Logo
শিরোনাম

সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন মালিঙ্গা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
  • ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিলেন লাসিথ মালিঙ্গা। ক্রিকেটের সব ফরম্যাট থেকে বিদায় নিলেন শ্রীলংকান এই তারকা পেসার।

    পেস আক্রমণে ব্যাটসম্যানদের নাকানিচুবানি খাওয়ানো মালিঙ্গার নেতৃত্বে ২০১৪ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতে শ্রীলংকা।

    ক্রিকেট থেকে বিদায়ের আগেই টি-টোয়েন্টির সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে রেকর্ড সর্বোচ্চ ১০৭ উইকেট শিকার করেন মালিঙ্গা। ১০৬ উইকেট শিকার করে দ্বিতীয় পজিশনে আছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

    সম্প্রতি লাসিথ মালিঙ্গা তার ইউটিউব চ্যানেলে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন, যেখানে টি-টোয়েন্টিতে তার উইকেটের পরিসংখ্যান দেখানো হয়েছে। ভিডিওর ক্যাপশনে তিনি বলেন- যদিও আমার জুতা বিশ্রাম নেবে তবে খেলার প্রতি আমার ভালোবাসা কখনই বিশ্রাম নেবে না।’

    এর আগে ২০১১ সালের ২২ এপ্রিলে মালিঙ্গা টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নেন। ২০১৯ সালের ২৬ জুলাই ওয়ানডে থেকে অবসর নেন।

    অক্টোবর-নভেম্বরে আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিতব্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটের সব ফরম্যাট থেকেই বিদায় নিলেন মালিঙ্গা।

    লাসিথ মালিঙ্গা শ্রীলংকার হয়ে ৩০ টেস্টে শিকার করেন ১০১ উইকেট। ২২৬টি ওয়ানডেতে অংশ নিয়ে শিকার করেন ৩৩৮ উইকেট। আর ৮৪টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অংশ নিয়ে রেকর্ড সর্বোচ্চ ১০৭ উইকেট শিকার করে শীর্ষে রয়েছেন।


আরও খবর

পেলে ফের আইসিইউতে

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

জেমিকে অব্যাহতি, নতুন কোচ অস্কার ব্রুজন

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১




শেহনাজের কোলে মাথা রেখেই ঘুমিয়ে পড়েন সিদ্ধার্থ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বলিউডের তরুণ মডেল ও অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লা মারা গেছেন। মাত্র ৪০ বছরেই জীবনের ইতি টানলেন তিনি। তার এই আকস্মিক মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না বলিউডপ্রেমীরা। তবে সবচেয়ে বেশি যিনি আঘাত পেয়েছেন, ভেঙে পড়েছেন, তিনি শেহনাজ গিল, সিদ্ধার্থের প্রেমিকা।

বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) রাতে সিদ্ধার্থের বাড়িতেই ছিলেন শেহনাজ গিল। এদিন সন্ধ্যারাত থেকেই অস্বস্তি বোধ করছিলেন অভিনেতা। তখন শেহনাজ ও সিদ্ধার্থের মা রিতা শুক্লা ছিলেন পাশে। তারা সিদ্ধার্থকে লেবু পানি ও আইসক্রিম খাওয়ান। যাতে তার অস্বস্তি কাটে।

রাত দেড়টার দিকে শেহনাজের কোলে মাথা রেখেই ঘুমিয়ে পড়েন সিদ্ধার্থ। ঘুমিয়ে যান শেহনাজও। সকালে শেহনাজ ঘুম থেকে উঠে দেখেন সিদ্ধার্থ নড়াচড়া করছেন না। এরপর পরিবারের অন্যদের ডাকেন। তাৎক্ষনিক হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু ততক্ষণে চিরতরে না ফেরার দেশে চলে গেছেন অভিনেতা। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রেমিকের মৃত্যুতে একেবারে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছেন শেহনাজ। গণমাধ্যমের সঙ্গে পর্যন্ত কথা বলছেন না। তার বাবা সন্তোষ সিং সুখ বলেন, ও কথা বলতে পারছে না ঠিকমতো। শুধু একটা কথাই বারবার বলছে- বাবা, আমার হাতে ও পৃথিবী ছেড়ে চলে গেল। আমি এবার কীভাবে বাঁচব?


আরও খবর



রাজধানীতে হেলে পড়া সেই ভবনটি ভাঙা হচ্ছে কাল

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৭ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর সূত্রাপুরে ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের তনুগঞ্জ লেনের কুলুটোলায় হেলে পড়া ভবনটি ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)।

শুক্রবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান ডিএসসিসির জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের।

জানা যায়, গত ১৯ আগস্ট ওই এলাকার ৪৭/২ তনুগঞ্জ লেনে হাজী বাড়ি নামের ছয়তলা ভবনটি হেলে পড়ে। ঘটনার পরপরই ভবনটি সীলগালা করে দেওয়া হয়। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় আগামীকাল (২৮ আগস্ট) থেকে এটি ভেঙে ফেলার কার্যক্রম শুরু করবে ডিএসসিসি।

আবু নাছের জানিয়েছেন, আগামীকাল শনিবার দুপুর থেকে শুরু হবে ভাঙার কাজ।

দক্ষিণ সিটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ ও রাজউক চেয়ারম্যান এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কার্যক্রম পরিদর্শনের কথা রয়েছে।

১৯ আগস্ট ভবন হেলে পড়ার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছান। এসময় তারা ভবনের কিছু বাসিন্দাকে উদ্ধার করেন বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার কামরুল হাসান।

সেদিনই রাজউক চেয়ারম্যান এবিএম আমিন উল্লাহ নুরী, দক্ষিণ সিটির ঝুঁকিপূর্ণ ভবন সংক্রান্ত কারিগরি কমিটির সভাপতি ও করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী মো. রেজাউর রহমান ও সদস্য সচিব খায়রুল বাকের, ঢাকা জেলার জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম, ডিএসসিসির ঝুঁকিপূর্ণ ভবন সংক্রান্ত আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি ও অঞ্চল-৫ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন সরকার, সদস্য সচিব সাইফুল ইসলাম জয়, ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মিজানুর রহমান ইমন এবং ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, তিতাস গ্যাস ও ডিপিডিসির শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা, স্থানীয় থানার কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

দক্ষিণ সিটির অঞ্চল-৫ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন সরকার বলেন, নিজ উদ্যোগে ভবনটি ভেঙে ফেলার কার্যক্রম শুরু করেছেন বাড়ির মালিক। শুক্রবার ভবনের দরজা-জানালা অপসারণসহ প্রাথমিক কার্যক্রম শুরু হয়েছে। শনিবার ভবনের মূল অবকাঠামো ভাঙা শুরু হবে।

৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মিজানুর রহমান ইমন বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ ভবন অপসারণে কাজ করছেন বাড়ির মালিক। আমরা তার পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করব।


আরও খবর



লবণ সরবারাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা

প্রকাশিত:শনিবার ২১ আগস্ট 20২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামপুর লবণ শিল্প এলাকার একমাত্র সড়কটি এখন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। প্রায় ২ কিলোমিটার সড়কজুড়ে ভরে গেছে খানা-খন্দে। ফলে যানবাহন দূরে থাক পায়ে হাঁটাও দুরূহ হয়ে পড়েছে। প্রায় সময় গর্তে পড়ে উল্টে খাদে পড়ছে লবণবোঝাই ট্রাক। গত দুই মাসে অন্তত ৫০টি লবণবোঝাই ট্রাক উল্টে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এরপরও সংশ্লিষ্টদের কোনো উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। ফলে  ভাঙা সড়কের কারণে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যে কোনো সময় সারা দেশে লবণ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন লবণ ব্যবসায়ীরা। এতে সারা দেশে লবণ সংকটের আশঙ্কা রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ থেকে আসা ট্রাক চালক আবুল বশর বলেন, পরিবহণের কারণে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাওয়া হয়। ইসলামপুরের মত অকেজো সড়ক কোথাও দেখিনি। বৃষ্টির পানি জমে থাকলে বুঝা যায় না কোথায় গর্ত আর সমতল। সরু হওয়ায় অন্য পাশ দিয়েও যাওয়া যায় না। এতে প্রতিদিন অনেক ট্রাক উল্টে দুর্ঘটনায় শিকার হয়। একই কথা বলেছেন, ট্রাকচালক, নুরুল আলম, আবদু রহমানসহ আরও অনেকেই।

ইসলামপুর লবণ মিলমালিক সমিতির সভাপতি শামশুল ইসলাম আজাদ বলেন, কক্সবাজারই দেশের একমাত্র লবণ উৎপাদনের জেলা। সারাবছর জেলায় যা লবণ উৎপাদন হয় তা পর্যায়ক্রমে ট্রলার ও ট্রাকযোগে ইসলামপুরে নিয়ে আসেন ব্যবসায়ীরা। পরে লবণগুলো ইসলামপুরের ৭০টি লবণ মিল থেকে প্রক্রিয়াজাত করে ট্রাকযোগে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বাজারজাত করা হয়।

দৈনিক ৮০ থেকে ১০টি লবণবোঝাই ট্রাক সারা দেশে লবণ সরবরাহ করে থাকে।

তিনি বলেন, এরপরেও গত চার বছর ধরে লবণ শিল্প এলাকার এক মাত্র সড়কটি গাড়ি চলাচলের অনুপোযোগী পড়লেও তা সংস্কারের গড়িমসি করা হচ্ছে। অথচ ট্রাকপ্রতি দুই থেকে আড়াই হাজার টাকা চাঁদা আদায় করা হয়।

একের পর এক লবণবোঝাই ট্রাক উল্টে খাদে পড়ে যাওয়ার ঘটনায় যে কোনো সময় সারা দেশে লবণ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যেতে পারে উল্লেখ করে মিল মালিক সমিতির সভাপতি শামশুল ইসলাম আজাদ জানান একটি ট্রাক উল্টে গেলে কমপক্ষে এক লাখ টাকা ক্ষতির সম্মুখীন হয় ব্যবসায়ীরা।

সড়কটি কাজের সার্বিক বিষয়ে জানতে মেসার্স চকরিয়া ডেভেলপমেন্ট সোসাইটির মালিক ফরিদুল আলমের মোবাইল ফোনে বেশ কয়েকবার কল করা হয়। কিন্তু তিনি কল রিসিভ করেননি।

এলজিইডি কক্সবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিসুর রহমান জানান, সড়কটি আসলেই অতিগুরুত্বপূর্ণ। চলমান কাজ দ্রুত সম্পন্ন করতে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারকে তাগাদা দেয়া হচ্ছে।

নিউজ ট্যাগ: লবণ সরবারাহ

আরও খবর



পেলে ফের আইসিইউতে

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হাসপাতাল থেকে বাসায় ফেরার সাতদিনের মাথায় আবারও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি পেলে। স্থানীয় সময় শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) তাকে সাও পাওলোর একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাখা হয়েছে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র তথা আইসিইউতে। খবর রয়টার্সের।

চলতি মাসের শুরুতে তার কোলন টিউমার অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল। এরপর সাতদিন আগে তাকে হাসাপাতাল থেকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। শুক্রবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে সাও পাওলোর আলবার্ট আইনস্টাইন হাসপাতালের আইসিইউ কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়। ৮০ বছর বয়সী তিনবারের এই বিশ্বকাপ জয়ী তারকাকে সার্বক্ষণিক ডাক্তারি পরিচর্যার মধ্যে রাখা হয়েছে। তবে হাসপাতাল থেকে এর বেশি কিছু জানানো হয়নি।

তবে পেলের মেয়ে কেলি নাসিমেন্ত জানিয়েছেন তারা বাবার অবস্থা বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী অনেকেই আমার বাবার অসুস্থতা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন। তাদের আর অস্থিরতার মধ্যে রাখতে চাই না। তিনি স্বাভাবিক আছেন। স্বাভাবিকভাবেই সেরে উঠছেন।

পেলে লম্বা সময় ধরে নিতম্বের সমস্যায় ভুগছেন এবং ঠিকমতো হাঁটতে পারেন না। তাছাড়া করোনার কারণে তিনি জনসম্মুখে আসেন না বললেই চলে। তার সান্তোসের বাড়ির আঙ্গিনায় গুটিকয়েকবার দেখা গেছে তাকে। পেলে ব্রাজিলের হয়ে ৯২ ম্যাচ খেলেছিলেন। গোল করেছিলেন ৭৭টি। যা ব্রাজিলের হয়ে করা যেকোনো খেলোয়াড়ের সর্বোচ্চ।


আরও খবর

জেমিকে অব্যাহতি, নতুন কোচ অস্কার ব্রুজন

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

পিসিবি অবুঝের মতো আচরণ করছে : আমির

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১




দেশের কোথাও কোথাও ভারী বৃষ্টির শঙ্কা

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বৃষ্টি হতে পারে। এদিকে নদীর তীরবর্তী এলাকায় দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বলে বন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান বলেন, গত সপ্তাহে সৃষ্টি হওয়া গভীর নিম্নচাপটি ভারতের দিকে সরে গিয়ে আস্তে আস্তে একেবারেই দুর্বল হয়ে পড়েছে। বর্তমানে মৌসুমি বায়ুর সঙ্গে মিশে গেছে। এর প্রভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে মাঝারি ধরণের বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, উত্তর প্রদেশ ও এর আশপাশের এলাকায় অবস্থানরত সুস্পষ্ট লঘুচাপটি বর্তমানে দুর্বল হয়ে লঘুচাপ আকারে মৌসুমি অক্ষের সঙ্গে মিলিত হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমি বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত।

মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয়। এটি উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় আছে। এর প্রভাবে খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায়, ঢাকা, রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেটের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে নদী বন্দরগুলোর জন্য এক সতর্কবার্তায় বলা হয়- খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার অঞ্চলগুলোর ওপর দিয়ে দক্ষিণ-দক্ষিণ পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এজন্য এসব এলাকার বন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।


আরও খবর