Logo
শিরোনাম

নিয়োগ দেবে সোপিরেট, বেতন ১৭ হাজার টাকা

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ মার্চ ২০২১ | ৯৫জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সোপিরেট। সংস্থাটিতে এমআরএ সনদপ্রাপ্ত ও পিকেএসএফের সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচালিত ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচির (মাইক্রোক্রেডিট) জন্য উল্লেখিত পদে সংস্থার কর্মএলাকায় গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী প্রার্থীদের জরুরি ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে। প্রতিষ্ঠানটিতে ফিল্ড অফিসার’ পদে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম: ফিল্ড অফিসার।

পদসংখ্যা: এই পদে সর্বমোট ৩০ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে।

যোগ্যতা

প্রার্থীকে স্নাতক/স্নাতকোত্তর পাস হতে হবে। পুরুষ প্রর্থীরা আবেদন করতে পারবেন। ক্ষুদ্রঋণ কর্মসূচিতে পিকেএসএফের সহযোগী সংস্থায় ন্যূনতম এক বছরের বাস্তব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। প্রার্থীদের কম্পিউটার বিষয়ে পারদর্শী হতে হবে। বাইসাইকেল চালানোয় দক্ষ ও নিজস্ব বাইসাইকেল থাকতে হবে। চাকরিতে যোগদানের সময় উক্ত পদের বিপরীতে উল্লেখিত বেতনের সমপরিমাণ টাকা জামানত হিসেবে (ফেরতযোগ্য) জমা দিতে হবে। অনূর্ধ্ব ৩৫ বছর বয়স পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।

কর্মস্থল: কুমিল্লা, চাঁদপুর, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী।

বেতন: ১৫,০০০-১৭,০০০/ (মাসিক) প্রশিক্ষণকালীন এক মাস সাত হাজার টাকা হারে ভাতা প্রদান করা হবে। প্রশিক্ষণকাল শেষে যোগ্যতা সাপেক্ষে প্রকৃত বেতন নির্ধারিত হবে।

 কোম্পানির সুযোগ-সুবিধাদি

মোবাইল বিল প্রদান করা হবে। কর্মএলাকায় বিনা খরচে একক আবাসন সুবিধা দেওয়া হবে। উৎসাহ ভাতা, বৈশাখী ভাতা ও সংস্থার নিয়মানুযায়ী অন্যান্য সুবিধা প্রদান করা হবে। শিক্ষানবিশকাল শেষে মূল্যায়নের ভিত্তিতে সংস্থার নির্ধারিত বেতন কাঠামো অনুযায়ী সব সুবিধা (বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট, বার্ষিক দুটি উৎসব ভাতা, কন্ট্রিবিউটরি প্রভিডেন্ট ফান্ড এবং গ্র্যাচুইটি) প্রদান করা হবে।

আবেদনের প্রক্রিয়া

আগ্রহী প্রার্থীদের ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ তারিখ বিকেল ৫টার মধ্যে নির্বাহী পরিচালক বরাবর স্বহস্তে লিখিত আবেদনপত্রের সঙ্গে পূর্ণ জীবনবৃত্তান্ত, সদ্য তোলা দুই কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদিসহ (সব শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি) সোপিরেটের প্রকল্প প্রধান কার্যালয়; শেখ রাসেল সড়ক, সমসেরাবাদ, লক্ষ্মীপুর-৩৭০০—এই ঠিকানায় সরাসরি/ডাক/কুরিয়ারযোগে প্রেরণের জন্য আহ্বান করা যাচ্ছে। খামের ওপরে পদের নাম উল্লেখ করতে হবে। শুধু বাছাইকৃত প্রার্থীদের মোবাইল/এসএমএস/ই-মেইলের মাধ্যমে পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে।পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কোনো প্রকার টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।

যেকোনো ধরনের সুপারিশ প্রার্থীর অযোগ্যতা বলে গণ্য হবে। ইতোপূর্বে দায়িত্ব পালনে অনিয়ম করেছেন, নারী ও শিশু নির্যাতনের অভিযোগে অভিযুক্ত এমন প্রার্থীদের আবেদন করার প্রয়োজন নেই।

আবেদনের শেষ তারিখ: ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১।

নিউজ ট্যাগ: সোপিরেট
Share

আরও খবর



এইচ টি ইমামের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ মার্চ ২০২১ | ৫৯জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এইচ টি ইমাম প্রবাসী সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এইচ টি ইমাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক উপদেষ্টা হোসেন তৌফিক ইমামের (এইচ টি ইমাম) মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখপ্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এক শোকবার্তায় এইচ টি ইমামের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।

কিডনি জটিলতাসহ বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন অসুস্থতা নিয়ে প্রায় মাসখানেক আগে এইচ টি ইমাম ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি হন। বুধবার দিবাগত রাত সোয়া ১টায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় এইচ টি ইমামের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত মরদেহ রাখা হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। বাদ আসর গুলশান আজাদ মসজিদে জানাজা শেষে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে।

১৯৩৯ সালে জন্মগ্রহণকারী এইচ টি ইমামের বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। দেশের প্রথম মন্ত্রিপরিষদ সচিব তিনি। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি। ২০১৪ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন হোসেন তৌফিক ইমাম। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এইচ টি ইমাম প্রবাসী সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এইচ টি ইমাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। পরবর্তীকালে তিনি লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস থেকে উন্নয়ন প্রশাসনে ডিগ্রি লাভ করেন।

Share

আরও খবর



যে কারণে ইসলাম ত্যাগ করে ইহুদি হলেন কুয়েতের গায়িকা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১ | ৮০জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
আমার পরিবার আমাকে গ্রহণ করবে কিনা আমি জানি না। তবে এ নিয়ে আমি শঙ্কিত নই। সবারই নিজের একটি চিন্তাশক্তির জায়গা রয়েছে

পশ্চিম কিংবা মধ্যপ্রাচ্যে অনেক তারকাই নানা ধর্ম থেকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন বলে খবর শোনা যায় প্রায়ই। তবে এবার ইসলাম থেকে ইহুদি ধর্ম গ্রহণ করে হৈচৈ ফেলে দিলেন কুয়েতি গায়িকা বাসমা-আল-কুয়েতি। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক ভিডিও শেয়ার করে তিনি নিজেই তার ধর্মান্তরিত হওয়ার খবরটি প্রকাশ্যে আনেন।

বুধবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বাসমা-আল-কুয়েতির পোস্ট করা ভিডিওতে তিনি বলেন, প্রথমেই সন্ত্রাস এবং ভণ্ডামির প্ররোচণায় চলতে থাকা এক ধর্ম থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে আসতে পেরে খুব আনন্দবোধ করছি। আপনারা সকলেই জানেন আমার ইহুদি ধর্ম গ্রহণ করার কথা। ইসলাম মেয়েদের নানা অধিকার থেকে বঞ্চিত করে। তাই এই ধর্ম থেকে বের হয়ে নিজেকে অনেক গর্বিত মনে করছি।

নিজের পরিবার এবং দেশের ভাবনা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি আরও জানান, আমার পরিবার আমাকে গ্রহণ করবে কিনা আমি জানি না। তবে এ নিয়ে আমি শঙ্কিত নই। সবারই নিজের একটি চিন্তাশক্তির জায়গা রয়েছে। দেশ নিয়ে বললে, আমি এর আগেও কুয়েতের রাজতন্ত্র নিয়ে প্রকাশ্যে নিন্দা করেছি। এমনকি আমাদের দেশের সাথে ইসরায়েলের সম্পর্ক স্থাপনে অস্বীকার করার ব্যপারটিও ঘৃণার চোখে দেখি।

প্রসঙ্গত, কুয়েতি মায়ের কাছে বড় হওয়া বাসমা জন্মসুত্রেও একজন কুয়েতের নাগরিক। কিন্তু অনেকর মতে নাগরিক হিসেবে তিনি ইরাকের জাতীয় পরিচয়পত্র বহন করেন। তবে একটি সুত্র জানিয়েছে, বাসমা বর্তমানে কুয়েত সরকারের কড়া নজরদাড়িতে রয়েছেন। তার টুইট একাউন্টসহ সবকিছুতেই খেয়াল রাখা হচ্ছে। বাসমার কারণে জনগণ বিভ্রান্ত হলে শিগগিরই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share

আরও খবর



কুমিল্লায় ডাকাতিকালে সেনা হত্যায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়, এছাড়া একজনকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

কুমিল্লায় সেনাবাহিনীর সদস্য আবদুর রহমানকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় চার আসামিকে মৃত্যুদণ্ড ও একজনকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

সোমবার (৮ জানুয়ারি) কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ চতুর্থ আদালতের বিচারক রোজিনা খান এই রায় দেন।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেন, মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট শেখ মাসুদ ইকবাল মজুমদার।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলো, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার চম্পকনগর বাদারিয়া কালোনী এলাকার সিরাজুল ইসলাম (৪০), চট্টগ্রাম জেলার বায়েজিদ উপজেলার চন্দন কলাবাগান এলাকার জনি (২৩), বাহ্মণবাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার উথারিয়া পাড়া এলাকার উজ্জল মিয়া (২০) ও হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার মশাখালী এলাকার প্রদীপ দাস (২২)। এছাড়া ১০ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সদর উপজেলার বাসুদেব এলাকার আলী আক্কাছ (৩৫)।

আসামিদের মধ্যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা জেল-হাজতে ও শুধুমাত্র কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আলী আক্কাছ বর্তমানে পালাতক রয়েছে।

অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) এডভোকেট শেখ মাসুদ ইকবাল মজুমদার সুত্রে জানা যায়, চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার মদনের গাঁও এলাকার হাফেজ মাওলানা মফিজুল ইসলামের ছেলে আবদুর রহমান (২৪) সেনাসদস্য হিসেবে বগুড়া সেনানিবাসে কর্মরত ছিলেন। ২০১৬ সালের ২১ অক্টোবর বাড়ি থেকে বগুড়া সেনানিবাসে যোগদানের উদ্দেশ্যে ট্রেন অথবা বাসে রওনা হয়। পরদিন ২২ অক্টোবর আবদুর রহমানের পরিবার জানতে পারে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট রেলওয়ে স্টেশনের দক্ষিণ গোত্রশাল দীঘির পশ্চিম পাশে জখম অবস্থায় লাশ পড়ে আছে।

পরে লাকসাম রেলওয়ে থানা সেনাসদস্য আবদুর রহমানের মরদেহ উদ্ধার করে। ওই দিন আবদুর রহমানের বাবা হাফেজ মাওলানা মফিজুল ইসলাম বাদী হয়ে লাকসাম রেলওয়ে থানায় হত্যা মামলাটি দায়ের করে। পরে পুলিশ তদন্ত করে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের গ্রেফতার করে।

Share

আরও খবর



সাগর থেকে উদ্ধার করা রোহিঙ্গাদের রাখতে চায় না ভারত

প্রকাশিত:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ মার্চ ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আন্দামান সাগর থেকে উদ্ধার করা ৮১ রোহিঙ্গাকে ভূখণ্ডে ঢুকতে দেবে না ভারত। তাদের কোস্টগার্ডের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়েছে।

ইঞ্জিন বিকল হওয়ায় কয়েকদিন ধরে সাগরে বেসে বেড়াচ্ছিল রোহিঙ্গাদের বহনকারী নৌকাটি। ভারতীয় কোস্ট গার্ডের দুটি জাহাজ তাদের উদ্ধার করেছে। তবে নৌকার আট যাত্রী মারা গেছেন। একজন নিখোঁজ।

ভারতের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মালয়েশিয়া যেতে আগ্রহী ওই রোহিঙ্গাদের নিয়ে একটি নৌকা গত ১১ ফেব্রুয়ারি কক্সবাজার থেকে রওনা হয়েছিল। তাদের সেই নৌকাটি বিকল হয়ে যায়। সেটি মেরামত করে বা অন্য একটি নৌযানে করে তাদের বাংলাদেশে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

গত সপ্তাহে জাতিসংঘ ওই রোহিঙ্গাদের উদ্ধার করতে এই অঞ্চলের সরকারগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল। 

এর প্রতিক্রিয়ায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন সাংবাদিকদের বলেছেন, রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশ যথেষ্ট করেছে। এবার অন্য দেশগুলো তাদের দায়িত্ব নিক।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, ভারত ওই রোহিঙ্গাদের দেশে রাখতে চায় না। বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে চায়। 

তিনি জানিয়েছেন, 'নৌকার ৪৭ জন যাত্রীর কাছে ইউনাইটেড নেশন, হাই কমিশনার ফর রিফিউজিস (ইউএনএইচসিআর)-এর পরিচয়পত্র ছিল। তাতে লেখা, তারা মিয়ানমার থেকে ছিন্নমূল হয়ে বাংলাদেশে এসেছেন। বাংলাদেশের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা চলছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ তার আন্তর্জাতিক দায়দ্ধতার প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধাশীল। এর আগে অন্য দেশের সুমদ্রসীমায় যখন রোহিঙ্গারা অসহায় অবস্থায় ভাসছিল, তখন বাংলাদেশ সরকার অন্য দেশের সুমদ্রসীমানা থেকে তাদের উদ্ধার করেছিল।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, সমুদ্রবিষয়ক জাতিসংঘের আইন অনুযায়ী, যে দেশের সমুদ্রসীমায় এ ধরনের জাহাজ ভাসমানভাবে অবস্থান করবে, সেটি উদ্ধার করার দায়িত্ব ওই দেশের। ওই দেশগুলোর উচিত তাদের যে আন্তর্জাতিক দায়বদ্ধতা আছে, সেটি যেন তারা পূরণ করে।

 

Share

আরও খবর



কক্সবাজারে বাসের ধাক্কায় ৪ অটোরিকশাযাত্রী নিহত

প্রকাশিত:বুধবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১ | ৬১জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের টেকনাফের হোয়াইক্যং লম্বাবিল এলাকায় যাত্রাবাহী একটি মিনিবাসের চাপায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার চার যাত্রী নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন তিনজন।

বুধবার সকাল ১০টার দিকে উপজেলায় হোয়াইক্যং লম্বাবিল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে টেকনাফ থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান।

Share

আরও খবর