Logo
শিরোনাম

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে সাকিবদের হারালো মাশরাফির সিলেট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০২৩ | ৮৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মিরপুরে শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত বিপিএলে দিনের প্রথম ম্যাচের রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে সাকিব আল হাসানের বরিশালকে ২ রানে হারিয়েছে মাশরাফির সিলেট স্ট্রাইকার্স। আর তাতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষেই থাকল মাশরাফিরা। শুরুতে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৭৩ রান তুলে সিলেট। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৭১ রানে থেমেছে বরিশালের ইনিংস।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো হয় ফরচুন বরিশালের। ওপেনিং জুটিতে ৪.৫ ওভারে আসে ৪৫ রান। ১৯ বলে ৩১ রান করে আউট হন সাইফ হাসান। পরের উইকেটে খেলতে নেমে ২ রানে ফেরেন এনামুল হক বিজয়।

এরপর তৃতীয় উইকেট জুটি দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে মাধ্যমে দলকে জয়ের দিকে নিতে থাকেন দলনেতা সাকিব আল হাসান ও ইব্রাহিম জাদরান। কিন্তু ৪২ রানে জাদরান ও ২৯ রানে সাকিব আউট হলে চাপে পড়ে যায় দল। পরে ইফতেখার ও করিম জানাতদের প্রচেষ্টা বিফলে চলে যায়। করিম ২১ রানে, মাহমুদউল্লাহ ৭ রানে, মিরাজ ৭ রানে ও ইফতেখার ১৭ রানে আউট হন। আর ১০ রানে ওয়াসিম ও ১ রানে রাব্বী অপরাজিত থাকেন।

এর আগে ম্যাচের শুরুতে টস জিতে সিলেট স্ট্রাইকার্সকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান ফরচুন বরিশালের দলনেতা সাকিব আল হাসান। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে বরিশালের মোহাম্মদ ওয়াসিমের করা এক ওভারেই বিপর্যয়ে পড়ে যায় সিলেট। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই তিন উইকেট তুলে নেন ওয়াসিম। জাকির-মুশফিক শূন্যরানে ও হৃদয় ৫ রানে আউট হন।

মাত্র ১৫ রানে তিন উইকেটে হারিয়ে চাপে পড়া দলের হাল ধরেন ওপেনার নাজমুল হাসান শান্ত ও দলের ইংলিশ উইকেটকিপার ব্যাটার টম মুর। এ সময় দুজন মিলে ৮১ রানের জুটি গড়ে দলীয় স্কোর বাড়াতে থাকেন। ৩০ বলে ৪০ রান করে আউট হন মুর। পরের উইকেটে খেলতে নেমে ১৬ বলে ২১ রান করেন পেরেরা।

এদিকে আপনতালে খেলতে থাকা শান্ত ব্যক্তিগত অর্ধশতক পূরণের পর অপরাজিত থাকেন ৮৯ রানে। মাত্র ৬৬ বলে খেলা তার এই ইনিংসটি ১১টি চার ও একটি ছয়ে সাজানো। এদিকে ৫ রানে রিটায়ার্ড হার্ট হন ওয়াসিম। আর শূন্যরানে অপরাজিত থাকেন তানজীম হাসান সাকিব।


আরও খবর



নির্বাচন নিয়ে আবারও অবস্থান পরিষ্কার করল জাতিসংঘ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ জানুয়ারী ২০২৪ | ৮৭০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আবারও বাংলাদেশের নির্বাচন ইস্যুতে কথা বলেছে জাতিসংঘ। স্থানীয় সময় সোমবার (২২ জানুয়ারি) জাতিসংঘের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে ফের উঠে আসে নির্বাচন ইস্যু।

জাতিসংঘের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক জানান, বাংলাদেশে দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়ে জাতিসংঘের অবস্থান আগের মতোই রয়েছে। একইসঙ্গে নির্বাচনের পর জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার যা বলেছেন সেটিও অপরিবর্তিত রয়েছে।

মূলত টানা চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী পুনর্নির্বাচিত হওয়ার পর শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে জাতিসংঘের দেওয়া চিঠির বিষয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

সোমবারের ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিক শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে জাতিসংঘের দেওয়া চিঠির বিষয়ে জানতে চান। তিনি বলেন, মহাসচিবের এমন চিঠি নির্বাচন নিয়ে জাতিসংঘের পূর্বের অবস্থান এবং নির্বাচন নিয়ে মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার যে বিবৃতি দিয়েছেন তার সঙ্গে সাংঘর্ষিক কিনা?

জবাবে জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেন, এটি সাংঘর্ষিক না। জাতিসংঘ মহাসচিব প্রধানমন্ত্রীর কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছেন, যেমনটা বিভিন্ন দেশের সরকারপ্রধান বা রাষ্ট্রপ্রধানরা পুনর্নির্বাচিত হলে মহাসচিব পাঠিয়ে থাকেন।

তিনি আরও বলেন, তারা আগে যা বলেছেন এবং মানবাধিকার হাইকমিশনার আগে যা বলেছেন, তা অপরিবর্তিত রয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়েও কথা বলেছেন তিনি। ডুজারিক বলেছেন, কাউকে কখনও প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়। কোনও শরণার্থীকে জোর করে বা তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়।

এছাড়া এদিনের ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নকারী বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসন নিয়ে জানতে চান। তিনি বলেন, আপনি জানেন- বাংলাদেশ ২০১৭ সাল থেকে প্রায় সাত বছর ধরে ১২ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে।

অন্যদিকে, মানবিক তহবিল, আন্তর্জাতিক মানবিক সহায়তা সম্পর্কিত মনোযোগ, সবকিছু সঙ্কুচিত হয়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জাতিসংঘ মহাসচিবের পরিকল্পনা কী?

জবাবে জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র এই মুখপাত্র বলেন, প্রথমত, কাউকে কখনও প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়। কোনও শরণার্থীকে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রত্যাবাসন করা উচিত নয়। এটি এমন পদ্ধতিতে স্বেচ্ছায় হওয়া দরকার যেখানে তাদের মর্যাদা এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত থাকবে।

তিনি বলেন, এটা পরিষ্কার যে, মিয়ানমারের পরিস্থিতি বর্তমানে প্রত্যাবাসনের জন্য দরকারি প্রয়োজনীয়তা পূরণ করছে না। যেসব সম্প্রদায় উদারভাবে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আতিথেয়তা দিয়েছে, তাদের জন্য বিশ্বব্যাপী সংহতি বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। যেমন কক্সবাজারের সম্প্রদায়, মহাসচিব এটি পরিদর্শন করেছেন।

স্টিফেন ডুজারিক বলেন, শরণার্থীদের সবার সংহতি প্রয়োজন এবং আশ্রয়দানকারী সম্প্রদায়গুলোরও জাতিসংঘের ও সারা বিশ্বের সংহতি প্রয়োজন। এবং এসব কিছুর জন্যই আমাদের তহবিল আরও বৃদ্ধি করা দরকার।


আরও খবর

দেশে পুরুষের চেয়ে নারীর সংখ্যা বেশি

মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩