Logo
শিরোনাম

সম্মাননা পেলেন রাজশাহীর ১২ নারী বীর মুক্তিযোদ্ধা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ২৩৮জন দেখেছেন

Image

রাজশাহী প্রতিনিধি:

মহান মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার জন্য রাজশাহীর ১২ নারী বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের সম্মাননা প্রদান করা হয়। রাজশাহী জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল তাদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রাণালয়ের উদ্যোগে এ দিন দেশের ৬৫৪ জন নারী বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা জানানো হয়েছে। কেন্দ্রীয়ভাবে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এর মূল অনুষ্ঠান শুরু হয়। একই সময়ে দেশের সব জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মনোনীত নারীদের এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

রাজশাহীর সম্মাননা পাওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা নারীরা হলেন, সাবেক প্রতিমন্ত্রী জিনাতুন নেসা তালুকদার, পুঠিয়ার বাঁশবাড়ী গ্রামের ফিরোজা বিবি, পুঠিয়ার নওপাড়া এলকার আঙ্গুরা বেগম, বাগমারার গোয়ালাকান্দি এলাকার শামসুন নাহার, বাঘার চকছাতারী এলাকার শাহীদা বেগম শাহানা, নগরীর সাগরপাড়ার লায়লা পারবীন বানু, নগরীর লক্ষ্মীপুরের আলেয়া শরীফ, মহিষবাথান এলাকার কাজী মিসবাহুন নাহার, নগরীর কুমারপাড়া এলাকার সান্তনা ঘোষ, উপশহরের নাজবুন নেছা, ঘোড়ামারার বুলবুল রাণী ঘোষ এবং সাবিত্রী বিশ্বাস।

সম্মাননা পেয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহিদা বেগম শাহানা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের অবদান রাখার জন্য কখনো সম্মাননা পাব ভাবিনি। মুক্তিযুদ্ধের সময় অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। তারপরেই এই স্বাধীন দেশ পেয়েছি। তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় আমি রাজশাহী লেডি হেলথ ইনস্টিটউটে পড়তাম। হঠাৎ চারিদিকে যুদ্ধ শুরু হল। এরপর হোস্টেল থেকে আমি গ্রামের বাড়ি ঈশ্বরদীতে যাই। সেখানকার অবস্থাও খারাপ হতে থাকে। এরপর আমার পরিবারের সাথে মালদা চলে যাই। সেখানেই দেখতে পাই মাইকিং করা হচ্ছে মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের সাহায্য করার জন্য। এরপরে বহরামপুরে ক্যাম্পে যোগ দেই। তারপর থেকেই শুরু হয় আহত মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের সাহযোগিতা করা। ৯ মাস কষ্টের পর অবশেষে এই স্বাধীন দেশ পাই।

ঢাকার আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে নারীদের অনেক অবদান আছে। সেগুলো অস্বীকার করা উপায় নেই। অনেক মা বোন তাদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পরে মুক্তিযোদ্ধা ভয়ে বলতে পারতো না তারা মুক্তিযোদ্ধা। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সেই স্বীকৃতি দিয়েছেন। প্রতিটি মুক্তিযোদ্ধারা এখন বাড়ি পাবেন। ৭ দিনের মধ্যে জেলা উপজেলা পর্যায়ে এই নিদের্শনা চলে যাবে। এর সাথে মুক্তিযোদ্ধারা আজীবন বিনা খরচে চিকিৎসা করতে পারবেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা। রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের রাজশাহী শাখার উপ-পরিচালক শবনম শিরিন, প্রোগ্রাম অফিসার রাশেদা পারভীন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান, জাতীয় মহিলা সংস্থার রাজশাহী শাখার চেয়ারম্যান মর্জিনা পারভীন প্রমুখ।


আরও খবর



পিছিয়ে পরেও ম্যানচেস্টার সিটির দুর্দান্ত জয়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

নিজেদের মাঠ ইতিহাদে জুড বেলিংহামের গোলে বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে পিছিয়ে পড়েও শেষ পর্যন্ত জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। জন স্টোন্স এবং এর্লিং হলান্ডের গোলে ম্যাচে ২-১ গোলে জয় পেয়েছে সিটিজেনরা।

বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ম্যাচের প্রথমার্ধটা নিজেদের খোলসের মধ্যেই কাটিয়েছে ম্যানচেস্টার সিটি। প্রথমার্ধে দুই দলই তেমন আক্রমণে ওঠেনি। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সিটির রক্ষণে আঘাত হানে ডর্টমুন্ড। ম্যাচের ৫৬তম মিনিটে মার্কো রয়েসের দুর্দান্ত এক ক্রস আসে ডি বক্সে। আর সেখানে বল পেয়ে এডারসনের মাথার ওপর দিয়ে ফ্লিক করে লক্ষ্যভেদ করেন জুড বেলিংহাম। সিটির মাঠে লিড নেয় ডর্টমুন্ড।

তবে হারের শঙ্কা কাটিয়ে ম্যাচের শেষ দিকে এসে ডর্টমুন্ডকে চেপে ধরে দুই গোল আদায় করে নেয় সিটিজেনরা। ৮০তম মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে ডি ব্রুইনের দুর্দান্ত এক ক্রস লাফিয়ে উঠে কাছের পোস্ট দিয়ে বল জালে জড়ান ইংলিশ ডিফেন্ডার জন স্টোন্স। এর মিনিটে চারেক পরে ডর্টমুন্ডকে থমকে দেন তাদেরই সাবেক খেলোয়াড় আর্লিং হলান্ড।

৮৪তম মিনিটে জোয়াও ক্যান্সেলোর বাঁ দিক থেকে আসা ক্রস ডি বক্সের ভেতর দুই ডিফেন্ডারের মধ্য থেকে পা বাড়িয়ে জালে জড়ান হালান্ড। এতেই ম্যাচে এগিয়ে যায় সিটিজেনরা। শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ম্যানচেস্টার সিটি।


আরও খবর

হার দিয়ে সিরিজ শুরু বাংলাদেশের

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




বরগুনায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ৩ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের কদমতলা গ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আরও একজন গুরুতর আহত হয়েছেন। শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন-ওই গ্রামের হারুন অর রশীদের ছেলে মো. হেলাল (৩৫), জলিল খানের ছেলে রবিউল খান ও শাহজাহান পহলানের ছেলে বেলায়েত পহলান (৪০)। এ ঘটনায় আহত আরিফুর রহমানকে (৩০) বরিশাল শেরে বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী হেলালের চাচা মতিউর রহমান বলেন, হেলাল প্রায় ১৩ বছর মালয়েশিয়ায় থাকার পর মাসখানেক আগে দেশে ফিরে সম্প্রতি টিনের বসতঘর ভেঙে পাকা দালান তৈরির কাজ শুরু করেন। শনিবার দুপুর ১টার দিকে টিনের চালা খুলতে গেলে ওই চালা পাশের পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ তারের ওপর পড়ে। এ সময় হেলাল, রবিউল, বেলায়েত ও আরিফ বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হলে গুরুতর অবস্থায় তাদের বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আমি সঙ্গে সঙ্গে কাঠ দিয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছিলাম। কিন্তু তার আগেই ওরা বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যায়।

বরগুনা পল্লী বিদ্যুৎ আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. আরব আলী বলেন, কেউ ঘর সংস্কার করতে চাইলে আমাদের কাছে আবেদন করে অনুমতি নিতে হয়। আমরা সংযোগ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বিচ্ছিন্ন ও নিরাপদ করার পর অনুমতি দিয়ে থাকি। কিন্তু এই ঘটনায় সংশ্লিষ্টরা আমাদের অবহিত না করে ঘরের সংস্কার কাজ শুরু করেছে। যার ফলে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে।

বরগুনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ফয়সাল আহমেদ বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক। এটি নিছক দুর্ঘটনা, নাকি দায়িত্বে অবহেলা সেটি তদন্ত করে দেখব।


আরও খবর

পিতাকে কুপিয়ে জখম করল ছেলে

শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২




যেভাবে গাজর চাষ করে লাভবান হবেন

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রঙিন সবজির মধ্যে গাজর আমাদের দেশের একটি জনপ্রিয় সবজি। এটিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে। এছাড়ও ক্যালসিয়াম, আয়রন, ফসফরাস, শ্বেতসার এবং অন্যান্য ভিটামিন যথেষ্ট পরিমাণে রয়েছে। তরকারি ও সালাদ হিসেবে গাজর খাওয়া যায়। আমাদের দেশে গাজরের হালুয়া অনেকের প্রিয় খাবার। এসব কারণে দেশে প্রচুর পরিমাণে গাজরের চাহিদা রয়েছে। তাই জেনে নিন গাজরের চাষ পদ্ধতি। আমাদের দেশে সাধারণত বিদেশ থেকে বিভিন্ন জাতের গাজরের বীজ আমদানি করে চাষ করা হয়। যেমন, রয়েল ক্রস, কিনকো সানটিনে রয়েল, কোরেল ক্রস ও স্কারলেট নান্টেস। এছাড়া আরও আছে পুষা কেশর, কুরোদা-৩৫, নিউ কোয়ারজা, সানটিনি, ইয়োলো রকেট ইত্যাদি জাতগুলো কৃষকদের নিকট জনপ্রিয়। এসব জাতের মধ্যে পুষা কেশর আমাদের দেশের জলবায়ুতে বীজ উৎপাদনে সক্ষম।

পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা আছে এমন বেলে দোঁআশ ও দোআঁশ মাটি গাজর চাষের জন্য ভালো। যেখানে গাজর চাষ হবে সেই জায়গাটি যেন পর্যাপ্ত আলো-বাতাসযুক্ত হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আশ্বিন থেকে কার্তিক (মধ্য সেপ্টেম্বর-মধ্য নভেম্বর) মাস বীজ বপনের উপযুক্ত সময়। প্রতি হেক্টরে ৩ থেকে ৪ কেজি বীজ লাগে। সারি হতে সারির দূরত্ব হবে ২০ থেকে ২৫ সেন্টিমিটার।গাছ-গাছের দূরত্ব ১০ সেন্টিমিটার। গাজর চাষের জন্য ভালোভাবে চাষ ও মই দিয়ে জমি তৈরি করতে হবে। জমির মাটি ঝুরঝুরে করে তৈরি করতে হবে। গাজরের বীজ সারিতে বপন করা ভালো। এতে গাজরের যত্ন নেওয়া সহজ হয়।

গাজরের বীজ খুব ছোট বিধায় ছাই বা গুঁড়া মাটির সঙ্গে মিশিয়ে বপন করা ভালো। এজন্য ভালো বীজের সঙ্গে ভালো শুকনা ছাই বা গুঁড়া মাটি মিশিয়ে বপন করা যেতে পারে। গাজর চাষে হেক্টরপ্রতি নির্দিষ্ট পরিমাণে সার প্রয়োগ করতে হবে। সারের পরিমাণ প্রতিহেক্টরে গোবর অথবা জৈবসার ১০ টন, ইউরিয়া ১৫০ কেজি, টিএসপি ১২৫ কেজি এবং এসওপি অথবা এমপি ২০০ কেজি হারে প্রয়োগ করতে হবে। সম্পূর্ণ গোবর ও টিএসপি এবং অর্ধেক ইউরিয়া ও এমপি সার জমি তৈরির সময় প্রয়োগ করতে হবে। বাকি অর্ধেক ইউরিয়া সমান দুই কিস্তিতে চারা গজানোর ১০ থেকে ১২ দিন ও ৩৫ থেকে ৪০ দিন পর মাটির উপরে প্রয়োগ করতে হবে। বাকি অর্ধেক এমপি সার চারা গজানোর ৩৫-৪০ দিন পর মটির উপরে প্রয়োগ করতে হবে।

বীজ থেকে চারা গজাতে ১০ থেকে ২০ দিন সময় লাগতে পারে। তবে বপনের আগে বীজ ভিজিয়ে রাখলে (১৮ থেকে ২৪ ঘণ্টা) ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে চারা বের হয়। চারা গজানোর ৮ থেকে ১০ দিন পর ৮ থেকে ১০ সেন্টিমিটার পরপর ১টি করে গাছ রেখে বাকি সব উঠিয়ে ফেলতে হবে। একই সঙ্গে আগাছা পরিষ্কার ও মাটির চটা ভেঙে দিতে হবে। প্রয়োজনমতো সেচ দেওয়া ও নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে। মাটির জো দেখে দুসপ্তাহ পরপর ৩ থেকে ৪টি সেচ দেওয়া উৎপাদনের জন্য ভালো।

গাজরে জাব পোকা আক্রমণ করে। এ পোকা ও গাছের কচি অংশের রস শুষে খেয়ে গাছের ব্যাপক ক্ষতি করে। পোকা দমনের জন্য রগোর এল -৪০, ক্লাসিক ২০ ইসি, টিডফেট ৭৫ এসপি, টিডো ২০ এসএল ইত্যাদি কীটনাশকের যে কোনো একটি অনুমোদিত মাত্রায় ব্যবহার করা যেতে পারে। অথবা বাইকাও-১ প্রয়োগ করতে হবে। গাজরের হলুদ ভাইরাস রোগও দেখা দেয়। লীফ হপার পোকার মাধ্যমে গাজরে অনেক সময় হলুদ ভাইরাস রোগ দেখা যায়। এ পোকার আক্রমণের ফলে গাজরের ছোট বা কচি পাতাগুলো হলুদ হয়ে যায়, পরে কুঁকড়িয়ে যায় এবং লক্ষণীয়ভাবে গাছের পাতার পাশের ডগাগুলো হলুদ ও বিবর্ণ হয়ে যায়। লীফ হপার পোকার আক্রমণ হলে দ্রুত দমনের ব্যবস্থা নিতে হবে। আক্রান্ত ডালপালা কেটে ফেলতে হবে এবং চারপাশে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। সবিক্রন ৪২৫ ইসি ২ মিলিলিটার পানি অথবা রেলোথ্রিন ১ মিলিলিটার পানিতে স্প্রে করতে হবে। চারা গজানোর ৭০ থেকে ৮০ দিন পর সবজি হিসেবে গাজর খাওয়ার জন্য ক্ষেত থেকে সংগ্রহের উপযুক্ত হয়। হেক্টরপ্রতি গাজরের ফলন ২০ থেকে ২৫ টন। সব ধরনের নিয়ম মেনে গাজর চাষ করলে বেশ লাভবান হওয়া যায়।

নিউজ ট্যাগ: গাজর

আরও খবর

যেভাবে উন্নত জাতের গাভি চিনবেন

সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২

বেশি ডিম দেওয়া মুরগি চেনার উপায়

সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২




‘পূজায় জঙ্গি হামলার হুমকি নেই’

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ | ১৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) নবনিযুক্ত মহাপরিচালক (ডিজি) এম খুরশীদ হোসেন বলেছেন, শারদীয় দুর্গাপূজায় জঙ্গি হামলার কোনো হুমকি নেই। জঙ্গিদের যে কোনো নাশকতা নস্যাৎ করে দিতে র‍্যাবের কমান্ডো টিম ও হেলিকপ্টার প্রস্তুত রয়েছে। সোমবার (৩ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর বনানী পূজামণ্ডপ ও সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে এ কথা বলেন র‍্যাব ডিজি।

এম খুরশীদ হোসেন বলেন, যে কোনো উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য ডগ স্কোয়াডকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পূজামণ্ডপসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে স্যুইপিং পরিচালনার পাশাপাশি র‍্যাবের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, র‍্যাব স্পেশাল ফোর্সের কমান্ডো টিম ও র‍্যাবের এয়ার উইংয়ের হেলিকপ্টার প্রস্তুত রয়েছে।

গোয়েন্দা ও সাইবার তথ্য বিশ্লেষণ করে দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের জঙ্গি হামলার তথ্য পাওয়া যায়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, তারপরও আমরা আত্মতৃপ্তিতে ভুগছি না। জঙ্গিদের যে কোনো নাশকতা নস্যাৎ করে দিতে র‍্যাব প্রস্তুত।

তিনি বলেন, ভার্চুয়াল জগতে যে কোনো গুজব ও মিথ্যা তথ্য ছড়ানো প্রতিরোধে র‍্যাবের সাইবার মনিটরিং টিম পর্যবেক্ষণ করছে। দুর্গাপূজায় অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় পর্যাপ্ত সংখ্যক র‍্যাব সদস্য মোতায়েন ও গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

এসময় র‍্যাব মহাপরিচালক পূজামণ্ডপে উপস্থিত সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে মতবিনিময় ও শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুর্গাপূজা উদযাপনের পরামর্শ দেন।


আরও খবর

জেনে নিন রাজধানীতে কখন কোথায় লোডশেডিং

বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২




পরিত্যক্ত রুমে এসএসসি পরীক্ষা, ফ্যান খসে পরীক্ষার্থী আহত!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ অক্টোবর ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

ঝিনাইদহের শৈলকূপায় এসএসসি পরীক্ষা চলাকালে পরীক্ষার হলে ফ্যান খসে রাকিবুল হাসান ইমন নামে এক পরীক্ষার্থী আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার উপজেলার শেখপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। আহত শিক্ষার্থী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব. স্কুল এন্ড কলেজের নিয়মিত ছাত্র।

জানা যায়, শেখপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরিত্যক্ত ক্লাসরুমে বসে মাধ্যমিক পরীক্ষা দিচ্ছিল শিক্ষার্থীরা। হঠাৎ একটি ফ্যান ঘুরতে ঘুরতে খসে পড়ে। এতে এক শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হন। পরে তাকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যাম্বুলেন্সে করে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আবার পরীক্ষা কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয়।

আহত শিক্ষার্থী রাকিবুল হাসান ইমনের সহপাঠীরা জানান, পরীক্ষার প্রথম দিন ছিল আজ। হঠাৎ করে কক্ষটির ফ্যান খসে পড়ে। ফ্যানটি অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয়। আহত হয়ে তার ঘণ্টাখানেক সময় নষ্ট হয়েছে। মাথায় গুরুতর আঘাত লেগেছে।

এ বিষয়ে শেখপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লেসপাতি বেগম জানান, আমাদের কাছে জিজ্ঞাসা না করে পরিত্যক্ত ক্লাসরুমে পরীক্ষার কেন্দ্র বসানো হয়েছে। এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না। এ কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক সচিব ও শেখপাড়া রাহাতন নেছা গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মাসুদ করিমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি ব্যস্ত আছি। এ সম্পর্কে পরে বিস্তারিত বলতে পারবো।


আরও খবর