Logo
শিরোনাম

জাবি ছাত্রকে মারধরের প্রতিবাদে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে অবরোধ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
Image

সাভার প্রতিনিধি:

সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে ঘুরতে গিয়ে অনিয়মের প্রতিবাদ করায় আনসার সদস্যদের হাতে বেধড়ক মারধরের শিকার হয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) প্রাণিবিদ্যা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র নুর হোসাইন।

প্রতিবাদে আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় ঢাকা আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে নুর হোসাইনের বড় ভাই, বন্ধু, ছোটভাই এবং সহপাঠীরা।

এর আগে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা মহাসড়কের পাশে মানববন্ধন করেন। মানববন্ধন থেকে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তারা।

গতকাল সোমবার আনুমানিক দুপুর ২ টার সময় সাভার নবীনগরে অবস্থিত জাতীয় স্মৃতিসৌধে নুর হোসেনকে কয়েকজন আনসার সদস্যরা ব্যাপক মারধর করে।

পরে ৯৯৯ এ ফোন করলে নিকটস্থ থানা থেকে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে সাভার এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। তার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেখান থেকে নিউরোসায়েন্স ইন্সটিটিউটে স্থানান্তর করা হয়।


আরও খবর



ট্রাক চাপায় রিকশার চালকসহ ৩ যাত্রী নিহত

প্রকাশিত:শনিবার ১১ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কুমিল্লার ময়নামতিতে পাথর বোঝাই ট্রাকের চাপায় তিনজন নিহত হয়েছে। শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকাল ছয়টার দিকে কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের ময়নামতি এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, মহাসড়কের বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়ন পরিষদের সামনে সিলেট থেকে আসা কুমিল্লাগামী পাথর বোঝাই একটি ট্রাক একইপথের একটি রিকশাকে চাপা দেয়। ট্রাকের চাপায় রিকশা চালক ও দুই যাত্রী ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।

নিহতরা হলেন, রিকশা চালক ইসমাইল হোসেন সাগর, তার বাড়ি কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার ডাকলাপাড়া গ্রামে, যাত্রী আব্দুল আহাদ, বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার জুড়ী উপজেলার সাহাপুর এলাকায়, অপর এক জনের পরিচয় এখনো জানা যায়নি।

দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাক, ট্রাকের চালক হেলপারসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করেছে ময়নামতি হাইওয়ে থানা পুলিশ।


আরও খবর



টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রীর ছয় দফা প্রস্তাব

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী প্রজন্মের জন্য টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে সব অংশীজনের সঙ্গে কাজ করার জন্য বিশ্বের প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, পরবর্তী প্রজন্মের জন্য টেকসই ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোকে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে বিশ্বব্যাপী সব অংশীজনদের সঙ্গে কাজ করতে হবে

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ওয়াশিংটন ডিসিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ডাকা মেজর ইকোনমিক ফোরাম অন এনার্জি অ্যান্ড ক্লাইমেট শীর্ষ সম্মেলন শীর্ষক উচ্চ পর্যায়ের অনুষ্ঠানে পূর্বে ধারণ করা ভাষণে প্রধানমন্ত্রী ফোরামের বিবেচনার জন্য ছয় দফা প্রস্তাব রাখেন।

প্রধানমন্ত্রী তার প্রথম প্রস্তাবে প্রধান কার্বন নির্গমনকারী দেশগুলোকে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমিত রাখার লক্ষ্যে তাদের কার্বন নির্গমন হ্রাস করার জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা তার দ্বিতীয় প্রস্তাবে বলেন, জলবায়ু তহবিলের জন্য উন্নত দেশগুলোর বার্ষিক ১০০ বিলিয়ন ডলারের অঙ্গীকার পূরণ করতে হবে এবং অভিযোজন ও প্রশমনের মধ্যে ৫০:৫০ বিতরণ করতে হবে।

তৃতীয় প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রযুক্তি হস্তান্তরের পাশাপাশি সবচেয়ে কার্যকর জ্বালানি সমাধান নিয়ে এগিয়ে আসার জন্য উন্নত দেশগুলোর প্রতি তার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন।

তার চতুর্থ প্রস্তাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহারে উত্তরণের ক্ষেত্রে, জাতি-রাষ্ট্রগুলোর সংশ্লিষ্ট উন্নয়ন অগ্রাধিকারগুলোর হিসাব নেওয়া এবং তাদের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে লোকসান ও ক্ষতির বিষয়গুলো বিবেচনা করা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী তার পঞ্চম প্রস্তাবে বলেছেন, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদীর ভাঙন, বন্যা ও খরার কারণে বাস্তুচ্যুত মানুষের পুনর্বাসনের দায়িত্ব সকল দেশের ভাগ করে নেওয়া দরকার।

তিনি আগামী নভেম্বরে গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিতব্য কপ২৬ সম্মেলনে দৃঢ় ও তাৎপর্যপূর্ণ ফলাফল কামনা করেন এবং এ লক্ষ্যে সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার জন্য বিশ্বের প্রধান অর্থনীতিগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, লবণাক্ততা বৃদ্ধি, নদী ভাঙন, বন্যা ও খরার প্রভাব ছাড়াও ১১ লাখ রোহিঙ্গা জোরপূর্বক মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হওয়ার কারণে বাংলাদেশ গুরুতর জলবায়ু প্রভাবের সম্মুখীন হচ্ছে।

জলবায়ু পরিবর্তন অভিযোজন ও প্রশমন প্রচেষ্টায় তার সরকার অগ্রণী হিসেবে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সম্প্রতি একটি উচ্চাকাঙ্ক্ষী ও হালনাগাদকৃত এনডিসি জমা দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের সর্বাধিক বিস্তৃত অভ্যন্তরীণ সৌরশক্তি কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বাংলাদেশ মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনাবাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে যা জলবায়ু ঝুঁকি থেকে জলবায়ু সহিষ্ণুতা এবং তা থেকে জলবায়ু সমৃদ্ধি পর্যন্ত একটি যাত্রা।

জলবায়ু ঝুঁকি ফোরাম (সিভিএফ) এবং ভি-২০র সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের মূল লক্ষ্য হচ্ছে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর স্বার্থ তুলে ধরা।

তিনি আরও বলেন, ঢাকায় গ্লোবাল সেন্টার অন অ্যাডাপ্টেশনের দক্ষিণ এশিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের মাধ্যমেও বাংলাদেশ সেরা অনুশীলন ভাগ করে নেয়।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




শি-বাইডেন ফোনালাপ, সংঘাত এড়ানোর প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সাত মাসে প্রথম ফোনালাপে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও চীনের নেতা শি জিনপিং বিশ্বের দুই বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের মধ্যকার প্রতিযোগিতা যেন দ্বন্দ্ব-সংঘাতের দিকে মোড় না নেয় তা নিশ্চিতের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে আলোচনা করেছেন।

বৃহস্পতিবার দুই নেতা বিভিন্ন বিষয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টা কথা বলেছেন বলে হোয়াইট হাউসের বিবৃতির বরাত দিয়ে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। হোয়াইট হাউস বলেছে, বাইডেন ও শি স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিস্তৃত ও কৌশলগত আলোচনা করেছেন। তাদের আলোচনায় অর্থনৈতিক বিষয়ের পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তন এবং কোভিড-১৯ মহামারী প্রাধান্য পেয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ঊর্ধ্বতন এক মার্কিন কর্মকর্তা।

ইন্দো-প্যাসিফিক ও বিশ্বে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধির ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের কথা তুলে ধরেন বাইডেন। প্রতিযোগিতা যেন সংঘাতে না গড়ায় তা নিশ্চিতে দুই দেশের দায়িত্বশীল আচরণের প্রয়োজনীয়তা নিয়েও দুই নেতা আলোচনা করেন, বিবৃতিতে বলেছে হোয়াইট হাউস।

ফেব্রুয়ারিতে শি-বাইডেন ফোনালাপের পর দুই দেশের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের মধ্যে কালেভদ্রে বৈঠক হলেও সেগুলোতে মানবাধিকার, কোভিড-১৯ এর উৎস নিয়ে স্বচ্ছতাসহ নানান বিষয়ে থাকা মতপার্থক্য দূর হয়নি।

বৃহস্পতিবারের ফোনালাপ নিয়ে চীনের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বলেছে, দুই নেতা নিজেদের মধ্যে নিয়মিত যোগাযোগে সম্মত হয়েছেন। শি বাইডেনকে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের চীন নীতিই দুই দেশের সম্পর্কে গুরুতর ঝামেলা বাধিয়ে রেখেছে।

দুই পক্ষই যদি অপর পক্ষের মূল উদ্বেগগুলোর প্রতি সম্মান দেখায়, তাহলে এখনও জলবায়ু পরিবর্তনের মতো ক্ষেত্রে কূটনৈতিক ব্রেক থ্রু সম্ভব; এই ইস্যু দুই দেশের সম্পর্কে ইতিবাচক ফ্যাক্টর যোগ করতে পারে, বলেছেন চীনা প্রেসিডেন্ট।



আরও খবর

আফগানিস্তানে আবারও বিস্ফোরণ, নিহত ৭

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১




টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে বিষাক্ত মদপানে তিন যুবকের মৃত্যু

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ আগস্ট ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৬জন দেখেছেন
Image

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার পাচ এলাসিন গ্রামে বিষাক্ত মদপানে তিন যুবকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) মধ্যে রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার পাচ এলাসিন গ্রামের জুলহাস মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ নাসির মিয়া (২২), বাবুল মিয়ার ছেলে  মোহাম্মদ পারভেজ মিয়া (৩৪) ও কাশেম মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আক্কাস মিয়া (২৩)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে, তিন বন্ধু মিলে তাদের এক বন্ধু নাসিরের মুদির দোকানে বসে মদপান করে। মদপানের পর তারা তিনজনই অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকে। পড়ে একজন ক্রেতা তাদের দোকানে গেলে, তাদের অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে দোকানের পাশের লোকজনকে ডেকে বিষয়টি জানান। পরে খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন তিন জনকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মধ্যে নাসির ও পারভেজকে মৃত ঘোষণা করেন। এরপর চিকিৎসারত অবস্থায় রাত দেড়টার দিকে আক্কাসও মারা যায়।

এ ঘটনায় নিহতদের পরিবারের কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে পূরো এলাকা। স্থানীয়দের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

দেলদুয়ার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ সাজ্জাদ হোসেন জানান, রাতে তিন বন্ধু মদ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাদের টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে। বিস্তারিত জানার পর প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরও খবর



৭ মার্চের ভাষণ পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করতে হাইকোর্টের নির্দেশ

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক এবং মাধ্যমিক স্কুলের পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। রায়ে আদালত বলেছেন, একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি ভাষণটি পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার কাজ করবে।

এ বিষয়ে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি শাহেদ নূরউদ্দিনের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই  রায় দেন।

রিটকারী আইনজীবী ড. বশির আহমেদ আদালতের আদেশের বিষয়টি ঢাকা পোস্টকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, আগের আদেশ অনুযায়ী সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন দ্রুত সম্পন্ন করার নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া জেলায় জেলায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপনে আগের আদেশ বাস্তবায়নেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।  

নিউজ ট্যাগ: ৭ মার্চের ভাষণ

আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১