Logo
শিরোনাম

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে লোকাল বাসের যাত্রীদের ভোগান্তি

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথ দিয়ে ঈদে ঘরে ফেরা লোকজনের মধ্যে লোকাল বাসের যাত্রীরা পড়েছে চরম ভোগান্তিতে। ঘাট এলাকা থেকে বেশ দূরে তাদের নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে। রিকশা, অটোরিকশা ও সিএনজি চলাচলের অনুমতি না থাকায় নারী- পুরুষ বয়স্ক-শিশু সকলকে পায়ে হেঁটে ফেরি ও লঞ্চ ঘাটে যেতে হচ্ছে। দীর্ঘ পথ হেটে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

সরেজমিন দেখা যায়, কাটা গাড়ির যাত্রীরা প্রচণ্ড গরমে পায়ে হেঁটে লঞ্চ ও ফেরি ঘাটে যাচ্ছেন। তবে দূর পাল্লার বাসের যাত্রীরা মোটামুটি স্বাচ্ছন্দ্যে পার হচ্ছেন।

শ্রমিক ও যাত্রীরা বলেন, সড়ক পথে ও ফেরি ঘাটে তেমন ভোগান্তি নেই। তবে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী পারাপার হচ্ছে বলে অভিযোগ যাত্রীদের। ঘাট কর্তৃপক্ষ জানান, পর্যাপ্ত ফেরি থাকার কারণে ঘাটে সমস্যা হচ্ছে না।


আরও খবর



৩৩ হাজার পরিবারকে আজ ঈদ উপহার দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৫৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) গণভবন থেকে দেশের চারটি উপজেলায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে ৩২ হাজার ৯০৪টি গৃহহীন পরিবারকে ঈদ উপহার হিসেবে বাড়ি দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় ধাপে এসব বাড়ি‌ হস্তান্তর করা হবে গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারগুলোর মধ্যে। এর মাধ্যমে প্রায় দেড় লাখেরও বেশি মানুষের ঈদ আনন্দ বেড়ে যাবে দ্বিগুণ।

এর আগে রোববার (২৪ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের পোড়াদিয়া বালিয়া আশ্রয়ণ প্রকল্প, বরগুনা সদর উপজেলার গৌরিচন্না ইউনিয়নের খাজুরতলা আশ্রয়ণ প্রকল্প, সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার খোকশাবাড়ী ইউনিয়নের খোকশাবাড়ী আশ্রয়ণ প্রকল্প এবং চট্টগ্রামের আনোয়ারার বারখাইন ইউনিয়নের হাজিগাও আশ্রয়ণ প্রকল্পে সরাসরি গণভবন থেকে যুক্ত হবেন।

তোফাজ্জল হোসেন মিয়া জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঘোষণা দিয়েছেন যে বাংলাদেশের কোনো মানুষ যাতে ভূমিহীন, গৃহহীন না থাকে। সেজন্য তিনি দুই শতক জমির ওপর দুই রুম বিশিষ্ট একটি ঘর উপহার দিচ্ছেন। এসব ঘরের ডিজাইন প্রধানমন্ত্রী নিজেই প্রণয়ন করেছেন।

তিনি আরও জানান, প্রথম পর্যায়ে ২০২১ সালের ২৩ জানুয়ারি ৬০ হাজার ১৯১টি ঘর, ২০ জুন ৫৩ হাজার ৩০০টি ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে নির্মিত মোট ঘরের সংখ্যা ১ লাখ ১৭ হাজার ৩২৯টি। তৃতীয় পর্যায়ে নির্মাণাধীন একক ঘরের সংখ্যা ৬৫ হাজার ৬৭৪টি। এর মধ্যে ৩২ হাজার ৯০৪টি হস্তান্তর হবে।

সিনিয়র সচিব আরও জানান, যে ঘর দেয়া হচ্ছে এগুলো স্বামী-স্ত্রীর যৌথ নামে দেয়া হচ্ছে। যার স্বামী নেই সেক্ষেত্রে স্ত্রীর নামে দেয়া হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) আহসান কিবরিয়া সিদ্দিকি, আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর প্রকল্প পরিচালক আবু ছালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান (যুগ্ম সচিব) প্রমুখ।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে একটি পরিবারও গৃহহীন ও ভূমিহীন থাকবে না- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন ঘোষণার পর থেকে যাদের নিজস্ব জমি নেই, ঘর নেই তাদের জমি ও ঘর দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ অধীনে এই বাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে। এসব ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে সরকারি খাস জায়গা কিংবা দখল হওয়া জায়গা দখলমুক্ত করে। ইতোমধ্যে দেশের আট বিভাগে বিপুল পরিমাণ বেদখল হওয়া সরকারি খাস জমি উদ্ধার করা হয়েছে।


আরও খবর



দেশে ফিরতে চান পি কে হালদার

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দেশে ফিরতে চান ভারতে গ্রেফতার হওয়া বহুল আলোচিত পলাতক পি কে হালদার। সোমবার সকালে পশ্চিমবঙ্গের বিধাননগর মহকুমা হাসপাতালে মেডিক্যাল চেকআপের জন্য নিয়ে যাওয়া হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি দেশে ফিরতে চাই।

তিনি দাবি করেন, তার বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগ ঠিক নয়।

সোমবার (১৬ মে) সকালে ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টর (ইডি) আঞ্চলিক দপ্তর সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্স থেকে তাকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে হাসপাতালে নেওয়া হয়।  হাসপাতাল থেকে সিজিও কমপ্লেক্সে ফেরার সময় গণমাধ্যমের কর্মীদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বারবারই বলেন, তার কোনো দোষ নেই। তিনি বাংলাদেশে ফিরতে চান।

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের ১১টি স্থানে তল্লাশি অভিযান চালিয়ে মোট ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়। ২০০২ সালের প্রিভেনশন অব মানি লন্ডারিং অ্যাক্ট’ (পিএমএলএ) এর অধীন গ্রেফতার হওয়া পি কে হালদার ছাড়াও অন্যরা হলেন প্রাণেশ কুমার হালদার, স্বপন মিত্র ওরফে স্বপন মিস্ত্রি, উত্তম মৈত্র ওরফে উত্তম মিস্ত্রি, ইমাম হোসেন ওরফে ইমন হালদার এবং আমানা সুলতানা ওরফে শারমিন হালদার। গ্রেফতারকৃত ৬ জনকেই শনিবার পিএমএলএর আওতাধীন বিশেষ আদালতে তোলা হলে ৫ জনকে ইডির রিমান্ডে নেওয়া হয় একজনকে জেল হেফাজতে পাঠানো হয়।

তাদের সবাইকে মঙ্গলবার (১৭ মে) বেলা বারোটার পর আদালতে তোলা হবে।


আরও খবর



সাংবাদিক আমির খসরুর মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পিরোজপুরে নিজ বাসা থেকে ভয়েস অব আমেরিকার বাংলাদেশ প্রতিনিধি আমির খসরুর মায়ের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের অভিযোগ, রাতের কোনো এক সময় শ্বাসরোধ করে তাঁকে হত্যা করে ফেলে রাখা হয়েছে।

আজ সোমবার সকাল ১০টায় পিরোজপুরের সিআইপাড়া এলাকার নিজ বাস ভবন থেকে আমির খসরুর মা সিতারা হালিমের মরদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ।

সিতারা হালিম (৭৪) পিরোজপুর সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক মৃত আব্দুল হালিম হাওলাদারের স্ত্রী।

সিতারা হালিমের মেয়ে সালমা আরজু জানান, তাঁদের নিজেদের বাসভনের দ্বিতীয় তলায় মা একা থাকতেন। গতকাল রোববার রাতে সর্বশেষ মায়ের সঙ্গে তাঁর কথা হয়। আজ সকালে বাসায় রং করার জন্য আব্দুল কুদ্দুস নামের একজন রংমিস্ত্রি গিয়ে ডাকাডাকি করেন। ভেতর থেকে কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে তিনি নিচ তলার ভাড়াটিয়ার কাছে বিষয়টি জানান। অনেক সময় পরও দরজা না খুললে ভাড়াটিয়া ও রং মিস্ত্রি পেছনের দরজা দিয়ে ডাকতে গেলে তাঁরা দেখতে পান দরজাটি খোলা। তখন বাসায় ঢুকে দেখেন সিতারা হালিম মেঝেতে পড়ে আছেন।

নিচ তলার ভাড়াটিয়া বিষয়টি সালমা আরজুকে ফোনে জানান। তিনি ও তাঁর স্বামী দ্রুত বাসায় এসে দেখতে পান ঘরের মেঝেতে মা পড়ে আছেন। তাঁর গলায় আঘাতের চিহ্ন। ঘরের আলমারি ভাঙা এবং আসবাবপত্র এলোমেলোভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। তাঁরা তখন পুলিশে খবর দেন। তৎক্ষণাৎ পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়।

পিরোজপুর জেলা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. স্বাগত হালদার বলেন, মৃত অবস্থায় সিতারা হালিম নামে এক বয়স্ক নারীকে হাসপাতালে আনা হয়েছিল। তাঁর গলায় চিকন কোনো কিছুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

পিরোজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) থান্দার খায়রুল হাসান বলেন, সকালে খবর পেয়ে পুলিশ সিতারা হালিমের মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে শ্বাসরোধ করে রাতের কোনো এক সময় তাঁকে হত্যা করে ঘরের মেঝেতে ফেলে রাখা হয়েছিল। এ বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করে দেখছে।


আরও খবর



সাশ্রয়ী হতে হবে, অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকারি-বেসরকারি সব খাতে সব বিষয়ে সাশ্রয়ী হতে হবে। বিদ্যুৎ-পানি থেকে শুরু করে কোনো কিছুই অপচয় করা যাবে না। মঙ্গলবার (১৭ মে) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভায় তিনি এ কথা বলেন। শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষ এবং সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে এনইসি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী ও এনইসি চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা গণভবন থেকে সংযুক্ত হয়ে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে সভায় সভাপতিত্ব করেন।

সভায় ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন বাজেট (এডিপি) অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা বা করপোরেশনের প্রায় ৯ হাজার ১৩০ কোটি টাকার এডিপি অনুমোদিত হয়েছে।

সভা শেষে প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, এনইসি সভায় আরও একটা বিষয় গুরুত্ব পেয়েছে। সেটা হলো অপচয় রোধ করতে হবে। এটা ভয়ের কোনো ব্যাপার নয়। জনগণের অর্থ ব্যয়ে সাশ্রয়ী হতে হবে। প্রধানমন্ত্রী কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন, সরকারি-বেসরকারি খাতে সাশ্রয়ী হতে হবে। পানি ও বিদ্যুতে সাশ্রয়ী হতে হবে। প্রধানমন্ত্রী ভ্রমণের বিষয়ে নির্বাহী আদেশ দিয়েছেন। সুতরাং সব বিষয়ে সাশ্রয়ী হতে হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে অপচয় করা যাবে না। কোনো মতেই অপচয় করা যাবে না। কারণ সম্পদ সবারই সীমিত। অহেতুক সম্পদ অপচয় করার মানে নেই। শুধু অপচয় রোধ নয়, জনগণের জন্য দেশের জন্য প্রকল্প আগে নিতে হবে।

ব্যয়ে ঘাটতি সবার থাকবে। কারো অফুরন্ত সম্পদ নেই। গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প আগে নিতে হবে। অহেতুক বাড়াবাড়ি করা যাবে না বলে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, যোগ করেন এম এ মান্নান।


আরও খবর



জ্যাকলিনের ৭ কোটির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৮১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের বিরুদ্ধে বড় ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। প্রতারক সুকেশ চন্দ্রশেখরের সঙ্গে হাত মেলানোর অভিযোগে ইডি তলব করেছে শ্রীলঙ্কান এই অভিনেত্রীকে। তার ৭ কোটি টাকারও বেশি সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি পাঁচ বছরের পুরোনো একটি জালিয়াতির মামলায় চন্দ্রশেখরকে গ্রেপ্তার করে ইডি। এর আগে ২১৫ কোটি টাকার মামলায় সুকেশ গ্রেপ্তার হয়েছিলেন।

ইডি জ্যাকলিনের ৭ কোটি ২৭ লাখ টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছে। এর মধ্যে ৭ কোটি ১২ লাখ টাকা হলো এফডি। ইডির অনুমান, সুকেশ প্রতারণার টাকা থেকে জ্যাকলিনকে ৫ কোটি ৭১ লাখ টাকা দিয়েছিলেন। 

ইডি জানিয়েছে, সুকেশ তোলাবাজির অর্থ ব্যবহার করেই জ্যাকলিনের জন্য উপহার কিনেছেন। শুধু তাই নয়, তিনি জ্যাকলিনের পরিবারের সদস্যদের জন্যও ১ লাখ ৭৩ হাজার মার্কিন ডলার এবং প্রায় ২৭ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলারের কাছাকাছি খরচ করেছেন। এর সবটাই বেআইনি পথে উপার্জন করা। সেই সম্পত্তি এখন বাজেয়াপ্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে ইডি।

এর আগেও জ্যাকলিনকে একাধিকবার জেরা করেছে ইডি। তিনিই ইডিকে জানিয়েছেন, ২০১৭ সাল থেকে তিনি চেনেন সুকেশকে। শুধু তাই নয় এই প্রতারক তাকে বলেছিলেন, তিনি জয়ললিতার পরিবারের সদস্য। শুধু তাই নয় ২০২০ সালে তিনি নিজেকে সান টিভির মালিক বলেও পরিচয় দিয়েছিলেন।

চার্টাড প্লেনে চেপে জ্যাকলিন সুকেশের সঙ্গে দেখা করতে যেতেন বলেও খবর ছড়ায়। এমন কী জ্যাকলিন আর সুকেশের কিছু অন্তরঙ্গ ছবিও ভাইরাল হয়।

এ বিষয়ে সুকেশ বলেন, আমি এর আগেই জানিয়েছি, আমার আর জ্যাকলিনের মধ্যে একটা সম্পর্ক ছিল। তবে যেভাবে দেখানো হচ্ছে সব জায়গায় যে আর্থিক চাহিদার জন্য এই সম্পর্ক, তা ঠিক নয়। আমাদের সম্পর্কে অনেক ভালোবাসা ছিল, সম্মান ছিল কোনো প্রত্যাশা ছাড়াই।


আরও খবর