপুর সড়কের নগর হাওলা গ্রামের গাজীপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হাশেমের বাড়ি সংলগ্ন রাস্তায় ওই কিশোরের লাশ দেখতে পায় স্থানীয়রা। নিহত কিশোর নগর হাওলা গ্রামের প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদের বাড়িতে ভাড়া থেকে জৈনা বাজার ও আশপাশের সড়কে অটোরিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো। তাকে গলা কেটে হত্যা করে রাস্তায় ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা।

দুখু মিয়ার বড় ভাই সজিব মিয়া বলেন, দুখু মিয়া আগে ঝালমুড়ি বিক্রি করতো। গত কয়েকদিন ধরে ভাড়া অটোরিকশা চালাচ্ছে। তার সঙ্গে কারও শত্রুতা আছে কিনা আমরা জানি না।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, ধারণা করছি ওই কিশোরকে গলা কেটে হত্যার পর অটোরিকশা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। লাশের পাশ থেকে একটি ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  


আরও খবর



ভাইয়ের জানাজা: প্যারোলে মুক্তি পাচ্ছেন হাজি সেলিম

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কারাবন্দি ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিমের বড় ভাই হাজী কায়েস (৭২) মারা গেছেন। ভাইয়ের জানাজা, দাফন-কাফনের জন্য প্যারোলে মুক্তি পেয়েছেন হাজী সেলিম। এর আগে তিনি প্যারোলে মুক্তির জন্য আবেদন করেন।

শুক্রবার (১ জুলাই) সকাল ৭টা ২০ মিনিটে হাজী কায়েস তার শ্যামলীর নিজ বাসায় মারা যান। এর পরপরই প্যারেলে মুক্তির আবেদন করেন হাজী সেলিম।

হাজী সেলিমের ব্যক্তিগত সচিব মহিউদ্দিন আহমেদ বেলাল এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি মারা যান। তার নামাজে জানাজা চকবাজার শাহী জামে মসজিদে জুম্মার নামাজের পর অনুষ্ঠিত হবে এবং জানাজা শেষে মরহুমকে আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হবে।

মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, বড় ভাইয়ের জানাজায় ও দাফনে অংশ গ্রহণের জন্য সংসদ সদস্য হাজী মো. সেলিম জুমার নামাজের পর প্যারোলে মুক্তি পান।

ঢাকে কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সুভাষ কুমার ঘোষ বলেন, তিনি প্যারোলে মুক্তি পেয়েছেন। তার ভাইয়ের জানাজা ও দাফনে অংশ নিতে তিনি আবেদন করেছিলেন।

গত ২২ মে দুর্নীতি মামলায় ১০ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত হাজী সেলিমের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠান আদালত।

একদিন কারাগারে থাকার পরদিন থেকে অসুস্থতাজনিতা কারণে আদালতের নির্দেশে কারাগারের তত্ত্বাবধানে হাজী সেলিম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

নিউজ ট্যাগ: হাজি সেলিম

আরও খবর