Logo
শিরোনাম

ইফতারে প্রাণ জুড়াতে স্বাস্থ্যকর ফলের শরবত

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৪০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
যেহেতু গ্রীষ্মকাল চলছে তাই হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফল। এসব ফল দিয়ে ব্লেন্ডারে সহজেই বানিয়ে নেয়া যায় সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর শরবত। ইফতারের আগে রান্নার তাড়াহুড়োর মধ্যেও খুব কম সময়ে ব্লেন্ডারে তৈরি করা

চলছে সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমজান। অন্য সময়ের চেয়ে এ সময় খাবারের আয়োজনে থাকে ভিন্নতা। রোজায় দিনের বেশ বড় একটা সময় কোনো খাবার খাওয়া হয় না বলে সুস্থতার কথা বিবেচনা করে সাহরি ও ইফতারে ভেবেচিন্তে খাবার বাছাই করতে হয়। রোজার সময় ভাজাপোড়া কম খেয়ে পুষ্টি চাহিদা পূরণ করে এমন খাবার বেশি বেশি খাওয়া দরকার। আর করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আমাদের সবারই এখন অ্যান্টি-অক্সিডেন্টযুক্ত খাবার গ্রহণ করা উচিত। এক্ষেত্রে নানারকম ফল এবং ফলের শরবতের কোনো বিকল্প নেই।

গ্রীষ্মের প্রচণ্ড গরমে সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে প্রাণ শীতল করা এক গ্লাস ঠাণ্ডা শরবতের জুড়ি নেই। সারাদিনের ক্লান্তি নিমিষেই দূর হয় শরবত পান করে। এছাড়া এ সময় গরমের কারণে ঘামের সাথে শরীর থেকে অতিরিক্ত পানি বের হয় বলে রোজাদারদের পানিশূন্যতার ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই ইফতারে শরীরের পানির চাহিদা পূরণে পান করা যেতে পারে ফলের শরবত।

যেহেতু গ্রীষ্মকাল চলছে তাই হাতের নাগালে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফল। এসব ফল দিয়ে ব্লেন্ডারে সহজেই বানিয়ে নেয়া যায় সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর শরবত। ইফতারের আগে রান্নার তাড়াহুড়োর মধ্যেও খুব কম সময়ে ব্লেন্ডারে তৈরি করা যায় যেকোনো ফলের শরবত। ঘরে থাকা উপকরণ দিয়ে ব্লেন্ডারে সহজে তৈরি করা যায় এমন দুইটি শরবতের রেসিপি নিচে দেয়া হলো।

তরমুজের শরবত

উপকরণ: মাঝারি আকারের তরমুজ (১টি), বিট লবণ (১ চা চামচ), চিনি (২ টেবিল চামচ), ক্রিম (আধা কাপ), লেবুর রস (২ চা চামচ)।

প্রস্তুত প্রণালি: তরমুজের বিচি ফেলে দিয়ে শুধু লাল অংশটা নিন। এবার তরমুজটি ছোট ছোট টুকরো করে ব্লেন্ডারের জগে নিন। এর মধ্যে পরিমাণমতো চিনি, বিট লবণ, লেবুর রস যোগ করে ব্লেন্ড করুন এবং ঠাণ্ড হওয়ার জন্য কিছুক্ষণ ফ্রিজে রেখে দিন। এবার একটি বাটিতে ক্রিম নিয়ে দুই চা চামচ চিনি দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিন। পরিবেশনের সময় গ্লাসে ফ্রিজে রাখা তরমুজের রস ঢেলে উপরে ফেটানো ক্রিম ঢেলে দিন। সবশেষে কয়েকটি তরমুজের টুকরো উপরে ছড়িয়ে পরিবেশন করুন মজাদার তরমুজের শরবত।

কাঁচা আমের স্মুদি

উপকরণ: কাঁচা আম (২টি), চিনি (এক কাপ,) টক দই (এক কাপ), বিট লবণ (এক চা চামচ), মধু (এক টেবিল চামচ), কাঁচা মরিচ (২-৩টি), পুদিনা পাতা (আধা কাপ), টালা জিরার গুঁড়া (আধা চা চামচ), লবণ (স্বাদমতো), বরফকুচি।

প্রস্তুত প্রণালি: প্রথমে ছোট টুকরো করে কাঁচা আমগুলো কেটে নিন। এবার সব উপকরণ ব্লেন্ডারে নিয়ে নিন। প্রয়োজনমতো পানি মিশিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করুন। এবার গ্লাসে স্মুদি ঢেলে উপরে বরফ কুচি দিয়ে দিন। লেবুর স্লাইস দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন স্বাস্থ্যকর কাঁচা আমের স্মুদি।


আরও খবর



২৪ ঘণ্টায় বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়েছে ৫০০ দূরপাল্লার বাস

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৫৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাস সংক্রমণরোধে সারাদেশে দূরপাল্লার বাস চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছেন না বাস মালিক ও শ্রমিকরা।

ঈদের ছুটিতে মানুষ বাড়ি ফিরতে চাই, এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিতে রাতে রাস্তায় দূরপাল্লার বাস চালাচ্ছেন শ্রমিকরা।

এতে করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আরো বাড়তে পারে বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

বঙ্গবন্ধু সেতু টোলপ্লাজা সূত্র জানায়, শনিবার (৮ মে) সকাল ৬টা থেকে রবিবার (৯ মে) সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ২৬ হাজার বিভিন্ন ধরনের যানবাহন পারাপার হয়েছে। এর মধ্যে ৫০০ যাত্রীবাহী দূরপাল্লার বাস রয়েছে। এতে মোট এক কোটি ৮৮ লাখ টাকা টোল আদায় হয়েছে।

শনিবার রাতে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে গিয়ে দেখা যায় উভয় লেনে দূরপাল্লার বাসের দীর্ঘ লাইন। তবে উত্তরবঙ্গগামী বাসগুলোতে গাদাগাদি যাত্রী থাকলেও ঢাকামুখি বাসগুলোতে যাত্রী নেই বললেই চলে।

এ সময় কথা হয় ঢাকাগামী একতা পরিবহনের চালক সোলায়মান হাসানের সঙ্গে। তিনি জানান, ঢাকা থেকে যাত্রী নিয়ে বগুড়ায় নামিয়ে দিয়ে আবার খালি বাস নিয়ে ঢাকায় ফিরছেন। পারলে রাতেই আবার তিনি যাত্রী নিয়ে উত্তরবঙ্গের উদ্দেশে রওনা হবেন। তিনি আরো বলেন, টাকা না থাকলে খামু কি। তাই গাড়ি নিয়ে বের হয়েছি।

খোকন পরিবহনের চালক আব্দুল মান্নান জানান, যাত্রী নিয়ে তিনিও বগুড়া গিয়েছিলেন। এখন তিনি খালি গাড়ি নিয়ে ঢাকায় ফিরছেন। রাতে আরেক চালক যাত্রী নিয়ে বগুড়া যাবেন।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়াসির আরাফাত জানান, অনেক বাস ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া মহাসড়কে জেলা ভিত্তিক গণপরিবহন ছাড়া অন্য জেলার বাসগুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।


নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর

ঈদ মোবারক

শুক্রবার ১৪ মে ২০২১




গণপরিবহন চালুর দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

প্রকাশিত:রবিবার ০২ মে 2০২1 | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৬৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
মার্কেট খুলে দেওয়া হয়েছে। অনেকে কেনাকাটা করতে যাচ্ছেন, পরিবহনশ্রমিকদের সন্তানেরা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছেন। গাড়ি না চললে শ্রমিকেরা টাকা পান‌ না। মালিকপক্ষ প্রতি সপ্তাহে চাল, ডাল, তেল, আলু দিচ্ছে

গণপরিবহন চালু করাসহ তিন দফা দাবিতে আজ রবিবার সকাল থেকে দেশের সব টার্মিনালে বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচি পালন করছেন পরিবহনশ্রমিকেরা। তারা প্রশ্ন তুলেছেন, ব্যক্তিগত গাড়ি, সিএনজি, পিকআপ চললে গণপরিবহন চলবে না কেন।

ফেডারেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় সড়ক পরিবহনের সঙ্গে জড়িত প্রায় ৫০ লাখ শ্রমিক বেকার। এতে তাদের জীবিকা নির্বাহ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। পরিবার-পরিজন নিয়ে তারা দুর্বিষহ জীবন যাপন করছেন। পরিবহনশ্রমিকেরা রাস্তায় নেমে এলে তার দায়দায়িত্ব ফেডারেশন নেবে না।

আজ সকাল ১০টার দিকে গাবতলীতে ঢাকা জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃত্বে পরিবহনশ্রমিকেরা বিক্ষোভে অংশ নেন। বিক্ষোভ শেষে গাবতলী ও এর আশপাশ এলাকায় পরিবহনশ্রমিকেরা মিছিল করেন।

ইউনিয়নের সভাপতি মো. আব্বাস উদ্দিন বলেন, তাদের তিনটি দাবি, এগুলো হলো স্বাস্থ্যবিধি মেনে মোট আসনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন ও পণ্য পরিবহন চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে, সড়ক পরিবহনশ্রমিকদের আর্থিক অনুদান ও খাদ্যসহায়তা দিতে হবে এবং সারা দেশে বাস ও ট্রাক টার্মিনালগুলোতে পরিবহনশ্রমিকদের জন্য ১০ টাকায় ওএমএসের চাল দিতে হবে।

টার্মিনালে জমায়েত হওয়া পরিবহনশ্রমিকেরা বলেন, মার্কেট খুলে দেওয়া হয়েছে। অনেকে কেনাকাটা করতে যাচ্ছেন, পরিবহনশ্রমিকদের সন্তানেরা তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছেন। গাড়ি না চললে শ্রমিকেরা টাকা পান‌ না। মালিকপক্ষ প্রতি সপ্তাহে চাল, ডাল, তেল, আলু দিচ্ছে। কিন্তু এই সাহায্য যথেষ্ট নয়, কত দিন মালিকপক্ষ সহায়তা দেবে, তা নিয়েও শঙ্কা আছে। শ্রমিকেরা বলছেন, সব পরিবহনের শ্রমিকেরা আবার সেই সহায়তা পাননি।

এদিকে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ৪ মে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে দাবি আদায়ে অবস্থান কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে।


আরও খবর

ঈদ মোবারক

শুক্রবার ১৪ মে ২০২১




দেশে অক্সিজেন রফতানি বন্ধ করলো ভারত!

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৬৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পূর্ব ঘোষণা ছাড়ায় হঠাৎ করেই ভারত থেকে বন্ধ করা হলো করোনাকালীন সময়ে বাংলাদেশে চিকিৎসা খাতে ব্যবহৃত জরুরি অক্সিজেন আমদানি।

এরআগে প্রতিদিন ভারত থেকে কম-বেশি অক্সিজেনবাহী ট্যাংক বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করলেও গত চার দিনে কোন অক্সিজেন আমদানি হয়নি। ইতিমধ্যে অক্সিজেন আমদানি বন্ধে চিকিৎসা খাতে সংকট দেখা দিয়েছে। তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, ভারতের সাথে বাংলাদেশের শুধু বাণিজ্যিক সম্পর্ক না। দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বের সূত্র ধরে এই ক্রান্তিকালে সীমিত পরিসরে হলেও দেশটি অক্সিজেন রফতানি সচল রাখবেন।

জানা যায়, দেশের চিকিৎসা খাতে অক্সিজেনের চাহিদা মেটাতে বড় একটি অংশ বছর জুড়ে আমদানি হয় প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে। প্রতি মাসে শুধু বেনাপোল বন্দর দিয়েই প্রায় ৩০ হাজার মেট্রিক টন অক্সিজেন আমদানি হয়ে থাকে। করোনাকালীন সময়ে আক্রান্তদের জীবন বাঁচাতে সম্প্রতি এ অক্সিজেনের চাহিদা আরও বাড়ে। কিন্তু এরই মধ্যে বাংলাদেশে হঠাৎ করে বন্ধ হয়ে যায় ভারত থেকে অক্সিজেন আমদানি। আমদানি কারকরা ভারতীয় রফতানি কারকের উদ্ধৃতি দিয়ে বলছেন সংকটের কারণে ভারতীয় অক্সিজেন রফতানি বন্ধে তাদের চাপ রয়েছে। তাই করোনাকালীন সময়ে ভারত ভবিষ্যৎ চাহিদার কথা ভেবে বাংলাদেশে অক্সিজেন রফতানি সাময়িক বন্ধ করেছে বলে জানা গেছে। অক্সিজেন বহনকারী ট্যাংকগুলো কয়েক দিন ধরে বেনাপোল বন্দরে অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। হঠাৎ করে আমদানি বন্ধ হয়ে পড়ায় যেমন ব্যবসায়ীরা অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন তেমনি দেশের চিকিৎসা খাতও বড় ধরনের সংকটের মুখে পড়লো।

অক্সিজেন পরিবহনকারী বাংলাদেশি ট্রাক চালকেরা জানান, গত ৪ দিন ধরে বেনাপোল বন্দরে ট্রাক নিয়ে তারা দাঁড়িয়ে আছেন। কিন্তু ভারত থেকে কোন অক্সিজেন বন্দরে ঢুকছে না।

অক্সিজেন আমদানিকারকের প্রতিনিধি সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ রাকিব হোসেন জানান, ভারতীয় রফতানিকারকরা তাদের জানিয়েছেন সংকটের কারণে তারা বাংলাদেশে অক্সিজেন রফতানি করতে পারছেন না। এছাড়া রফতানি না করার বিষয়ে ভারত সরকারেরও কিছুটা চাপ রয়েছে।

বেনাপোল স্থলবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিলকে জানান, গত ৪ দিন ধরে ভারত থেকে অক্সিজেন আমদানি বন্ধ রয়েছে। সর্বশেষ ২১ এপ্রিল বাংলাদেশের দুজন আমদানিকারকের নামে ৯৩ মেট্টিক টন অক্সিজেন ভারত থেকে বেনাপোল বন্দরে আমদানি হয়। প্রতি মেট্টিক টন অক্সিজেনের আমদানি মূল্য ছিল ১১৬ মার্কিন ডলার। যা বাংলাদেশি টাকায় ৯ হাজার ৯৭৬ টাকা। তবে আমদানি সচল হওয়া মাত্রই দ্রুত যাতে ব্যবসায়ীরা খালাস নিতে পারে তার নির্দেশনা সকলকে দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ | ৬৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
সাম্প্রতিক সময়ে নাশকতা ও সহিংসতার ঘটনায় পল্টন থানায় দায়ের করা মামলার আসামি খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবীকে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) ভোররাতে তাকে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, 'সাম্প্রতিক সময়ে নাশকতা ও সহিংসতার ঘটনায় পল্টন থানায় দায়ের করা মামলার আসামি খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবীকে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব'।

এ নিয়ে গত এক সপ্তাহে পুরাতন ও নতুন মামলায় হেফাজতে ইসলামের অন্তত ১৫ শীর্ষ নেতাকে গ্রেপ্তার করা হলো।

এর আগে গতকাল বুধবার বিকেলে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সহসভাপতি এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের নায়েবে আমির খুরশিদ আলম কাসেমীকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওয়ারী বিভাগ। রাজধানীর মোহাম্মদপুরের নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডিবির যুগ্ম কমিশনার মো. মাহবুব আলম গ্রেপ্তারের খবরটি নিশ্চিত করেন।

খুরশিদ আলম কাসেমীর বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরের ঘটনায় মামলা রয়েছে। সেই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তিনি মামুনুল হকের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন।

তার আগে মঙ্গলবার মধ্যরাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আতাউল্লাহ আমীনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

গত রবিবার গ্রেপ্তার হন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি মামুনুল হক। তার বিরুদ্ধে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর সাম্প্রতিক সহিংসতা ও রিসোর্টকাণ্ডে রাজধানীর পল্টন থানা ও নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানায় দুটি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া, ২০১৩ সালের শাপলা চত্বর তাণ্ডবের ঘটনাতেও তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা আছে।


আরও খবর



১ মে থেকে ১৮ বছরের বেশি বয়সী সবাই পাবে করোনার টিকা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ মে ২০২১ | ৮২০জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ হওয়ায় রাজধানী দিল্লিতে লকডাউনের পাশাপাশি দেশজুড়ে টিকাদান কার্যক্রমের ব্যাপ্তি বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে ভারত। এনডিটিভি ও বিবিসির খবরে এ কথা জানানো হয়েছে।

আগামী ১ মে থেকে গোটা ভারতে ১৮ বছরের বেশি বয়সী সবাইকে টিকা দেওয়া হবে। গতকাল সোমবার এমন ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার।

বর্তমানে ভারতে শুধুমাত্র করোনা প্রতিরোধে সম্মুখসারির লোকজনকে টিকা দেওয়া চলছে। এখন ভারতের স্বাস্থ্যকর্মী, সম্মুখসারির কর্মী এবং ৪৫ বছরের বেশি বয়স্করা বর্তমানে টিকা পাচ্ছেন।

টিকা স্বল্পতার মাঝে বিশাল জনগোষ্ঠীর দেশে গণহারে টিকাদান কীভাবে সম্ভব হবে তা পরিষ্কার জানায়নি ভারতীয় সরকার। গত সপ্তাহে ভারত সরকার জানিয়েছিল, তাদের হাতে দুই কোটি ৭০ লাখ ডোজ টিকা রয়েছে। বর্তমানে যে গতিতে টিকাদান চলছে তাতে নয় দিনে সেগুলো ফুরিয়ে যাওয়ার কথা।

এ পর্যন্ত ভারতের ১২ কোটি ৭১ লাখ ২৯ হাজার ১১৩ জনকে টিকা দেওয়া হয়েছে বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে।

সবচেয়ে বেশি সংক্রমণের রাজ্য মহারাষ্ট্রে টিকার সরবরাহে ঘাটতি দেখা দিয়েছে। অনেক টিকাদান কেন্দ্র থেকে লোকজনকে ফিরিয়ে দেওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

গতকাল সোমবার দেশটির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে গণহারে টিকাদানের এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নরেন্দ্র মোদি সেখানে বলেন, ভারতের বেশির ভাগ মানুষকে যাতে অল্প সময়ের মধ্যে টিকা দেওয়া যায়, তার জন্য গত এক বছর ধরেই চেষ্টা চালিয়ে আসছে কেন্দ্র। এ ব্যাপারে এরই মধ্যে রেকর্ড গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। তবে আমরা আগামী দিনে আরও দ্রুত গতিতে কাজ করব।

১ মে থেকে ভারতের টিকাদান প্রক্রিয়ার তৃতীয় পর্যায় শুরু হতে যাচ্ছে বলে ঘোষণা করা হয়েছে। গত ১৬ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে দেশজুড়ে টিকাদান কার্যক্রম। প্রথম পর্যায়ে চিকিৎসক ও চিকিৎসা কর্মীদের টিকা দেওয়া হয়। দ্বিতীয় পর্যায়ে ১ এপ্রিল থেকে টিকা নেওয়ার সুবিধা অবারিত করা হয় পঁয়তাল্লিশোর্ধ্ব দেশবাসীদের জন্যও। কেন্দ্র জানিয়েছে, তৃতীয় পর্যায়ে টিকা নিতে পারবেন ১৮ উত্তীর্ণ হয়েছেন এমন সব দেশবাসী।

টিকা উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোকে উৎপাদন বাড়াতে এরই মধ্যে অর্থ দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। সবচেয়ে বড় যোগানদাতা সেরাম ইনস্টিটিউটকে সম্প্রতি ৬০ কোটি মার্কিন ডলার অনুদান দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভারত সরকার। এদিন বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, দেশি ও বিদেশি সংস্থাকেও এই উৎপাদনে অংশ নিতে উৎসাহ দেওয়া হবে। টিকা উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোকে তাদের মোট উৎপাদনের ৫০ শতাংশ সরকারকে দিতে বলা হবে। বাকি ৫০ শতাংশ খোলা বাজারে বিক্রি করা যাবে এবং রাজ্য সরকারগুলোকেও পাঠানো যাবে। সংক্রমণের হার ও টিকাদানের হার বিচার করে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলোকে টিকা সরবরাহ করবে কেন্দ্রীয় সরকার। তবে রাজ্য এবং খোলা বাজারে সরবরাহের টিকার দাম কত হতে যাচ্ছে, তা এখনও ঘোষণা করা হয়নি।

গতকাল সোমবার ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে, প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা, স্বাস্থ্যকর্মী ও ৪৫ বছরের বেশি বয়সের নাগরিকদের টিকাদান চলবে আগের মতোই। কো-উইন অ্যাপের মাধ্যমে সমস্ত নিয়ম মেনেই টিকাদান হবে। তবে প্রথম সারির করোনা যোদ্ধা, স্বাস্থ্যকর্মী ও ৪৫ বছরের বেশি বয়সের নাগরিকদের দ্বিতীয় ডোজের টিকাদানকে প্রাধান্য দেওয়া হবে।

মঙ্গলবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, গত একদিনে দুই লাখ ৫৯ হাজার ১৬০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। টানা ছয়দিন দুই লাখের বেশি করোনা শনাক্ত হলো। একদিনে মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৭৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছ এক লাখ ৮০ হাজার ৫৩০ জনের।


আরও খবর