Logo
শিরোনাম

করোনায় মৃত্যু কমেছে, শনাক্ত বেড়েছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | ৭৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এক দিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২২৭ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৩২ হাজার ৬৯৫ জন

দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু কমেছে, তবে বেড়েছে শনাক্ত। গত ২৪ ঘণ্টায় (বুধবার সকাল ৮টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনায় আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ২৯৪ জন।

বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ২ ২৭ হাজার ৮৪৭ জনে। আর মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৬৮ হাজার ৮৫৭ জনে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এক দিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ২২৭ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৩২ হাজার ৬৯৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯ হাজার ৪৩৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৯ হাজার ৫৩৫টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১ দশমিক ৫০ শতাংশ। এ পর্যন্ত মোট ১ কোটি ৩ লাখ ১ হাজার ৫৯৩ টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ২৩ শতাংশ। প্রতি ১০০ জনে সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭০ শতাংশ এবং মৃত্যুহার ১ দশমিক ৭৭ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে পুরুষ ৩ জন, নারী ৪ জন।

২৪ ঘণ্টায় ঢাকায় ৪ ও চট্টগ্রামে ২ জন মারা গেছেন। বাকি বিভাগগুলোতে কোনো মৃত্যু নেই।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। বাংলাদেশে ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর



যাদের জন্য পেঁপে খাওয়া বিপজ্জনক

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৪৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কাঁচা কিংবা পাকা দুই অবস্থাতেই পেঁপে খাওয়া যায়। ক্ষুধা নিয়ন্ত্রণের ওজন কমানো থেকে শুরু করে শারীরিক নানা ব্যাধি থেকে মুক্তি মেলে নিয়মিত পেঁপে খেলে।

এমনকি হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, ক্যানসার, নিম্ন রক্তচাপের ঝুঁকি কমে। যদিও পেঁপে অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর ফল, তবে সবার জন্য এটি খাওয়া নিরাপদ নয়।

চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক, কোন কোন ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে পেঁপে খাওয়া বিপজ্জনক হতে পারে-

গর্ভবতী নারীরা :

শিশুর বৃদ্ধি ও গর্ভবতী নারীর স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে অবশ্যই পুষ্টিকর খাবার রাখতে হবে। তবে গর্ভকালীন সময়ে পেঁপে খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দেওয়া উচিত।

এই ফলে ল্যাটেক্স থাকে, যা জরায়ু সংকোচন সংকোচনে ভূমিকা রাখে। ফলে গর্ভপাত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

হৃদরোগে যারা ভুগছেন :

পেঁপে খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমতে পারে, তবে আপনি যদি এরই মধ্যে হৃদযন্ত্রের সমস্যায় ভোগেন, তাহলে অবশ্যই এড়িয়ে চলুন পেঁপে।

এক গবেষণার তথ্য অনুসারে, পেঁপেতে অল্প পরিমাণে সায়ানোজেনিক গ্লাইকোসাইড থাকে। এটি হলো এক ধরনের অ্যামিনো অ্যাসিড।

যা মানুষের পাচনতন্ত্রে হাইড্রোজেন সায়ানাইড তৈরি করতে পারে। যদিও উত্পাদিত যৌগের পরিমাণ স্বাস্থ্যের জন্য ততটা ক্ষতিকর নয়।

তবে এর অতিরিক্ত মাত্রায় হৃদরোগের সমস্যা আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। এমনকি হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্ত ব্যক্তিদের উপরও এটি একই প্রভাব ফেলে।

যাদের অ্যালার্জি আছে :

পেঁপেতে থাকে ল্যাটেক্স। যা অ্যালার্জি আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরে মারাত্মক প্রভাব ফেলে। ফলে পেঁপে খেলে অ্যালার্জি হতে পারে। পেঁপেতে থাকে কাইটিনেস নামক এনজাইম থাকে।

ল্যাটেক্স ও কাইটিনেস এনজাইম একত্রে বিপরীত প্রতিক্রিয়া ঘটাতে পারে। ফলে হাঁচি, শ্বাসকষ্ট, কাশি ও চোখ দিয়ে পানি পড়ার সমস্যায় ভুগতে পারে। অনেকেই পাকা পেঁপের গন্ধও সহ্য করতে পারে না।

কিডনিতে পাথর থাকলে :

পেঁপেতে ভিটামিন সি আছে। দৈনিক মাত্রার চেয়েও যদি ভিটামিন সি অত্যধিক গ্রহণ করা হয় তাহলে ক্যালসিয়াম অক্সালেট কিডনিতে পাথর তৈরি হতে পারে। এমনকি এটি পাথরের আকার বাড়িয়ে তোলে। যা প্রস্রাবের মাধ্যমে বের হতে পারে না।

ডায়াবেটিস রোগীদের :

পেঁপে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। তবে যারা হাইপোগ্লাইসেমিয়ায় ভুগছেন অর্থাৎ যাদের রক্তের গ্লুকোজ বা শর্করা হঠাৎ নেমে যায়, তারা পেঁপে খাবেন না।

কারণ মিষ্টি স্বাদের এই ফলে অ্যান্টি-হাইপোগ্লাইসেমিক বা গ্লুকোজ-হ্রাসকারী প্রভাব আছে। তাই হাইপোগ্লাইসেমিয়ায় আক্রান্তদের রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা আরও কমিয়ে দিয়ে পারে পেঁপে। বিভ্রান্তি, দুর্বলতা ও দ্রুত হৃদস্পন্দনের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে।

নিউজ ট্যাগ: পেঁপে

আরও খবর



টিভি নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করেছে তালেবান

প্রকাশিত:সোমবার ২২ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানে টিভি নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করেছে দেশটির ক্ষমতাসীন তালেবান সরকার। নতুন আইন করে টিভি নাটকে নারীদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করল কট্টরপন্থি এই গোষ্ঠীটি। সোমবার (২২ নভেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

এছাড়া নারী সাংবাদিক ও টেলিভিশনে কর্মরত উপস্থাপিকাদেরও হিজাব পরার নির্দেশনা দিয়েছে আফগান সরকার। যদিও তাদেরকে কোন ধরনের হিজাব পরতে হবে সেটি নতুন ওই গাইডলাইনে উল্লেখ নেই। আফগান সাংবাদিকরা বলছেন, আফগান সরকারের কিছু নিয়ম অস্পষ্ট এবং সেগুলোর ব্যাখ্যা প্রয়োজন।

গত আগস্ট মাসের মাঝামাঝি সময়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। এরপর আশঙ্কা বাড়ছে যে, তালেবান কার্যত কট্টরপন্থার দিকেই এগিয়ে যাচ্ছে এবং নারীদের ওপর কঠোর নিয়মকানুন আরোপ করছে।

বিবিসি বলছে, তালেবানের সর্বশেষ গাইডলাইনগুলো মূলত আফগান টেলিভিশন চ্যানোলগুলোকে লক্ষ্য করেই সামনে আনা হয়েছে। এই গাইডলাইনে ৮টি নতুন নিয়ম রয়েছে।

নতুন নিয়মে ইসলাম বা শরীয়াহ পরিপন্থি এবং আফগান মূল্যবোধের বিরুদ্ধে কোনো সিনেমা তৈরি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া সিনেমার দৃশ্যে পুরুষের অনাবৃত শরীর দেখানোও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

কৌতুক ও বিনোদনের অনুষ্ঠানগুলোতে ধর্মকে অসম্মান করে এমন এবং আফগানদের জন্য আক্রমণাত্মক হিসেবে মনে হতে পারে এমন অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একইসঙ্গে বিদেশি সংস্কৃতিকে ছড়িয়ে দিতে পারে এমন বিদেশি সিনেমা প্রদর্শনের ব্যাপারেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

বিবিসি বলছে, আফগান টেলিভিশন চ্যানেলগুলো প্রধানত বিদেশি নাটকই প্রচার করে থাকে এবং সেসব নাটকের প্রধান চরিত্রেও থাকেন নারীরা।

আফগানিস্তানের গণমাধ্যম বিষয়ক একটি সংগঠনের সদস্য হুজাতুল্লাহ মুজাদ্দেদি তালেবানের নতুন এই বিধিনিষেধকে অপ্রত্যাশিত বলে আখ্যায়িত করেছেন। বিবিসিকে তিনি বলেছেন, তালেবানের আরোপিত নতুন নিয়মের কয়েকটি বাস্তবসম্মত নয় এবং এই নিয়ম কার্যকর হলে সম্প্রচারকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে যাবে।

তালেবানের নিষ্ঠুর শাসনের ভয় বিরাজ করছে আফগানিস্তানজুড়ে। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত তালেবানের শাসনামলে নারীদের শিক্ষা ও চাকরির অধিকার ছিল না। তারা পুরুষসঙ্গী ছাড়া একা বাড়ি থেকে বের হতে পারতেন না।

এ কারণেই গত ১৫ আগস্ট তালেবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের দখলে নেওয়ার পর থেকেই ব্যাপকভাবে এই উদ্বেগ জারি রয়েছে যে, আবারও হয়তো আফগানিস্তানের নারী ও মেয়েরা অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।


আরও খবর



সড়ক দুর্ঘটনায় কুষ্টিয়ায় স্কুলছাত্রী নিহত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় তোয়া খাতুন (১১) নামের এক স্কুল শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। আজ শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে কুষ্টিয়া-ঈশ্বরদী মহাসড়কের তালবাড়িয়া ইউনিয়নের রানাখড়িয়া শিমুলতলা বালুঘাট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত তোয়া খাতুন পাবনা জেলার সদর উপজেলার দৌগাছি ইউনিয়নের কুড়ুনিয়া গ্রামের মোকাররম মুন্সির মেয়ে। তালবাড়িয়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) শ্যামা প্রসাদ রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সকালে মোকাররম মুন্সি, তার স্ত্রী ও মেয়ে তোয়াকে নিয়ে মোটরসাইকেলে পাবনা থেকে কুষ্টিয়ায় এক আত্মীয়ের বাড়ি যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে বালুঘাট এলাকায় পৌঁছালে মোটরসাইকেল থেকে পড়ে যায় তোয়া। এসময় পেছন থেকে আসা একটি ট্রাক তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়।


আরও খবর



ভাড়া বাড়বে না সিএনজি চালিত গাড়িতে

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে পরিবহন মালিকদের দাবির মুখে বাসের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। তবে যেসব গাড়ি সিএনজিতে চলে সেসবের ভাড়া বাড়বে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার।

রোববার (৭ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর বনানীতে বিআরটিএ কার্যালয়ে গণপরিবহনে ভাড়া পুনর্নির্ধারণে পরিবহন মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর এক ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান তিনি।

এদিকে নতুন সমন্বিত ভাড়া অনুযায়ী, দূরপাল্লার বর্তমান বাসভাড়া প্রতি কিলোমিটারে ১ টাকা ৪২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১ টাকা ৮০ পয়সা করা হয়েছে। অর্থাৎ কিলোমিটারপ্রতি যাত্রীকে বাড়তি ৩৮ পয়সা গুনতে হবে। এছাড়া বড় বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা, মিনিবাসে ৮ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া মহানগরে বাসের বর্তমান ভাড়া কিলোমিটারে ১ টাকা ৭০ পয়সা, সেটা ২ টাকা ১৫ পয়সা করা হয়েছে। কিলোমিটারে ভাড়া বেড়েছে ৪৫ পয়সা। মহানগরে মিনিবাসের বর্তমান ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে ১ টাকা ৬০ পয়সা। সেটি বাড়িয়ে ২ টাকা ৫ পয়সা করা হয়েছে। কিলোমিটারপ্রতি ৪৫ পয়সা ভাড়া বাড়ানো হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম ঊর্ধ্বগতির কারণে ভারতসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ডিজেল-কেরোসিনের দাম পুনর্নির্ধারণ করে সরকার। গত বুধবার (৩ নভেম্বর) রাতে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়। নতুন দাম ভোক্তা পর্যায়ে ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা করা হয়েছে। যা বৃহস্পতিবার থেকে কার্যকর হয়।

ডিজেল-কেরোসিনের দাম বাড়ানোর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরদিনই পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা এ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন। এরপর শুক্রবার (৫ নভেম্বর) সকাল ছয়টা থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট শুরু করে বাস, ট্রাকসহ পণ্যবাহী যানবাহনের মালিকেরা। এতে সারাদেশে মানুষকে ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। ধর্মঘট অনির্দিষ্টকালের হওয়ায় দুর্ভোগ কবে শেষ হবে, এ নিয়েও অনিশ্চয়তায় পড়ে মানুষ।


আরও খবর



১০ দিন পর যান চলাচলের জন্য খুলছে টঙ্গী ব্রিজ

প্রকাশিত:শনিবার ২০ নভেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ১০ দিন ধরে এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারী যাত্রী ও বিভিন্ন যানবাহনের চালকদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ভেঙে যাওয়া গাজীপুরের টঙ্গী ব্রিজের ঝুঁকিপূর্ণ অংশের সংস্কারকাজ শেষে হয়েছে। শনিবার (২০ নভেম্বর) রাত ৯টার দিকে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে ব্রিজটি।

সন্ধ্যায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের সেতু বিভাগের প্রকল্প পরিচালক মহিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আজ সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেবো। সেতুর যে অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল তা সংস্কার করা হয়েছে। আজ মধ্যরাতে ব্রিজটি খুলে দেওয়ার কথা ছিল। পরে তারও কিছু সময় আগে অর্থাৎ রাত ৯টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ও গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সঙ্গে নিয়ে খুলে দেবো। তখন গাজীপুরের গাড়িগুলো সোজা চলাচল করবে।

তিনি আরও বলেন, এরই মধ্যে ওখানকার (সংস্কার অংশে) একটি কিউরিং টেস্ট করিয়েছিলাম, তাও হাতে পেয়েছি। এরপরই ব্রিজটি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। নির্মাণাধীন নতুন সেতুর কাজ সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত মেরামত করা সেতু দিয়েই যানবাহন চলাচল করবে।

শনিবার সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ঝুঁকিপূর্ণ সেতুর ওপর ঢালাই দেওয়া অংশে পানিযুক্ত চটের ব্যাগ বিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। সেতুর নিচে লোহার পাটাতন থেকে অস্থায়ী লোহার মইগুলো সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। শেষ মুহূর্তের পিচ ঢালাইয়ের জন্য বালু ও পিচভর্তি ড্রাম প্রস্তুত করা হচ্ছে। ব্রিজের এক পাশ দিয়ে পথচারীরা হেঁটে চলাচল করছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ১০ দিন ধরে এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারী যাত্রী ও বিভিন্ন যানবাহনের চালকদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। থেমে থেমে যানবাহন চলাচল ও যানজটের কারণে অনেকে সময়মতো অফিস-আদালত ও নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে পারেননি। ব্রিজটি সংস্কার হলেই এ সড়ক দিয়ে যাতায়াতকারী সব শ্রেণির মানুষ নিরাপদ ও স্বল্প সময়ে চলাচল করতে পারবে।

ব্রিজের স্ল্যাব ভেঙে পড়ার পরে দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞরা ক্ষতিগ্রস্ত সেতুটি পরিদর্শন করে তা সংস্কারের জন্য ১২ দিন সময় নেন। সে মোতাবেক ২১ নভেম্বর সেতুতে যান চলাচল শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিআরটি কর্তৃপক্ষ জনদুর্ভোগ লাঘবে গুরুত্ব বিবেচনায় নির্দিষ্ট সময়ের একদিন আগেই সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে।

গত ৯ নভেম্বর টঙ্গী ব্রিজের ঝুঁকিপূর্ণ অংশটি চিহ্নিত হয়। পরদিন ১০ নভেম্বর রাতে ব্রিজ দিয়ে ঢাকামুখী যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। ঢাকামুখী যানবাহনগুলো কামারপাড়া সড়কের মোড় ঘুরে রাজধানীতে প্রবেশের বিকল্প ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। এতে রাজধানীর উত্তর অংশ ও টঙ্গীতে দীর্ঘ যানজটে নাকাল হন যাত্রী ও যানবাহন চালকরা। ১২ নভেম্বর থেকে ব্রিজের সংস্কারকাজ শুরু হয়।

নিউজ ট্যাগ: টঙ্গী ব্রিজ

আরও খবর