Logo
শিরোনাম

চিকিৎসককে হত্যা: পিরোজপুরের এমদাদসহ ৩ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২৮৮৮জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image
পুলিশ জনির অবস্থান সম্পর্কে জানাতে পারেনি। বিষয়টি সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, ক্ষমতাসীন দলের নেতা, মানবাধিকার কর্মী, জেলা প্রশাসক ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:

সাতক্ষীরার পারকুকরালি এলাকার হোমিও চিকিৎসক মোখলেছুর রহমান জনি সদর থানার লকআপ থেকে নিখোঁজের পাঁচ বছরেও সন্ধান মেলেনি। এ ঘটনায় হাইকোর্টের নির্দেশে গত মঙ্গলবার তার বাবা শেখ আব্দুর রাশেদ বাদী হয়ে ছেলেকে অপহরণের পর খুন করে লাশ গুমের অভিযোগ এনে সাতক্ষীরার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় সাতক্ষীরা সদর থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক শেখ, এরপর বদলি হয়ে আসা ওসি ফিরোজ হোসেন মোল্লা ও উপপরিদর্শক (এসআই) হিমেল হোসেনকে আসামি করা হয়েছে।

এমদাদুল হক শেখের গ্রামের বাড়ি পিরোজপুর পৌর শহরের নামাজপুর এলাকায়। মৃত আব্দুল আজিজ শেখের ছেলে এবং পিরোজপুর জেলা পরিষদ এর সদস্য সুমন শেখের চাচা। এমদাদুল হক শেখ এর আগে বগুড়া, যশোর, মৌলভীবাজার সদর থানা ও সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানায় কর্মরত থাকাকালীন বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে একাধিক বিভাগীয় মামলা হয়েছে। বর্তমানে রাঙামাটি ডিবি পুলিশের ওসি হিসেবে কর্মরত আছে।

মামলা ও ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৪ আগস্ট রাত সাড়ে ৯টার দিকে অসুস্থ বাবার জন্য বাইসাইকেলে ওষুধ কিনতে গিয়ে সাতক্ষীরা শহরের লাবনী সিনেমা হলের সামনের একটি দোকান থেকে সদর থানার এসআই হিমেল শহরের পারকুকরালির মোখলেছুর রহমান জনিকে ধরে থানায় নিয়ে যায়।

এরপর টানা তিন দিন ৫, ৬ ও ৭ আগস্ট স্ত্রী জেসমিন নাহার রেশমা তার শ্বশুর ও স্বজনদের নিয়ে লকআপে তাকে খাবার দিয়ে এসেছিলেন। স্ত্রীর সঙ্গে কথাও বলেছিলেন এ চিকিৎসক। ওসি এমদাদুল হক শেখ ও এসআই হিমেলের সঙ্গে কথা বললে জনির জঙ্গি সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে জানানো হয়। স্বামীর মুক্তির বিনিময়ে তৎকালীন ওসি ও এসআই জনির স্ত্রী রেশমার কাছে দাবি করেন মোটা অঙ্কের টাকা।

তবে ৮ আগস্ট থানায় গেলে জনিকে পাওয়া যায়নি। পুলিশ জনির অবস্থান সম্পর্কে জানাতে পারেনি। বিষয়টি সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, ক্ষমতাসীন দলের নেতা, মানবাধিকার কর্মী, জেলা প্রশাসক ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়। ওই বছরের ২৪ আগস্ট বিষয়টি জানানো হয় সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারকে (এসপি)। ২৬ ডিসেম্বর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে গেলে থানার ওসি ফিরোজ হোসেন মোল্লা তা গ্রহণ করেননি।

উপায় না দেখে ২০১৭ সালের ৩ জানুয়ারি সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন রেশমা। ২১ জানুয়ারি আইন ও শালিস কেন্দ্রের তদন্তকারী টিমের সদস্য অনির্বান সাহা, মানবাধিকার কর্মী রঘুনাথ খাসহ কয়েকজন জনির বাড়িতে আসেন ও পরে থানায় যান। যা পরদিন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়।

২০১৭ সালের ২ মার্চ হাইকোর্টে রিট পিটিশন (২৮৩৩/১৭) দাখিল করেন রেশমা। মামলায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আটজনকে বিবাদী করা হয়। আদালতের নির্দেশে ২০১৭ সালের ১৯ মার্চ আদালতে উপস্থাপন করা এসপির ব্যাখ্যায় বলা হয়, নিখোঁজ মোখলেছুর রহমান নিষিদ্ধ সংগঠন আল্লাহর দলর সঙ্গে যুক্ত এবং তাকে গ্রেফতার করা হয়নি।

১৯ মার্চ শুনানি শেষে আদালত জনিকে ১২ এপ্রিলের মধ্যে বিচারিক আদালতে হাজির করানোর নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে ৯ মে এ সংক্রান্ত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ঢাকা লিগ্যাল সেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এএসএম জাভিদ হাসানকে নির্দেশ দেওয়া হয়। সে অনুযায়ী ১০ জন পুলিশ কর্মকর্তা-সদস্য ও পাঁচজন সাধারণ মানুষের জবানবন্দি নিয়ে মোখলেছুর রহমান জনিকে ২০১৬ সালের ৪ আগস্ট আটক করেনি বা তাকে কেউ থানার মধ্যে দেখেনি মর্মে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

পরে আদালতের নির্দেশে ২০১৭ সালের ৩ জুলাই সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম হাবিবুল্লাহ মাহমুদ হাইকোর্টে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে থানা লকআপ থেকে ডা. জনির নিখোঁজ হওয়ার সত্যতা উঠে আসে। পরবর্তী সময়ে এক আদেশে ওই বছরের ৩ অক্টোবরের মধ্যে এ সম্পর্কিত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দেওয়া হয়।

পিবিআই তদন্ত প্রতিবেদনে ডা. জনিকে থানায় এনে আটক রাখার সত্যতা মেলেনি বলে উল্লেখ করা হয়। ২০১৮ সালের ২৪ জানুয়ারি তদন্ত প্রতিবেদন পর্যালোচনা শেষে হাইকোর্ট জনি নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরি নিয়ে তার তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়ার জন্য থানা ওসি এমদাদুল হক শেখ, ফিরোজ হোসেন মোল্লা ও এসআই হিমেল হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা গ্রহণ একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা যেতে পারে বলে এক আদেশে উল্লেখ করেন।

সে অনুযায়ী আইন ও শালিস কেন্দ্রের সহযোগিতায় জেসমিন নাহার রেশমা আদালতে মামলা করার প্রস্তুতি নিলে শেষ পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট আইনজীবী অপারগতা প্রকাশ করায় আর মামলা করা হয়নি। এর কয়েক মাস পর জেসমিনের অন্যত্র বিয়ে হওয়ায় হাইকোর্টে বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি খন্দকার দিলিরুজ্জামানের আদালতে হাজির হয়ে ২৮৩৩/১৭ নং রিট পিটিশনে জনির বাবা শেখ আব্দুর রাশেদ নিজেকে বাদী শ্রেণিভুক্ত হওয়ার আবেদন করেন।

আদালত তা মঞ্জুর করলে শেখ আব্দুর রাশেদ মামলা করার জন্য সাতক্ষীরা জেলা আইনজীবী সমিতির তৎকালীন সভাপতি অ্যাড. এম শাহ আলম ও সাতক্ষীরা আদালতের লিগ্যাল এইডের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারক সালমা আক্তারের শরণাপন্ন হন। এরপরও কোনও আইনজীবী না পাওয়ায় তিনি মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান অ্যাড. সুলতানা কামালের দ্বারস্থ হন।

এক পর্যায়ে তারই সহায়তায় সাতক্ষীরার জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাড. মোসলেম উদ্দিন ও অ্যাড. মো. ফরহাদ হোসেনের মাধ্যমে গত মঙ্গলবার সাতক্ষীরার মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর এসআই হিমেলের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরায় বিভাগীয় মামলা (৬/১৮) দায়ের করা হয়। এ ঘটনায় ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বর সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইলতুৎ মিশের কাছে ও ২২ নভেম্বর খুলনার সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল কাদের বেগের কাছে জেসমিন নাহার রেশমা, তার শ্বশুর শেখ আব্দুর রাশেদ, শাশুড়ি আনোয়ারা খাতুন সাক্ষী দেন।

একইভাবে ২৮ নভেম্বর মানবাধিকার কর্মী রঘুনাথ খাঁ ও তিন পুলিশ সদস্যের সাক্ষী গ্রহণ করা হয়। একই ঘটনায় ১৬/২০ ও ১৭/২০ বিভাগীয় মামলা হয় তৎকালীন ওসি এমদাদ শেখ ও ফিরোজ হোসেন মোল্লার বিরুদ্ধে। খুলনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওয়াসিম ফিরোজ ২০২০ সালের ২১ সেপ্টেম্বর থেকে কয়েক দফায় সাতক্ষীরা আদালতের পুলিশ পরিদর্শকের কার্যালয়ে ও খুলনা নিজ কার্যালয়ে নিখোঁজ জনির বাবা, মা, বোন, চাচা, মানবাধিকার কর্মী রঘুনাথ খাঁ, সিপাহী ফসিয়ার রহমান, সিপাহী ইলিয়াস হোসেন, সিপাহী মহিদুল ইসলাম ও এসআই রইচউদ্দিনসহ ১৬ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবী মোসলেম উদ্দিন ও অ্যাড. ফরহাদ হোসেন বলেন, আজ বুধবার আদালত এ মামলার আদেশ দেবেন।


আরও খবর



খুলে দেওয়া হয়েছে তিস্তা ব্যারেজের ৪৪ গেট

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫২জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

কয়েক দিনের ভারী বর্ষণ এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমার ৩৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে তিস্তা তীরবর্তী এলাকার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টায় দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজে পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ৯৫ সেন্টিমিটার। যা স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় ৩৫ সেন্টিমিটার বেশি। উজানের পানি নিয়ন্ত্রণ করতে ৪৪টি গেট খুলে দিয়েছে পানি উন্নয়ন র্বোড।

জানা গেছে, ভারী বর্ষণের কারণে ভারত গজল ডোবা ব্যারেজের অধিকাংশ গেট খুলে দেয়। এতে তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করে। তিস্তার পানিতে পাটগ্রামের বহুল আলোচিত বিলুপ্ত ছিটমহল আঙ্গোরপোতা-দহগ্রাম, হাতীবান্ধার সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সিঙ্গিমারী, সির্ন্দুনা, পাটিকাপাড়া ও ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের বিভিন্ন চর, আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা, সদর উপজেলার রাজপুর, খুনিয়াগাছ, গোকুন্ডা ইউনিয়ন ও কালীগঞ্জ উপজেলার চরাঞ্চলের প্রায় তিন হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

এ ছাড়া তিস্তার সঙ্গে যুক্ত ছোট ছোট নদ-নদীতে পানি বাড়তে শুরু করেছে। কিছু কিছু স্থানে দেখা দিয়েছে নদীভাঙন। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় বালুর বস্তা দিয়ে ভাঙন ঠেকানোর চেষ্টা চলছে। নতুন করে ভাঙন আতঙ্কে অনেকে ঘরবাড়ি সরিয়ে নিরাপদ দূরত্বে আশ্রয় নিচ্ছেন।

নিউজ ট্যাগ: তিস্তা ব্যারেজ

আরও খবর



আফগানিস্তানে হুমকি মোকাবিলায় এক ছাতার নিচে রাশিয়া-চীন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৬ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১১৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং সম্মত হয়েছেন যে তাদের দেশ আফগানিস্তান হুমকি যৌথভাবে মোকাবেলা করার ব্যাপারে প্রচেষ্টা জোরদার করবে। তালেবানরা দেশটির ক্ষমতা দখল করে নেয়ায় এমন হুমকি দেখা দিয়েছে। বুধবার ক্রেমলিন একথা জানায়। খবর এএফপির।

ক্রেমলিনের দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়, ফোনালাপের সময় এ দুই নেতা সন্ত্রাসবাদের হুমকি মোকাবেলা এবং আফগানিস্তান ভূখণ্ড থেকে আসা মাদক পাচার রোধে প্রচেষ্টা জোরদার করার ব্যাপারে তাদের প্রস্তুতির কথা ব্যক্ত করেন।

এছাড়া তারা আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠার গুরুত্ব এবং পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের দেশগুলোতে ছড়িয়ে পড়া অস্থিরতা মোকাবেলার বিষয়ে আলোচনা করেন।

পুতিন ও শি দ্বিপাক্ষিক যোগাযোগ জোরদার এবং সাংহাই সহযোগিতা সংস্থাকে (এসসিও) অধিক শক্তিশালী করার ব্যাপারেও সম্মত হয়েছেন। আগামী মাসে তাজিকিস্তানে এ সংস্থার সম্মেলন হওয়ার কথা রয়েছে।

কাবুলের নতুন নেতৃত্বের ব্যাপারে মস্কো সাবধানী আশাবাদ ব্যক্ত করেছে। এদিকে আফগান জঙ্গিরা শরণার্থী হিসেবে প্রতিবেশি দেশগুলোতে ঢুকে পড়তে পারে বলে পুতিন সতর্ক করে দিয়েছেন।

আফগানিস্তানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বাইরের দেশগুলোর হস্তক্ষেপের সমালোচনা করে পুতিন  বলেন, মস্কো দেশটিতে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের চালানো দশক-ব্যাপী আগ্রাসন থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেছে।

এদিকে ১৫ আগস্ট তালেবান দ্রুত আফগানিস্তানের ক্ষমতা গ্রহণের পর চীন জানায়, তারা দেশটির সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ ও সহযোগিতামূলক সম্পর্ক গড়তে প্রস্তুত রয়েছে।


আরও খবর



জাতীয় সংগীত ‘ব্যঙ্গ করে’ টিকটক ভিডিও: আটক ৫

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

বগুড়া জেলার সরকারি কোনো একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থাপিত শহীদ মিনারের সামনে দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীতের অবমাননা করে টিকটক ভিডিও তৈরি করায় ৫ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) বেলা ১২টায় এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ পুলিশের এআইজি (মি‌ডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রি‌লেশন্স) মো. সোহেল রানা। এর আগে সোমবার (২৩ আগস্ট) রাতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- মো. নূর-ই-ইসলাম আলিফ, মো. মিশকাত হোসেন, মে‌হেদী হাসান অন্তর, আলিফ আহ‌মেদ সুজন, মো. আরিফ আলী।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বেশ কয়েকজন যুবক বগুড়া জেলার সরকারি কোনো একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থাপিত শহীদ মিনারের সামনে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতকে বিকৃত ও ব্যঙ্গ করে একটি ভিডিও পরিবেশন করছে। এই পোস্টটি বাংলাদেশ পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স উইংয়ের দৃষ্টিতে আসে। তারা ভিডিওটি বগুড়া সদর থানার ওসি মো. সে‌লিম রেজাকে পাঠিয়ে সংশ্লিষ্ট যুবকদের খুঁজে বের করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জন্য নির্দেশ দেন। পরে নির্দেশনা পেয়ে বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেলিম রেজা ও এসআই জা‌কির আল আহসানের নেতৃ‌ত্বে পুলিশের এক‌টি টিম কাজ শুরু করে। সংশ্লিষ্টদের শনাক্ত করে সোমবার (২৩ আগস্ট) রাতভর অভিযান চালিয়ে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৫ জনকে আটক করেন।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম রেজা জানান, বাংলাদেশ পুলিশ বিভাগের হেড কোয়ার্টারের নির্দেশ অনুযায়ী সদর থানার এসআই জাকির ও সঙ্গীয় ফোর্সসহ সারারাত অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।



আরও খবর



যে নিয়মে হবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষা শুরু হচ্ছে সেপ্টেম্বরে। করোনা কারণে এক আসন খালি রেখে কেন্দ্রে আসন বিন্যাস করা হবে। অর্থাৎ ইংরেজি জেড পদ্ধতিতে আসন বিন্যাস করা হবে। এছাড়া পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

সোমবার (৩০ আগস্ট) রাতে পরীক্ষা গ্রহণ সংক্রান্ত নির্দেশাবলী বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছে কর্তৃপক্ষ।

দেশের করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক গত মার্চ মাসে স্থগিত ঘোষণা করা হয় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে চলমান বিভিন্ন পরীক্ষা। তবে বর্তমানে কোভিড-১৯ পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি, টিকাদান কার্যক্রম সম্প্রসারণ ও সর্বোপরি শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ বিবেচনা করে স্থগিত পরীক্ষাসমূহ অনুষ্ঠানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

পরীক্ষা গ্রহণ সংক্রান্ত নির্দেশাবলীতে বলা হয়েছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা গ্রহণ এবং পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। পরীক্ষা কেন্দ্রে দুই জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অন্তত ৩ ফুট দূরত্ব বজায় রেখে (আসন বিন্যাসের নমুনা-১ অথবা আসন বিন্যাসের নমুনা-২ এর অনুরূপভাবে) আসন ব্যবস্থা করতে হবে। এক্ষেত্রে প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ভেন্যু কেন্দ্রে পরীক্ষা গ্রহণ করা যাবে।

আরও বলা হয়েছে, সব শিক্ষক, পরীক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারী মাস্ক পরিধান করে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করবে। মাস্ক সঠিক নিয়মে পরতে হবে এবং মাস্ক ছাড়া কেউ পরীক্ষা কেন্দ্র প্রবেশ করতে পারবে না। শুধু পরীক্ষার্থীর পরিচয় নিশ্চিত করার জন্য সাময়িক মাস্ক খোলা যাবে।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের পূর্বে হাত ধোয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সাবান এবং পানির ব্যবস্থা রাখতে হবে। প্রয়োজনে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবস্থা রাখতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ১৮ বছর ও তার বেশি বয়সী সকলকে করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে। যেসব শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা/কর্মচারী এখনও টিকা গ্রহণ করেননি তাদের টিকা গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। তাছাড়া স্বাস্থ্য অধিদপ্তর  কর্তৃক জারিকৃত সকল স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে বলে নির্দেশনায় উল্লেখ রয়েছে।


আরও খবর

৫ অক্টোবর খুলছে ঢাবির হল

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

অষ্টম ও নবম শ্রেণির ক্লাসও সপ্তাহে দুই দিন

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১




একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্দশ অধিবেশন বসছে বুধবার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩১ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৭৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চলতি একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্দশ অধিবেশন বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) শুরু হচ্ছে। ওই দিন বিকাল ৫টায় সংসদের বৈঠক বসার কথা রয়েছে। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার এ অধিবেশন চলবে মাত্র চার কার্যদিবস। করোনাকালের অন্য অধিবেশনের মতো এবারও মানা হবে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফের মৃত্যুতে সংসদের প্রথম দিনের বৈঠক শোকপ্রস্তাব গ্রহণের পর মুলতবি হবে। তার আগে পাঁচ জন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের নাম ঘোষণা করা হবে।

চলতি সংসদের কোনও সদস্য মারা গেলে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রেওয়াজ অনুযায়ী বৈঠক মুলতবি করা হয়। তার আগে ওই সংসদ সদস্যকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সংসদে আলোচনা হয়।

করোনাভাইরাসের কারণে এবার শুক্রবারও জাতীয় সংসদের বৈঠক বসবে। তৃতীয় দিন শুক্রবার ছুটির দিন হলেও অধিবেশন বসবে। ওই দিন বিকাল ৪টায় বসবে অধিবেশন। করোনার কারণে তাড়াতাড়ি অধিবেশন শেষ করতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে এবারও সাংবাদিকরা সেখানে প্রবেশের অনুমতি পাচ্ছেন না।

সংসদের গণসংযোগ বিভাগের পরিচালক মো. তারিক মাহমুদ জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে অধিবেশনকালীন সাংবাদিকদের পাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। জনস্বার্থে অধিবেশনের সব কার্যক্রম সংসদ বাংলাদেশ টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার (লাইভ সম্প্রচার) হবে।

সংসদের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, করোনা পরীক্ষা করে সংসদ সদস্য ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অধিবেশনে যেতে হয়। অধিবেশনের কার্যদিবসের মধ্যে বিরতি রাখলে কেউ সংক্রমিত হতে পারেন। এ জন্য শুক্রবারও অধিবেশন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

অধিবেশন সংক্ষিপ্ত হলেও এতে গুরুত্বপূর্ণ আইন পাশ হওয়ার কথা রয়েছে। এবারের অধিবেশনে নতুন তিনটি বিলসহ ১৫টি বিল নিষ্পত্তি হতে পারে। এর মধ্যে সংসদে উত্থাপিত বিলগুলো হলোBangladesh House Building Finance Corporation (Amendment) Bill 2021, ব্যাংকার বহিঃ সাক্ষ্য বিল ২০২১, বাংলাদেশ ট্যুর অপারেটর ও ট্যুর গাইড (নিবন্ধন ও পরিচালন) বিল ২০২১, মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ বিল ২০২১,  Medical Degree (Repeal) Bill 2021, Medical College (Governing bodies) Repeal Bill 2021, বাংলাদেশ জাতীয় আর্কাইভস বিল ২০২১, জাতীয় শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউট বিল ২০২১, কুড়িগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বিল ২০২১, জাতীয় সংসদের নির্বাচনি এলাকার সীমানা নির্ধারণ বিল ২০২১ এবং গান্ধী আশ্রম (ট্রাস্টি বোর্ড) বিল ২০২১।

এদিকে সংসদে উত্থাপনের অপেক্ষায় থাকা বিলগুলো হচ্ছেবিরোধী দলীয় নেতা এবং উপনেতা (পারিতোষিক ও বিশেষ অধিকার) বিল ২০২১, বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী (Special Security Force) বিল ২০২১, মহাসড়ক বিল ২০২১ এবং Bangladesh Legal Practitioners and Bar Council bill 2021.

আসন্ন অধিবেশনটি হবে চলতি বছরের চতুর্থ অধিবেশন। গত ৩ জুলাই শেষ হয়েছিল সংসদের ১৩তম অধিবেশন, যেটি ছিল বাজেট অধিবেশন। করোনা প্রকোপের মধ্যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গত কয়েকটি অধিবেশন বসেছে। জাতীয় সংসদের এক অধিবেশন শেষ হওয়ার পরবর্তী ৬০ দিনের মধ্যে অধিবেশন ডাকার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রয়েছে।


আরও খবর

অভিভাবকরা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১