Logo
শিরোনাম

হাওরের বন্যা চালের বাজারমূল্যে প্রভাবক হয়ে উঠতে পারে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ২৫৪জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হাওরে বাঁধ ভেঙে তলিয়ে যাচ্ছে একের পর এক বোরো ধানের জমি। সর্বশেষ তথ্য পাওয়া পর্যন্ত শুধু সুনামগঞ্জ জেলায়ই ১০ হাজার হেক্টরেরও বেশি জমির ফসল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যেসব জমি এখনো ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি, বন্যায় তলিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় সেগুলো থেকে কাঁচা বা আধাপাকা ফসল কেটে আনছেন কৃষক। হাওরের বর্তমান পরিস্থিতি দেশে এবার চালের বাজারমূল্যে বড় ধরনের প্রভাবকের ভূমিকা রাখতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

দেশে মোট চাল উৎপাদনের বড় একটি অংশ আসে হাওরাঞ্চল থেকে। শুধু বোরো মৌসুমে আবাদ হলেও দেশে চালের সরবরাহ ব্যবস্থার সবচেয়ে বড় প্রভাবকগুলোর একটি হলো হাওরাঞ্চলের উৎপাদন। বাজার পর্যবেক্ষকরা বলছেন, অতীতেও হাওরের উৎপাদন বিপর্যয়ের ধারাবাহিকতায় দেশে চালের বাজারে অস্থিতিশীলতা নেমে আসতে দেখা গিয়েছে। সর্বশেষ ২০১৭ সালে সংঘটিত হাওরের আগাম বন্যার কারণে ওই বছর দেশে পণ্যটির বাজারে ব্যাপক অস্থিতিশীলতা দেখা দিয়েছিল।

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) সাবেক গবেষণা পরিচালক ও অর্থনীতিবিদ এম আসাদুজ্জামান বলেন, বোরো ধানের প্রায় ১০ শতাংশ হাওর এলাকা থেকে আসে। আমাদের চাল উৎপাদনের ৬০ শতাংশই যেহেতু বোরো, সে কারণে হাওরের বন্যার ক্ষতির বেশ প্রভাব পড়তে পারে আমাদের মোট চাল উৎপাদনে। এছাড়া বন্যার প্রভাবে হাওরাঞ্চলে তাত্ক্ষণিক খাদ্যাভাবের মতো পরিস্থিতিও তৈরি হতে পারে। দেশের কিছু স্থানে তাপপ্রবাহ চলছে। ফলে কিছু জায়গার ধান পুড়ে যাচ্ছে, চিটা হয়ে যাচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। সামগ্রিকভাবে আমরা যদি বিষয়গুলো পর্যালোচনা করি, তাহলে দেখতে পাব বোরো উৎপাদনে একটা অনিশ্চয়তা তৈরি হচ্ছে। এ অনিশ্চয়তা অবশ্যম্ভাবীভাবে আমাদের খাদ্যনিরাপত্তায় বড় ধরনের হুমকি তৈরি করতে পারে।

খাদ্যনিরাপত্তার এ হুমকি সামাল দিতে এখনই সরকারকে প্রস্তুতি নিতে হবে জানিয়ে এ অর্থনীতিবিদ বলেন, যে বিপর্যয়ের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, হয়তো আমদানি করে সেটা সামাল দেয়া যাবে। কিন্তু তার জন্য নীতিনির্ধারকদের এখনই প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। পাশাপাশি আমনে যাতে কোনো ধরনের ক্ষতি না হয়, সেই প্রস্তুতিও নিয়ে রাখতে হবে।

ভারতের মেঘালয় অঞ্চলে অতিবৃষ্টির ফলে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে হাওরের পানি ক্রমেই বাড়ছে। আগাম বন্যায় ভেঙে পড়ছে একের পর এক বাঁধ। কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে আধাপাকা ধান কেটে ফেলার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। বড় ধরনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে চাল উৎপাদন নিয়েও।

পনি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সামসোদ্দাহা বলেন, উজানে বৃষ্টিপাত হওয়ায় হাওরে পানি বাড়ছে। ২৪ ঘণ্টায় ভারতের মেঘালয়ে ৬৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। যদি মেঘালয়ে ভারি বৃষ্টিপাত বাড়ে, তাহলে বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে। তাতে আরো বেশি হুমকিতে পড়বে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ। আমরা চেষ্টা করছি যাতে হাওর রক্ষা বাঁধ না ভাঙে।

এখন পর্যন্ত সুনামগঞ্জের দিরাই, শাল্লা, ধরমপাশাসহ সাত উপজেলার ১৭টি হাওরে বাঁধ ভেঙে ফসলি জমিতে পানি ঢুকে পড়ার তথ্য পাওয়া গিয়েছে। রবিবার (১৭ এপ্রিল) গভীর রাতে উপজেলার জগদল ইউনিয়নের হুরামন্দিরা হাওরের সাতবিলা স্লুইস গেট এলাকায় ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে হাওরে পানি প্রবেশ করে। তাতে সেখানকার এক হাজার হেক্টর জমি নিমিষেই তলিয়ে যায়। এর আগে সকালে তাহিরপুর উপজেলার টাঙ্গুয়ার হাওরের ওয়াচ টাওয়ার-সংলগ্ন বর্ধিত গুরমার হাওরেও বাঁধ ভেঙে পানি প্রবেশ করে। সব মিলিয়ে জেলার প্রায় ১০ হাজার হেক্টর ফসলি জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এখনো তাহিরপুর, ধরমপাশা, দিরাই, শাল্লাসহ জেলার প্রায় সবক’টি হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। অনেক বাঁধে ফাটল দেখা দিয়েছে। তবে স্থানীয় প্রশাসন, পাউবো ও কৃষকরা স্বেচ্ছাশ্রমে হাওরের ধান রক্ষার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, সুনামগঞ্জের সব হাওর রক্ষা বাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। যেকোনো সময় যেকোনো বাঁধ ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই উপজেলা প্রশাসন, পাউবো, কৃষি বিভাগ, জনপ্রতিনিধিসহ আমরা সবাই মাঠে আছি। সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় হাওরের ফসল রক্ষা করতে হবে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অনেক অনিয়ম-দুর্নীতি হয়েছে। এ কারণে এখন একের পর এক বাঁধ ভেঙে পড়ছে। প্রশাসন ও পাউবো তথ্য অনুযায়ী আগাম বন্যার আশঙ্কা থাকায় কাঁচা-আধাপাকা ধান কাটছেন হাওরের কৃষকরা। এবার হাওরে ধান চাষাবাদ হয়েছে ২ লাখ ২২ হাজার হেক্টর জমিতে। এসব জমি থেকে ১৩ লাখ টন ধান উৎপাদনের লক্ষ্য ছিল।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক বিমল চন্দ্র সোম বলেন, একদিকে হাওরে পানি ঢুকছে, অন্যদিকে আমরা হারভেস্টার মেশিন দিয়ে কৃষকদের দ্রুত ধান কেটে দিচ্ছি। দিরাইয়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, কৃষি বিভাগ, পাউবোসহ স্থানীয়রা মিলে বাঁধ রক্ষার চেষ্টা করছেন। এ পর্যন্ত সুনামগঞ্জ জেলায় মোট ৫৫ হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান কাটা হয়েছে। আমরা আশা করছি আবহাওয়া অনুকূল থাকলে এক সপ্তাহের মধ্যে হাওরের সব ধান কাটা শেষ হবে।

এর আগে ২০১৭ সালের বন্যায় হাওরে ফসলহানির পর বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। পরে ঠিকাদারি প্রথা বাতিল করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) মাধ্যমে হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধের কাজের উদ্যোগ নিয়েছিল পাউবো। এখন পাউবোর সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পিআইসির মাধ্যমে করা কাজগুলো মানসম্মত হচ্ছে না। এসব বাঁধে অনেক ত্রুটি-বিচ্যুতি থেকে যাচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে পাউবোর অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী এসএম শহিদুল ইসলাম বলেন, বাঁধে মাটির কাজগুলো তো পিআইসি করে। পিআইসির কাজগুলো খুব একটা মানসম্পন্ন হয় না। এ কারণে দু-এক জায়গায় বাঁধ ধরে রাখা যায়নি। এর ওপর উপর্যুপরি দুবার বন্যা হলো। প্রথম দফার বন্যায় বাঁধটা দুর্বল হয়ে পড়ে। পরে আরেকবার বন্যা হওয়ার ফলে দু-এক জায়গা ভেঙে যায়।

পিআইসির কাজে পাউবোর তদারকি ছিল কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, তদারকি ছিল। কিন্তু অনেক ইকুইপমেন্ট লাগে, অনেক কিছু লাগে, যেটা ছাড়া তদারকি সম্ভব নয়। আমরা আমাদের কাজগুলো করছি। প্রতি বছরই আমরা নিয়মমাফিক ডিজাইন অনুযায়ী কাজ করার চেষ্টা করি। প্রতি বছরই কাজ হয়। প্রতি বছরই আমরা চেষ্টা করি বাঁধগুলো ধরে রাখার। এজন্য বাজেটেরও সমস্যা নেই। কিন্তু বাঁধ মেরামতের কাজগুলো খুব দ্রুত দু-তিন মাসের মধ্যে শেষ করতে হয়। আর মানসম্মত কাজ করার জন্য আরো বড় প্রকল্প নেয়ার প্রয়োজন আছে।

বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অনিয়ম তেমনভাবে হয়নি। বাঁধ যেগুলো ভাঙছে সেগুলো আট-দশ বছরের পুরনো। চার বছর বন্যা হয়নি। এবার বন্যা হওয়ায় ঝামেলাটা তৈরি হয়েছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটে হাওরে আগাম বন্যাসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগের আশঙ্কাও এখন বেশি। এ অবস্থায় হাওর ব্যবস্থাপনা নিয়ে নতুন করে ভাবার সময় এসে গিয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এজন্য সার্বিকভাবে নতুন পরিকল্পনার ভিত্তিতে কাজ এগিয়ে নেয়ার ওপর জোর দিচ্ছেন তারা।

পানিসম্পদ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিশেষজ্ঞ এবং ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আইনুন নিশাত বলেন, হাওর ব্যবস্থাপনার বিষয়টি নতুন করে ভাবতে হবে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আগাম বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বিষয়টি বিবেচনায় রেখে ধান রোপণের সময় এগিয়ে আনতে হবে, যাতে মার্চের মধ্যে ধান কেটে নেয়া যায়। এছাড়া ধান উৎপাদন ও মাছ চাষের মধ্যে একটা সমন্বয় রাখতে হবে। যাতে দুটির কোনোটিই ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। এজন্য বিষয়টি নিয়ে সার্বিকভাবে একটি পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। হাওর রক্ষায় সাবেকি পদ্ধতিতে কাজ করলে হবে না, সেটি বদলাতে হবে। ১৯৫০ বা ১৯৭০ সালের পরিকল্পনায় এ সময়ের হাওর ব্যবস্থাপনা চলতে পারে না। এজন্য স্থানীয় অধিবাসীদের সম্পৃক্ত করে সম্মিলিতভাবে উদ্যোগ নিয়ে এ প্রাকৃতিক সম্পদ বিষয়ে নতুন করে ভাবতে হবে।

নিউজ ট্যাগ: সুনামগঞ্জ হাওর

আরও খবর



আগামী দু’একদিনের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিচ্ছেন বিলাওয়াল

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি আগামী দুএকদিনের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিচ্ছেন। পিপিপি নেতা ও প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা গিলজিত বালতিস্তান কামার জামান শনিবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। খবর জিও নিউজের।

শাহবাজ শরিফের মন্ত্রিসভার শপথের সময় বিলাওয়াল উপস্থিত থাকলেও তিনি শপথ নেননি। কিন্তু তখনই তথ্যমন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব নিশ্চিত করেছিলেন যে, বিলাওয়াল লন্ডন থেকে দেশে ফিরে শপথ নেবেন।

লন্ডন সফরে গিয়ে পাকিস্তান মুসলিম লিগ নওয়াজের (পিএলএম-এন) সর্বোচ্চ নেতা নওয়াজ শরিফের সঙ্গে বৈঠক করেন পিপিপি চেয়ারম্যান। সেখানে নওয়াজ ও বিলাওয়াল আলোচনার ভিত্তিতে একমত হন যে, পাকিস্তানে সাংবিধানিক গণতন্ত্র সমুন্নত করতে, সংসদের আধিপত্য বজায় রাখতে এবং আইনে শাসন নিশ্চিত করতে তারা একসঙ্গে কাজ করবেন।

ওই বৈঠকের পর দুই নেতা যৌথ বিবৃতিতে বলেন, তারা দুজন একসঙ্গে কাজ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। একসঙ্গে কাজ করলে দেশ পুনর্গঠন সম্ভব হবে।

দুই নেতার মধ্যে চার্টার অব ডেমক্রোসি নিয়ে কথা হয়েছে।  দুই নেতার মধ্যে বৈঠকটি দুই ধাপে হয়েছে। প্রথম ধাপে নওয়াজ ও বিলাওয়াল ওয়ান টু ওয়ান বৈঠক করেছেন। অন্য ধাপে দুদলের সিনিয়র নেতারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



চট্টগ্রাম টেস্টে রোমাঞ্চের আশায় বাংলাদেশ

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

চট্টগ্রাম টেস্টে শেষ দিনে রোমাঞ্চের আশায় বাংলাদেশ। বুধবার চতুর্থ দিনের শেষ বিকেলে ব্যাটিংয়ে নামা শ্রীলংকার ২ উইকেট উইকেট তুলে নিয়ে কাজ কিছুটা এগিয়ে রাখলেন তাইজুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার শেষ দিনের শুরু থেকেই সাকিব-তাইজুলরা যদি শ্রীলংকাকে কম রানে গুঁড়িয়ে গিতে পারেন তাহলে রোমাঞ্চকর জয়ের সুবর্ণ সুযোগ থাকছে মুমিনুল হকদের সামনে।

বুধবার ৬৮ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমেই বিপাকে পড়ে যায় শ্রীলংকা। প্রথম ইনিংসে ৩৯৭ রান করা দলটি, দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৯ রানে হারায় ২ উইকেট। আর এই দুই উইকেট শিকারে অবদান রয়েছে তাইজুলের।

বৃহস্পতিবার শেষ দিনের শুরুতেই শ্রীলংকার টপাটপ উইকেট তুলে নিয়ে কম রানে আটকাতে পারলে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে।

সাকিব আল হাসানের করা ১২তম ওভারের পঞ্চম বলটি মিড-উইকেটে খেলেন লংকান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। নন-স্ট্রাইক প্রান্তে থাকা ওশাদা দৌড় দেন রানের জন্য।

অনেকদূর চলে যাওয়া ব্যাটসম্যান ওশাদাকে না করেন শ্রীলংকান অধিনায়ক করুনারত্নে। কিন্তু তিনি সময় মতো ফিরে যেতে পারেননি।

ততক্ষণে মিড উইকেট থেকে দুর্দান্ত ফিল্ডিং করে সরাসরি থ্রোতে নন-স্ট্রাইক প্রান্তের স্টাম্প ভেঙে দেন তাইজুল। ১৯ রানে রান আউট হয়ে ফেরেন ওশাদা।

ওশাদাকে সরাসরি থ্রোয়ে সাজঘরে ফেরানো তাইজুল বোলিংয়েও এসেও দুর্দান্ত। ১৮তম ওভারের প্রথম বলেই নাইটওয়াচম্যান হিসেবে খেলতে নামা লাসিথ এম্বুলদেনিয়াকে বোল্ড করেন তাইজুল।

চট্টগ্রামে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের সেঞ্চুরি (১৯৯) আর দিনেশ চান্দিমাল (৬৬) ও কুশল মেন্ডিসের জোড়া ফিফটিতে ভর করে ৩৯৭ রান করে শ্রীলংকা।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে তামিম ইকবাল (১৩৩) ও মুশফিকুর রহিমের (১০৫) জোড়া সেঞ্চুরি আর লিটন দাস (৮৮) এবং মাহমুদুল হাসান জয়ের (৫৮) জোড়া ফিফটিতে ভর করে ৪৬৫ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ।


আরও খবর



পোল্যান্ড-বুলগেরিয়ায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করছে রাশিয়া

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পোল্যান্ড ও বুলগেরিয়ায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করতে যাচ্ছে রাশিয়া। বুধবার থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। পোল্যান্ডের রাষ্ট্রীয় গ্যাস কোম্পানি পিজিনিগ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

পিজিনিগ জানিয়েছে, স্থানীয় সময় ৮টা থেকে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে বলে রাশিয়ার গ্যাস কোম্পানি গ্যাজপ্রমের পক্ষ থেকে তাদের জানানো হয়েছে। অন্যদিকে বুলগেরিয়ার জ্বালানি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, বুধবার থেকে গ্যাস সরবরাহ স্থগিত করা হবে বলে তাদের জানানো হয়েছে। গ্যাজপ্রম গত মাসেই রুশ মুদ্রা রুবলে গ্যাসের মূল্য পরিশোধের নতুন নিয়ম জারি করে। কিন্তু রুবলে গ্যাসের মূল্য পরিশোধে অস্বীকৃতি জানায় পোল্যান্ড ও বুলগেরিয়া। তারই পরিপ্রেক্ষিতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে গ্যাজপ্রম।

পিজিনিগ গ্যাসের জন্য অনেকাংশে গ্যাজপ্রমের ওপর নির্ভরশীল ছিল। চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে কোম্পানিটি রাশিয়া থেকে তাদের মোট গ্যাসের ৫৩ শতাংশ আমদানি করেছিল।

রাশিয়ার গ্যাস সরবরাহ বন্ধের খবরের প্রতিক্রিয়ায় পোল্যান্ডের জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তারা দেশের গ্যাস সরবরাহ নির্বিঘ্ন রেখেছে। এ বিষয়ে জলবায়ু বিষয়ক মন্ত্রী আনা মোসকওয়া বলেন, মজুত রাখা গ্যাস ব্যবহারের প্রয়োজন হবে না। গ্রাহকদের গ্যাস সংযোগও বিচ্ছিন্ন করতে হবে না।

পিজিনিগ জানিয়েছে, তাদের ভূগর্ভস্থ গ্যাস সংরক্ষণাগার প্রায় ৮০ শতাংশ পূর্ণ আছে। বর্তমানে গ্যাসের চাহিদাও কম রয়েছে। সুইনোজসিতে একটি প্রাকৃতিক গ্যাসক্ষেত্রসহ পোল্যান্ডের অবশ্য বিকল্প গ্যাস সরবরাহের উৎসও রয়েছে। এছাড়া বুলগেরিয়া তার মোট সরবরাহকৃত গ্যাসের ৯০ শতাংশেরও বেশি পেয়ে থাকে গ্যাজপ্রমের কাছ থেকে। রাশিয়ার এই সিদ্ধান্তের পর দেশটি বলছে, তারা বিকল্প উৎসগুলো খুঁজে বের করার পদক্ষেপ নিয়েছে কিন্তু বর্তমানে গ্যাস ব্যবহারের ওপর কোনো বিধিনিষেধের প্রয়োজন নেই।

নিউজ ট্যাগ: রাশিয়া

আরও খবর



নবীগঞ্জে বাসচাপায় অটোরিকশার চালকসহ নিহত ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৪৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় বাসচাপায় অটোরিকশার চালকসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (১৭ মে ) দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তারা হলেন উপজেলার রোকনপুর গ্রামের শাহ জহুর আলীর ছেলে অটোরিকশা চালক আরশ আলী (৩০) ও অটোরিকশার যাত্রী একই গ্রামের গোলাপ আলীর স্ত্রী নুরেয়া বেগম (৩৫)।

মঙ্গলবার (১৭ মে ) দুপুরে উপজেলার পানিউমদা ইউনিয়নের রোকনপুর বাজারে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে তারা মারা যান বলে নবীগঞ্জ থানার ওসি ডালিম আহমেদ জানান।

ওসি বলেন, অটোরিকশাটি বাহুবল যাওয়ার পথে সিলেট থেকে ঢাকাগামী এমআর পরিবহনের একটি বাস পেছন থেকে চাপা দেয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে গেলে তারা ঘটনাস্থলে নিহত হন।

খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন জড়ো হয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে শেরপুর হাইওয়ে থানা ও গোপলার বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে বলে জানান ওসি ডালিম আহমেদ।


আরও খবর

হবিগঞ্জে ২ বাসের সংঘর্ষ, আহত ৩০

বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২




রাজধানীর ১৭ স্থানে বসবে কোরবানির পশুর হাট

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ৭৩জন দেখেছেন
নিউজ পোস্ট ডেস্ক

Image

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ১৭টি অস্থায়ী পশুর হাট বসবে। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) ১০টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে (ডিএনসিসি) সাতটি হাট বসবে।

ডিএনসিসির আওতায় হাটগুলো হলো গাবতলী (স্থায়ী), বাড্ডা ইস্টার্ন হাউজিং ব্লক-ই, এফজিএইচ পর্যন্ত এলাকার খালি জায়গা, মিরপুর সেকশন-৬ ইস্টার্ন হাউজিংয়ের ফাঁকা স্থান, উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টর এলাকার বৃন্দাবন থেকে উত্তর দিকে বিজিএমইএ পর্যন্ত খালি জায়গা, ভাটারা (সাইদনগর) পশুর হাট, কাওলা শিয়ালডাঙ্গা সংলগ্ন খালি জায়গা, ৪৩ নম্বর ওয়ার্ডের ৩০০ ফিট সড়ক সংলগ্ন উত্তর পাশের সালাম স্টিল, যমুনা হাউজিং কম্পানির ও ব্যক্তিগত মালিকানাধীন খালি জায়গা এবং মোহাম্মদপুরের বছিলায় ৪০ ফুট রাস্তাসংলগ্ন খালি জায়গা।

ডিএসসিসির অধীন হাটগুলো হলো মেরাদিয়া বাজার সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, দনিয়া কলেজ মাঠসংলগ্ন ফাঁকা স্থান, ধোলাইখাল ট্রাক টার্মিনাল সংলগ্ন উন্মুক্ত জায়গা, উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজার মৈত্রী সংঘের ক্লাব সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, হাজারীবাগ এলাকার ইনস্টিটিউট অব লেদার টেকনোলজি মাঠসংলগ্ন উন্মুক্ত এলাকা, আমুলিয়া মডেল টাউনের আশপাশের খালি জায়গা, লালবাগের রহমতগঞ্জ ক্লাব সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা, শ্যামপুর-কদমতলী ট্রাকস্ট্যান্ডসংলগ্ন খালি জায়গা, লিটল ফ্রেন্ডস ক্লাবসংলগ্ন খালি জায়গা, কমলাপুর স্টেডিয়াম সংলগ্ন বিশ্বরোডের আশপাশের এলাকা এবং পোস্তগোলা শ্মশানঘাট সংলগ্ন আশপাশের খালি জায়গা।

এর বাইরে সারুলিয়া স্থায়ী হাট চালু থাকবে। এছাড়া ডিএনসিসি ডিজিটাল হাট চালু থাকবে।


আরও খবর