Logo
শিরোনাম

পানিবন্দি ৩ হাজার পরিবার, খাবারের জন্য হাহাকার

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৭জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

উজানের ঢল আর টানা বর্ষণে পাবনায় যমুনা নদীর পানি আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে। এতে জেলার সাঁথিয়া উপজেলার নিম্নাঞ্চলখ্যাত নাগডেমড়া ইউনিয়নের ১৬ গ্রামের তিন হাজার পরিবার দুই মাস ধরে পানিবন্দি রয়েছে। এসব এলাকায় প্রয়োজনীয় খাবার, বিশুদ্ধ পানি ও ওষুধের সংকট দেখা দিয়েছে।

এদিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে গত কয়েক দিনে ৪০০ পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হলেও বাকি পরিবারগুলো খাবারের জন্য হাহাকার করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পানিবন্দি সাঁথিয়া উপজেলার নাগডেমড়া ইউনিয়নের বড় সোনাতলা, ছোট সোনাতলা, বৈরাগী সোনা তলা, হাড়িয়া, পাটগাড়ী, চিনানাড়ী, ছোট নারিন্দা, নাগডেমড়া, ছোট পাতাইলহাট, বড় পাতাইলহাট, সেলন্দা, ক্ষিদির গ্রাম, আটিয়া পাড়াসহ প্রায় ১৬টি গ্রাম পানিতে ভাসছে।

প্রায় প্রতিটি ঘরের মধ্যে হাটু সমান পানি। তারা অনেকেই পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। আবার কেউ কেউ ঘরের সঙ্গে বাঁশের সাঁকো বেঁধে কলার ভেলায় বিভিন্ন কাজকর্ম করছে। পানিবন্দি হওয়ায় কর্মহীন হয়ে পড়েছে এসব এলাকার মানুষ। দেখা দিয়ে বিশুদ্ধ পানি ও খাবারের সংকট।

সাঁথিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মামুন আব্দুল্লাহ বলেন, দীর্ঘ দিন পানিবন্দি থাকার ফলে পানিবাহিত ও মশাবাহিত রোগের প্রকোপ দেখা দিতে পারে। পানিবাহিত রোগের মধ্যে টাইফয়েড, কলেরা, ডায়রিয়া, জন্ডিস হতে পারে। মশাবাহিত রোগের মধ্যে ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া, ম্যালেরিয়া হতে পারে। এ ছাড়াও জ্বর-ঠান্ডা-কাশি হতে পারে। বন্যাকবলিত এলাকায় জরুরি চিকিৎসাসেবা না দিলে ভয়াবহ অবস্থা তৈরি হতে পারে।

পাবনা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন দফতরের কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, বন্যাকবলিত এলাকার ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ রয়েছে। যেকোনো সময় বন্যাকবলিতদের কাছে পৌঁছে যাবে। তাছাড়া গো-খাদ্য ও শিশ খাদ্যের বরাদ্ধ আসছে। সেগুলোরও তালিকা তৈরি হয়ে গেছে। সময়মতো সুবিধাভোগীদের মালামাল বুঝিয়ে দেওয়া হবে।


আরও খবর



ঘুষের টাকা চেয়ে গণধোলাইয়ের শিকার স্যানিটারি ইন্সপেক্টর

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৮১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পণ্যে ভেজাল আছে অভিযোগ তুলে হাটের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ঘুষ দাবি করায় সিরাজগঞ্জের তাড়াশে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর ও তার এক সহযোগীকে উত্তেজিত জনতা গণধোলাই দিয়ে আটকে রাখার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাদেরকে জনতার কবল উদ্ধার করে।

বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফজলে আশিক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার ধামাইচ গ্রামীণ হাটে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গেছে, তাড়াশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এস.এম. শহিদুল ইসলাম রন্টু ও হাসপাতালের নৈশ প্রহরী গোরাচাঁদ ধামাইচ হাটে গিয়ে ভেজাল পণ্যের অভিযোগ তুলে ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে মোটা অংকের ঘুষ দাবি করেন। ব্যবসায়ীরা ঘুষ দিতে অস্বীকার করলে তাদেরকে জেল জরিমানার ভয় দেখিয়ে খারাপ ব্যবহার করে। এ সময় উত্তেজিত জনতা তাদেরকে গণপিটুনি দিয়ে আটকে রাখে। এ ঘটনায় তার জামা ছেড়া অবস্থায় একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এস.এম. শহিদুল ইসলাম রন্টু ও নৈশ প্রহরী গোরাচাঁদকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

ধামাইচ বাজারের হোটেল ব্যবসায়ী রাশিদুল ইসলাম বলেন, স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এস.এম. শহিদুল ইসলাম রন্টু প্রায়ই হাট বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা ঘুষ নিয়ে থাকেন। গতকাল বিকেলে ধামাইচ হাটে এসে অনেক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে টাকা নেন। আমার দোকানে এসেও তিনি টাকা দাবি করেন।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এস.এম. শহিদুল ইসলাম রন্টুর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি এ বিষয়ে কোনও কথা বলতে রাজি হননি।

তাড়াশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফজলে আশিক বলেন, খরব পেয়ে পুলিশ পাঠিয়ে ধামাইচ হাট থেকে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এস.এম. শহিদুল ইসলাম রন্টু ও নৈশ প্রহরী গোরাচাঁদকে উদ্ধার করা হয়। পরে রাত ৮টার সময় মুচলেকা দিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা তাদেরকে তার জিম্মায় নিয়ে যান।


আরও খবর

যমুনা নদীতে নৌকা থেকে পড়ে ২ নারীর মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

সিরাজগঞ্জে নদী ভাঙনে দিশেহারা মানুষ

রবিবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১




শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরামর্শ

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় কাজ করছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বরাবরই স্বাস্থ্যবিধির জায়গাটিকে প্রাধান্য দিয়ে আসছে। জনস্বাস্থ্য ও জনস্বার্থের বিষয়টি সমন্বয় করে আমরা পরামর্শ দিয়ে আসছি

দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার। তবে এই পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীরা যেন করোনায় সংক্রমিত না হয় সেজন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বুধবার (২৫ আগস্ট) দুপুরে দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম এ পরামর্শ দেন।

ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় কাজ করছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বরাবরই স্বাস্থ্যবিধির জায়গাটিকে প্রাধান্য দিয়ে আসছে। জনস্বাস্থ্য ও জনস্বার্থের বিষয়টি সমন্বয় করে আমরা পরামর্শ দিয়ে আসছি। আমরা আশা করি এই দুটি দিক প্রাধান্য দিলে নিরাপত্তার জায়গাটিতে আশ্বস্ত হতে পারব। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিলে মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি। আমরা শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার বিষয়টি প্রাধান্য দেব।

ডেঙ্গু সংক্রমণ প্রসঙ্গে ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, গেল ৮ মাসের মধ্যে আগস্ট মাসে ডেঙ্গু রোগী সবচেয়ে বেশি ছিল। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের যেসব জায়গায় ডেঙ্গু বেশি সেসব এলাকায় মশা নিধনে ব্যবস্থা নিতে সিটি করপোরেশকে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৫৮ জন ডেঙ্গু রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের অধিকাংশই রাজধানীর বাসিন্দা। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ২১২ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪৬ জন।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত হাসপাতালে মোট রোগী ভর্তি হয়েছেন ৮ হাজার ৫৭৫ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৭ হাজার ৪৫৮ জন। ডেঙ্গুতে এ সময়ে মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জনের।


আরও খবর

৫ অক্টোবর খুলছে ঢাবির হল

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্লাসও সপ্তাহে দুই দিন

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১




ডেঙ্গুতে নতুন করে ৩৪৩ জন আক্রান্ত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে আরও ৩৪৩ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৮৬ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৫৭ জন।

আজ মঙ্গলবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গুবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ৩৪৩ জন ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ২৮১ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৪১টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে এক হাজার ১৩৩ জন এবং অন্যান্য বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে ১৪৮ জন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, গত ১ জানুয়ারি থেকে এই পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১২ হাজার ৪৩৪ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছে ১১ হাজার ১০১ জন রোগী। ডেঙ্গুতে এ সময়ে ৫২ জনের মৃত্যু হয়েছে।


আরও খবর

দেশে করোনায় আরও ৪৩ জনের মৃত্যু

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

ডেঙ্গুতে হাসপাতালে আরও ২৩২ রোগী

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১




অবৈধ ৫৯টি আইপিটিভি বন্ধ করেছে বিটিআরসি

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বিটিআরসি জানিয়েছে অনুমোদন ব্যতিরেকে আইপিটিভি সম্প্রচার অনৈতিক এবং টেলিযোগাযোগ আইনের ব্যত্যয়। এজন্য ইতোমধ্যে এরূপ ৫৯টি অনিবন্ধিত অবৈধ আইপিটিভি কমিশন থেকে বন্ধ করা হয়েছে।

রবিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিটিআরসি এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, স্যাটেলাইট টেলিভিশনে প্রচারিত কন্টেন্টসমূহ ইন্টারনেট প্রটোকল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সম্প্রচার করার প্রক্রিয়া হলো ইন্টারনেট প্রটোকল টেলিভিশন (আইপি টিভি)। বিটিআরসি কেবলমাত্র লাইসেন্সধারী আইএসপি প্রতিষ্ঠানসমূহকে আইপিভিত্তিক ডাটা সার্ভিস (যেমন- স্ট্রেমিং সার্ভিস, আইপি টিভি, ভিডিও অন ডিমান্ড) এর অনুমোদন দিয়ে থাকে।

বিটিআরসি কর্তৃক আইপিটিভি সার্ভিসের অনুমোদন প্রাপ্ত আইএসপি অপারেটররা ইন্টারনেটের মাধ্যমে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক অনুমোদিত স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলসমূহের সম্প্রচার শুধুমাত্র তাদের গ্রাহকদেরই প্রদর্শন করতে পারবে। তবে প্রতিটি চ্যানেল বা প্রোগ্রাম বা কন্টেন্ট প্রচারে প্রয়োজনীয় চুক্তি/অনুমোদন/ছাড়পত্র সংশ্লিষ্ট প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রহণ করতে হবে।

সাম্প্রতিককালে লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অবৈধভাবে ডোমেইন ক্রয়/ফেসবুক/ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে জনগণকে আইপিটিভি প্রদর্শন করছে, যার কোনো বৈধ অনুমোদন নেই। অনুমোদন ব্যতিরেকে উক্ত সম্প্রচার অনৈতিক এবং টেলিযোগাযোগ আইনের ব্যত্যয়। এজন্য ইতোমধ্যে এরূপ ৫৯টি অনিবন্ধিত অবৈধ আইপিটিভি কমিশন থেকে বন্ধ করা হয়েছে। এসব কার্যক্রমের সহিত বিটিআরসি কর্তৃক আইপিভিত্তিক ডাটা সার্ভিসের জন্য অনুমোদন প্রাপ্ত আইএসপি প্রতিষ্ঠানসমূহের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।


আরও খবর



দুই মাদক ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবিতে কলেমা চত্বরে জেপি’র মানববন্ধন!

প্রকাশিত:বুধবার ২৫ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
মধ্য ভাণ্ডরিয়া এলাকার বাসিন্দা মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে মাসুদ সরদারকে ভাণ্ডরিয়া পুলিশ গত ৪ আগস্ট দিবাগত রাতে পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের মধ্য ভাণ্ডরিয়া এলাকা থেকে ৩০৫ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করে

পিরোজপুরের ভাণ্ডরিয়ায় ৩০৫ পিস ইয়াবাসহ পুলিশের কাছে গ্রেপ্তার হওয়া মাদক ব্যবসায়ী ও হত্যা মামলার আসামি দুই সহোদরের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে উপজেলা জাতীয় পার্টি (জেপি), জাতীয় যুব সংহতি ও জাতীয় ছাত্র সমাজ। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) বিকালে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গ্রেপ্তার হওয়া মাসুদ সরদার ও মামুন সরদার জাতীয় যুব সংহতির নেতা দাবি করে তাদের গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ এবং মুক্তির দাবিতে এ মানববন্ধন করা হয়েছে।

ভাণ্ডরিয়া উপজেলার কলেমা চত্বরে যুব সংহতির আহ্বায়ক মো. রেজাউল হক রেজভি জোমাদ্দারের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, যুব সংহতি নেতা মো. মাহবুব শরীফ শুভ, পৌর ছাত্র সমাজের আহ্বায়ক মেহেদী হাসান রাজু, ছাত্র সমাজের নেতা মো. রায়হান আকন, যুব সংহতি নেতা বাবু তালুকদার, বাদশা খান, মামুন হাওলাদার, মির্জা রিপন প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, মামুনুর রশিদ সরদার ভাণ্ডরিয়া উপজেলা যুব সংহতির সদস্য সচিব আর তার ভাই মাসুদ সরদার যুব সংহতির স্থানীয় নেতা। তাদেরকে মিথ্যা ও হয়রানিমূলক মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমরা গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তির দাবি জানাই।

মানববন্ধন শেষে একটি মিছিল কলেমা চত্বর থেকে শুরু করে উপজেলা জাতীয় পার্টির প্রধান কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়।

প্রসঙ্গত, মধ্য ভাণ্ডরিয়া এলাকার বাসিন্দা মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে মাসুদ সরদারকে ভাণ্ডরিয়া পুলিশ গত ৪ আগস্ট দিবাগত রাতে পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের মধ্য ভাণ্ডরিয়া এলাকা থেকে ৩০৫ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করে। তার বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠায়। সে বর্তমানে পিরোজপুর জেলে রয়েছে।

অন্যদিকে, মাসুদ সরদারের ভাই মামুনুর রশিদ সরদারকে বরিশালের উজিরপুর থানার একটি মাদক মামলার এজাহারভুক্ত আসামি হিসেবে গ্রেপ্তার করে বরিশাল কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। গত ২৩ আগস্ট র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এর একটি দল ঢাকা থেকে মামুন সরদারকে গ্রেপ্তার করে বরিশালের উজিরপুর পুলিশের কাছে সোপর্দ করে।

ভান্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) মেহেদী হাসান জানান, মাসুদ সরদারকে ভাণ্ডরিয়া থানা পুলিশ ৩০৫ পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করেছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে ভান্ডারিয়া থানায় একটি হত্যা মামলাসহ মাদক ও বিভিন্ন অপরাধে আরও ১১টি মামলা রয়েছে।


আরও খবর