Logo
শিরোনাম

যশোরের বিজয় ৭১

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত পতাকা উড়িয়ে এগিয়ে চলছেন মুক্তিযোদ্ধা। শক্ত মুষ্টিতে পতাকার ঝাণ্ডা গভীর মমতায় বুকের সঙ্গে আলিঙ্গন। ডান কাঁধে তাঁর ঝোলানো রাইফেল। তাঁরই বাঁ পাশে রাইফেল হাতে আরেক মুক্তিযোদ্ধা। রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনা গর্বিত সেই যোদ্ধার চোখ আকাশপানে। পাশেই রাইফেল ও হেলমেট উঁচিয়ে উল্লসিত আরো দুই মুক্তিযোদ্ধা। তাঁদের একজনের খালি পা, পরনে লুঙ্গি। ত্রিভুজ আকৃতির বেদির ওপর ভাস্কর্যের আরেক দিকে দুহাতে শান্তির পায়রা উড়িয়ে যুদ্ধ শেষে আগামী দিনের শান্তির বার্তা আকাশে ছড়িয়ে দিচ্ছেন এক নারী। এই উল্লাসে তাঁদের সঙ্গে শরিক গুলতি হাতে এক দুরন্ত কিশোরও। মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশের প্রথম শত্রুমুক্ত জেলা যশোরের প্রথম মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য বিজয়-৭১ এভাবেই দাঁড়িয়ে আছে শহরের পালবাড়ী মোড়ে।

যশোরের এস এম সুলতান আর্ট কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ খন্দকার বদরুল আলম নান্নুর হাতের পরশে ভাস্কর্যটি এখনো ছড়াচ্ছে দীপ্তি। যশোর জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে নির্মিত এই ভাস্কর্যটি ১৯৯৮ সালের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা দিবসে উদ্বোধন করেন মুক্তিযুদ্ধকালীন ৮ নম্বর সেক্টরের প্রথম দিকের কমান্ডার আবু ওসমান চৌধুরী বীর-উত্তম। মূল ভাস্কর্যটি ২৭ ফুট উচ্চতার। বেদিসহ উচ্চতা ৩৫ ফুট। ভাস্কর্যটি নির্মাণের উপকরণ ছিল হোয়াইট সিমেন্ট, চুনাপাথর ও রড। ভাস্কর্যটি নির্মাণে এক বছরেরও বেশি সময় লাগে।

মুক্তিযুদ্ধকালীন বিএলএফের বৃহত্তর যশোর জেলার উপপ্রধান ( ডেপুটি লিডার) রবিউল আলম ছিলেন এই ভাস্কর্য নির্মাণ কমিটির সদস্য। তিনি বলেন, রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর ৬ ডিসেম্বর দেশের প্রথম শক্রমুক্ত হয় যশোর। এটিই যশোরের প্রথম মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য। যশোরের মুক্তিযোদ্ধারা সে সময়ের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মুক্তিযোদ্ধা মালেক মিয়ার কাছে একটি ভাস্কর্য নির্মাণের প্রস্তাব দেন। ভাস্কর্য নির্মাণের জন্য ডিসি মালেক মিয়াকে সভাপতি করে ১১ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটির সদস্য ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা রবিউল আলম, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই, মাস্টার নূর জালাল, পিলু খান, একরাম-উদ-দৌলা প্রমুখ। এই ভাস্কর্য নির্মাণে সেই সময় প্রায় ১২ লাখ টাকা ব্যয় হয়।

পালবাড়ী মোড়ে ভাস্কর্যটি স্থাপনের বিষয়ে তিনি জানান, পালবাড়ীর পাশেই যশোর ক্যান্টনমেন্ট, সে সময় পাকিস্তানি বাহিনীর শক্ত ঘাঁটি ছিল। চৌগাছা ও বেনাপোল থেকে মিত্রবাহিনী এই দুই পথ দিয়ে এসে যশোর ক্যান্টনমেন্ট ও শহরে প্রবেশ করে। একই সঙ্গে আশপাশের মুক্তিযোদ্ধারাও এই দিক দিয়ে প্রবেশ করেন। আবার এই সড়ক দিয়েই পাকিস্তানি হানাদাররা ক্যান্টমেন্ট ছেড়ে খুলনার দিকে পালিয়ে যায়। পাশাপাশি এটা যশোর শহরে প্রবেশেরও একটা পথ। এসব দিক বিবেচনা করেই ভাস্কর্যটি এখানে নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়।

ভাস্কর্য বিজয়-৭১ নির্মাণ কমিটির আরেক সদস্য মুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দৌলা বলেন, পরবর্তী প্রজন্মকে স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে জানাতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের পাশাপাশি এ সম্পর্কিত সব তথ্য যথাযথভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

নিউজ ট্যাগ: যশোরের বিজয় ৭১

আরও খবর



সৈয়দ আশরাফের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৩ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৪২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৯ সালের এদিনে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

মৃত্যুর সময় সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সরকারের জনপ্রশাসনমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। ওই সময় তিনি সদ্য অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

ফুসফুসের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে সৈয়দ আশরাফ ব্যাংককের একটি হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসা নেন। চিকিৎসার জন্য দেশে অবস্থান করতে না পারলেও সৈয়দ আশরাফ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ-১ (কিশোরগঞ্জ সদর ও হোসেনপুর উপজেলা) আসন থেকে পুনর্নির্বাচিত হন।

সৈয়দ আশরাফ ১৯৫২ সালের ১ জানুয়ারি ময়মনসিংহে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলাম মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ছিলেন। রাজনৈতিক পরিবারের সদস্য আশরাফুল ইসলাম ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। তিনি মুক্তি বাহিনীর একজন সদস্য হিসেবে ভারতের দেরাদুনে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।

পারিবারিক ঐতিহ্যের সূত্র ধরে তিনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন। ১৯৭০ বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন সৈয়দ আশরাফ। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ৭৫ এর ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তার বাবাসহ জাতীয় চার নেতা হত্যার পর তিনি লন্ডন চলে যান।

আশরাফুল ইসলাম ১৯৯৬ সালে দেশে ফিরে আসেন এবং কিশোরগঞ্জ সদর আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ সময় তিনি বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০১ সালের ১ অক্টোবরে অনুষ্ঠিত অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় তিনি নির্বাচিত হন এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৮ সালের নির্বাচনেও তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং আওয়ামী লীগের মহাজোট সরকারের তিনি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দ্বিতীয় মেয়াদেও তিনি এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান। ২০১৫ সালের ১৬ জুলাই শেখ হাসিনা সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পান তিনি।


আরও খবর



সিনিয়র অফিসার নেবে কাজী ফার্মস

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কৃষি শিল্পপ্রতিষ্ঠান কাজী ফার্মস লিমিটেডে সিনিয়র অফিসার/এক্সিকিউটিভ’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: কাজী ফার্মস লিমিটেড

বিভাগের নাম: কাস্টমার সার্ভিস

পদের নাম: সিনিয়র অফিসার/এক্সিকিউটিভ

পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়

শিক্ষাগত যোগ্যতা: ডিভিএম

অভিজ্ঞতা: ০২ বছর

বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম

প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ

বয়স: নির্ধারিত নয়

কর্মস্থল: চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ১২ জানুয়ারি ২০২৩

নিউজ ট্যাগ: চাকুরীর খবর

আরও খবর

অ্যাকশনএইডে চাকরির সুযোগ

মঙ্গলবার ১৭ জানুয়ারী ২০২৩




জাপানে পণ্যবাহী জাহাজ ডুবে নিখোঁজ ১৮

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে কাঠ বহনকারী একটি পণ্যবাহী জাহাজ ডুবে গেছে। বুধবার (২৫ জানুয়ারি) ভোরে এ দুর্ঘটনায় ১৮ ক্রু সদস্য নিখোঁজ রয়েছেন এবং ৪ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। খবর আলজাজিরা।

কোরিয়া কোস্টগার্ডের দেওয়া তথ্য অনূসারে, উপকূলরক্ষীরা দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের জলসীমায় অনুসন্ধান অভিযান চালাচ্ছে।

জাপানি কোস্টগার্ডের এক মুখপাত্র বলেন, বুধবার নাগাসাকি উপকূলে ৬ হাজার ৫৫১ টন ওজনের 'জিনটিয়ান' ডুবে যাওয়ার পরে চার ক্রু সদস্যকে উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃতদের সবাই চীনের নাগরিক।

জাপানি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, হংকংয়ের নিবন্ধিত জাহাজটিতে ১৪ জন ক্রু সদস্য চীনা এবং আটজন মিয়ানমারের।

উপকূলরক্ষীরা দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের জলসীমায় অনুসন্ধান অভিযান চালাচ্ছে। সংগৃহীত ছবি

দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মকর্তাদের বরাতে জাপানের কিয়োডো নিউজ এজেন্সি জানায়, জাহাজের ক্যাপ্টেন শেষবার দক্ষিণ কোরিয়ার জেজু দ্বীপের উপকূলরক্ষীর সাথে স্যাটেলাইট ফোনের মাধ্যমে বুধবার স্থানীয় সময় ২টা ৪১ মিনিটে যোগাযোগ করেন। সে সময় অবস্থা বেগতিক দেখে ক্রু সদস্যরা জাহাজটি ছেড়ে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন।

সংস্থাটি ক্রু সদস্যের বরাত দিয়ে আরো জানিয়েছে, জাহাজটি কাত হয়ে ভেসে গেছে।

ইয়ানহাপ বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, দক্ষিণ কোরিয়ার উপকূলরক্ষীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছালে জাহাজটি সম্পূর্ণ ডুবে যায়। ক্রুরা তিনটি লাইফ র‍্যাফট এবং দুটি লাইফবোটে কাউকে খুঁজে পায়নি। কাঠ বহনকারী জাহাজটি ডুবে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে কিছু জানা যায়নি। তবে তুষারপাতের পর তাপমাত্রার কিছুটা বৃদ্ধি পেলে ঘটনাটি ঘটে।


আরও খবর



কামরাঙ্গীরচরে কলহের জেরে স্বামীর গোপনাঙ্গ কর্তন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৫০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে কলহের জেরে স্বামীর গোপনাঙ্গ কর্তন করেছেন এক গৃহবধূ। গতকাল সোমবার (২৩ জানুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে আনা হয়। বর্তমানে তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন।

আহত মো. সাইফুল্লাহর (৩৫) বন্ধু জাবেদ জানান, সাইফুল্লাহ একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। তার বাবা আব্দুল আউয়ালও একই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। স্ত্রীর ফাতেমা আক্তারের (২৬) সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে তার পারিবারিক কলহ চলে আসছে। তারই জের ধরে আজ তাকে চেতনানাশক কিছু খাইয়ে তার গোপনাঙ্গ কেটে দেন ফাতেমা।

তিনি জানান, ঘটনার পর ফাতেমা তার শ্বশুর আবদুল্লাহ আওয়ালকে ফোন করে বলেন, আপনার ছেলেকে বাসায় অচেতন অবস্থায় তালাবদ্ধ করে রেখে এসেছি। তাকে গিয়ে উদ্ধার করে মেডিকেলে নিয়ে যান।

এর কিছুক্ষণ পর আবার ফোন করে বলেন, আমি তার গোপনাঙ্গ কেটে দিয়েছি এবং তাকে ঘরে তালাদ্ধ করে রেখে এসেছি। আমার তিন ছেলে-মেয়েকে নিয়ে এসেছি। আপনি এসে আপনার সন্তানকে বাঁচান।

জাবেদ আরও জানান, পরে তিনি ও সাইফুল্লাহর বাবা দ্রুত কামরাঙ্গীরচর ছাতা মসজিদ রোড এলাকার শাজাহান ভিলার চতুর্থ তলায় সাইফল্লাহর বাসা যান। এরপর থানায় খবর দিলে পুলিশের সহযোগিতায় ঘরের তালা ভেঙে তাকে উদ্ধার করে ঢামেকে আনা হয়।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার পর থেকে সাইফল্লাহর স্ত্রী পলাতক।


আরও খবর

শুক্রবার রাজধানীর যেসব মার্কেট বন্ধ

শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩

রাজধানীতে ছাদ থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩




আজ সরস্বতী পূজা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ | ৩১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

সনাতন ধর্মালম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব সরস্বতী পূজা আজ বৃহস্পতিবার (২৬ জানুয়ারি)। ধর্মীয় বিধান অনুসারে, শ্বেত হংসের পিঠে চড়ে পৃথিবীতে নেমে আসবেন বিদ্যা ও ললিতকলার দেবী। কৃপা লাভের আশায় দেবীকে আহ্বান করবেন ভক্তরা। রাজধানী ঢাকাসহ দেশজুড়ে আয়োজন করা হয়েছে পূজার, ঢাকা-ঢোল-কাঁসর, শঙ্খ ও উলুধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠবে দেশের বিভিন্ন পূজামণ্ডপ।

শাস্ত্র অনুসারে, মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথিতে সরস্বতী পূজা হয়। এ তিথি বসন্ত পঞ্চমী নামেও পরিচিত। শ্বেত-শুভ্র বসনা স্বরসতী দেবীর এক হাতে বেদ, অন্য হাতে বীণা। এজন্য তাকে বীণাপানিও বলা হয়। সনাতন ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, জ্ঞান ও বিদ্যার অধিষ্ঠাত্রী দেবী তার আশীর্বাদের মাধ্যমে মানুষের চেতনাকে উদ্দীপ্ত করতে প্রতি বছর আবির্ভূত হন ভক্তদের মাঝে। সরস্বতী খুশি হলে বিদ্যা ও বুদ্ধি অর্জিত হবে। ঐশ্বর্যদায়িনী, বুদ্ধিদায়িনী, জ্ঞানদায়িনী, সিদ্ধিদায়িনী, মোক্ষদায়িনী এবং শক্তির আঁধার হিসেবে সরস্বতী দেবীর আরাধনা করা হয়। তিনি বাগদেবী, বাগদেবী অর্থে তিনি নব হৃদ পবিত্র করেন। তিনি সুন্দর ও মর্ত্যবাক্যের প্রেরণকাত্রী। তিনি মহাসমুদ্রের মতো পরমাত্মার প্রকাশ করেন। তিনি সমুদয় মানব-মানবীর হৃদয়ে জ্যোতি সঞ্চারিত করেন।পরমাত্মার মুখ থেকে তার আবির্ভাব।

সরস্বতী পূজা উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ তার বাণীতে সরস্বতী পূজা উপলক্ষে দেশের হিন্দুদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি সম্প্রীতির সুমহান ঐতিহ্য সুদৃঢ় করতে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সবাইকে আহ্বান জানান অবদান রাখার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে হিন্দুদের আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে জ্ঞানার্জনে ব্রতী হয়ে দেশের অগ্রযাত্রায় সবাইকে আত্মনিয়োগের আহ্বান জানান।

সরস্বতী পূজা উপলক্ষে বৃহস্পতিবার হিন্দু সম্প্রদায় বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা বাণী অর্চনাসহ নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের মন্দির ও গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পূজা ছাড়াও অন্যান্য অনুষ্ঠানের মধ্যে আছে-পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, প্রসাদ বিতরণ, ধর্মীয় আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা আরতি, আলোকসজ্জা ইত্যাদি।

মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির উদ্যোগে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির মেলাঙ্গনের কেন্দ্রীয় পূজামণ্ডপে সরস্বতী পূজার আয়োজন করা হয়েছে। এখানে পূজার কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ভোর ৬টায় প্রতিমা স্থাপন, ৯টায় পূজা, ১১টায় পুষ্পাঞ্জলি প্রদান, দুপুর ১২টায় প্রসাদ বিতরণ, সন্ধ্যা ৬টায় আরতি এবং রাতে আলোকসজ্জা। গোপীবাগের রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠ পূজামণ্ডপেও অনুরূপ অনুষ্ঠান থাকছে। এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, বেগম রোকেয়া হল, শামসুন্নাহার হল, কুয়েত মৈত্রী হল এবং ফজিলাতুননেছা মুজিব হলসহ বিভিন্ন হলে সরস্বতী পূজার আয়োজন করা হয়েছে। জগন্নাথ হলে কেন্দ্রীয় পূজামণ্ডপ ছাড়াও মাঠে এবার ৬২টি বিভাগ মিলিয়ে ৭০টি পূজামণ্ডপ স্থাপন করা হয়েছে।

জাতীয় সংসদের উদ্যোগে সংসদ ভবনসংলগ্ন মানিক মিয়া অ্যাভিনিউর রাজধানী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণেও সরস্বতী পূজা হবে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উৎসবের উদ্বোধন করবেন। জাতীয় প্রেসক্লাবে দ্বিতীয়বারের মতো এদিন সরস্বতী পূজার আয়োজন হয়েছে। এছাড়া রাজধানীর রমনা কালীমন্দির ও মা আনন্দময়ী আশ্রম, ইসকন মন্দির, মিরপুর কেন্দ্রীয় মন্দির, রামসীতা মন্দিরসহ বিভিন্ন মন্দির ও মণ্ডপে সরস্বতী পূজা এবং পুষ্পাঞ্জলি প্রদান ছাড়াও প্রসাদ বিতরণ করা হবে।

নিউজ ট্যাগ: সরস্বতী পূজা

আরও খবর

শবে মেরাজ ১৯ ফেব্রুয়ারি

সোমবার ২৩ জানুয়ারী 20২৩

শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব

রবিবার ২২ জানুয়ারী ২০২৩