শিরোনাম

উটের সুন্দরী প্রতিযোগিতা, বাদ পড়ল ৪৩

প্রকাশিত:শনিবার ১১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ১০২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
চলতি মাসে শুরু হয়েছে উটের এ প্রতিযোগিতা। চলবে ৪০ দিন ধরে। এতে রয়েছে ১৯টি বিভাগ। আরব দেশগুলির পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ফ্রান্স থেকেও প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন বহু উট মালিক

কার উট সবচেয়ে সুন্দর? এ নিয়ে সৌদি আরবে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। তবে অভিযোগ উঠেছে প্রায় সাত কোটি ডলার মূল্যের এসব উটের মালিকরা জয় পেতে ছলচাতুরির আশ্রয় নিচ্ছেন। বোটক্স ইনজেকশন ও অন্যান্য কৃত্রিম উপায়ে ৪৩টি উটকে সুন্দর করেছেন তারা।

তবে শেষরক্ষা হলো না তাদের। কৃত্রিম কৌশল অবলম্বন করায় প্রতিযোগিতা থেকে ওই উটগুলোকে বাতিল করা হয়েছে। বিচারকরা জানিয়েছেন, চলতি বছর কারচুপি ধরার উদ্দেশ্যে আধুনিক প্রযুক্তির আশ্রয় নেওয়া হয়েছিল। আর এতেই উট মালিকদের কৌশল ধরা পড়েছে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকার।

চলতি মাসে শুরু হয়েছে উটের এ প্রতিযোগিতা। চলবে ৪০ দিন ধরে। এতে রয়েছে ১৯টি বিভাগ। আরব দেশগুলির পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ফ্রান্স থেকেও প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছেন বহু উট মালিক।

এ বছর বিচারকদের নজরে আসে অনেক উটের ক্ষেত্রেই কৃত্রিম পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়েছে। কারচুপি ধরার জন্য এক্স রে, থ্রিডি আলট্রাসাউন্ড মেশিনও ব্যবহার করা হয়। আয়োজকরা শুধু বাতিল নয়, ওই উট মালিকদের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ ও কঠোর পদক্ষেপ করা হবে বলে জানান। তারা বলেন, বোটক্স বা হরমোন পরিবর্তনের জন্য তাদের কাছে ২৭ হাজার ডলার ক্ষতিপূরণ দাবি করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: সৌদি আরব

আরও খবর



আবরার হত্যা: ২০ আসামির ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৭৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ২০ আসামির ডেথ রেফারেন্স নথি হাইকোর্টে পাঠিয়েছেন দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল।বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ২০ জনের মৃত্যুদণ্ড ও পাঁচজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, বহিষ্কৃত তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অনিক সরকার ওরফে অপু, বহিষ্কৃত সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন ওরফে শান্ত, বহিষ্কৃত উপসমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, বহিষ্কৃত ক্রীড়া সম্পাদক মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, বহিষ্কৃত কর্মী মুনতাসির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর, মুজাহিদুর রহমান, মনিরুজ্জামান মনির, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মাজেদুর রহমান মাজেদ, শামীম বিল্লাহ, এ এস এম নাজমুস সাদাত, আবরারের রুমমেট মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, মোর্শেদ অমর্ত্য ইসলাম, এস এম মাহমুদ সেতু, মুহাম্মদ মোর্শেদ-উজ-জামান মণ্ডল ওরফে জিসান, এহতেশামুল রাব্বি ওরফে তানিম ও মুজতবা রাফিদ। এদের মধ্যে তিন আসামি জিসান, তানিম ও রাফিদ পলাতক।

যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মুহতামিম ফুয়াদ, মুয়াজ ওরফে আবু হুরায়রা, বহিষ্কৃত গ্রন্থ ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ইশতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, বহিষ্কৃত আইনবিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহা ও আকাশ হোসেন। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি এদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত।


আরও খবর



বিমান-হেলিকপ্টার থেকে গুলি চালাচ্ছে জান্তা

প্রকাশিত:বুধবার ২২ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৫৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মিয়ানমারে সেনাশাসনের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে প্রতিরোধ সংগ্রাম গড়ে তুলেছে গণতন্ত্রপন্থি বিদ্রোহী জনতা। জান্তা সেনা আর জনতার মধ্যে প্রায় প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও সংঘাতের ঘটনা ঘটছে। তবে বিদ্রোহীদের দমনেও উঠে পড়ে লেগেছে জান্তা সরকার। স্থল অভিযানের পাশাপাশি এবার বিমান-হেলিকপ্টারেও হামলা চালাচ্ছে। ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিচ্ছে। পিছু হটছে না বিদ্রোহী যোদ্ধারাও। ইতোমধ্যে সেনাবাহিনীর ওপর বেশ কিছু সফল আক্রমণ চালিয়েছে তারা। শুধু তাই নয়, নিজেদের অস্ত্রভাণ্ডার বাড়াতে সেনাদের আটক করে গোলাবারুদ ছিনিয়ে নিচ্ছে বিদ্রোহীরা।

২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে দেশটির কুখ্যাত সেনাবাহিনী। এরপর গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রাম করে সাধারণ জনগণ। সেই সঙ্গে লড়াই জোরদার করে দেশটির বিভিন্ন অঞ্চলের সশস্ত্র গোষ্ঠী। এসব গোষ্ঠীর সঙ্গে যোগ দিচ্ছে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। গড়ে তুলেছে পিপলস ডিফেন্স ফোর্স (পিডিএফ)। ক্ষমতাচ্যুত নেত্রী অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন ছায়া সরকারের (ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট) পক্ষে লড়ছেন এর সদস্যরা। সর্বাত্মক এই প্রতিরোধ আন্দোলন ভেস্তে দিতে সব কৌশলই প্রয়োগ করছে জান্তার সেনা। গণতন্ত্র উদ্ধারের এ বিক্ষোভ দমনে এখন পর্যন্ত এক হাজার তিনশর বেশি মানুষ নিহত হয়েছে।

এএফপি জানিয়েছে, চলতি সপ্তাহে রাজ্যে রাজ্যে বিদ্রোহীদের ওপর অভিযান জোরদার করেছে সেনাবাহিনী। এসব অভিযানে সামরিক হেলিকপ্টার ও জেটবিমান ব্যবহার করছে তারা। সর্বশেষ শুক্রবার মিয়ানমারের মধ্যাঞ্চলীয় রাজ্য সাগাইংয়ে পিডিএফ যোদ্ধাদের একটি মিটিং চলাকালে বিমান হামলা চালায় তাতমাদোর বিমান সেনারা। গ্রামবাসীরা জানান, বিদ্রোহীদের সঙ্গে চলমান লড়াইয়ের মধ্যে এদিন সেনাবাহিনীর দুটি হেলিকপ্টার সাগাইংয়ে এসে নামে এবং শত শত সেনা মোতায়েন করে। এই সময় একটি বিমান আকাশ থেকে গ্রামের বেশ কয়েকটি ভবনে নির্বিচার গুলি চালায়। আরেক গ্রামবাসীর মতে, এদিন অভিযানে অন্তত পাঁচটা হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয়েছে। হেলিকপ্টারগুলো ৬ হাজার অধিবাসীর গ্রামটির ওপর ঘুরে ঘুরে গুলিবর্ষণ করে। এতে পিডিএফের দুই নেতা ও সাত গ্রামবাসী নিহত হয়। সেনা সরকারের মুখপাত্র জ মিন তুনও এই অভিযানের কথা স্বীকার করেছেন।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম মিয়ানমার নাও জানিয়েছে, কারেন রাজ্যের মিয়াওয়াদি শহরে জান্তা-বিদ্রোহী সংঘাত তীব্র রূপ নিয়েছে। গত সপ্তাহে লে কায় কাউ গ্রামে সেনার এক অভিযানের পর এই সংঘাত শুরু হয়। ছয় দিন পরও উভয়পক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘাত চলছে। প্রচণ্ড গোলাগুলির মধ্যে গ্রাম ছেড়ে পালাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। পিডিএফ যোদ্ধাদের সঙ্গে নিয়ে জান্তা সেনাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে সশস্ত্র গোষ্ঠী কারেন ন্যাশনাল লিবারেশন আর্মি (কেএনএলএ)। ফলে কোথাও কোথাও পিছু হটছে সেনারা। ছায়া সরকার বা ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্টের কর্মকর্তারা বলেছেন, হামলার মুখে পলায়নপর ৮ সেনাকে আটক করেছে পিডিএফ ও কেএনএলএর যৌথ বাহিনী। তাদের কাছ থেকে বেশ কিছু রাইফেল ও মর্টারসহ বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদ ছিনিয়ে নেওয়া হয়েছে।

পশ্চিমাঞ্চলীয় কারেনি বা কায়াহ রাজ্যেও অভিযান চালিয়েছে জান্তা সেনারা। শুক্রবার রাজ্যের লইকাউ টাউনশিপ এলাকায় অভিযান চালিয়ে বেশ কিছু ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় তারা। সশস্ত্র গোষ্ঠী কারেনি ন্যাশনালিটি ডিফেন্স ফোর্স (কেএনডিএফ) জানিয়েছে, সেনাদের দেওয়া আগুনে অন্তত ২০টি বাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এখানেও জান্তা সেনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে কেএনডিএফ।

এদিকে মিয়ানমারে জান্তা সরকারের অত্যাচার-নিপীড়নে পরোক্ষভাবে তহবিল জোগাচ্ছে আন্তর্জাতিক রত্ন ব্যবসায়ীরা। তারা দেশটি থেকে জেমস্টোনের মতো মূল্যবান পাথর কিনছে। এর বিনিময়ে বিশাল অর্থ চলে যাচ্ছে জান্তা সরকারের হাতে। গ্লোবাল উইটনেস নামে দুর্নীতিবিরোধী সংগঠনের এক রিপোর্টে এসব কথা বলা হয়েছে। কনফ্লিক্ট রুবিজ : হাউ লাক্সারি জুয়েলার্স রিস্ক ফান্ডিং মিলিটারি অ্যাবিউজ ইন মিয়ানমার শীর্ষক ওই রিপোর্টটি চলতি সপ্তাহে প্রকাশিত হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, চলতি বছরের শুরুতে অভ্যুত্থানের পর দেশের হাজার কোটি ডলারের জেমস্টোন শিল্প এখন সেনাবাহিনীর হাতে। বর্তমানে এটা সেনাশাসকদের আয়ের সবচেয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ খাত হয়ে উঠেছে। মিয়ানমারের সরকারি তথ্য-উপাত্ত মতে, ২০১৪ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত বছরে ৩৪ কোটি ৬০ লাখ ডলার থেকে ৪১ কোটি ৫০ লাখ ডলারের মূল্যবান পাথর বাণিজ্য করেছে মিয়ানমার। তবে এই মূল্যবান পাথরের বাণিজ্য লুকিয়ে-চুরিয়ে হওয়ার কারণে এর সঠিক তথ্য-উপাত্ত পাওয়া যায় না। গ্লোবাল উইটনেসের রিপোর্ট মতে, ওই চার বছরে বার্ষিক গড়ে ১৭৩ কোটি ডলার থেকে ২০৭ কোটি ডলারের বাণিজ্য হয়েছে। আলজাজিরা।


আরও খবর

আবুধাবিতে ড্রোন হামলায় তিনজন নিহত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




আমরা মহামারির সবচেয়ে খারাপ অংশে প্রবেশ করতে পারি: বিল গেটস

প্রকাশিত:বুধবার ২২ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৭১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

দক্ষিণ আফ্রিকায় আবিষ্কারের পর থেকেই দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাসের ধরন ওমিক্রন। যার কারণে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণের সংখ্যা। যা মহামারির সবচেয়ে খারাপ অংশের দিকে বিশ্ববাসীকে নিয়ে যাচ্ছে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনী বিল গেটস।

এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশে দেশে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট যেভাবে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে, তাতে সমগ্র বিশ্ব হয়তো করোনা মহামারির সবচেয়ে খারাপ অংশে প্রবেশ করতে পারে বলে আশঙ্কা গেটসের। তাই তিনি নিজের আসন্ন ছুটির দিনের বেশিরভাগ পরিকল্পনা বাতিল করেছেন।

টুইটারে বিল গেটস বলেন, তার ঘনিষ্ঠ বন্ধুরা ক্রমবর্ধমান ভাবেই করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হচ্ছেন। আর তাই পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে অনুসরণকারীদের প্রতি তার পরামর্শ -আমাদেরকে এই সত্য উপলব্ধি করতে হবে যে, আমরা করোনা মহামারির সবচেয়ে খারাপ অংশে প্রবেশ করতে পারি।

তিনি আরও বলেন, ইতিহাসের যেকোনো ভাইরাসের চেয়ে দ্রুতগতিতে ছড়িয়ে পড়ছে ওমিক্রন। শিগগিরই এটি বিশ্বের প্রতিটি দেশেই ছড়িয়ে পড়বে।


আরও খবর

আবুধাবিতে ড্রোন হামলায় তিনজন নিহত

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




বাংলাবান্ধা বন্দরে ট্রাকের ধাক্কায় ভারতীয় চালকের মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৮১জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পঞ্চগড় প্রতিনিধি:

দেশের একমাত্র চতুদেশীয় স্থলবন্দর পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর এলাকায় বাংলাদেশী ট্রাকের ধাক্কায় মেহবুব রহমান ওরফে রাজেশ (৩৫) নামে এক ভারতীয় ট্রাক চালক গুরুত্বর আহত হয়েছেন। পরে তাকে দ্রুত উদ্ধার করে ভারতের ফুলবাড়ি সীমান্ত হয়ে ভারতের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

সোমবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের ২য় গেটের ভিতরে অবস্থিত ৩য় ওয়েট স্কেল সংলগ্ন স্থানে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত মেহবুব রাহমান ভারতের শিলিগুড়ী শক্তিপুর এলাকার বাসিন্দা।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, মেহবুব সকালে ট্রাক নিয়ে বাংলাদেশের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরে প্রবেশ করেন। বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের ২য় গেইটের ভিতরে অবস্থিত ৩য় ওয়েট স্কেল সংলগ্ন স্থানে ট্রাক থেকে নেয়ে দারিয়ে ছিলেন। একসময় বাংলাদেশী পণ্যবাহি দারিয়ে থাকা এক ট্রাক বেগ দিতে গেলে চালক বুঝে উঠার আগেই পেছনে থাকা ভারতীয় চালককে ধাক্কা লেগে যায়। এতে সে গুরুত্বর ভাবে আহত হয়। পরে তাকে উপস্থিত অন্যান্য ড্রাইভার, বিজিবি-বিএসএফ ও স্থানীয়দের সহায়তায় চিকিৎসার জন্য দ্রুত বাংলাবাংন্ধা জিরো পয়েন্ট দিয়ে ভারতের ফুলবাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভারতীয় ওই ট্রাক চালকের মৃত্যু হয়।

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের বন্দর ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ দূর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।


আরও খবর

পঞ্চগড়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ

সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২




শেখ হাসিনা মানেই সমৃদ্ধ বাংলাদেশ: শ ম রেজাউল করিম

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, "শেখ হাসিনা মানেই সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। এই সময়ের বাংলাদেশ অনেক দিক থেকে এগিয়ে গেছে। এখন প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে, ইন্টারনেট সংযোগসহ ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল সবখানে পাওয়া যাচ্ছে। এই পরিবর্তিত বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ স্বাধীন করে দিয়েছেন আর আধুনিক বাংলাদেশ সৃষ্টি করেছেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা। তাঁর সরকারের সময়ে বাংলাদেশের কোন অঞ্চল উন্নয়নবঞ্চিত থাকবে না"।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) পিরোজপুরের নেছারাবাদ উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নে আলহাজ্ব আব্দুর রহমান ডিগ্রী কলেজ প্রাঙ্গণে কলেজের চারতলা একাডেমিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা জানান।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী আরো বলেন, "শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা রাজনীতিমুক্ত হওয়া দরকার। তা না হলে আদর্শ শিক্ষা ব্যাহত হবে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পঙ্কিল রাজনীতি থেকে দূরে রাখতে হবে। শিক্ষার্থীদের নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও দেশপ্রেমের শিক্ষা দিতে হবে। এক্ষেত্রে পরিবার ও শিক্ষকদের যথার্থ ভূমিকা পালন করতে হবে"।

মন্ত্রী আরো যোগ করেন, "সন্ত্রাস-নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের প্রশ্রয় দেয়া যাবেনা। বর্তমান সরকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাস কর। কারণ রাষ্ট্রে সব ধর্মের মানুষের অধিকার আছে। দেশের কোন অঞ্চলে যেন সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প কেউ ছড়াতে না পারে, সে ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে। উন্নয়নের বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বিস্ময়। শেখ হাসিনা না থাকলে আবার উন্নয়ন থেমে যাবে, আবার দুর্নীতিবাজ-সন্ত্রাসীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে।

বিএনপি-জামায়াতের ভুল প্রচারণায় বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য এসময় স্থানীয় জনসাধারণকে আহ্বান জানান মন্ত্রী।

আলহাজ্ব আব্দুর রহমান ডিগ্রী কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি মো. সেলিম হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে

পিরোজপুর-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম, নেছারাবাদ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোশারেফ হোসেন, পিরোজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার থান্দার খায়রুল হাসান, পিরোজপুর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তার, নেছারাবাদ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল হক, আলহাজ্ব আব্দুর রহমান ডিগ্রী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ দেলোয়ার হোসেন তালুকদার, নেছারাবাদ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হামিদ, সাধারণ সম্পাদক এস এম ফুয়াদ, বলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদুর রহমানসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর