Logo
শিরোনাম

সরস্বতী পূজা আজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১ | ৭১জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
তাকে ঐশ্বর্যদায়িনী, বুদ্ধিদায়িনী, জ্ঞানদায়িনী, সিদ্ধিদায়িনী, মোক্ষদায়িনী এবং শক্তির আঁধার হিসাবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা আরাধনা করেন

আজ হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শ্রী শ্রী সরস্বতী পূজা। সনাতন ধর্মমতে, জ্ঞান ও বিদ্যার অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতী ভক্তদের মানবীয় চেতনায় উদ্দীপ্ত করতে প্রতিবছর ধরাধামে আবির্ভূত হন।

বিদ্যা ও ললিতকলার অধিষ্ঠাত্রী দেবী সরস্বতীর আরাধনা করবে মর্ত্যের ভক্তকুল। ঢাক-ঢোল-কাঁসর-শঙ্খ ও উলুধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠবে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন পূজামণ্ডপ। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজায় অংশ নিতে সার্বজনীন পূজা কমিটি অনুরোধ জানিয়েছে।

শাস্ত্র মতে, প্রতিবছর মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথিতে শ্বেতশুভ্রা কল্যাণময়ী বিদ্যাদেবী সরস্বতীর আরাধনা করা হয়। শ্বেতশুভ্র বসনা সরস্বতী দেবীর এক হাতে বেদ, অন্য হাতে বীণা থাকে। এ জন্য তাকে বীণাপাণিও বলা হয়। তাকে ঐশ্বর্যদায়িনী, বুদ্ধিদায়িনী, জ্ঞানদায়িনী, সিদ্ধিদায়িনী, মোক্ষদায়িনী এবং শক্তির আঁধার হিসাবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা আরাধনা করেন।

সরস্বতী পূজা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা সরস্বতী পূজা উপলক্ষে দেশের হিন্দু ধর্মাবলম্বী সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান।

বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং ঘরে ঘরে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকায় বিভিন্ন এলাকা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পূজার আয়োজন হলেও সরস্বতী পূজার প্রধান কেন্দ্র হয়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল মাঠ। কিন্তু এবার করোনার কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় সেই উৎসবমুখর পরিবেশে আর হচ্ছে না।

যদিও পূজা উপলক্ষে বরাবরের মতো নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে শ্রী শ্রী ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির। ভক্ত ও দর্শনার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজায় অংশ নিতে অনুরোধ করেছেন মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি শৈলেন্দ্রনাথ মজুমদার ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কিশোররঞ্জন মণ্ডল।

Share

আরও খবর

ভালোবাসা সম্পর্কে ইসলাম যা বলে

বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১




বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ২৫ লাখ ছুঁইছুঁই

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ মার্চ ২০২১ | ৫৮জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কোনোভাবেই কমছে না। সবশেষ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ কোটি ২৬ লাখ ৩৮ হাজার ৪৪৬ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪ লাখ ৯৫ হাজার ৩৩৯ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ৮ কোটি ৮২ লাখ ২৫ হাজার ৪৬৮ জন। করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে এই তথ্য জানা যায়।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে ৫ লাখ ১৪ হাজার ৯৯৬ জন এখন পর্যন্ত মারা গেছেন। বিশ্বে সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যাও এই দেশটিতে। এই পর্যন্ত ২ কোটি ৮৮ লাখ ৯৭ হাজার ৭১৮ জন এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পর মৃত্যু বিবেচনায় করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। লাতিন আমেরিকার দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ১ কোটি ২ লাখ ৬০ হাজার ৬২১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৪৮ হাজার ৬৪৬ জনের। তবে মৃত্যু বিবেচনায় মেক্সিকোর অবস্থান তৃতীয়।

আক্রান্তের দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসা ভারত মৃত্যু বিবেচনায় আছে চতুর্থ অবস্থানে। এ পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ১০ লাখ ২৯ হাজার ৩২৬ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৫৬ হাজার ৫৯৮ জনের।

দেশে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এখন পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮ হাজার ৩৭৪ জনে। এছাড়াও এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা ৫ লাখ ৪৪ হাজার ১১৬ জন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

Share

আরও খবর

বিশ্বে করোনায় সুস্থ ৯ কোটি

সোমবার ০১ মার্চ ২০২১




রাঙামটিতে ৩ হাজার গাঁজা গাছের চারাসহ আটক-১

প্রকাশিত:বুধবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ মার্চ ২০২১ | ৯৩জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাঙামাটি থেকে শহিদুল ইসলাম হৃদয়

রাঙামাটির দূর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে নেশাজাতীয় দ্রব্যাদি উৎপাদনের দিকে ধাবিত হচ্ছে স্থানীয় পাহাড়িদের একটি অংশ। আঞ্চলিকদলগুলোর সশস্ত্র তৎপরতার রসদ জোগানোর লক্ষ্যে স্থানীয় পাহাড়ি বাসিন্দাদের দিয়ে পতিত পাহাড়ি জমিতে গাঁজা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের মাদক দ্রব্যাদির চাষাবাদ করানো হচ্ছে।

পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবান ও খাগড়াছড়ির কিছু অংশে এতোদিন এসব কর্মকাণ্ড চলে আসলেও সম্প্রতি পার্বত্য রাঙামাটির বিভিন্ন দূর্গমাঞ্চলেও এই ধরনের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে আসছে আঞ্চলিকদলগুলোর মদদপুষ্ট একটি চক্র।

পাহাড়ে তৈরিকৃত এসব মাদক ঢাকা-চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রয় করা হয়। সম্প্রতি স্থানীয় সচেতন বাসিন্দাদের কাছ থেকে বিষয়টি নজরে আসে বিশেষায়িত এলিট ফোর্স র‌্যাব-৭ এর উদ্বর্তন কর্তৃপক্ষের।

সংস্থাটির মিডিয়া উইং কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, গোপন সংবাদের মাধ্যমে র‌্যাব-৭ চট্টগ্রাম কর্তৃপক্ষ জানতে পারে যে, পার্বত্য রাঙামাটি জেলার কাউখালী থানাধীন বর্মাছড়ি মুখপাড়া এলাকায় কতিপয় ব্যক্তি আবাদী জমিতে নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য গাঁজা গাছ চাষাবাদ করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার (০৯ ফেব্রুয়ারি) র‌্যাব-৭ এর একটি চৌকষ আভিযানিক দল পার্বত্য রাঙামাটি জেলার কাউখালী থানাধীন ফটিকছড়ি ইউপির বর্মাছড়ি মুখপাড়া এলাকার ফটিকছড়ি খালের পাশে পৌঁছা মাত্রই  র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‌্যাব সদস্যরা ধাওয়া করে আসামি ডালিম চাকমা (৪০), পিতা- মনমোহন চাকমা, সাং-বর্মাছড়ি মুখপাড়া, থানা- কাউখালী, জেলা- রাঙামাটিকে আটক করে।

পরবর্তীতে উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামিকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তার দেখানো ও শনাক্তমতে তারই চাষকৃত ০৩ টি আবাদি জমিতে (আনুমানিক ০১ বিঘা) নেশাজাতীয় মাদকদ্রব্য গাঁজা গাছ চাষাবাদ অবস্থায় পাওয়া যায়। পরবর্তীতে উক্ত আবাদী জমিতে অভিযান পরিচালনা করে আনুমানিক ০৩ হাজার এর অধিক গাঁজার গাছ জব্দ করা হয়। জব্দকৃত গাঁজা গাছ হতে কিছু আলামত রেখে অবশিষ্ট গাঁজার গাছ ধ্বংস করা হয়। আটককৃত আসামীকে কাউখালী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানাগেছে।

র‌্যাব-৭ এর সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মাশকুর রহমান জানিয়েছেন, সমতল ভূমির পাশাপাশি পার্বত্য অঞ্চলেও সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতারের লক্ষে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম। এই সংস্থাটি প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী, খুনি, বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, মাদক উদ্ধার, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ান র‌্যাব।


Share

আরও খবর



সর্বোচ্চ ভিত্তিমূল্যে আইপিএলের নিলামে সাকিবের নাম

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | ৬৬জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আসন্ন আইপিএলের নিলামে নিবন্ধিত ক্রিকেটারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ভিত্তিমূল্যের তালিকায় রয়েছেন বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান। কোনো দল সাকিবকে পেতে চাইলে কমপক্ষে ২ কোটি রুপি দিতে হবে।

সাকিবসহ মোট ১১ ক্রিকেটার আছেন সর্বোচ্চ ২ কোটি রুপি ভিত্তিমূল্যের তালিকায়।

বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার সম্প্রতি আইসিসির নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ফিরেছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে। জুয়াড়িদের কাছ থেকে অনৈতিক প্রস্তাব পেয়েও তা গোপন করায় ১ বছরের জন্য নিষেধাজ্ঞা পেয়েছিলেন তিনি। সব ধরনের ক্রিকেটেই নিষিদ্ধ হওয়ায় ২০২০ আইপিএলেও খেলা হয়নি এই বাঁহাতির।

১৮ ফেব্রুয়ারি চেন্নাইয়ে আসছে আইপিএলের নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। মোট ১০৯৭ জন ক্রিকেটার নাম তুলেছেন নিলামের জন্য। এর মধ্যে ৮১৪ খেলোয়াড় ভারতীয়, ২৮৩ জন বিদেশি।

তবে সব দল মিলে মোট ফাঁকা রয়েছে মাত্র ৬১টি জায়গা। ভারতীয় ক্রিকেটারদের পর ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫৬ ক্রিকেটার নিলামে নাম তুলেছেন। সাকিবসহ বাংলাদেশ থেকে নিলামে নাম তুলেছেন মোট ৫ ক্রিকেটার।

Share

আরও খবর



পি কে হালদার কীভাবে বিদেশে পালিয়েছেন, জানতে চান হাইকোর্ট

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
পি কে হালদার দেশ ত্যাগ করার দিন বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে দায়িত্বরতদের এবং দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তালিকাও দাখিল করতে হবে

পাসপোর্ট জব্দের আদেশের পরও প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদার কীভাবে বিদেশে পালিয়ে গেলেন, জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে পি কে হালদারের মামলার সবশেষ অগ্রগতি জানাতে বলেছেন আদালত। ২০০৮ সাল থেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের তিনটি বিভাগের কর্মকর্তাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা ১৫ মার্চের মধ্যে দাখিল করার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তিনটি বিভাগে ২০১০ সাল থেকে কর্মরত ৩৯৪ কর্মকর্তার তালিকা হাইকোর্টে জমা দেওয়ার পর বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের বেঞ্চ আজ সোমবার এ আদেশ দেন।

আদালত বলেছেন, পি কে হালদার দেশ ত্যাগ করার দিন বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে দায়িত্বরতদের এবং দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তালিকাও দাখিল করতে হবে। পুলিশের মহাপরিদর্শক, দুদকের তদন্ত কর্মকর্তা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এই নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে হবে।

আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার খান মোহাম্মদ শামীম আজিজ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তিনটি বিভাগে ২০০৮ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের নাম, পদবি ও ঠিকানা সরবরাহ করতে গত ২১ জানুয়ারি নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে অর্থপাচার রোধে এসব কর্মকর্তার ব্যর্থতা আছে কি না এবং দায়িত্ব পালনে ব্যর্থদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে কি না, তাও জানতে চান আদালত।

এ আদেশ অনুযায়ী বাংলাদেশ ব্যাংক হাইকোর্টকে জানায়, ডিপার্টমেন্ট অব ফিন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশনস অ্যান্ড মার্কেটসে ১৪৭ জন, ফিন্যান্সিয়াল ইনস্টিটিউশনস ইন্সপেকশন ডিপার্টমেন্টে ৫৭ জন, ইন্টার্নাল অডিট ডিপার্টমেন্টে ১৯০ জন ২০১০ সাল থেকে কর্মরত। তবে, এর আগে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে জনবলের হিসাব রাখা হতো বলে ২০০৮ ও ২০০৯ সালের কর্মকর্তাদের তালিকা প্রণয়নে সময় চেয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক হাইকোর্টকে জানায়, জালিয়াতি ও অর্থপাচার ঠেকাতে ব্যর্থতার বিষয়েও তদন্ত হচ্ছে। এ জন্যেও সময় প্রয়োজন। বিষয়গুলো উপস্থাপনের পর আদালত নতুন তারিখ দিয়েছে বলে জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন।

একটি জাতীয় দৈনিকে পি কে হালদারকে ধরতে ইন্টারপোলের সহায়তা চাইবে দুদক শীর্ষক প্রতিবেদনের পর গত ১৯ নভেম্বর স্বপ্রণোদিত আদেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। এরই ধারাবাহিকতায় মামলাটির শুনানি চলছে।

Share

আরও খবর



চতুর্থ ধাপে ৫৫ পৌরসভায় ভোট গ্রহণ চলছে

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ মার্চ ২০২১ | ৯৩জন দেখেছেন
Share
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের জন্য ৫০১ জন নির্বাহী ও ৫৫ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থাকছেন। পুলিশের ১৬৭টি মোবাইল ও ৫৫টি স্ট্রাইকিং ফোর্স টিম, র‌্যাবের ১৬৭টি টিম, প্রত্যেক পৌরসভায় গড়ে দুই

চতুর্থ ধাপে ৫৫ পৌরসভায় ভোট গ্রহণ চলছে। আজ রবিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এ ভোট গ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত । এ ধাপে ২৫ পৌরসভায় ব্যালট পেপারে ভোট হচ্ছে আর ৩০ পৌরসভায় হচ্ছে ইভিএমে ভোট। করোনাকালে এ নির্বাচনে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনাও দিয়েছে ইসি।

৫৫ পৌরসভায় মেয়র পদে লড়ছেন ২২৩ জন। এছাড়া ৫১০টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী দুই হাজার ৯৯ জন এবং ১৭০ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ৬২৯ জন। এসব পৌরসভায় ৮০২টি ভোটকেন্দ্রে কক্ষ সংখ্যা চার হাজার ৯২৭টি। মোট ভোটার ১৭ লাখ ৬২৪ জন।

সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের জন্য ৫০১ জন নির্বাহী ও ৫৫ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থাকছেন। পুলিশের ১৬৭টি মোবাইল ও ৫৫টি স্ট্রাইকিং ফোর্স টিম, র‌্যাবের ১৬৭টি টিম, প্রত্যেক পৌরসভায় গড়ে দুই প্লাটুন বিজিবি ও উপকূলীয় এলাকায় প্রতি পৌরসভায় এক প্লাটুন কোস্টগার্ড মোতায়েন করা হয়েছে।

দেশে ৩২৯টি পৌরসভা রয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে এবার পাঁচ ধাপে এসব পৌরসভায় ভোট করছে ইসি। প্রথম দফায় গত ২৮ ডিসেম্বর, দ্বিতীয় ধাপে ১৬ জানুয়ারি এবং তৃতীয় ধাপে ৩০ জানুয়ারি ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। পঞ্চম ধাপে ভোট হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি।

Share

আরও খবর